জীবন-মৃত্যুর ‘ক্রসিং পয়েন্ট’-এ অবরুদ্ধ আলেপ্পোবাসী

প্রকাশিত: ১২:০৩ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৯, ২০১৬

জীবন-মৃত্যুর ‘ক্রসিং পয়েন্ট’-এ অবরুদ্ধ আলেপ্পোবাসী

ডেস্ক রিপোর্ট:
জীবন-মৃত্যুর সীমানায় কয়েক মুহূর্তের ব্যবধান নিয়েই আবারও বাঁচার আশায় বুক বেঁধেছেন অবরুদ্ধ আলেপ্পোবাসী। যুদ্ধ-সংঘাতের অভিঘাতে মৃত্যুপুরীতে রূপান্তরিত হওয়া আলেপ্পোতে তৃতীয় দফার অস্ত্রবিরতিকে ভর করেই জীবনের পথে অবিরত থাকার প্রাণান্ত চেষ্টা করছেন তারা। তবে ওই আশার বিপরীতে রয়েছে নিরাশাজনিত আশঙ্কাও।

শীতের প্রকোপে হিম হয়ে যাওয়া শরীর, ক্ষুধার যন্ত্রণায় কাতর হওয়া পাকস্থলী আর জীবনের আশায় মৃত্যুপুরী পেরোবার স্বপ্নে বিভোর মানুষগুলো সবাই যুদ্ধ-সংঘাতে শরণার্থী। আলেপ্পোর ক্রসিং পয়েন্টের এপারটি যেন তাই মৃত্যুপুরী। ওপারে অজানা জীবনের হাতছানি। এপারে মৃত্যুর প্রহর গোনা, ওপারে তবুতো জীবন। সেই জীবনের হাতছানি।

যুদ্ধস্মৃতিতে রক্তাক্ত মনন আর ক্ষুধা-দারিদ্র্য-শীতে জর্জরিত মানুষগুলোর মাঝে আশার বাহন হয়ে এই ক্রসিং পয়েন্টেই আসবে কিছু যানবাহন, কিছু বাস। মৃত্যুপুরী পেরিয়ে ছুট দেবে জীবনের উদ্দেশে। এখনও আলেপ্পোতে আটকে থাকা ৩০,০০০ মানুষের জন্য বহুল প্রতীক্ষিত বাসগুলোই জীবনের ডাকের প্রতীক।

ক্রসিং পয়েন্টে অপেক্ষমান মানুষগুলো যেন পরস্পরের সহোদর-সহোদরা, আত্মার গভীরতর বন্ধনে আবদ্ধ।জীবন-মৃত্যু-ঘর-সংসার-ক্ষুধা-দারিদ্র্য-স্বপ্ন-স্বপ্নভঙ্গ সব এসে যেন একটি বিন্দুতেই মিলে গেছে। এই মানুষগুলো হয়তো বিভিন্ন শ্রেণী-পেশা-বর্গ-বর্ণবিশিষ্ট। তবে তাদের সবার বাস্তবতা এখন এক। সবাই মৃত্যু পেরিয়ে জীবনের উদ্দেশে পা বাড়াতে চাইছেন।

তবে সেইসব বাস আসে না জীবনের ডাক হয়ে। তার বদলে আরও গাঢ়তর আশঙ্কা নিয়ে হাজির হয় নিরাশা। শহর পেরিয়ে অন্যত্র যাওয়ার জন্য কর্তৃপক্ষের সরবরাহকৃত বাসগুলোর জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করছেন অবরুদ্ধ আলেপ্পোবাসী। অপেক্ষার এই অজানা ব্যাপ্তিই তাদের মনে শঙ্কা তৈরি করছে। এই সিরীয়দের মনে এখন প্রশ্ন, তারা পেরোতে পারবেন তো এই মৃত্যুপুরী? নাকি তার আগেই মৃত্যুর বার্তা নিয়ে হাজির হবে অস্ত্রবিরতি ভেস্তে যাওয়ার খবর? আবারও বিস্ফোরণে কেঁপে উঠবে নাতো আলেপ্পো?

উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার আলেপ্পোতে সরকারি বাহিনীর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে যুদ্ধ শেষ হওয়ার ঘোষণা আসে। যুদ্ধের ক্ষত নিয়ে মৃত্যুপুরী হয়ে ওঠা ওই শহর ছেড়ে সবাইকে সরে যাওয়ার সুযোগ দিতে চুক্তির কথা জানায় সরকার ও বিদ্রোহীরা। একদিনের মাথায় বুধবার আলেপ্পোবাসীর স্বপ্নকে স্বপ্নভঙ্গে পরিণত করে যুদ্ধবাজরা। ভেঙে পড়ে অস্ত্রবিরতি চুক্তি। দুপক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় দফায় অস্ত্রবিরতি চুক্তি সম্পন্ন হয়। আলেপ্পো ছেড়ে যেতে সক্ষম হন প্রায় ছয় হাজার বেসামরিক মানুষ। সক্ষম হন বিদ্রোহী গোষ্ঠীর সদস্যরাও।

