বৃহস্পতিবার, ১৫ ডিসে ২০১৬ ০৮:১২ ঘণ্টা

আল্লামা আহমদ শফীকে নিয়ে ঝড়তুলা সেই রিপোর্ট

Share Button

আল্লামা আহমদ শফীকে নিয়ে ঝড়তুলা সেই রিপোর্ট

15338804_1914717798816524_4181992916701919799_nডেস্ক রিপোর্ট: দেশের র্শীষ আলেমেদ্বীন আমিরে হেফাজত খলিফায়ে মাদানী আল্লামা শাহ আহমদ শফীকে নিয়ে একটি জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন নিয়ে অনলাইনে পক্ষে বিপক্ষে তুমুল ঝড়উঠৈছে। কওমী ধারার অনেক তরুণ আলেম এই রিপোর্ট এর মাধ্যমে আল্লামা শফীর মানহানী হয়েছে বলে ও মন্তব্য করেছেন। অনেকেই ইনকিলাব বর্জনের ও ঘোষণা দেন।  এব্যাপারে আল্লামা শাহ আহমদ শফী’র প্রেস সচিব মাওলানা মুনির আহমদ তার প্রতিক্রিয়া ব্যক্তকরতে গিয়ে বলেন,
“বাজারের সবচেয়ে নিম্নমানের কাগজে ছাপা পত্রিকাটি একবুক ভালবাসা নিয়ে সবচেযে বেশি মূল্য দিয়ে আমরা কিনে থাকি, নিশ্চয় এমন দায়িত্বহীন সংবাদ পড়ার জন্যে নয়…..”।
প্রতিদিন সকালে নিজের টেবিলে রাখা পত্রিকাসমূহ থেকে সবার আগে খুঁজে বের করে পড়তে থাকা পত্রিকাটিতে যখন আমার প্রিয় ব্যক্তিত্বটির বিরুদ্ধে দায়িত্বহীন সংবাদ প্রতিবেদন প্রকাশ হতে দেখি, তখন কতটা খারাপলাগা, ক্ষোভ ও হতাশার অনুভূতি ভেতরে জমে, প্রকাশ করার মতো নয়…..
আমি যে দৈনিক ইনকিলাব পত্রিকার বিষয়ে কথা বলছি, হয়তো অনেকেই বুঝে গেছেন। গত ১০ ডিসেম্বরের যে মিটিংটা নিয়ে দেশের একজন সর্বজন মান্য বর্ষীয়ান শীর্ষ আলেমের জন্যে মানহানিকর সংবাদ প্রতিবেদন ছাপা হলো দৈনিক ইনকিলাবে, সেই মিটিংটাতে কওমি সনদের ইস্যুতে শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী (দা.বা.) তার পূর্বেকার নীতি থেকে একচুল পরিমাণও ছাড় দিয়েছেন কিনা, সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদক কি একটুও খোঁজ নিয়ে জানার বা বুঝার চেষ্টা করেছেন??!!

বরং সেদিনের বৈঠকটি শতভাগ সফল বলা যায় এ জন্যে যে, এতদিন ধরে কওমি সনদের স্বীকৃতি বা মান নেওয়ার ইস্যুতে আল্লামা শাহ আহমদ শফী (দা.বা.)এর নীতির বিপরীতে যেসকল বরেণ্য আলেম অবস্থান নিয়ে আসছিলেন, সেদিনের বৈঠকে তারাও নিঃসংকোচে আল্লামা শাহ আহমদ শফী (দা.বা.)এর নীতিতাটাই মেনে নিয়েছেন জোরালো কণ্ঠে। এখানে তো শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী’র দক্ষ নেতৃত্ব ও বৈঠকের সফলতার বিষয়টি প্রসংশিত হওয়ারই কথা ছিল। অথচ, প্রিয় পত্রিকাটি এই সুন্দর অর্জনটাকে কতই না কদর্যভাবে উপস্থাপন করলো, কত জঘন্যভাবে ম্লান করার চেষ্টাটা করে গেল…….!!
