৫ জানুয়ারি সিলেটের আলেমদের নিয়ে মাওলানা আমকুনীর বৈঠক

প্রকাশিত: ৮:৪৩ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৮, ২০১৬

৫ জানুয়ারি সিলেটের আলেমদের নিয়ে মাওলানা আমকুনীর বৈঠক

সিলেট রিপোর্ট: আগামী ৫ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার সময় সকাল ১০ ঘটিকায় কওমী মাদ্রাসা সংরক্ষণ কমিটির অস্থায়ী দপ্তর সিলেট সুবহানীঘাটস্থ  জামিয়া মাহমুদিয়ার মিলনায়তনে আইয়াম্মে কেরাম এবং সর্বস্তরের উলামায়ে হক্কানী এর এক মতবিনিময় সভা আহবান করেছেন কওমী মাদ্রাসা সংরক্ষণ কমিটির আহবায়ক মাওলানা শফীকুল হক্ব আমকুনী। তিনি সিলেট রিপার্ট-এ প্রেরিত এক বার্তায় বলেন, আপনি অবশ্যই অবগত আছেন যে, আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ বিশ্বের  দ্বিতীয় বৃহত্তম মুসলিম দেশ। এদেশে রয়েছে লক্ষাধিক মসজিদ, মাদ্রাসা ও ইসলামী পাঠাগার। এখানে রয়েছেন হাজার হাজার আলেম, পীর মাশায়েখ ও ইসলামী চিন্তাবিদ। তাঁরা সবাই বিভিন্নভাবে ইসলামের খেদমত করে যাচ্ছেন। এদেশের মুসলিম জনসাধারন এর অন্তরে রয়েছে ইসলামের প্রতি গভীর শ্রদ্ধাবোধ। এতদসত্বেও সম্প্রতি বাংলাদেশে চলছে নির্বিচারে হত্যা, ডাকাতি, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজি, নারী নির্যাতন, অশ্লীলতা, নির্জ্জলতা ও বেহায়াপনা। মানুষের জানমাল ইজ্জত, আবরুর নেই কোন নিরাপত্তা। সর্বোপরী শিরক এর মত মারাত্মক অপরাধ সমাজের সর্বত্র ধীরে ধীরে ছড়িয়ে পড়ছে। রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় শিরক এর মত মারাত্মক ব্যাধি সমাজের সর্বত্র তৈরী হচ্ছে। বিভিন্ন নাটক ও অনুষ্ঠানে টুপি-দাড়ি নিয়ে তামাশা করা হচ্ছে। আর এদেশের সরলমনা মসলমানগণ সঠিক ইসলামি জ্ঞানের অভাবেএ সকল শিরক কাজে ক্রমান্বয়ে জড়িয়ে পড়ছে। ইসলামী শরীয়তকে পরিত্যাগ করে খোদাদ্রোহী মতবাদের দিকে মুসলমানেরা ক্রমশঃ ধাবিত হচ্ছে মানুষের অন্তর থেকে তাওহীদের আলো ক্ষীন হতে যাচ্ছে।
আল্লাহর ভয় মুসলমানের অন্তর থেকে দূর হতে শুরু করেছে। যার ফলে সমাজকে সংশোধন করার দায়িত্ব অর্পিত হয়েছে ওলামাগনের উপর। কেননা আলেমগণ হলেন নবীদের উত্তরাধিকারী। আর নবীগণ দুনিয়ায় এসেছিলেন সকল প্রকার তাগুত থেকে মানুষদের মুক্ত করে এক আল্লাহর একাত্ববাদের আলোকে জীবনগড়তে। রাসুল মুহাম্মদ (সঃ) শেষ নবী। তারপর আর কোন নবী আসবেন না। এখন এ গরুদায়িত্ব অর্পিত হচ্ছে তাঁরই উম্মতের ওলামায়ে ক্বেরামের উপর। বাংলাদেশে বিরাজমান শিরক ও পাপাচারের মূলোৎপাটন করে ইসলামের আলো ঘরে ঘরে পৌঁছে দেয়ার দায়িত্ব আলেমদের। এ গুরু দায়িত্ব পালন করতে হলে সকল প্রকার মত প্রার্থক্য ভূলে সম্মিলিতভাবে আল্লাহর রজ্জুকে শক্ত হাতে ধরতে হবে।
বর্তমান প্রেক্ষাপটে বিশ্ব মুসলিমের নির্যাতন বিশেষ করে বৌদ্ধ ধর্মীয় গৌতম বৌদ্ধ এর অনুসারীরা আমাদের নিকটতম দেশ বার্মা তথা মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর বৌদ্ধ সন্ত্রসীদের নির্মম নির্যাতন ও গণহত্যাবন্ধে  মুসলিম অধ্যুষিত বাংলাদেশের সকল মুসলমান, ঈমানদার, একক ভাবে জাত,পাত, দলমত নির্বিশেষে তথাকথিত রাজনৈতিক সকল মতবাদ ছেড়ে একই পতাকা তলে জড়ো হয়ে ইসলামের অর্থাৎ মহানবী (সঃ) এর আদর্শ ও পরবর্তী আইম্মায়ে আরবায়া (তথা চার ইমাম গণের) অনুসরন করতঃ প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশের সকল কওমী মাদ্রাসা-মসজিদ এবং ওয়াফকৃত ভূমি রক্ষার্থে এবং কোরআন সুন্নাহ ভিত্তিক ঐক্যবদ্ধ মনবল নিয়ে এক সাথে বসাসময়ের দাবী।

এই সংবাদটি 159 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com