সিলেট চেম্বার পরিচালকরা ক্ষুদ্ধ

প্রকাশিত: ১০:২৩ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৯, ২০১৬

সিলেট চেম্বার পরিচালকরা ক্ষুদ্ধ

ডেস্ক রিপোর্ট:  সালাহ উদ্দিন আলী আহমেদ। অর্ডিনারি শ্রেণি থেকে পরিচালক। পহেলা জানুয়ারি ২০১৫ সালে সমঝোতার মাধ্যমে সভাপতি নির্বাচিত হন।

এর আগে তিনি সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সিনিয়র সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সভাপতি হওয়ার পর থেকেই নিজস্ব নীতিতে চেম্বার পরিচালনা করছেন বলে অভিযোগ পরিচালকদের।

এ নিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে পরিচালকদের অভিযোগের শেষ নেই। চেম্বারের সভায় উপস্থিত পরিচালকদের বক্তব্য/প্রস্তাবনা সঠিকভাবে লিপিবদ্ধ না করে তাঁর সুবিধামতো লিপিবদ্ধ করানো। কার্যবিবরণী পরিচালকদের কাছে প্রেরণ না করা।

লিপিবদ্ধ কার্যবিবরণী সংশোধনের প্রস্তাব আমলে না নেওয়া। চেম্বারের কার্যক্রম গতিশীলের লক্ষে গঠিত সাব-কমিটির আহবায়কদের দায়িত্ব পালনে অসহযোগিতা। সাব-কমিটির কার্যক্রমে হস্তক্ষেপ। চেম্বারের অন্যতম কার্যক্রম আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা দুই বছর যাবৎ আয়োজনের কোনো উদ্যোগ না নেওয়া।

নীল-নকশা বাস্তবায়নের মাধ্যমে ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতে ২০০১৭-১৮ সাল মেয়াদী নির্বাচনের জন্য পছন্দের লোকদের দিয়ে নির্বাচন বোর্ড ও আপীল বোর্ড গঠন করা। পরিচালনা পরিষদের সাথে কোনো সভা বা আলোচনা না করে নির্বাচন পিছানোর জন্য মন্ত্রণালয়ে আবেদনের মাধ্যমে নির্বাচন পিছিয়ে বর্তমান পরিষদের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করা।

সিনিয়র সহ-সভাপতিকে কোনো কাজের দায়িত্ব না দেওয়া ও কোনো ধরণের সহযোগিতা না করা। তাঁর নির্দেশ ছাড়া কোনো অভিযোগ গ্রহণ বন্ধ। সর্বশেষ ৫০ বছর পূর্তি উৎসব ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা আয়োজনের অজুহাতে আবারো নির্বাচনের মেয়াদ বাড়ানোর আশংকাসহ অভিযোগ পরিচালকদের।

মৌখিকভাবে পরিচালকগণ অভিযোগ করে কোনো সুরাহা না পেয়ে তাঁকে লিখিতভাবেও জানান। এতেও কোনো সাড়া দেন-নি সালাহ উদ্দিন আলী আহমদ। কোনো উপায় না-পেয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বাণিজ্য সংগঠনের পরিচালক বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন পরিচালকগণ।

অন্যদিকে, গত তিন বছর মেয়াদকালে একবারও মেলা আয়োজন করতে পারেনি বর্তমান কমিটি। এ কারণে অনেক ব্যবসায়ী কমিটির ওপর ক্ষুব্ধ। বর্তমান কমিটির মেয়াদে নতুন সদস্য করা হয়েছে দেড় হাজারেরও বেশি। এ নিয়ে চেম্বারের পরিচালক ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। এর সাথে যুক্ত হয়েছে, নির্বাচন ভন্ডুল করে ৫০ বছর পূর্তি উৎসব ও বাণিজ্য মেলা আয়োজনের উদ্যোগ।

ক্ষুব্ধ ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, নির্ধারিত সময়ে নির্বাচনে না গিয়ে সভাপতির আবেদনের ভিত্তিতে সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির নির্বাচন আরও ৬ মাস পেছানো হয়। মেয়াদ বাড়ানোর ক্ষেত্রেও কোনো বোর্ড মিটিং করে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। অথচ চেম্বারের এই নির্বাচন গত ১৫ ডিসেম্বর নির্ধারণ করে নির্বাচনি তফশিলও ঠিক করা হয়েছিল।

কয়েকজন পরিচালক জানান, হঠাৎ করেই সভাপতি নির্বাচন না করে মেয়াদ বৃদ্ধির আবেদন করেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে। গত ২০ অক্টোবর চেম্বারের সভাপতি সালাউদ্দিন আলী আহমদ নির্ধারিত সময়ে নির্বাচন করা সম্ভব নয় বলে বর্তমান পরিষদের মেয়াদ ৬ মাস বৃদ্ধির আহ্বান জানান।