সংবাদ প্রতিবেদনটি পড়ে আমার স্পষ্ট মনে হয়েছে, সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদক ১০ ডিসেম্বর দারুল উলূম হাটহাজারীতে অনুষ্ঠিত কওমি বোর্ডসমূহের মিটিংয়ে গৃহীত সিদ্ধান্তাবলী পড়ে দেখেননি। তাছাড়া প্রতিবেদনটি তৈরিতে অভিযোগের বিষয়গুলো নিয়ে সরাসরি কোন মতামত যেমন হেফাজত আমীরের কাছ থেকে নেয়া হয়নি, তেমনি অভিযোগের বিষয়ে আত্মপক্ষ সমর্থনেরও কোন সুযোগ দেওয়া হয়নি। বিতর্কিত সংবাদ প্রতিবেদনটি পড়লে যে কোন সাধারণ পাঠকেরও বুঝতে কষ্ট হওয়ার কথা নয় যে, সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদক নিজস্ব ঘরাণার সে দিনের বৈঠকে উদ্দেশ্য হাসিলে ব্যর্থ কোন সংক্ষুব্ধ ব্যক্তির শোনা কথার উপর ভিত্তি করে, অথবা একান্তই ব্যক্তি বিদ্বেষের বশঃবতী হয়ে রিপোর্টটি করেছেন। কিন্তু এভাবে নিজের বিদ্বেষ বা কারো উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন করতে গিয়ে তিনি শুধুই একজন শীর্ষ ও বর্ষীয়ান আলেমে দ্বীনের সুনামহানির ব্যর্থ চেষ্টা করেছেন যে কেবল তা নয়, বরং তিনি সমগ্র আলেম সমাজ ও ইসলামের মর্যাদাহানির মতো নিন্দনীয় কাজটিও করে গেছেন।
আরো কথা থেকে যায়। সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদক তার কর্তব্যবোধের পরিচয় দিতে পারেননি, কিন্তু দৈনিক ইনকিলাবের মতো একটি পত্রিকা, যেটাকে এদেশের আলেম সমাজ ও ইসলামপ্রিয় তৌহিদী জনতা নিজেদের মুখপত্র হিসেবে ভালবাসা দিয়ে আঁকড়ে রেখেছে, সেই পত্রিকার বার্তা সম্পাদক বা সম্পাদক মহোদয়েরও কি এমন কান্ডহীনতায় নজর পড়েনি??!!! পত্রিকায় দায়িত্বশীল কর্তৃপক্ষ যখন এমন কান্ডহীনতাকে প্রশ্রয় ও সমর্থন দেয়, তখন সত্যিই হতাশ হতে হয়!!!!!
দৈনিক ইনকিলাবের প্রিয় সম্পাদক মহোদয় বরাবরে এটুকু বিবেচনার অনুরোধ করবো- “বাজারের সবচেয়ে নিম্নমানের কাগজে ছাপা পত্রিকাটি একবুক ভালবাসা নিয়ে সবচেযে বেশি মূল্য দিয়ে আমরা কিনে থাকি, নিশ্চয় এমন দায়িত্বহীন সংবাদ পড়ার জন্যে নয়…..”।
ঘৃণার জবাব ঘৃণা দিয়ে নয়, আমরা ভালবাসা ও প্রত্যাশা দিয়ে দিতে চাই। আমরা আশা করবো, হেফাজত আমীরকে জড়িয়ে গত ১২ ডিসেম্বর প্রকাশিত জঘন্য অপব্যাখ্যা ও মিথ্যাচারে ভরপুর “আল্লামা আহমদ শফীকে তার কাছের লোকেরাই ডোবাচ্ছে” শীর্ষক প্রতিবেদনের জন্যে সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদক ও দৈনিক ইনকিলাব কর্তৃপক্ষ ভুল স্বীকার করে হেফাজত আমীরের কাছে ক্ষমা চাইবে এবং আগামীতে যে কোন সংবাদ প্রতিবেদন ছাপানোর বিষয়ে সাংবাদিকতার মান ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদপ্রকাশের নীতিমালা শতভাগ বজায় রাখবে। ”

অনুসন্ধানে জানাগেছে, গত ১২ ডিসেম্বর ”আল্লামা আহমদ শফীকে তার কাছের লোকেরাই ডোবাচ্ছে” শিরুনামে প্রকাশিত সংবাদটি হুবহু তা তুলে ধরা হলো:

