ইসলামের দৃষ্টিতে ভূমিকম্প

প্রকাশিত: ৪:৪২ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৩, ২০১৭

ইসলামের দৃষ্টিতে ভূমিকম্প

মুহাম্মদ নাজমুল ইসলাম :  আল্লাহ পাক পবিত্র কোআনে ইরশাদ করেন-বলো! আল্লাহ তাআলা তোমাদের উপর, তোমাদের উপর থেকে (আসমান থেকে) অথবা তোমাদের পায়ের নীচ থেকে আজাব পাঠাতে সক্ষম, অথবা তিনি তোমাদের দল-উপদলে বিভক্ত করে একদলকে আরেক দলের শাস্তির স্বাদ গ্রহণ করাতেও সম্পূর্ণরূপে সক্ষম।” (সূরা আল আনআম : ৬৫)
হযরত জাবির ইবনে আব্দুল্লাহ (রা.) বর্ণনা করেন, যখন উপর থেকে (আসমান থেকে) নাজিল হলো তখন রাসূল (স) বললেন, আমি
তোমার সম্মূখ হতে আশ্রয় প্রার্থনা করছি, অথবা যখন, অথবা তোমাদের পায়ের নীচ থেকে আজাব নাযিল হলো, তখন রাসূল (সা.) বললেন, আমি তোমার সম্মূখ হতে আশ্রয় প্রার্থনা করছি। (সহিহ বুখারি, ৫/১৯৩)
আবূল-শায়খ আল-ইস্পাহানি এই উউপরোক্ত আয়াতের তাফসিরে বর্ণনা করেন, বলো, আল্লাহ তায়ালা তোমাদের উপর, তোমাদের উপর থেকে (আসমান থেকে)- যার ব্যাখ্যা হলো, তীব্র শব্দ, পাথর অথবা
ঝড়ো হাওয়া; আর অথবা তোমাদের
পায়ের নীচ থেকে আজাব পাঠাতে
সক্ষম- যার ব্যাখ্যা হলো, ভুমিকম্প এবং
ভূমি ধ্বসের মাধ্যমে পৃথিবীর
অভ্যন্তরে ঢুকে যাওয়া।)
হজরত আলী রা. হতে বর্ণিত রাসুল
সা.ইরশাদ করেন, আমার উম্মত
যখন ১৫ টি কাজে লিপ্ত হতে শুরু
করবে তখন তাদের প্রতি বালালা মসিবত
আপাতিত হতে আরম্ভ করবে।
কাজগুলো হল:
১. গণীমতের মাল ব্যাক্তিগত সম্পদে
পরিণিত হবে।
২. আমানতের সম্পদ পরিনত হবে
গনীমতের মালে।
৩. জাকাত আদায় করাকে মনে করবে
জরিমানা আদায়ের ন্যায়।
৪. স্বামী স্ত্রীর বাধ্য হবে।
৫. সন্তান মায়ের অবাধ্য হবে।
৬. বন্ধু-বান্ধবের সাথে স্বদব্যাবহার করা
হবে না।
৭. পিতার সাথে করা হবে জুলুম।
৮. মসজিদে উচ্চস্বরে হট্টোগোল
হবে
৯. অসাম্মানী ব্যাক্তিকে জাতির নেতা
মনে করা হবে।
১০. ব্যাক্তিকে সম্মান করা হবে তার
অনিষ্ট থেকে বাচার জন্য।
১১. প্রকাশ্যে মদপান করা হবে।
১২. পুরুষ রেশমী পোষাক পরবে।
১৩. গায়িকা তৈরি করা হবে।
১৪. বাদ্যযন্ত্র তৈরি করা হবে।
১৫.পুর্ববর্তী উম্মতদের (সাহাবি
তাবেয়ি, তবে তাবেয়িন) প্রতি অভিসমাপ্ত করবে পরবর্তীরা।
এই কাজগুলি যখন পৃথিবীতে হতে শুরু
হবে তখন অগ্নীবর্ষী প্রবল ঝড়,
ভুমিকম্প ও কদাকৃতিতে রূপ নেয়ার
অপেক্ষা করবে।

এখন একটু চিন্তা করা উচিত যে, আমরা এগুলোর মাঝেই লিপ্ত
রয়েছি কি না? আর যখন আমাদের উপর
মসিবত আসে তখন প্রকৃতির বা
মানুষের বা অন্যান্য জিনিসের দোষ
দেই। আল্লাহ তায়ালা প্রদত্ত যে সব
প্রাকৃতিক দুর্যোগের সম্মুখীন আমরা
হই তা আসলে আমাদের গুনাহের
কারনেই এতো আযাব।
যখন কোথাও ভূমিকম্প সংগঠিত হয় অথবা সূর্যগ্রহণ হয়, ঝড়ো বাতাস বা বন্যা হয়, তখন মানুষদের উচিত মহান আল্লাহর নিকটঅতি দ্রুত তওবা করা, তাঁর নিকট নিরাপত্তার জন্য দোয়া করা এবং মহান আল্লাহকে
অধিকহারে স্মরণ করা এবং ক্ষমা প্রার্থনা করা যেভাবেরাসূল (সা.) সূর্য গ্রহণ
দেখলে বলতেন, যদি তুমি এরকম কিছু
দেখে থাক, তখন দ্রুততার সাথে মহান
আল্লাহকে স্মরণ কর, তাঁর নিকট ক্ষমা
প্রার্থনা কর। (বুখারি ২/৩০ এবং মুসলিম
২/৬২৮)

