জামালগঞ্জে প্রেসক্লাবের নির্বাচন নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ

প্রকাশিত: ৬:২৫ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৬, ২০২২

জামালগঞ্জে প্রেসক্লাবের নির্বাচন নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার::
সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জে শুভঙ্করের ফাঁকি দিয়ে প্রেসক্লাব কমিটি গঠনে পাতানো নির্বাচন হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। অভিনব কৌশলে প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্র পরিপন্থী গত ১৯ শে ডিসেম্বর এই নির্বাচন হয়। ‘পাতানো’ এই নির্বাচনে ভোট প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণকারী অনেকেরই কোন পত্র-পত্রিকা অথবা কোন সংবাদ প্রতিষ্ঠানের বৈধ নিয়োগপত্র এবং পরিচয়পত্র কিছুই নেই। ভুয়া প্রেসের লোক সাজিয়ে নির্বাচনে ভোটের নামে শুভঙ্করের ফাঁকি দিয়ে সাজানো নাটক মঞ্চস্থ করা হয়েছে বলে ফেসবুক মাধ্যম, সামাজিক যোগাযোগ, উপজেলার সুধী সমাজ ও হোটেল রেঁস্তোরায় সমালোচনা সৃষ্টি হয়েছে।

জানাগেছে,পাতানো নির্বাচনের পুর্বে একটি রাজনৈতিক দলের সভাপতির মালিকানাধীন “আলী পেট্রোলিয়াম ” ডিজেল কেরোসিনের দোকান ঘরের পিছনের কক্ষে প্রেসক্লাব নির্বাচনের ফরম বিক্রি করে ক্লাবের নির্বাচন সাজানো হয়। যা ফেসবুকে প্রকাশ হলে এ বিষয়টি নিয়ে সমালোচনা ঝড় ওঠে। সুধি সমাজের প্রশ্ন উঠেছে প্রেসক্লাব কি রাজনৈতিক চক্রে বন্ধি…..?
বিগত ২০১৯-২০২০ ইং সালে জামালগঞ্জ প্রেসক্লাবের অগঠনতান্ত্রিক পক্রিয়ায় অঞ্জন পুরকায়স্থ-আকবর হোসেন কে দিয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়। ওই কমিটিকে ভুয়া কমিটি আখ্যা দিয়ে প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ওয়ালীউল্লাহ সরকার, দুই মেয়াদের সেক্রেটারি তৌহিদ চৌধুরী প্রদীপ, দপ্তর সম্পাদক আবুল কালাম জাকারিয়া (বর্তমানে মৃত) ও সিনিয়র সদস্য বাদল কৃষ্ণ দাস যৌথ লিখিত বিবৃতি দিয়ে কমিটিকে প্রত্যাখ্যান করেন। এরপর প্রত্যাখ্যাত কমিটির সভাপতি ও সেক্রেটারি প্রেসক্লাবে লোক দেখানো অগঠনতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় সদস্য অন্তর্ভুক্তি করার বীজবপন শুরু করেন। গঠনতন্ত্রের একটি কলামে লিখা আছে, কোন নতুন সদস্য অর্ন্তভক্তির জন্য দুই বা তিন বছর দৈনিক পত্রিকার প্রতিনিধি হিসেবে কাজের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে, এবং নতুন সদস্য হওয়ার পর তিনি সাধারণ সদস্য হয়ে দুই বছর থাকতে হবে। আরো অনেক নীতিমালা অনুসরণ না করেই ২০১৯-২০২০ সাল থেকেই লোক দেখানোর জন্য সদস্য অন্তর্ভুক্তি করে মাথা গন্থি বাড়ায় ওই ভুয়া কমিটি। ভুয়া কমিটি নিয়ে পত্র-পত্রিকায় বিভিন্ন শিরোনামে সংবাদ প্রচার হয়। পরবর্তীতে ২০২১-২০২২ মেয়াদে প্রেসক্লাবের বয়োজ্যেষ্ঠ সিনিয়র সাংবাদিকদের পাশ কাটিয়ে গঠনতন্ত্র পরিপন্থি আবারো উপজেলা বিএনপির বহিষ্কৃত সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ ওয়ালী উল্লাহ্ সরকারকে সভাপতি ও ফেকুল মাহমুদপুর সরকারি কমিউনিটি ক্লিনিকে কর্মরত (সিএইচসিপি) নিজাম নুরকে সাধারণ সম্পাদক করে” বির্তকিত একটি কমিটি গঠন করা হয়।