স্টাফ রিপোর্টার : মুসলিম উম্মাহর অস্তিত্ব উন্নয়ন ও অগ্রগতি সম্পর্কীয় বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ইস্যুতে দেশের আলেম উলামা, পীর-মাশায়েখের ঐক্যবদ্ধ হওয়া সময়ের দাবি হলেও কাক্সিক্ষত বিষয়ে তাদের ঐক্য তেমন দেখা যায় না। এদিক দিয়ে গত ১০ ডিসেম্বর হাটহাজারিতে অনুষ্ঠিত উলামা সম্মেলন ছিল ব্যতিক্রম। এতে দীর্ঘদিন যাবত বিচ্ছিন্ন মেরুতে অবস্থানকারী আলেম নেতৃবৃন্দ হঠাৎ করেই যেভাবে কথিত ঐক্যবদ্ধ হয়ে গেলেন তা মূলত দেশ ও জাতির জন্য এক অশনিসংকেত ছাড়া আর কিছু নয়। গতকাল ইনকিলাবে প্রেরিত এক বিবৃতিতে তওহীদি জনতা বাংলাদেশের যুগ্ম আহ্বায়ক মোসাদ্দেক বিল্লাহ এসব কথা বলেন। তিনি হেফাজতে ইসলামের আমির, হাটহাজারি মাদরাসার মহাপরিচালক আল্লামা আহমদ শফীর সভাপতিত্বে মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসুদ, মাওলানা আবদুল হালীম বোখারী প্রমুখের বৈঠক এবং কিছু প্রমাণিত ধর্ম ও সমাজবিরোধী আলেমের সমন্বয়ে কওমী মাদরাসা সনদের স্বীকৃতি আদায়ে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার সংবাদে বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, শাহবাগে গমনকে যিনি তার জীবনের সেরা পুণ্যময় কাজ বলে মন্তব্য করে, ১৬ কোটি মানুষের ঘৃণা ও ধিক্কার কুড়িয়ে, এক অবাঞ্ছিত ব্যক্তিতে পরিণত হয়েছেনÑ তাকে সাথে নিয়ে আল্লামা শফী ঈমানদার জনগণের কী স্বার্থ উদ্ধার করবেন তা আমাদের কাছে স্পষ্ট নয়। যেসব দালাল আল্লামা শফীর দস্তখত নকল ও তার নামের অন্যায় ব্যবহার করে কওমী কমিশনের নামে প্রতারণা করল, যারা আলেম-উলামা, পীর-মাশায়েখের বিরুদ্ধে গিয়ে নাস্তিক-মুরতাদ চক্রের সাথে কণ্ঠ মিলিয়ে অভিশপ্ত দরবারি আলেম সাব্যস্ত হল, তারা কি হাটহাজারি গিয়ে আল্লামা শফীসহ দেশের শীর্ষ আলেমদের সামনে ভুল স্বীকার করে, জাতির কাছে ক্ষমা চেয়ে আল্লাহর কাছে তওবা করেছে ? যদি না হয় তাহলে এদের সাথে নিয়ে কিসের ঐক্যবদ্ধ কমিটি আর সরকারের সাথে কিসের লিয়াজোঁ কমিটি হল ? কারা কোন অধিকার বলে শাহবাগ ও শাপলা চত্বরকে একাকার করে দিল ? অসংখ্য শহীদের রক্ত, লাখো মানুষের কষ্ট, ঘাম ও সংগ্রাম আর ধর্মপ্রাণ কোটি মানুষের আহাজারি আর চোখের পানিকে তারা কী মূল্য দিলেন। আল্লামা শফী কি করে নাস্তিক-মুরতাদদের আস্থাভাজন ইমাম ও পছন্দের আলেম ফরিদউদ্দিন মাসুদ গং-এর সাথে হাত মিলাতে পারলেন। বিপরীত দুই মেরুর আলেমরা কোন নেপথ্য শক্তির ইংগিতে কোন উদ্দেশ্যে এক হয়ে যাচ্ছে, ধর্মপ্রাণ জনগণ তাও জানতে চায়। শীর্ষ আলেমরা অতীতে ঈমানী আবেগ নিয়ে জাতিকে যত কথা বলেছেন, যত উদ্বুদ্ধ করেছেন সবই কি তাহলে মিথ্যা ? শাপলা চত্বরে ভীত সন্ত্রস্তÍ মজলুম মানুষের কষ্ট ও জীবনদান, অগণিত মানুষের রক্ত, ঘাম, অশ্রু ও হাহাকার পেছনে ফেলে আল্লামা শফী এবং তার উপদেষ্টা ও সহকর্মীরা কোন হাতের ইশারায় তাদের চির আদর্শিক প্রতিপক্ষের সাথে হাত মিলালেন। কোন শক্তির কলকাঠিতে ‘বাঘে-মোষে এক ঘাটে পানি খাওয়ার’ পরিবেশ তৈরি হল তওহীদি জনতা তাও জানতে চায়।
