বিশ্ব ইজতেমা: ঈমানের পরিবেশে ফুটে ওঠে ইসলামের সৌন্দর্য

প্রকাশিত: ২:০৭ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ১৫, ২০২৩

বিশ্ব ইজতেমা: ঈমানের পরিবেশে ফুটে ওঠে ইসলামের সৌন্দর্য

 

দেশ-বিদেশের তাবলীগের শীর্ষ মুরুব্বিদের গুরুত্বপূর্ণ বয়ানের মধ্যদিয়ে গতকাল বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় দিন অতিবাহিত হয়েছে। আজ বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টার মধ্যে যেকোনো এক সময় আখেরি মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে বলে আয়োজক কমিটি সূত্রে জানা গেছে। মোনাজাত পরিচালনা করবেন,
কাকরাইল মসজিদের খতিব হাফেজ মাওলানা যোবায়ের আহমেদ। দেশ-বিদেশের তাবলীগের শীর্ষ মুরুব্বিদের গুরুত্বপূর্ণ বয়ানের মধ্যদিয়ে গতকাল বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় দিন অতিবাহিত হয়েছে। আজ বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টার মধ্যে যেকোনো এক সময় আখেরি মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে বলে আয়োজক কমিটি সূত্রে জানা গেছে। মোনাজাত পরিচালনা করবেন,
কাকরাইল মসজিদের খতিব হাফেজ মাওলানা যোবায়ের আহমেদ।

বয়ান: গতকাল বাদ ফজর বয়ান করেছেন তাবলীগের শীর্ষ মুরুব্বি মাওলানা খুরশিদুল হক রায়বেন্ড। বাদ জোহর বয়ান করেছেন মাওলানা মোহাম্মদ ওমর ফারুক। বাদ আসর বয়ান করেছেন মাওলানা জুহাইরুল হাসান।

বিজ্ঞাপন

বাদ মাগরিব বয়ান করেছেন মাওলানা ইব্রাহিম  দেওলা। বাদ এশা বয়ান করেছেন মাওলানা মোহাম্মদ রবিউল হক।

তবে গতকাল সকালে আলেমদের উদ্দেশ্যে বিশেষ বয়ান করেছেন মাওলানা ইব্রাহিম দেওলা। তিনি বর্তমান সময়ে হক্কানি আলেম, খতিব ও ইমামদের দায়িত্ব ও  কর্তব্য নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ বয়ান করেন। এ ছাড়া আজ ১৫ই জানুয়ারি মোনাজাতের আগে হেদায়েতি বয়ান করবেন  সকাল  সাড়ে ৭টায় মাওলানা আবদুর রহমান। তবে এবার ইজতেমা ময়দানের বাইরে মাইকের ব্যবস্থা না থাকায় আগত মুসল্লিদের পাশাপাশি ধর্মপ্রাণ মানুষ বয়ান  শোনা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন।

আজ রোববার বিশ্ব ইজতেমার লাখো লাখো মুসল্লির সঙ্গে দু’হাত তুলে আখেরি মোনাজাতে অংশ নিয়ে নিজ নিজ কৃতকর্মের জন্য গোনা মাফ চাইতে এবং পরকালের শান্তির কামনায় শরিক হতে তাবলীগ অনুসারী দেশি-বিদেশি মুসল্লি ছাড়াও দেশের দূর-দূরান্ত থেকে ধর্মপ্রাণ মানুষেরা দলে দলে ইজতেমাস্থলে এসে যোগ দিচ্ছেন। তুরাগ তীরের নির্মিত সুবিশাল প্যান্ডেল গত মঙ্গলবারই কানায় কানায় ভরে গেছে। আজ আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে আসবেন তারা ইজতেমা এলাকার চারপাশের বিভিন্ন খালি জায়গা, মিল-কারখানার ভেতর ও সড়ক মহাসড়কে বসে মোনাজাতে অংশ নিতে হবে। গতকাল বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় দিনে বিশ্ব তাবলীগ জামাতের মুরুব্বিরা ইজতেমার সুবিশাল ময়দানে সমবেত দেশ-বিদেশের লাখ লাখ মুসল্লির উদ্দেশ্যে তাবলীগের ৬ উসুল যথা কালিমা, নামাজ, ইলম ও জিকির, ইকরামুল মুসলিমিন, সহিহ-নিয়ত এবং তাবলীগ সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ বয়ান করেন।

তাশকিলের কামরায় চিল্লাভুক্ত মুসল্লি: ইজতেমার প্যান্ডেলের উত্তর-পশ্চিমে তাশকিলের কামরা স্থাপন করা হয়েছে। বিভিন্ন খিত্তা থেকে বিভিন্ন মেয়াদে চিল্লায় অংশগ্রহণেচ্ছু মুসল্লিদের এ কামরায় আনা হচ্ছে এবং তালিকাভুক্ত করা হচ্ছে। পরে কাকরাইলের মসজিদের তাবলীগি মুরুব্বিদের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এলাকা ভাগ করে তাদের দেশের বিভিন্ন এলাকায় তাবলীগী কাজে পাঠনো হবে।

যানবাহনে ভিড় ও যানজট: বিশ্ব ইজতেমা উপলক্ষে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক, টঙ্গী আশুলিয়া সড়ক ও টঙ্গী-কালীগঞ্জ সড়কসহ বিভিন্ন সড়কগুলো দিয়ে চলাচলকারী যাত্রীবাহী সকল যানবাহনে প্রচণ্ড ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। এসব রাস্তাগুলোতে যানজট পরিলক্ষিত হচ্ছে। এ যানজট কখনো কখনো দীর্ঘ সময় চলে। এ সুযোগে রিকশাসহ কিছু কিছু যানবাহন যাত্রীদের নিকট থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে।

