মঙ্গলবার, ২০ ডিসে ২০১৬ ১১:১২ ঘণ্টা

কুরআনের বুলবুলি কারী উবায়দুল্লাহ’র ইন্তেকাল

Share Button

কুরআনের বুলবুলি কারী উবায়দুল্লাহ’র ইন্তেকাল

সিলেট রিপোর্ট: স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশ বেতারে যার কণ্ঠে  প্রথম পবিত্র কুরআনের সুর বেজে উঠেছিলো সেই মণীষী আমাদের মাঝে আর নেই। আর্ন্তজাতিক খ্যাতিসম্পন্ন কারী, ঢাকা চকবাজার শাহী মসজিদের সাবেক খতীব ক্বারী মাওলানা মুহাম্মদ উবায়দুল্লাহ আজ ২০ ডিসেম্বর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কামরাঙ্গির চড়ের বাসায় ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নানিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭২ বছর। তিনি দীর্ঘ দিন ধরে নানা রোগে ভুগছিলেন।
বিখ্যাত এই আলেমেদ্বীন ১৯৪৪ সালের ১ জানুয়ারি চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার কোদালা গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। তার পিতা মাওলানা শাহ মেহেরুজ্জামান ইসলামাবাদী। জামিআ কুরআনিয়া আরাবিয়া লালবাগ মাদরাসায় থেকে ১৯৬২ সালে দাওরায়ে হাদিস শেষ করেন। শিক্ষা সমাপনী শেষে লালবাগ মাদরাসায় শিক্ষকতা দিয়ে জীবন শুরু করেন। আর এ বছরেই রেডিওতে প্রথম মধুর সুরের ঝংকার তোলেন। তার খ্যাতি ছড়াতে থাকে সর্বত্র। উবায়দুল্লাহ ছোট বেলা থেকেই এলাকার মাদরাসা-মসজিদ, পাশ্ববর্তী মহল্লার ওয়াজ-মাহফিল, উৎসব-পার্বণ, সমাবেশ-সম্মেলনে কুরআন তেলাওয়াত করতেন। ধীরে ধীরে তিনি সুললিত কন্ঠের ক্বারী হিসেবে পরিচিতি ও অধিক প্রসিদ্ধি লাভ করতে লাগলেন। পরবর্তীতে বিভিন্ন মাদরাসা-মসজিদ, ওয়াজ-মাহফিল, উৎসব-পার্বণ,সভা- সেমিনার, সমাবেশ-সম্মেলনে কুরআন তেলাওয়াতের জন্য আয়োজকরা তাকে বিশেষভাবে আমন্ত্রণ করতেন। তিনি অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে সুমধুর কন্ঠ ও সূরের মাধ্যমে বিশুদ্ধ তেলাওয়াত উপস্থাপনের মধ্য দিয়ে অগণিত শ্রেুাতা-দর্শকদের মুগ্ধ করতেন। সরকারি বিভিন্ন অনুষ্ঠানসহ নানা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তাকে আমন্ত্রণ করা হতো কুরআন তেলাওয়াতের জন্য।
ক্বারী উবায়দুল্লাহ ছোট বেলায় তার পিতার কাছে প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণের পর রাজধানীর লালবাগ মাদরাসায় ভতি হন। সেখানে তিনি হাফেজ্জী হুজুর (রাহ.) এবং পরবর্তীতে শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হকের (রাহ.) কাছে বুখারি শরীসহ বিভিন্ন বিষয়ে শিক্ষা লাভ করেন।
১৯৬২ সালে তিনি তাকমীল পাশ করলে শায়খুল হাদীস তাকে লালবাগ মাদরাসাতেই শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দিয়ে বোখারী শরিফ পড়ানোর দায়িত্ব দেন। ওই বছরই মাত্র ১৮ বছর বয়সে নাজিমুদ্দিন রোডে অবস্থিত রেডিও পাকিস্তান কেন্দ্রে প্রথম কোরআন তেলাওয়াত করেন ক্বারী উবায়দুল্লাহ।
ক্বারী উবায়দুল্লাহ ১৯৬২ সাল থেকে ঐতিহ্যবাহী চকবাজার শাহী মসজিদে খতিবের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছিলেন।
স্বাধীনতা পরবর্তী ১৯৭৫ সালে বাংলাদেশ বেতারে কুরআনের প্রথম যে সুর বেজে উঠেছিলো তাও এই মণীষীর কণ্ঠেই। পার্লামেন্টের শুরুর অধিবেশন থেকে নবম পার্লামেন্ট পর্যন্ত জাতীয় সংসদকেও কুরআনের তিলাওয়াতে বিমোহিত করে রেখেছিলেন তিনি। এদেশে তার অবদান এমনই যে তা ভোলার নয়।

