সাহিত্য-সংস্কৃতি ও মাওলানা মুহিউদ্দীন খান প্রসঙ্গে কিছু কথা

প্রকাশিত: ৭:০২ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ১১, ২০২৩

সাহিত্য-সংস্কৃতি ও মাওলানা মুহিউদ্দীন খান প্রসঙ্গে কিছু কথা

 

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী:

জীবন বিধান হিসেবে ইসলামের পরিধি ব্যাপক ও সর্বব্যাপী। জীবনের সব ক্ষেত্রে এর সৌরভ ছড়ানো। এ ধারা থেকে সাহিত্য-সংস্কৃতি বাদ যায়নি। জীবনের অন্য সব ক্ষেত্রের মতো সাহিত্য-সংস্কৃতিও এক অপরিহার্য বিষয়। সাহিত্য মানব জীবনের প্রতিচ্ছবি। মানুষের শুভবুদ্ধির উজ্জীবনী শক্তি। সংস্কৃতি তো জীবনের ক্ষেত্রে আরও ব্যাপক, আরও গভীর ও অতলস্পর্শী। জীবনের সাফল্য ও ব্যর্থতার মাপকাঠি। মানুষ কীভাবে আল্লাহ ও তার রাসূল (সা.)-এর নির্দেশিত পথে জীবনের সাফল্য অর্জন করবে, তার চূড়ান্ত লক্ষ্য ‘ইনসানে কামিল’ হওয়ার পথে অগ্রসর হবে- সংস্কৃতি সেই পথনির্দেশক। এক কথায়, সংস্কৃতি হচ্ছে মানব জীবনের চূড়ান্ত সাফল্যের পাথেয়। দ্বীন ও দুনিয়ার মহত্তম সমন্বয়। এর ব্যাপকতাও জীবনের সব ক্ষেত্রে পরিব্যাপ্ত। যে যতো বেশি সংস্কৃতিবান, তিনি ততই পরিশুদ্ধ, পরিচ্ছন্ন ও সফল মানুষ।
মানবজাতির মধ্যে পরম বিশুদ্ধ ও পরিচ্ছন্ন মানুষ হচ্ছেন সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ রাসূল হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম। তিনি ছিলেন এক নয়া ও বিশুদ্ধ সংস্কৃতির নির্মাতা। শুদ্ধতা ও পরিচ্ছন্নতার এক দুর্লভ মহিমায় বিভূষিত। কোরআনের বাচনভঙ্গি, ভাষাশৈলী ও উপস্থাপনা পদ্ধতির কারণে নবদীক্ষিত মুসলিম কবিদের কাছে হঠাৎ ম্লান হয়ে যাওয়া কবিতা আবার নবজীবন লাভ করে। এর সঙ্গে যোগ হয় রাসূলুল্লাহর (সা.) উৎসাহ ও উদ্দীপনা। তার লালন ও পরিশোধন, তার মমত্ব ও ভালোবাসা, তার সহযোগিতা ও সহমর্মিতা। নবুওয়তি দায়িত্ব পালনের ফাঁকে ফাঁকে তিনি সাহাবি-কবিদের কবিতা সম্পর্কে খোঁজ-খবর নিতেন। তাদের কবিতা শুনতে আগ্রহ প্রকাশ করতেন। তাদের কবিতার শুদ্ধতার প্রতি নজর রাখতেন। তাদের উৎসাহিত করার জন্য পুরস্কৃত করতেন।
ইসলামের সুমহান সৌন্দর্য প্রচার, কাফের-মুশরিকদের সমুচিত জবাব দেওয়া, নও-মুসলিমদের আত্মত্যাগ ও আত্মশক্তিতে বলীয়ান করার ক্ষেত্রে সাহাবি- কবিদের কবিতা এক উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করে। এ ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন সাহাবি কবি হজরত হাসসান বিন সাবিত (রা.), হজরত আবদুল্লাহ বিন রাওয়াহা (রা.), হজরত কাব বিন মালিক (রা.), হজরত লবিদ বিন রাহিয়া (রা.) প্রমুখ। এক পর্যায়ে হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) নিজেও তাদের কবিতার বিষয় হয়ে ওঠেন। তার সৌন্দর্যমণ্ডিত জীবন, স্নেহসিক্ত ও দয়ার্দ্র হৃদয়, মানুষের ও মানবতার প্রতি তার অকৃত্রিম ও অভাবনীয় ভালোবাসা সাহাবি-কবিদেরও বিমুগ্ধ করে। তারা কবিতার ভাষায় তার জীবনের নানা দিক উচ্চকিত করে তোলেন। তার ইন্তেকালের পর এ ধারা আরও বিকশিত হয় এবং আরবের সীমানা ছাড়িয়ে দুনিয়ার সব প্রান্তে ছড়িয়ে পড়ে। ‘রাসূল-প্রশস্তি’ বা ‘রাসূলের শানে কবিতা’ নামক এই সমুজ্জ্বল ধারা আজ পৃথিবীর সব সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছে।