বিষয়টি নিয়ে আরো কিছু ব্যক্তি ও সংগঠন বিবৃতি দিয়েছেন। অনেকেই ইনকিলাবকে দুই বিপরীত মতাদর্শের আলেমদের ঐক্য সম্পর্কে বিস্তারিত জানাতে অনুরোধ করেছেন। এ বিষয়ে নেপথ্যের সব কাহিনী নিয়ে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশের অনুরোধও করেছেন তারা। ইনকিলাব এ বিষয়ে বিশদ অনুসন্ধানী প্রতিবেদন তৈরি করবে। এ পর্যায়ে কথা হয় রাজধানীর বিশিষ্ট আলেম ও খতীব, মুফাসসিরে কোরআন মাওলানা কামাল উদ্দিন গাজীর সাথে। তিনি এ প্রতিবেদককে জানান, আল্লামা আহমদ শফী আমাদের সকলের মুরব্বী, তিনি কেন কী করছেন তা সঠিকভাবে না জেনে আমাদের মন্তব্য করা ঠিক হবে না। তবে ১০ তারিখের বৈঠকের বিস্তারিত বিবরণ আমরা এখনও পাইনি। শুনেছি, সরকার ও বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার তত্ত্বাবধানেই দীর্ঘদিন ধরেই শাহবাগ ও শাপলা চত্বরের দূরত্ব ঘোচানোর চেষ্টা চলছে। সংবাদপত্রে প্রকাশিত রিপোর্ট, হেফাজতে ইসলাম এখন সম্পূর্ণরূপে সরকারের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। কওমী মাদরাসাও সরকারের আওতায় নেয়া হবে। দেশের আলেম-উলামা ও তওহীদি জনতাকে আল্লামা আহমদ শফীর মাধ্যমে সরকার তাদের সমর্থক বানাতে চাইছে। কওমী মাদরাসাগুলোও সরকার তার আয়ত্তে নেয়ার জন্য আল্লামা শফীর মাধ্যমে বিপরীত মেরুর সব আলেমকে ঐক্যবদ্ধ করে আগামী নির্বাচনের মাঠ সমান করার কাজে নিয়োজিত করতে চাইছে। এ যোগাযোগগুলো তদারক করছেন প্রধানমন্ত্রীর দফতরের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, আওয়ামী লীগের ধর্ম সম্পাদক ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকে দায়িত্ব প্রাপ্ত কিছু ব্যক্তি। বেফাক ও হেফাজতের কিছু দায়িত্বশীলের সাথে আমরা কথা বলে জানতে পেরেছি ৬ এপ্রিল, ২০১৩’র পর থেকে গত তিন বছর ঈমানী আন্দোলন তথা নাস্তিক-মুরতাদবিরোধী গণজাগরণের গোটা বিষয়টিকে পুঁজি করে হেফাজতের এক শ্রেণীর লোক নিজেদের পকেট ভারী করেছে। দফায় দফায় কর্মসূচি দেয়া ও স্থগিত করা, মামলা খাওয়া ও রেহাই পাওয়া, সরকারী নানা কর্তৃপক্ষ ও সংস্থার কাছ থেকে সুযোগ-সুবিধা নেওয়া ইত্যাদি কাজ খুব নিপুণ ভাবেই সম্পন্ন হয়েছে। এসব নিয়ে মিডিয়া একসময় সোচ্চার থাকলেও বর্তমানে অনেকটাই নীরব। বলা হয়, আল্লামা শফীর খুব কাছের লোকেরা নানাভাবে অর্থ সম্পদ ও সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করে বর্ষীয়ান এ অভিভাবকের ব্যক্তিত্ব ও ইমেজের মারাত্মক ক্ষতি করে ফেলেছেন। সরকারী মহলেও এখন হেফাজত নেতার সে প্রথম দিককার ভাব-গাম্ভীর্য ও শ্রদ্ধাবোধ নেই। সরকারের এক ঊর্ধ্বতন