ছাতকের সমতা স্কুল কমিটির সৃষ্ট বিরোধ নিয়ে শুনানী অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত: ২:১৬ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৬

ছাতকের সমতা স্কুল কমিটির সৃষ্ট বিরোধ নিয়ে শুনানী অনুষ্ঠিত

সিলেট রিপোর্ট: ছাতকের সমতা স্কুল এন্ড কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে দূর্নীতি-অনিয়ম ও পরিচালনা কমিটির সভাপতি নির্বাচন প্রক্রিয়ার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত অভিযোগের শুনানী অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত সোমবার উপজেলার সহকারী কমিশনার(ভুমি)’র কার্যালয়ে উক্ত শুনানী অনুষ্ঠিত হয়। পৃথকভাবে উভয় পক্ষের শুনানী গ্রহন করেন সহকারী কমিশনার(ভুমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট শেখ হাফিজুর রহমান। শুনানীর সময় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সামাদের অসংগতিপূর্ন বক্তব্য ও অসৌজন্যমুলক আচরনে বিব্রতবোধ করেন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট। এসময় ক্ষুব্ধ হয়ে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট শেখ হাফিজুর রহমান বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সামাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের কথাও বলেন।
জানা যায়, সমতা স্কুল এন্ড কলেজ পরিচালনা কমিটির মেয়াদ শেষ হয় গত ৪ নভেম্বর। মেয়াদ শেষ হওয়ার দু’দিন আগেই তড়ি-গড়ি করে নতুন কমিটিতে ফারুক মিয়াকে সভাপতি হিসেবে আবারো বহাল রাখা হয়। কোন রেজুলেশন ছাড়াই বিগত দু’ মেয়াদে সভাপতির দায়িত্ব পালন করা ফারুক আহমদকে আবারো কৌশলে সভাপতি নির্বাচিত করায় এলাকার শিক্ষানুরাগী, ভুমিদাতা সদস্যসহ স্থানীয় লোকজন প্রতিবাদী হয়ে উঠেন। তাদের অভিযোগ, বিগত দিনের সকল অনিয়ম-দূর্নীতি প্রকাশ পাওয়ার ভয়েই প্রধান শিক্ষক আব্দুস সামাদ কমিটি গঠন প্রক্রিয়ার তোয়াক্কা না করে অবৈধ পন্থায় রাতারাতি ফারুক মিয়াকে সভাপতি হিসেবে বহাল রাখতে সহায়তা করেন তিনি। এ ঘটনায় গত ১৩ নভেম্বর এলাকাবাসীর পক্ষে কামারগাঁও গ্রামের মৃত সিরাজ উদ্দিনের পুত্র এবং সমতা স্কুল এন্ড কলেজের ভুমিদাতা সদস্য ও কলেজ পরিচালনায় অর্থ যোগানদাতা যুক্তরাজ্য প্রবাসী এমএম ইসলাম দিলা’র ভাই আজাদ হোসেন বর্তমান পরিচালনা কমিটি বাতিলের দাবীতে সিলেট মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান বরাবরে একটি অভিযোগ দেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে সোমবার উভয় পক্ষের শুনানী পৃথকভাবে গ্রহন করা হয়। বিবাদী পক্ষের শুনানীকালে প্রধান শিক্ষক আব্দুস সামাদ ভয়ে ও চাপে তিনি সভাপতি নির্বাচনে কৌশল অবলম্বন করেছেন বলে স্বীকার করে বলেন, সভাপতি ফারুক মিয়ার চাপেই তিনি সভাপতি পদপ্রার্থীর তালিকায় তিন জনের মধ্যে ফারুক মিয়া ছাড়া অন্য দু’জনের তথ্য গোপন রেখে মন্তব্য কলাম ফাঁকা রাখেন। নিয়ম মেনেই শিক্ষা বোর্ডে তালিকা পাঠিয়েছেন বলে দাবী করে প্রধান শিক্ষক বলেন এতে যদি ভুল হয়, সে ভুল শিক্ষা বোর্ডের। এক পর্যায়ে প্রধান শিক্ষক উত্তেজিত হয়ে টেবিল চাপড়িয়ে বলেন, আপনার রিপোর্টের কারনে আমার চাকুরী গেলে বাড়ি চলে যাব। এ সময় উপস্থিত লোকজনের মধ্যে হৈচৈ পড়ে যায়। অবশেষে তার কৃতকার্যের জন্য নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন প্রধান শিক্ষক। সহকারী কমিশনার(ভুমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট শেখ হাফিজুর রহমান জানান, শুনানীতে উভয় পক্ষের বক্তব্য ও কাগজপত্র পর্যালোচনা করে আইনের মাধ্যমেই এ বিষয়ে রিপোর্ট দেয়া হবে। প্রধান শিক্ষক আব্দুস সামাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে সুপারিশ করা হবে।
শুনানী চলাকালে ছাতকে কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিক, সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, অভিভাবক, ম্যানেজিং কমিটির সদস্য সহ এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
সিলেট রিপোর্ট/সু-এমজে-জা-ফেবু

এই সংবাদটি 6 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com