২০ জানুয়ারি ১৯৯৪ খ্রীস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টায় বাংলাদেশ মুসলিম বুদ্ধিজীবী পরিষদের উদ্যোগে মাসিক মদীনা ও সাপ্তাহিক মুসলিম জাহানের ব্যবস্থাপনায় রাজধানীর দিলকুশার বিসিআইসি মিলনায়তনে “উপমহাদেশে ইসলাম : বর্তমান প্রেক্ষাপট” শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। ঐ জাতীয় সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন বিগত শতাব্দীর মুসলিম বিশ্বের শ্রেষ্ঠ ইসলামী চিন্তাবিদ, কালজয়ী সাহিত্যিক, নাদওয়াতুল উলামা লক্ষ্নৌর প্রধান আল্লামা সাইয়েদ আবুল হাসান আলী নদভী (রাহ্.)। তিনি তাঁর জ্ঞান-গর্ভ বক্তৃতায় বলেন, আমি আপনাদের প্রতিবেশী হলেও বাংলা জানিনা, এটা আমার দুর্বলতা। কেননা, আম্বিয়ায়ে কেরাম আলাইহিমুস সালাম কওমের ভাষায়ই দাওয়াত দিতেন। তবে আমি এই ভেবে গর্বিত যে, আমি যার দাওয়াতে বাংলাদেশে এসেছি সেই মাওলানা মুহিউদ্দীন খান আপনাদেরই সন্তান, যিনি স্বীয় মাতৃভাষায় ইসলামী সাহিত্য ও তাহযীব-তামাদ্দুনকে অত্যন্ত শক্তিশালী পঠন-সামগ্রী হিসেবে এদেশের মানুষের কাছে তুলে ধরেছেন। বিশেষ করে বাংলাভাষায় সীরাত সাহিত্যে তাঁর অবদান আমাকে মুগ্ধ করেছে। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি বাংলা ভাষাভাষী মুসলমানদের সাহিত্য-সংস্কৃতির স্বাতন্ত্র রক্ষায় মাসিক মদীনা সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খানের সাহিত্য-সাধনা বলিষ্ঠ ভুমিকা পালন করেছে। একটি বিষয় আপনারা ভালো করে স্মরণ রাখবেন যে, সাহিত্য ও সংস্কৃতির ক্ষেত্রে নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা ছাড়া রাজনৈতিক নেতৃত্ব স্থিতিশীল হয়না। আপনারা যারা রাজনৈতিক নেতৃত্বকে স্থিতিশীল,সুদৃঢ়-পাকাপোক্ত করতে চান তাদের উচিত সাহিত্য ও সংস্কৃতির ময়দানে নিজেদের নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে হবে।’ এই নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠার আন্দোলনের অন্যতম বীর সিপাহসালার ছিলেন মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (রহ)। তিনি এক বিরল ব্যক্তিত্ব ছিলেন যিনি, সাহিত্য ও সংস্কৃতির ক্ষেত্রে নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠার পাশাপাশী বাংলাদেশের রাজনৈতিক ময়দানেও নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠার জন্য আজীবন সংগ্রাম-সাধনা করেগেছেন। তিনি মুসলিম জাতি সত্তার অস্তিত্ব রক্ষায় সাহিত্য-সংস্কৃতি চর্চা-লালনের ক্ষেত্রে অসামান্য অবদান রেখে গেছেন। ১৯৬১ সাল থেকে মাসিক মদীনার মাধ্যমে বাংলায় সীরাত চর্চার নতুন দিগন্তের সূচনা করেছিলেন ফখরে মিল্লাত মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (রহ)।
মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (১৯৩৫-২০১৬) ছিলেন একজন শীর্ষ স্থানীয় আলেম, সাহিত্যিক, সাংবাদিক ও ইসলামী চিন্তাবিদ। মোমেনশাহী জেলার গফরগাঁও উপজেলাধীন আনসার নগর গ্রামে জন্মগ্রহণকারী মাওলানা খানের পিতা বিশিষ্ট সাধক পুরুষ, প্রবীণ শিক্ষাবিদ মৌলভী হাকিম আনছার উদ্দিন খান। তাঁর মাতা মোছাঃ রাবেয়া খাতুন। নিজ গ্রামের পাঁচবাগ মাদরাসা থেকে ১৯৫১ সালে আলিম ও ১৯৫৩ সালে স্কলারশিপসহ ফাজিল পাস করেন। ১৯৫৩ সালে উচ্চশিক্ষার্থে ঢাকা সরকারি আলিয়া মাদরাসায় ভর্তি হন এবং ১৯৫৫ সালে হাদিস বিষয়ে কামিল ও ১৯৫৬ সালে ফিক্হ বিষয়ে কামিল ডিগ্রি লাভ করেন। মাদ্রাসায়ে আলীয়া ঢাকায় থাকাবস্থায়ই