ওই কমিটির সভাপতির বিরুদ্ধে প্রেসক্লাবের মালামাল চুরির অভিযোগ এনে থানায় জিডি করেন দৈনিক শ্যামল সিলেট পত্রিকার প্রতিনিধি জিয়াউর রহমান, পরে এ বিষয় নিয়ে বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়। ওই কমিটি নিয়ে উপজেলা জুড়ে পুনরায় তীব্র সমালোচনা ও নানা প্রশ্নের মুখে পড়েন স্থানীয় মূলধারার সংবাদ কর্মীরা। পরে ২০০৭ ইং সালে প্রতিষ্ঠিত জামালগঞ্জ প্রেসক্লাবের প্রতিষ্টাতা সভাপতি আব্দুল আহাদ, জামালগঞ্জ প্রেসক্লাবের দুই বারের সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ চৌধুরী প্রদীপ, সিনিয়র সদস্য বাদল কৃষ্ণ দাস (২০২১-২০২২) কমিটির বিরুদ্ধে পত্রিকায় বিবৃতি দেন। এরই ধারাবাহিকতায় এবারো সেই ভুয়া কমিটির মেয়াদ যেতে না যেতেই সুকৌশলে তড়িঘড়ি করে আবারো সংবাদ কাজে আদৌ সম্পৃক্ত নয় এমন লোকদের প্রেসক্লাবে অন্তর্ভুক্তি দেখিয়ে লোক দেখানো একটি পাতানো নির্বাচনের আয়োজন সাজানো হয়। এ নিয়ে জামালগঞ্জের সুধী সমাজ থেকে শুরু করে হোটেল রেস্তোরায় ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সমালোচনা ও মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।
নির্বাচনে অংশ নেয়া নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সিনিয়র সাংবাদিক বলেন, দুই এক জন অপেশাদার ধান্দাবাজ সংবাদকর্মীর কারনে জামালগঞ্জের সাংবাদিকতার মান দিন দিন ক্ষুন্ন হচ্ছে। যে নির্বাচন নিয়ে বিতর্ক চলছে, সেটি পুরোটাই রাজনৈতিক কুটচালের দুরভিসন্ধির একটি গঠনতান্ত্র বর্জিত পাতানো নির্বাচন। যা কোন দিনও কাম্য নয়। শুভঙ্করের ফাঁকি দিয়ে নির্বাচন হয়েছে। পত্রিকায় নেই এমন লোকও ভোট প্রদান করেছেন। তাহলে আপনি বলেন এটা কি নির্বাচন হয়েছে। যা আমি নির্বাচনের পরপরই জানলাম। ভোট প্রদান কারী অনেকেরই পত্রিকার কোন বৈধ নিয়োগ পত্র , পরিচয় পত্র, নিউজ, কিছুই নাই। অথচ তারাও না-কি সাম্বাদিক। প্রকৃত সাংবাদিকরা কি ভাবে এমন লোক দিয়ে ভোট দেয়ান যারা সাংবাদিকতায় নেই। কমপক্ষে ৫/৬ জন সদস্য কোন প্রকার সংবাদ কর্মে আদৌ সম্পৃক্ত নয়। যা চরম লজ্জাকর বিষয়। এছাড়াও পদ-পদবীর লোভে লাখ টাকার অনৈতিক লেনদেন পর্যন্ত হয়েছে, যা নির্বাচনের পরক্ষণেই ফাঁস হয়ে যায়। এতে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েন ভোট বিক্রেতা সংবাদ কর্মী নামধারীরা।
সাবেক সভাপতি মোঃ ওয়ালী উল্লাহ্ সরকারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন বৈধপন্থায় নির্বাচন করা হয়।
এ ব্যাপারে জান্তে চেয়ে জামালগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি অঞ্জন পুরকায়স্থর মুঠো ফোনে কল দিলে তিনি বলেন পরে কথা বলবো। কিছুক্ষণ পর আবারো কয়েক বার ফোন দিলে তিনি ফোন লাই কেটে দেন।

এই সংবাদটি 22 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com