কারি উবায়দুল্লার মৃত্যু জানান দিলো তিনি এখনও বেঁচে ছিলেন

প্রকাশিত: ২:১৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২১, ২০১৬

কারি উবায়দুল্লার মৃত্যু জানান দিলো তিনি এখনও বেঁচে ছিলেন

সৈয়দ মবনু :: ২১ ডিসেম্বর ২০১৬ খ্রিস্টাব্দ সকালে কারি উবায়দুল্লার মৃত্যু সংবাদ আমাকে জানান দিলো তিনি এখনও বেঁচে ছিলেন। আমরা প্রায় ভুলে গিয়েছিলাম তাঁর কথা। অথচ এক সময় তাঁর  সুরের ধ্বনিতে আমাদের শুভযাত্রা হতো জাতীয় সংসদে, গণভবনে, সভা-সমিতি, রেডিও এবং টিভিতে। আমাদের ছোটবেলা যাদের সুমধুর কুরআন তেলাওয়াতে আমরা আবেগে আপ্লোত হতাম আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে তাদের অন্যতম হলেন কারি আব্দুল বাসিত আবদুসসামাদ। কারি বাসিত নামে তিনি বিশ্বব্যাপী খ্যাত। করি উবায়দুল্লাহকে সেই স ময় বলা হতো বাংলাদেশের কারি বাসিত। বর্তমানে বাংলাদেশে কোরআন তেলাওয়াতের যে প্রতিযোগিতা এবং বিশ্বময় তিলাওয়াত ও হিফজের প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের ক্বারী ও হাফিজরা যে সুনাম তৈরি করছেন, কারি উবায়দুল্লাহকে বলা হয় এসবের পথিকৃত।

১৯৮৫ খ্রিস্টাব্দের দিকে কারি সাহেবের সাথে আমার ব্যক্তিগত পরিচয় হয়। তিনি তখনও ঢাকা চকবাজার জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব। থাকতেন চকবাজারেই। অনেকদিন আগের কথা। ঠিকানা ভুলে গিয়েছিলাম। ভুলে গিয়েছিলাম কারি উবায়দুল্লাহ নামটি পর্যন্ত। মৃত্যু সংবাদ যেমন তাঁর বেঁচে থাকার কথা জানিয়ে দিলো, তেমনি জানিয়ে দিলো সেই সময়ে তাঁর বাসার ঠিকানাও। তখন তিনি থাকতেন চকবাজারের চাঁদনীঘাট এলাকার গৌর সুন্দর রায়  লেনে। বাড়ি নম্বার ৩৩/৩৭। বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কারি ওবায়দুল্লাহর সুমধুর কুরআন তেলাওয়াতের ভক্ত ছিলেন। মাঝেমধ্যে তিনি চকবাজার জামে মসজিদে জুম্মা আদায় করতেন কারি সাহেবের কোরআন তেলাওয়াত শোনার জন্য কিংবা তিনি এমনি যেতেন, আর কারি সাহেবের কোরআন তেলাওয়াত শোনে আনন্দিত হতেন। মাঝেমধ্যে নাকি কারি সাহেবকে বুকে জড়িয়ে নিতেন। ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে দেশ স্বাধীনের পর ১৯৭২ খ্রিস্টাব্দে বঙ্গবন্ধু নিজ উদ্যোগে কারি সাহেবকে থাকার জন্য নাকি গৌর সুন্দর রায় লেনের ৩৩/৩৭ নম্বর বাড়ির সাড়ে ৮ কাঠার মধ্যে ৪ কাঠা জমির বন্দোবস্ত দিয়েছিলেন। বিভিন্ন সরকারের সময় বাড়ির বরাদ্দ পাওয়া অংশটি কারি সাহেবের নামে রেজিস্ট্রি দলিল করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেও পরে আর তা করা হয়নি। বরাদ্দের মেয়াদ ফুরিয়ে গেলে গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের গেজেটভূক্ত বাড়িটি মামলা ও জালিয়াতির মাধ্যমে দখল করে বহুতল বাড়ির নির্মাণের উদ্যোগ নেয় স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল। বৃদ্ধ বয়সে বাড়ি হারিয়ে কারি উবায়দুল্লাহ বাধ্য হয়ে মূল ঢাকা শহর ছেড়ে বুড়িগঙ্গার ওপারে কামরাঙ্গীরচরের নিজামবাগ এলাকার মাতবর বাজারে চলে যান। সেখানেই তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

আমি যখন লালবাগ মাদরাসার ছাত্র তখন সেখানে দাওরায়ে হাদিসে পড়তেন সিলেটের হোসেন আহমদ। হোসেন আহমদের বাবা শায়েখ ডা. আলী আসগর নুরী (র.) ছিলেন বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনের সর্বভারতীয় নেতা মাওলানা সৈয়দ হোসাইন আহমদ মাদানী (র.) এর খলিফা (দিক্ষাপ্রাপ্ত শিষ্য)। আবার তিনি শায়খে কাতিয়া মাওলানা আমিন উদ্দিন (র.)এর পির (গুরু) ছিলেন। হোসেন ভাই একদিন আমাকে বললেন, চলো কারি উয়াদুল্লাহকে দেখে আসি, তিনি অসুস্থ্য। অতঃপর আমরা একটি রিক্সা নিয়ে লালবাগ শাহী মসজিদের সামন থেকে গৌর সুন্দর রায় লেনের ৩৩/৩৭ নম্বর বাড়িতে পৌঁছি। দীর্ঘ সময় তাঁর সাথে আলাপ হয়। সম্ভবত তিনিও লালবাগের ছাত্র ছিলেন। অতঃপর এই বাড়িতে আরও ক’বার গিয়েছি।