তিনি সাপ্তাহিক কাফেলা, সাপ্তাহিক নেজামে ইসলাম, দৈনিক ইনসাফ, দৈনিক আজাদ ও দৈনিক মিল্লাত প্রভৃতি পত্রিকায় লেখা-লেখির অভ্যাস গড়ে তুলেছিলেন। ঢাকা থেকে প্রকাশিত উর্দু দৈনিক পাসবানের শিক্ষানবীস লেখকরূপে পরে জীবিকার টানে ১৯৫৫ ঈসায়ী সনের শেষের দিকে কামেল পরীক্ষার পর দৈনিক পাসবান পত্রিকায় কাজ করেন। গত শতকের ষাটের দশকের মাঝামাঝি সময়ে মাওলানা মুহিউদ্দীন খান পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সাবেক সদস্য ও ডেপুটি স্পিকার এ টি এম আবদুল মতীনের সহযোগিতায় ‘দারুল উলুম ইসলামী একাডেমি’ নামে একটা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেন। স্বাধীনতার পর এ প্রতিষ্ঠানের নাম পরিবর্তন করে ‘ইসলামিক ফাউন্ডেশন’ রাখা হয়। তিনি বিশ্ব মুসলিম লীগ ‘রাবেতায়ে আলম আল-ইসলামী’র কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের অন্যতম সদস্য, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরামের প্রধান, বাদশাহ ফাহাদ কোরআন মুদ্রণ প্রকল্প মদীনা মুনাওয়ারাহ সৌদি আরব কর্তৃক মুদ্রিত তাফসীরে মারেফুল কোরআন এর বাংলা অনুবাদক ছিলেন। তাঁর প্রথম পরিচয় তিনি কালজয়ী পত্রিকা মাসিক মদীনা সম্পাদক (১৯৬১), মাসিক মদীনা পরিবারের গৌরবদীপ্ত আলোকবর্তিকা, সাপ্তাহিক মুসলিম জাহানের প্রতিষ্ঠাতা ও সম্পাদনা পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন। প্রতিভাধর মাওলানা মুহিউদ্দীন খান বাংলা ভাষায় ইসলামী সাহিত্য রচনা, সম্পাদনা ও প্রকাশনার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। বাংলা ভাষায় সিরাত সাহিত্যের বিকাশে তার অবদান অবিস্মরণীয়। তিনি প্রায় ২০০ খানা গ্রন্থ অনুবাদ ও রচনা করেন। তার সম্পাদিত ‘মাসিক মদীনা’র প্রশ্নোত্তর সঙ্কলন ‘সমকালীন জিজ্ঞাসার জবাব’ ২০ খন্ডে প্রকাশিত হয়েছে। অনুবাদের মধ্যে বিশেষত, (১) মা’রেফুল কুরআন-মুফতি শফী (৮ খন্ডে) (২) আল্লামা শিবলী নুমানী ও সাইয়েদ সুলাইমান নোমানীর “সীরাতুন্নবী” (৩) ইমাম গাজ্জালীর “ইয়াহইয়া উলুম আদ-দ্বীন” (৫ খন্ডে) (৪) আল্লামা শিবলী নুমানীর “ফারুক” (৫) ইমাম আবুল আব্বাস জয়নুদ্দীন হানাফীকৃত “তাদরিজুল বুখারী” (৬) আল্লামা জালালুদ্দিন সুয়ুতীর ২ খন্ডে “ খাসায়েসুল কুবরা” (৭) মাওলানা হামিদ নদভীকৃত ইমাম গাজ্জালির “তাসাওফ ও ইসলামের মৌলিক শিক্ষা” অন্যতম।
যাকে কেন্দ্র করে পৃথিবীর প্রায় সব ভাষার শ্রেষ্ঠ কবিরা মুখরিত হয়েছেন। আরবি, ফার্সি, তুর্কি, ইংরেজি, জার্মানি, ফরাসি, মালয়, উর্দু, হিন্দি ও বাংলা পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ সব ভাষার সব কবির অনুভূতিতে একই সুর- ‘রুহি ফিদাকা ইয়া রাসূলুল্লাহ!’ হে আল্লাহর রাসূল! আমার সত্তা যেন তোমায় উৎসর্গিত হয়। এই আবেগ ও ভালোবাসা শুধু কবিতায় নয়, নাটক, গল্প, উপন্যাস- সাহিত্যের প্রায় সব শাখাকে আলোড়িত করেছে এবং আলোকিত করেছে। তার নামের যাদু স্পর্শে অনেক ভাষার গতি পাল্টে গেছে। সমৃদ্ধ হয়েছে সেই ভাষার গাঁথুনি। পরিপুষ্টি পেয়েছে এর অন্তঃসত্ত্বা। বিকশিত হয়েছে ভাব। সমৃদ্ধ হয়েছে শব্দভাণ্ডার। সম্প্রসারিত হয়েছে আবেগ ও উদ্দীপনা, সম্মোহনী শক্তি ও উজ্জীবনী প্রভা। সাহিত্যের সৌন্দর্যের সঙ্গে জীবনের সৌন্দর্যকে একাত্ম করে দিয়েছে।
লেখক: যুগ্মসাধারণ সম্পাদক-জাতীয় লেখক পরিষদ। সাধারণ সম্পাদক-জালালাবাদ লেখক ফোরাম। ০১৭১৬৪৬৮৮০০।

এই সংবাদটি 13 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com