তিনি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের সুপারিশ সম্বলিত আবেদনটি মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করলে মন্ত্রণালয় শর্তসাপেক্ষে ছয় মাসের মেয়াদ বৃদ্ধি করে। বর্তমান কমিটির মেয়াদ শেষে আগামী ৭ জানুয়ারি থেকে পরবর্তী ১৮০ দিনের মেয়াদ বৃদ্ধি করে পত্র দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

এর পরই চলতি বছরের ১৩ নভেম্বর বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে সিলেট চেম্বারের সিনিয়র সহসভাপতি মো. মামুন কিবরিয়া সুমন চেম্বার সভাপতির অসহযোগিতার উল্লেখ করে লিখিত অভিযোগ করেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বাণিজ্য সংগঠন পরিচালক বরাবর।

এতে তিনি বলেন, ২০১৫-২০১৬ মেয়াদে তিনি সিনিয়র সহসভাপতি নির্বাচিত হয়ে সভাপতির অনুপস্থিতিতে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করা ছাড়া আর কোনো দায়িত্ব তাঁকে দেয়া হয়নি। এমনকি কোনো সহযোগিতাও পাচ্ছেন না। তিনি অভিযোগে উল্লেখ করেন, চেম্বারের নির্বাচনকে সামনে রেখে নির্বাচন বোর্ড ও আপিল বোর্ড গঠন করা হয়।

নির্বাচন কমিশনের বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ সভাপতিকে অবগত করলে তিনি কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। গত ৩০ অক্টোবর তিনি হজ পালন করে দেশে ফিরে চেম্বার ভবনে গেলে দেখতে পান তাঁর বসার নির্ধারিত কক্ষ তালাবদ্ধ রয়েছে। বিষয়টি সভাপতিকে অবগত করলে তিনি কোনো ব্যবস্থা নেননি। সর্বশেষ পরিচালনা পরিষদের সাথে আলোচনা ব্যতিরেখে সভাপতি নির্বাচন ভন্ডুল করতে ৬ মাস মেয়াদ বৃদ্ধির আবেদন করেন।

একই দিনে চেম্বার সভাপতির বিরুদ্ধে পাঁচটি অভিযোগ (উপরে উল্লেখিত অভিযোগের মধ্যে) তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে ৫ জন পরিচালক লিখিত আবেদন জানান বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বাণিজ্য সংগঠন পরিচালক বরাবর।
অভিযোগকারীরা হলেন- সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির পরিচালক এ টি এম শোয়েব, শামীম আহমদ, এজাজ আহমদ চৌধুরী, এনামুল কুদ্দুছ চৌধুরী ও মো. মামুন কিবরিয়া সুমন।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এক আদেশে বলা হয়, ট্রেড অর্গানাইজেশন অর্ডিনেন্স, ১৯৬১ সংবিধিতে কমিটি গঠন, নির্বাচন, ও বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠান, হিসাব ও অডিটের নিয়মনীতি সংশোধন করা সমীচীন।

ওই আদেশের (৫) এর উপদফা (৪)-এর (ক) তে শর্ত দেয়া হয়েছে, কেবলমাত্র দৈব দূর্বিপাকের কারণে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে উক্ত নির্বাচন অনুষ্ঠান সম্ভব না হলে নির্বাচন বোর্ডের সুপারিশের ভিত্তিতে কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তক্রমে নির্বাচন অনুষ্ঠানের সময়সীমা বৃদ্ধির জন্য পরিচালক, বাণিজ্য সংগঠনের নিকট আবেদন করা যাবে। এছাড়া নির্ধারিত সময়ে নির্বাচন না করলে কমিটির দায়িত্তশীলরা কমিটি মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার সাথে সাথে পদবি বাতিল হবে।

(৭) এর উপ-দফা (৪) অনুযায়ী নির্ধারিত নির্বাচন যথাসময়ে অনুষ্ঠানের জন্য বিধান মোতাবেক পদক্ষেপ গ্রহণে ব্যর্থ হইলে কার্যনির্বাহী কমিটির সংশ্লিষ্ট সভাপতি, সহ-সভাপতি, ও কার্যনির্বাহী সদস্যগণ পরবর্তী ছয় বছর কোন বাণিজ্য সংগঠনের নির্বাচনে প্রার্থী হইতে পারিবেন না।

এদিকে, বৃদ্ধি করা মেয়াদে ৭ জুলাই ২০১৭ ইং পর্যন্ত বহাল থাকবে বর্তমান কমিটি। আর ৩০ জুন ২০১৭ ইং-এ বর্তমান সকল ভোটারদের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। ৫০ বছর পূর্তি উৎসব ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা করতেই বৃদ্ধি করা মেয়াদের জুন মাস পর্যন্ত চলে গেলে বাকি থাকবে মাত্র ৭দিন। এই অল্প সময়ের মধ্যে নতুন ভোটার তালিকা করা সম্ভব নয়। তাই মেয়াদবৃদ্ধির জন্য আবারো সময় চাওয়া হবে বলে পরিচালকদের আশংকা।