একদিনের মাথায় শুক্রবার ওই চুক্তিটিও ভেঙে পড়ে। আলেপ্পো নগরী থেকে বেসামরিক নাগরিক ও বিদ্রোহী যোদ্ধাদের সরিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়া স্থগিত করে সিরীয় সরকার। শনিবার তৃতীয় দফায় কার্যকর হয় অস্ত্রবিরতি। এদিন সিরীয় সরকার এবং বিদ্রোহীরা জানায়, নতুন করে অস্ত্রবিরতি চুক্তি হয়েছে। শিগগিরই আবারও লোকজনকে সরিয়ে নেওয়ার কাজ শুরু হবে।

তবে ক্রসিংপয়েন্টে অপেক্ষমান বিপুল পরিমাণ মানুষ সেই ‘শিগগির’-এর অর্থ বুঝতে ব্যর্থ হচ্ছে। অবরুদ্ধ ওই মানুষেরা জানে না, ওই অপেক্ষার ব্যপ্তি। দুপুর গড়িয়ে সন্ধ্যে নেমে আসে। তবে আসে না কোনও আশার বাহন। কোথায় বাসগুলো? কতোদূর? পথে আছে কী? অপেক্ষমান মানুষের জন্য কোনও বার্তা আসে না। মেলে না কোনও ইঙ্গিতও। ক্রসিং পয়েন্টে অপেক্ষমান বিপুল পরিমাণ মানুষের এই নিরাশাকে ভর করে শঙ্কার ছায়া। অবরুদ্ধ মৃত্যুমুখী জীবন, শরীরে প্রচণ্ড ঠাণ্ডা আর পাকিস্থলীতে বিপুল ক্ষুধা তাদের। এইসব নিয়েই পার করতে হয় প্রহরের পর প্রহর। অবশেষে রাত ফুরোয়। পূব আকাশের সূর্য ঘোষণা করে ভোরের উত্থান। তবে ভোরের সূর্য আশার প্রতীক হয় না। অবরুদ্ধ আলেপ্পোবাসী দুলতে থাকে আশা-নিরাশার দোলাচলে। আর সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন জানিয়ে দেয়, তৃতীয় দফায় অস্ত্রবিরতির পর এখনও পর্যন্ত কেউ মৃতুপুরী ছাড়তে সক্ষম হননি একজনও।

জীবনের গন্তব্য নির্ধারণের বাহন হয়ে যে বাসগুলো আসবে, তার জন্য ক্রসিং পয়েন্টে অপেক্ষমানদের একজন আহমদ আবু দিয়াব। ২৬ বছর বয়সী এই মেডিক্যাল টেকনিশিয়ান কেবল মৃত্যুপুরী আলেপ্পো পেরিয়ে অন্য কোথাও যেতে পারাকেই এই মুহূর্তের কর্তব্য নির্ধারণ করেছেন। অন্য কোথাও, অন্য যে কোনও স্থানে। আহমদ আবু দিয়াব বলেন, ‘বাসে, গাড়িতে, পায়ে হেঁটে এমনকি হামাগুঁড়ি দিয়ে যেভাবেই হোক না কেন আমরা এখান থেকে যেতে প্রস্তুত, আমরা কেবল বের হতে চাই। আমরা আমাদের ঘর-বাড়ি, মালামাল সবকিছু হারিয়েছি: এখন আমরা কেবল বের হতে চাই।’

আলেপ্পোর অবরুদ্ধ জীবনের বিপরীতে মৃত্যুর আশঙ্কা প্রকট হওয়ার খবর দিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ান। দুঃস্বপ্নের স্মৃতিতে থাকা ধারাবাহিক বোমা হামলা আবারও শুরু হতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন অবরুদ্ধ মানুষদের কেউ কেউ। কেননা ৩০ হাজার মানুষ আটকা থাকলেও রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় তা মানছে না। তাদের দাবি, সব বেসামরিককে এরইমধ্যে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। আলেপ্পোতে এখন কেবল বিদ্রোহীরাই রয়েছেন। আর এতেই ভীত হয়ে পড়েছে সাধারণ মানুষেরা। যদি তারা বের হতে না পারেন! যদি তাদেরও বিদ্রোহীর তকমা দেওয়া হয়!

অবরুদ্ধ আলেপ্পোর একজন শিক্ষক ও অ্যাক্টিভিস্ট আবদুল কাফি আল-হামদো। নিজের টুইটার একাউন্টে তিনি লিখেছেন, ‘আমাদেরকে বাদ দেওয়ার উদ্দেশ্যে হাসিল করতে সরকার বলে বসতে পারে আমরা সন্ত্রাসী।’ টুইটারে একটি ছবিও পোস্ট করেছেন তিনি। সেখানে দেখা যাচ্ছে তার শিশুকন্যা একটি স্যুটকেসের ভেতর ঢুকে খেলছে। কাফি লিখেছেন, ‘আমার মেয়ে ব্যাগের ভেতর ঢুকে আছে। আপনারা কি মনে করেন, ও চরমপন্থী?’

