লংমার্চে বাধা; পল্টনে সমাবেশের ঘোষণা

প্রকাশিত: ১২:৪৩ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৮, ২০১৬

লংমার্চে বাধা; পল্টনে সমাবেশের ঘোষণা

ডেস্ক রিপোর্ট: মিয়ানমারে মুসলিমগণহত্যাবন্ধের দাবীতে গোটা বিশ্বই এখন প্রতিবাদ মুখর। সাম্প্রতিক সময়ে রোহিঙ্গাদের উপর অমানবিক নির্যাতন বন্ধের দাবীতে বাংলাদেশের বিভিন্ন সামাজিক , রাজনৈতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে ব্যাপক আন্দোলন হচ্ছে। প্রভাবশালী ধমীয় সংগঠন হেফাজতে ইসলাম,জমিয়তে উলামায়ে ইসলামসগ প্রায় সকল ইসলামী দলসমুহ এব্যাপারে মিছিল-সমাবেশ অব্যাহত রেখেছে। বাংলাদেশে নভেম্বরের শুরু থেকে বিভিন্ন ইসলামি সংগঠন বিষয়টি নিয়ে সৌচ্চার। রাজধানী ঢাকা ছাড়াও সারাদেশে বিক্ষোভ মিছিল, সমাবেশ ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মিয়ানমার দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচিরও আহ্বান করেছিল হেফাজতে ইসলাম ঢাকা। যদিও পুলিশের বাধায় সেটি সফল হয়নি। তবে একটি প্রতিনিধি দল দূতাবাসে গিয়ে প্রতিবাদ জানিয়ে এসেছেন। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের পূর্ব নির্ধারিত মিয়ানমার অভিমুখে আজকের লংমার্চ পুলিশি বাধার মুখে পড়েছে। সকাল থেকে হাজারো কর্মী যাত্রাবাড়ীতে জড়ো হতে থাকলে আগে থেকে মোতায়েন করে রাখা বিপুল পরিমাণ পুলিশ সামনে যেতে বাধা দেয়। দীর্ঘক্ষণ তাদের সঙ্গে আলাপ আলোচনা করেও বিষয়টি সমাধানে আসতে পারেনি।

যাত্রাবাড়ী থেকে ইসলামী শ্রমিক আন্দোলনের নেতা রায়হান মুহাম্মদ ইবরাহীম জানান, পুলিশি বাধার কারণে লংমার্চ সম্ভব না হওয়ায় নেতৃবৃন্দ তাৎক্ষণিকভাবে পল্টনে সমাবেশ করার সিদ্ধান্ত নেন।

জানা যায়, ঘোষণা অনুযায়ী নেতাকর্মীরা এখন পল্টনের দিকে যাচ্ছেন।

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের উপর চলা পৈশাচিক হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে লংমার্চ কর্মসূচি দিয়েছিল পীর সাহেব চরমোনাই নেতৃত্বাধীন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ। লংমার্চ উপলক্ষ্যে সর্বত্র ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছিল দলটি। আজ সকাল থেকেই ঢাকার বিভিন্ন জায়গা থেকে হাজারও গাড়ি জড়ো হচ্ছিল যাত্রাবাড়ীর কাজলায়। যেখান থেকে শুরু হওয়ার কথা ছিল লংমার্চ।15621860_2186056271618785_8798975560117163610_n

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সহকারী মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান বলেন, গতকাল প্রশাসন আমাদের অনুমতি দিয়েছিল লংমার্চ করার। কিন্তু আজ সকাল থেকেই ঢাকায় আসার পথে পুলিশ আমাদের নেতাকর্মীদের বাধা দিতে থাকে। গাড়িগুলো ফিরিয়ে দেয়। এছাড়াও বিভিন্ন থানায় আমাদের বেশ কিছু কর্মীকে ধরপাকড়ের খবরও পেয়েছি।

তিনি বলেন, অনুমতির পরও পুলিশ কেন লংমার্চে বাধা দিল তা আমাদের বোধগম্য নয়।

তিনি জানান, আমরা লংমার্চে বাধা দেয়ায় প্রতিবাদ সমাবেশ করব পল্টনে। শুনতে পাচ্ছি পল্টনে আসতেও কর্মীদের বাধা দেয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে যাত্রাবাড়ীর থানার ওসি মোহাম্মদ আনিছুর রহমান বলেন, ‘আমাদের হাইকমান্ডের নির্দেশ ছিল, তাই আমরা তাদের সরিয়ে দিয়েছি। এখানে সমাবেশ বা লংমার্চ করার কোনো অনুমতি ছিল না।’

এই সংবাদটি 148 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com