হাটবাজার: ইজতেমা এলাকার বিভিন্ন হাট-বাজারগুলোতে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম স্বাভাবিকের চাইতে একটু বেশি।

বিদেশি মুসল্লি: এ বছর দেশের তাবলীগ অনুসারী ছাড়াও ৯৩টি  দেশের প্রায় ১১,৩৫০ জন বিদেশি মুসল্লি অংশ নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন ইজতেমা আয়োজক কমিটির মুরুব্বি মো. তোফায়েল আহমেদ। বিভিন্ন সংস্থা জানায়, শনিবার বিকাল পর্যন্ত প্রায় ৭০টি দেশের ৫,৫২৬ জন মুসল্লি বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দিয়েছেন।

টঙ্গীবাসীদের ঘরে ঘরে ইজতেমার মেহমান: টঙ্গীর ঘরে ঘরে এখন ইজতেমার মেহমান। বিভিন্ন সময় দাওয়াত দিয়েও যাদের আনা সম্ভব হয় না, তাদের অনেকেই আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে এসে টঙ্গীতে আত্মীয়ের বাসায় উঠেছেন।

মুসল্লির মৃত্যু:  এ পর্যন্ত ৯ জন মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার ২ জন, শুক্রবার ৪ জন ও শনিবার এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ৩ জন মুসল্লি মৃত্যুবরণ করেছেন। তবে গত শুক্রবার একজন মুসল্লি ময়দানে প্রবেশের সময় পদদলিত হয়ে মারা যায় বলে জানা যায়। এ ছাড়া টঙ্গী হাসপাতালসহ বিভিন্ন চিকিৎসাকেন্দ্রগুলোতে আরও কয়েক হাজার মুসল্লিকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। শীত, ঠাণ্ডা ও ধুলোবালিতে মুসল্লিদের মাঝে সর্দি, পাতলা পায়খানা ও শ্বাসকষ্ট রোগ দেখা যাচ্ছে।

মগবাজার টু টঙ্গী ময়দান। যেখানে রাস্তার দূরত্ব সর্বোচ্চ ১ ঘন্টা। সেখানে ব্যয় হল ৭ ঘন্টা। তবুও নেই কোন বিরক্তি । চেহারায় খেলছে তৃপ্তির দ্যুতি।

বিশ্ব ইজতেমার মুসল্লিরা বাঁধ ভাঙ্গা পানির মতো ছুটে যাচ্ছেন টঙ্গীর ময়দানে। কোন জবরদস্তি নেই। বলা-কওয়া নেই। স্বতঃস্ফূর্তভাবে যাচ্ছেন তারা। ময়দানে পৌঁছে যে সেখানে খুব আরামে সময় কাটাচ্ছে তেমন নয়। বাথরুমে গেলে সিরিয়াল। ওজু করতে গেলে সিরিয়াল। যেখানে যায় সেখানেই সিরিয়াল। শুধু সিরিয়াল আর সিরিয়াল।

শামিয়ানার নিচে পা ফেলাই বড় দায়। রাস্তার ধারে, নদীর তীরে যে যেখানে পারছে মাথা গোঁজার একটু ঠাঁই করে নিচ্ছে। এতেই তারা খুশি।

যারা শামিয়ানায় ঠাঁই পেয়েছে তাদের অবস্থাও বেহাল। শরীর, বিছানা ও কাপড়-চোপড় ধুলোয় ধূসরিত। ঘুমন্ত ব্যক্তির শরীরে যাতায়াতকারীর পা লাগছে। অনিচ্ছাকৃত হোঁচট খাচ্ছে তবুও কোন প্রতিবাদ নেই। কোন বকা-ঝকা নেই। উল্টো হাসি মুখে বিদায় জানাচ্ছে। সমবেদনা জ্ঞাপন করছে।

অথচ বাড়ি-ঘরে এই মানুষগুলোর শরীরে অনিইচ্ছাকৃত কারো পা লাগলেও হাজার বার ক্ষমা চাইতে হয়। আর ইচ্ছাকৃত হলে তো কথাই নেই। হাত-মুখ সমানে চলে। কিন্তু এখানে কেন রাগ করে না? কোন আইন তাদেরকে এতটাই বাধ্যগত করেছে? এটা যে ঈমানী শক্তি।

ঈমানী পরিবেশের ফল। ইখলাস ও লিল্লাহিয়াতের বরকত।এটা যে ধৈর্যশীলতা ও ভ্রাতৃত্বের এক অপূর্ব সবক। এতেই বুঝা যায়, ঈমানী শক্তির উপরে আর কোন শক্তি নেই।

ঈমানই পারে মানুষকে শেকড় থেকে শিখরে পৌঁছাতে। অহংকারীকে বিনয়ী করতে। ঈমানই পারে আইন-কানুন ছাড়া স্বতঃস্ফূর্ত শৃঙ্খলা বজায় রাখতে।

কোন অমুসলিম ‘বিশ্ব ইজতেমার’ এই পরিবেশ সরাসরি দেখলে নিঃসন্দেহে তার অন্তর আন্দোলিত হবে। ইসলামের সৌন্দর্য তার ফ্রেমে ধরা পড়বে।ইসলামকে নতুনভাবে ভাবতে উৎসাহিত হবে।
বিস্তর রিসার্চের প্রয়োজন উপলব্ধি হবে। হেদায়েত লেখা থাকলে নসিব হবে।

আয় রাব্বে কারিম! আপনি এই পরিবেশকে আরো নূরানী ও প্রাণবন্ত করুন। এর বরকত ও কল্যাণ বিশ্বময় ছড়িয়ে দিন। আমীন

এই সংবাদটি 10 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com