গোয়েন্দা কর্মকর্তা ও পুলিশের উপর মহল থেকে রাজধানীর শীর্ষ আলেমদের বৈঠকে মন্তব্য করা হয়েছে যে, আল্লামা শফীর লোকজনের পেছনে আমরা অনেক বড় বিনিয়োগ করে ফেলেছি। যার ফলে আন্দোলনের আর কোন পথ খোলা নেই। এসব প্রসঙ্গ হেফাজতের কেন্দ্রীয় ফোরামে তোলেন না কেন প্রতিবেদকের এ প্রশ্নের জবাবে মাওলানা জামালউদ্দিন গাজী বলেন, এ সবই ‘ওপেন-সিক্রেট’। আমরা শত সহস্র ছাত্র, ভক্ত আল্লামা শফীকে তার খোদাপ্রদত্ত জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতার আসনেই আমৃত্যু দেখতে চাই। কিন্তু তার কাছের লোকেরাই যদি তাকে ছোট করে তখন আমাদের আর কী করার থাকে ? আল্লামা শফীকে তার কাছের লোকেরাই ডোবাচ্ছে। এ বিষয়ে বেফাক ও হেফাজতের মুরব্বীদের খোঁজ-খবর রাখতে হবে, খোলামেলা আলোচনার মাধ্যমে আল্লামা শফীর ইমেজ রক্ষায় ভূমিকা নিতে হবে।
এ প্রসঙ্গে কওমী ইসলামী আন্দোলনের আহ্বায়ক শায়খুল হাদীস মাওলানা আবুল কালাম আজাদ এই প্রতিবেদককে বলেন, ৬ এপ্রিল, ২০১৩’র পর থেকে আল্লামা শফীর যে আপসকামী ভূমিকা তার উপযুক্ত কারণ রয়েছে। তিনি নিজ প্রতিষ্ঠান, সন্তান ও সম্পদের সুরক্ষার পাশাপাশি দেশের ধর্মীয় পরিবেশ-পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার জন্যই ‘সরকারের সাথে শত্রুতা নয়’ নীতি বেছে নিয়েছেন। কিন্তু তার উচিত ছিল ‘আন্দোলন ও সংগ্রাম’ নামক কঠিন কাজগুলো অতীত জীবনের মতই সম্পূর্ণ পরিত্যাগ করা। হঠাৎ তিনি আন্দোলনে নামলেন, কিন্তু নেতাসুলভ সাহস দেখাতে পারলেন না। তিনি একজন নীতিবান আদর্শ ব্যক্তি, কিন্তু আল্লাহর পথে জীবন দেয়ার বা পদবী, সম্মান, সন্তান-সম্পদ ইত্যাদি কোরবানী করার মত সাহস তার নেই। তার সন্তান ও কাছের লোকদের উপরও তার নিয়ন্ত্রণ নেই। যে জন্য শাপলা চত্বর ট্রাজেডির পর থেকে তার ভূমিকা জাতিকে শুধু হতাশই করেছে। বর্তমানে তিনি যে শাহবাগী গ্রুপের সাথে একীভূত হয়ে কওমী মাদরাসার নিয়ন্ত্রণ ইসলাম বিদ্বেষী বিশ্বশক্তির হাতে তুলে দেয়ার পথে এগুচ্ছেন, এ নিয়ে জাতি তার অনুপুংখ ব্যাখ্যা আশা করে। সরকারের লোকজনের সাথে তার যে নিঃশর্ত গভীর সম্পর্ক এর ভিত্তি কী তা তাকেই স্পষ্ট করতে হবে। সরকার কি তার ১৩ দফা মেনে নিয়েছে ? সংবিধানে কি আল্লাহর উপর আস্থা ও বিশ্বাস পুনঃস্থাপিত হয়েছে ? তার দেয়া পাঠ্যসূচি সংশোধনের দাবি কি পূরণ করা হয়েছে? যদি জবাব নেতিবাচক হয়ে থাকে তাহলে তিনি কোন হিসাবে সরকারের এত প্রিয়ভাজন হয়ে গেলেন। সরকারও তার এতটা আস্থাভাজন কিসের ভিত্তিতে হল ? কোন নেপথ্য ইশারায় তার মাদরাসা ও অফিস এখন শাহবাগ ও শাপলা চত্বরের মিলনকেন্দ্র? শহীদের রক্ত ও আহতের কান্না কি এত দ্রুতই তার স্মৃতি থেকে মুছে গেল। 15401050_1318660591528230_6694366095811516195_n

এই সংবাদটি 1,078 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com