বুধবার, ২১ ডিসে ২০১৬ ১১:১২ ঘণ্টা

নারায়ণগঞ্জে স্থানীয় নির্বাচনে জাতীয় আমেজ

Share Button

নারায়ণগঞ্জে স্থানীয় নির্বাচনে জাতীয় আমেজ

ডেস্ক রিপোর্ট: দুই সপ্তাহের আনুষ্ঠানিক প্রচার শেষে ভোটের অপেক্ষায় নারায়ণগঞ্জ। কে জিতবে সেই প্রশ্নের অপেক্ষায় নগর ছাড়িয়ে দূরের জনপদের মানুষও। প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে হওয়া সিটি নির্বাচনকে ঘিরে দৃষ্টি সারা দেশের মানুষেরই।

বিএনপি-জামায়াত জোটের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জনের পর উপজেলা, পৌরসভা আর সিটি করপোরেশন হয়েছে অনেকগুলোই। তবে এর মধ্যেও নারায়ণগঞ্জ নির্বাচন উল্লেখযোগ্য অন্য কারণে।

স্থানীয় সরকার নির্বাচন হলেও এই ভোট জাতীয় নির্বাচনের মেজাজ পেয়ে গেছে দুই প্রধান দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে লড়াইয়ের কারণে। আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী এবং বিএনপির সাখাওয়াত হোসেন খান-দুই জনই সহজ জয়ের প্রত্যাশা করছেন।

আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘প্রচারণা চালানোর সময় আমি যে জোয়ার আর উদ্দীপনা দেখেছি, তাতে আমি বিশ্বাস করি ৭০ শতাংশ ভোট নৌকা প্রতীকে পড়বে।’

বিএনপির প্রার্থী সাখাওয়াত হোসেন আইভী বলছেন, প্রকাশ্য প্রচারণায় যেমনই হোক, তার পক্ষেই রায় দেবে ভোটাররা। ঢাকাটাইমসকে তিনি বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জের এই নির্বাচন আমেরিকার নির্বাচনের মতো হতে পারে। সকল জনমত জরিপে হিলারি এগিয়ে ছিল, কিন্তু ভোটের রাজনীতিতে ট্রাম্প এগিয়েছে। নারায়ণগঞ্জেও বিএনপির নীরব ভোট আছে। স্থানীয় গণমাধ্যমে যেসব জরিপ ছাপা হয়েছে এগুলো উল্টে যেতে পারে।’

প্রচারণায় ছিলেন কেন্দ্রীয় নেতারাও

এই নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রচারে নারায়ণগঞ্জের নেতাদের পাশাপাশি গত দুই সপ্তাহ ধরেই ক্ষমতাসীন দল ও বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারাও প্রচারে ব্যস্ত ছিলেন নারায়ণগঞ্জে।

স্থানীয় সরকার নির্বাচন হলেও ভোটের প্রচারে স্থানীয় নাগরিক সমস্যার চেয়ে বেশি গুরুত্ব পেয়েছে জাতীয় রাজনীতির বক্তব্যও।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জনের কারণে ক্ষমতার বলয়ের বাইরে থাকা বিএনপি এই ভোটকে দেখাতেচাইছে দেখছে তাদের পক্ষে জনসমর্থনের প্রমাণ হিসেবে। দুই দলই দেখাতে চাইছে জনগণ আছে তাদের পক্ষেই।

সহজ জয়ের প্রত্যাশা নিয়ে কথা বলছেন দল দুটির কেন্দ্রীয় নেতারাও। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলছেন, আইভীর ব্যক্তিগত জনপ্রিয়তার পাশাপাশি দল হিসেবে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক দক্ষতা আর সরকারের উন্নয়ন তৎপরতার কারণে ভোটাররা আওয়ামী লীগের পক্ষেই রায় দেবে।

আর বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দেখছেন নীরব ভোট বিপ্লবের স্বপ্ন। তার দাবি, বর্তমান সরকারের আমলে তার ভাষায় দুঃশাসনের জবাব দিতে মুখিয়ে আছে মানুষ। নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে বিএনপি বিপুল ভোটে জিতবে বলে আশা করছেন তিনি।

বর্তমান সরকারের আমলে হওয়া বেশ কিছু নির্বাচন নিয়ে বিএনপির নানা অভিযোগ থাকলেও নারায়ণগঞ্জ বিষয়ে এখনও জোরাল কোনো অভিযোগ করেনি বিএনপি। ভোটের পরিবেশও এখন পর্যন্ত শান্ত। কোনো ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাই এখন পর্যন্ত ঘটেনি।

ভোটের নিরাপত্তায় বিএনপি সেনা মোতায়েনের দাবি জানালেও তা অগ্রাহ্য করেছে নির্বাচন কমিশন। তবে নির্বাচনী এলাকায় র‌্যাব, পুলিশের পাশাপাশি মোতায়েন হয়েছে বিজিবি।

প্রায় পৌনে পাঁচ লাখ ভোটার মেয়রের পাশাপাশি কাউন্সিলর নির্বাচন করবেন। তবে প্রধান আকর্ষণ থাকছে মেয়র পদে কে নির্বাচিত হবেন তা নিয়েই।

নারায়ণগঞ্জ সদরের পাশাপাশি সিদ্ধিরগঞ্জ এবং বন্দর উপজেলা নিয়ে এই নির্বাচনী আসনে মোট ভোটার সংখ্যা চার লাখ ৭৪ হাজার ৯৩১ জন।

বৃহস্পতিবারের ভোটকে সামনে রেখে সকাল থেকেই ভোটের সরঞ্জাম পাঠানোর প্রস্তুতি শুরু হয়। বিকালের আগেই শেষ হবে সব প্রস্তুতি।

এই সংবাদটি 1,056 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com