বর্ণিত আছে যে, যখন কোন ভূমিকম্প
সংগঠিত হতো, উমর ইবনে আব্দুল
আযিয (রহ) তার গভর্ণরদের দান করার
কথা লিখে চিঠি লিখতেন।
ভুমিকম্প একটি কেয়ামতের আলামত।
আবূল ইয়ামান (রহ.) আবূ হুরায়রা (রা.)
থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবি সা.
বলেছেন, কিয়ামত কায়েম হবে না,
যে পর্যন্ত না ইলিম উঠিয়ে নেওয়া
হবে, অধিক পরিমাণে ভুমিকম্প হবে,
সময় সংকুচিত হয়ে আসবে, ফিতনা প্রকাশ
পাবে এবং হারজ বৃদ্ধি পাবে। (হারজ অর্থ
খুনখারাবী) তোমাদের সম্পদ এত বৃদ্ধি
পাবে যে, উপচে পড়বে। (সহিহ বুখারি,
অধ্যায় : ১৫/ বৃষ্টির জন্য দুআ, হাদিস
নাম্বার : ৯৭৯)

পবিত্র কোরানের একাধিক আয়াতে বলা
হয়েছে যে, জলে স্থলে যে
বিপর্যয় সৃষ্টি হয় তা মানুষেরই
কৃতকর্মের ফল। আল্লাহপাক মানুষের
অবাধ্যতার অনেক কিছুই মাফ করে
দেন। তারপরও প্রাকৃতিক দুর্যোগ হয়।

কোরআন নাজিল হওয়ার পূর্বেকার অবাধ্য
জাতি সমূহকে আল্লাহপাক গজব দিয়ে
ধ্বংস করেছেন। সে সবের অধিকাংশ গজবই ছিল ভুমিকম্প। ভুমিকম্প এমনই একটা দুর্যোগ যা নিবারন করার মতো কোন প্রযুক্তি মানুষ আবিষ্কার করতে পারে নাই। এর পূর্বাভাষ পাওয়ার মতো কোন প্রযুক্তিও মানুষ আজ পর্যন্ত আবিষ্কার করতে পারেনাই। হাদিস শরীফেও একাধিকবার বলা হয়েছে যে, মানুষের দুষ্কর্মের জন্যই ভুমিকম্পের মতো মহা দুর্যোগ
ডেকে আনে।
পবিত্র কুরআন এবং হাদিসে আদ, সামুদ, কওমে লুত এবং আইকার
অধিবাসীদের ভুমিকম্পের দ্বারা ধ্বংস
করার কাহিনী বিভিন্ন আঙ্গিকে বর্ণনা করা
হয়েছে। ভাবার বিষয়! সামান্য এই ভূমিকম্পেই সম্পদের মায়া
ছেড়ে আমরা রাস্তায় নামছি। এটা যখন
আরো বাড়বে, তখন সম্পর্কের মায়াও
ছেড়ে দেবো আমরা। নিজেকে
বাচানোর চেষ্ঠায় ব্রতী হবো সবাই।
যখন তাচাইতেও আরো বাড়বে তখন
যেই মা দুধ খাওয়াচ্ছেন তিনিও তার
বাচ্চাকে ছুড়ে ফেলে দেবেন,
গর্ভের শিশুকেও বের করে
দেবেন। ভূমিকম্পের সময় কে কি
অবস্থায় ছিলাম, কে টের পেয়েছে,
কে টের পায়নি, চেয়ার টেবিল
নড়ছিলো কিনা, ফ্যান দুলছিলো কিনা এই
সব গবেষণা পরে করলেও হবে।
আগে করা দরকার তওবা, আল্লাহর কাছে
ক্ষমা চাওয়া। সবচেয়ে বড় কথা হলো এটি
আল্লাহ কর্তৃক একটি নিদর্শন। যাতে
করে মানুষ স্বীয় অপরাধ বুঝতে
সক্ষম হয়। ফিরে আসে আল্লাহর
পথে।
আল্লাহ আমাদের সবাইকে
আন্তরিকতার সাথে খাটি তওবা করার
তাওফিক দান করুন।

এই সংবাদটি 344 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com