তৃতীয় দফার অস্ত্রবিরতির আগে সরিয়ে নেওয়া গেছে কেবল ৮০০০ মানুষকে। সঠিক সংখ্যা নিরুপন কঠিন। তবে মৃত্যুপুরী আলেপ্পোতে এখনও আটকা আছেন ৩০,০০০ মানুষ। বিধ্বস্ত এলাকায় এখন ঠিক কত মানুষ আটকা পড়ে আছেন তা সঠিকভাবে বলাটা এখন কঠিন হয়ে পড়েছে। জাতিসংঘ অনুমান করছে, অবরুদ্ধ মানুষের সংখ্যা ৩০ হাজার হতে পারে। একটি সিটের জন্য ঘর ছেড়ে, সব ছেড়ে ক্রসিং লাইনে অপেক্ষা করে এক দোদুল্যমান আশাবাদ।

‘প্রতিটি বাসে ৫০ জন করে মানুষের বসার জায়গা রয়েছে। আর এখানে আমরা আছি ২০ হাজারেরও বেশি মানুষ। অনেক শীত এখানে। মাটিতে কাদা। মানুষজন পিছলে কাদায় পড়ছে। হারিয়ে ফেলছে সঙ্গে নিয়ে আসা সহায়। হারিয়ে ফেলছে স্বজনদেরও। করুণ এই পরিস্থিতি দেখে মনে হচ্ছে, যেন কেয়ামত নেমে এসেছে।’ বলেন ক্রসিং পয়েন্টে অপেক্ষমান আবু দিয়াব।

শনিবার রাতে তাপমাত্রা মাইনাস ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে আসে। ফরাসি বার্তা সংস্থার বরাত দিয়ে মিডল ইস্ট আই এই ভয়াবহ খবর দেয়। জুন মাস থেকে ত্রাণবঞ্চিত অবরুদ্ধ আলেপ্পোবাসীর একাংশ। তাদের ক্ষুধার যাতনা যেন আভিজাত্যের বিশ্বদুনিয়াকে বুড়ো আঙ্গুল দেখাচ্ছে। কারও ভাগ্যে তবু ২/৩টা খেজুর জোটে। অনেকের আবার তাও জোটে না। সঙ্গে বাড়তি ভোগান্তির অনুষঙ্গ হিসেবে যুক্ত হয়েছে শীত। টিকে থাকার পথে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে ঠাণ্ডা আবহাওয়া।

পূর্ব আলেপ্পোতে এখন একজন বিদেশি সাংবাদিকই আছেন। তিনি বিলাল আব্দুল কারিম। মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম মিডল ইস্ট আইকে ক্রসিং পয়েন্টের পরিস্থিতি জানান তিনি। বিলাল জানান, ‘লোকজন আবারও এলাকা ছাড়ার আশা করছেন। অপেক্ষা করছেন সবুজ বাসের। এখনও দেখা মেলেনি বাসের। লোকজন অপেক্ষা করছেন রাস্তায়। এখানে প্রচণ্ড শীত। রাতের তাপমাত্রা নেমে যায় হিমাঙ্কের নিচে। বোমার ক্ষতচিহ্নে জর্জরিত ভবনে রাত কাটিয়েছে মানুষ।’

২১ বছর বয়সী ত্রাণকর্মী আবু ইয়াজান। সঙ্গে রয়েছেন স্ত্রী, শিশু সন্তান এবং অন্য আত্মীয় ও বন্ধুরা। দুটি গাড়িতে করে মৃত্যুপুরী ছেড়ে যেতে চেয়েছিলেন। তবে হায়। একটি গাড়ি স্টার্ট নিলো না। গাড়িটিকে দড়ি দিয়ে টেনে ক্রসিং পয়েন্ট পর্যন্ত নিয়ে আসতে অনেক দেরি হয়ে গেছে। এর পরের পরিস্থিতির বর্ণনা দিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা সেখানে পৌঁছাবার পর আমাদেরকে বলা হলো, কোনও প্রাইভেট কার যেতে দেওয়া হচ্ছে না। বাসেই উঠতে হবে।’ শুনেই ভর করে দুশ্চিন্তা। ‘আমার পরিবার এবং আমি এখান থেকে বের হতে পারব না, এখানকার পরিস্থিতি খুব শোচনীয়। কিছু বন্ধু-বান্ধব আগে আগে চলে যেতে পেরেছে, কারণ তাদের গাড়ি ঠিকঠাকমতোন পরিচালিত হয়েছে। আমাদের গাড়িগুলোর যেতে কিছু সময় লাগবে।’ বলেন ইয়াজান।

২০১২ সাল থেকে বিদ্রোহীদের নিয়ন্ত্রণে ছিল পূর্ব আলেপ্পো। সম্প্রতি সরকারি বাহিনী সেখানকার অধিকাংশ অঞ্চল পুনর্দখলে নিতে সমর্থ হয়। এতে বিদ্রোহীরা কোণঠাসা হয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে পরাস্থ বিদ্রোহীরা অস্ত্র বিরতির চুক্তি সম্পন্ন করতে বাধ্য হয়।

এই সংবাদটি 134 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com