দেওবন্দের শায়খে সানির বিদায়

প্রকাশিত: ১২:৩৭ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৩, ২০১৭

দেওবন্দের শায়খে সানির বিদায়

মুহাম্মদ নাজমুল ইসলাম,দেওবন্দ প্রতিনিধি,সিলেট রিপোর্ট :: কোনো কোনো মানুষ সবার প্রিয় হয়েও বাস করেন নিভৃতে। কোনো কোনো মানুষ সবার মান্যবর  হয়েও বাস করেন নিঃশব্দে। তারা আল্লাহর দুনিয়ায় এসে আল্লাহর দ্বীনের কাজে ডুবে থাকেন। নিজের চেষ্টা, শ্রম-সাধনা বিলিয়ে যান অকাতরে। আর সেটা দেওয়াটাই থাকে তাদের কাজ।নির্দিষ্ট সময় এলে আবার আল্লাহর হুকুমে দুনিয়া ছেড়ে আল্লাহর কাছে চলে যান।দুনিয়ার মানুষ তাকে হারিয়ে বুঝতে পারে-তিনি কতো বড়ো আশ্রয় ছিলেন।কতো বড়ো ঠিকানা ছিলেন।কতো বড়ো মনীষী ছিলেন।তখন মানুষ শোকে-কেদে বুক ভাসায়।এমনি একজন মানুষ,সর্বজনমান্য আল্লাহর ওলী,উস্তাদুল আসাতিযা,মুস্তাজাবুদ দাওয়াত,আল্লামা হুসাইন আহমাদ মাদানী রাহ.’র অন্যতম স্নেহাশিস ও ছাত্র মাওলানা আব্দুল হক্ব আ’জমী রাহ. আমাদের ছেড়ে মাওলানার সান্যিধ্যে চলে যান ৩১/১৩/১৬ঈসা.রোজ শুক্রবার বাদ মাগরীব।
আহ! চলে গেলেন শায়খে ছানী। বিদায় নিলেন এ নশ্বর ধরণী থেকে।মিলিত হলেন রফীক্বে আ’লার সাথে।এতোদিন বলেছি আদামাল্লাহ,হায়্যাহুল্লাহ আর এখন বলতে হচ্ছে রাহিমাহুল্লাহ। শায়েখ ছিলেন আমাদের হৃদয়ের স্পন্দন।আত্মার খোরাক,মনের শান্তি,চোখের শীতলতা,ক্লান্তির অবসান,আমাদের একটু পেরেশানীর হাজারো শান্তনার ক্ষেন্দ্রবিন্দু। শায়েখ প্রায় ত্রিশ বছর মাদরে ইলমি দারুল উলূম দেওবন্দ কুতুবে সিত্তাহ’র মাশহুর কিতাব সহিহ বুখারি শরিফ -এর দরস প্রদান করে।শায়খের দরসটা থাকতো সবসময় প্রাণবন্ত। সাধারণত শেষ দিকে এসে হুইল চেয়ারে করেই দরসে আসতেন।আসা-যাওয়াবস্থায় মুখে থাকতো সবসময় যিকিরের ধ্বনি। দরসে কিছুটা গরম মেজাযের মনে হলেও যে-ই হজরত’র কাছে যেতো মুহূর্তেই আপন করে নিতেন।হালপুরসি করতেন।সামান্য হলেও কিছু দ্বারা আতিথেয়তা করতেন।
শায়েখ ছিলেন মাদানি রাহ.-এর অন্যতম মুহবাতের এক ছাত্র।তিনি বুখারি ১ম ২য় দুটোই মাদানি রাহ.-এর কাছে পড়েন।উল্লেখ রয়েছে যে শায়েখ হুসাইন আহমদ মাদানি রাহ.-এর কাছে পড়াকালীন বুখারি শরীফ’র একটা সবকও ছুটেনি।
আমরা যখনই শায়েখ’র কাছে যেতাম।অনেক মুহাব্বাতে আগলে নিতেন।বলতেন উস্তাদদের খেদমত করবে।দেখবে জীবনটা অনেক সফল হবে।শায়েখ’র মৃত্যুর আগেরদিন বিকেলেও কিছু ছাত্র গিয়েছিলো উনার খেদমতে।ওদের জিজ্ঞেস করেন কিরে তোমরা ছুটি কিভাবে কাটাচ্ছো।কেউ বলল শায়েখ! ইচ্ছা ছিলো এ ছুটিতে কিছু পর্যটন এলাকা ঘুরে দেখবো।বললেন,আরে ভাই! এসবে ঘুরে বেপর্দা নারীদের দেখে গুনাহ কামিয়ে লাভ কি? এর চেয়ে ভালো ওই রুপি দিয়ে ছুটিতে ভালো খাবার খাও। ব্যক্তিগত জীবনে শায়েখ তিনটে বিয়ে করেন।তিন বিয়ের ঔরসজাত-এ ৬ছেলে ও তিন মেয়ের জনক ছিলেন।হজরতের গ্রামের বাড়ি ভারত’র উত্তর প্রদেশের আজমগড়-এ।
অবশেষে লাখো আলেম-তালাবা ও তাওহিদি জনতার উপস্থিতিতে দারুল উলূমের নওদারা আঙিনায় হজরত-এর শেষ জানাযার নামাজ পড়ান আওলাদে রাসূল, সদরে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ মাওলানা সায়্যিদ আরশাদ মাদানি হাফিযাহুল্লাহ। নামাজ শেষে হজরতকে আকাবিরের মিছিল মাকবারায়ে কাসিমিতে দাফন করা

এই সংবাদটি 131 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com