এই যাওয়া আসার পথে কেউ একজন একদিন বলেছিলো, কারি সাহেবের দুই বিয়ে। তাঁর দ্বিতীয় স্ত্রী একজন সেনা অফিসারের মেয়ে। তখন কারি সাহেবের মধ্য-যৌবন। এই মহিলা কোরআন তেলাওয়াত শোনে আবেগে আপ্লোত হয়ে তার বাবার পিস্তল নিয়ে নাকি চলে আসেন কারি সাহেবের সন্ধানে এবং দাবি করেন তাকে বিয়ে করতে। টু স্মাট এবং বড়লোকের মেয়ে বলে প্রথম দিকে কারি সাহেব রাজি ছিলেন না। কিন্তু মেয়ে তো পাগল-ফানা। অতঃপর মেয়ের বাপের মধ্যস্থতায় তিনি রাজি হলেন। (এই ঘটনার সত্য-মিথ্যা আমার জানা নেই, তবে তা সমাজে অনেকের কাছেই চালু আছে)।

কারি উবায়দুল্লাহের আজানের সুরে মুগ্ধ হয়ে প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান নাকি জানতে চেয়েছিলেন, আপনার আজানের সুরে কোটি কোটি মানুষ মোহিত হয়, আমি আপনার জন্য কি করতে পারি? তখন নাকি কারি সাহেব বলেছিলেন, আমি আল্লাহর ঘর বায়তুল্লাহ এবং মদিনায় হযরত রাসুল (স.)-এর রওজা মোবারক জিয়ারত করতে আগ্রহী। তখন প্রেসিডেন্ট রাষ্ট্রীয়ভাবে কারি উবায়দুল্লাহকে হজ্বে পাঠিয়েছিলেন।

লালবাগে পড়ার সময় থাকতাম লালবাগের শায়েস্তাখান হলের পিছনে মাদরাসার ছাত্রাবাসে। এদিকে পায়ে হেটে চক বাজারে যাওয়া যেতো। আমরা একটু সুযোগ পেলেই চলে ফজরে বা এশায় চলে যেতাম চকবাজার জামে মসজিদে কারি সাহেবের পিছনে নামাজ পড়তে এবং সকালে আলা উদ্দিন সুইটে অল্প মূল্যে ছোট ছোট পরটা আর ভাজি খেতে। মাঝেমধ্যে নামাজ শেষে লোক না থাকলে আমরা তাঁর সাথে মোসাফা করে কিছু কথা বলতাম। বেশিরভাগ সময় আমার সাথে মাহবুব কিংবা ইলিয়াস থাকতো। মাহবুব মানে শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক (র.)-এর দ্বিতীয় ছেলে হাফেজ মাওলানা মাহবুবুল হক। আর ইলিয়াস হলো মুফাস্সিরে কোরআন মাওলানা আব্দুল গাফ্ফার (র.) এর ছেলে হাফিজ মুহাম্মদ ইলিয়াস। চকবাজারের রশিদিয়া কুতুবখানা ছিলো শায়খুল হাদিসের। পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন, শায়খুল হাদিসের বড় ছেলে হাফিজ মাহমুদ। মাহবুব আর আমি চক বাজার গেলে কিছু সময় রশিদিয়া কুতুবখানায় বসে আসতাম। মাহমুদ ভাই আমাকে খুব ¯েœহ করতেন। শায়খুল হাদিস কিংবা আব্দুল গাফ্ফার সাহেবের সাথে আমার বাবা সৈয়দ আতাউর রহমানের রাজনৈতিক কারণে সুসম্পর্ক হলেও কারি উবায়দুল্লাহের সাথে পরিচয় ছিলো না। লালাবাগের ছাত্র হিসেবে তিনি আমাকে জানতেন এবং ¯েœহ করতেন। তবে মাহবুব এবং ইলিয়াসকে ভালো করেই চিনতেন।

আমি ব্যক্তিগতভাবে কারি উবায়দুল্লাহকে যতটুকু জানি, তিনি খুবই আল্লাহ ওয়ালা একজন শরিফ লোক ছিলেন। আমার মনে হয়েছে তিনি খুবই জামালি তবিয়তের লোক। অনেক কৃতিত্বের অধিকারী এই লোকটি ছয়বার ব্রেইন  স্ট্রোক ও প্যারালাইসিসে আক্রান্ত হলেন এবং মৃত্যুর পূর্বে ৯ বছরেরও বেশি সময় ধরে অসুস্থ ছিলেন। বেশ ক’বছর তিনি কথা বলেছেন, হাতের ইশারা-ইঙ্গিতে। অথচ আমরা অনেকেই জানতাম না। হয়তো তেমন কেউ তাঁর খোঁজ খবরও নিতে পারিনি। অনুমানিক নব্বই বছর বয়সে তিনি মারা যান। মৃত্যুকালে তিনি রেখে যান তাঁর ২ স্ত্রী, ২ ছেলে ও ৬ মেয়ে সহ অসংখ্য ভক্ত-শিষ্য। দোয়া করি, আল্লাহ পাক তাঁকে জান্নাতের উঁচু মাকাম দান করুন।

এই সংবাদটি 23 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com