জানা যায়, ক্বারী উবায়দুল্লাহ ২০০০ সালে প্রথমবারের মত হৃদরোগে আক্রান্ত হন। ওই সময় চিকিৎসা করার পর তিনি সুস্থ হন। এর ছয় বছর পর ২০০৬ সালে ঢাকার বাইরে একটি ওয়াজ মাহফিলে যাওয়ার সময় পান্থপথ এলাকায় ব্রেনস্ট্রোকের শিকার হলে তাকে শমরিতা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অধ্যাপক ডা. দ্বীন মোহাম্মদের তত্ত্বাবধানে দু’মাস চিকিৎসা নেন তিনি। এসময় চলাচলের শক্তি হারিয়ে ফেলেন। পরবর্তীতে তাকে ভারতের কলকাতায় নিয়ে এএমআরআই হাসপাতালে অধ্যাপক জিকে পুস্তির তত্ত্বাবধানে ১৫ দিন চিকিৎসা দেয়া হলে তিনি কিছুটা সুস্থ হয়ে ওঠেন। ধীরে ধীরে চলাফেরা করতে শুরু করেন তিনি। দু’বছর পর ২০০৮ সাল থেকে পরপর তিন বছর ব্রেনস্ট্রোকের শিকার হন। দু’বছরপর ২০১২ সালে সর্বশেষ ব্রেনস্ট্রোকে আক্রান্ত হন। তখন থেকেই রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরের বাসায় অসুস্থ অবস্থায় দিনাতিপাত করছিলেন তিনি। কারী উবায়দুল্লাহ সৌদি আরব, কাতার, দুবাই, লিবিয়া, বাহরাইন, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, পাকিস্তানসহ বিশ্বের অন্তত ২০-২৫টি দেশে আন্তর্জাতিক কুরআন প্রতিযোগিতায় বারবার প্রথমস্থান অর্জন করে বাংলাদেশের জন্য বয়ে আনেন বিরল মর্যাদা। সৌদি বাদশাহ ফয়সাল ও খালেদ দুইবার তাকে কোরআনের শিল্পী বা কারী হিসেবে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করেন। কারী উবায়দুল্লাহর সুমধুর তেলাওয়াত বাংলাদেশের স্থপতি শেখ মুজিবুর রহমানকেও প্রায় জুমাবার টেনে নিয়ে আসত চকবাজার শাহী মসজিদে। নামাজের পর শেখ মুজিব কারী উবায়দুল্লাহর বুকে বুক লাগিয়ে কারীকে সম্মান করতেন এবং নিজেও সম্মানিত হতেন। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান ছিলেন কারী উবায়দুল্লাহর ছাত্র। তিনি দীর্ঘদিন তার কাছে কুরআন শিক্ষা করেন। প্রেসিডেন্ট থাকাকালীন জেনারেল জিয়া কখনও কখনও শুধু কুরআন তেলাওয়াত শোনার জন্য তাকে বঙ্গভবনে দাওয়াত দিয়ে নিয়ে আসতেন। ( ২৮মে’১৫, দৈনিক ইনকিলাব)
শোক:
এদিকে, প্রখ্যাত এই আলেমের ইন্তেকালে তাৎক্ষনিক ভাবে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সভাপতি খলিফায়ে মাদানী আল্রামা আব্দুল মোমিন, মহাসচিব আল্লামা নুর হোসাইন কাসেমী, মাদানী কাফেলা বাংলাদেশের সভাপতি মাওলানা রুহুল আমীন নগরী,সাধারণ সম্পাদক মাওলানা সালেহ আহমদ শাহবাগী, ছাত্র জমিয়তের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুফতি নাসির উদ্দীন খান, সেক্রেটারী হাফেজ ওমর ফারুক প্রমুখ।

এই সংবাদটি 1,130 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com