এছাড়াও সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির ৫০ বছরপূর্ণ হওয়ায় চেম্বারের পক্ষ থেকে গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস নিয়ে এবার বর্ণাঢ্য উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। আগামী ফেব্রুয়ারি মাসে অনুষ্ঠেয় উৎসব পালনের জন্য ইতোমধ্যে লগো উন্মোচন করেছেন চেম্বার নেতৃবৃন্দ।

এর আগে ২৫ বছর পূর্তি অনুষ্ঠান ঘটা করে পালন করেছিল সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি। তবে এবার ৫০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠান উদযাপনে প্রদান বাধা হতে পারে নির্বাচন ইস্যু। কারণ সময়মতো নির্বাচন না হওয়ায় চেম্বারের অনেক নেতা ক্ষুব্ধ। ‘গায়েবি কারণে নির্বাচন হচ্ছে না’ বলে চেম্বার নেতারা মন্তব্য করেছেন।

চেম্বার নেতাদের দ্ব›েদ্বর কারণে পঞ্চাশ বছর পূর্তি অনুষ্ঠান ব্যাহত হবে কি না জানতে চাইলে চেম্বার সভাপতি সালাহ উদ্দিন আলী আহমদ উত্তরপূর্বকে বলেন- বোর্ড মিটিং করেই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে ৫০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানের। আর সিলেট চেম্বারে কোনো বিভক্তি নেই। কয়েকজন মামলাবাজ পরিচালক বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করছেন, কোনো ধরণের সহযোগিতা তো দুরের কথা এরা সবসময়ই বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিতে ব্যস্ত থাকেন।

নিয়মানুযায়ী নির্বাচনের সময় আসলে সিনিয়র সহ-সভাপতির রুম নির্বাচন পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যানকে দেওয়া হয়। তা ছাড়া সিনিয়র সহ-সভাপতি তো অফিসই করেন-না।

নতুন সদস্য প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ৯শ’ সদস্য নেয়া হয়েছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে তাঁর বিরুদ্ধে চেম্বার নেতারা লিখিত অভিযোগ করার বিষয়টি তিনি জানেন না বলেও জানান। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন থেকে জানানো হয় এ সময়ের মধ্যে নির্বাচন করা সম্ভব হচ্ছে না। এ কারণেই নির্বাচন ৬ মাস পেছানো হয়েছে। এখানে অন্য কোনো কারণ নেই।

সিলেট চেম্বারের সিনিয়র সহসভাপতি মো. মামুন কিবরিয়া সুমন উত্তরপূর্বকে বলেন- সময়মতো নির্বাচন না হওয়ায় ব্যবসায়ীরা ক্ষুব্ধ। ৫০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠান নতুন কমিটিও করতে পারত। তিনি বলেন, শুধু আমার দৃষ্টিকোণ থেকে নয়; অধিকাংশ ব্যবসায়ী উৎসবের চেয়ে সময়মতো নির্বাচন হওয়ার পক্ষে।

সিলেট চেম্বারের পরিচালক ও এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক শামীম আহমদ রাসেল উত্তরপূর্বকে বলেন- বর্তমান সভাপতি সাব-কমিটির আহবায়কদের স্বাধীন মত কাজ করতে দেন-না। সবকিছুতে হস্তক্ষেপ করেন। যেমন- সম্প্রতি ৫০ বছরপূর্তি উদ্যাপন উপলক্ষ্যে গঠিত সাব-কমিটির আহবায়ক ছিলেন এনামুল কুদ্দুছ চৌধুরী সভাপতির পচন্দের লোক না হওয়ায় পরির্বতন করে খন্দকার সিপারকে আহবায়ক করেছেন।

সিলেট চেম্বারের পরিচালক মো. জিয়াউল হক উত্তরপূর্বকে বলেন- অনেক দিনে থেকেই ৫০ বছর পূর্তি উদ্যাপনে কথা শুনে আসছি। দুই বছর যাবৎ আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলাও হচ্ছেনা। এগুলোতো নির্বাচনের আগে কিংবা পরেও করা যেত।

তিনি বলেন- ‘নির্বাচনের মেয়াদ পেরিয়ে গেছে। বাড়ানোর ব্যাপারে আমি কিছুই জানি-না। এটি গায়েবিভাবেই হয়েছে।’

সিলেট চেম্বারের পরিচালক মো. লায়েছ উদ্দিন বলেন- কিছু পরিচালকদের সাথে হয়তো দূরত্ব সৃষ্টি হওয়ায় মনোমালিন্য দেখা দিয়েছে। বিষয়টি আলাপ-আলোচনা করে সমাধানের চেষ্টা করব।  সুত্র-উত্তরপূর্ব

এই সংবাদটি 5 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com