বুধবার, ০৪ জানু ২০১৭ ০১:০১ ঘণ্টা

ফেসবুকের জনক জাকারবার্গ ইহুদি থেকে বৌদ্ধ ধর্মে

Share Button

ফেসবুকের জনক জাকারবার্গ ইহুদি থেকে বৌদ্ধ ধর্মে

ডেস্ক রিপোর্ট: ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ নাস্তিক নন। তিনি ধর্মে বিশ্বাস করেন। তার ধর্মীয় বিশ্বাস নিয়ে অনেকদিন ধরে জল্পনা-কল্পনা, নানা বিতর্কের পর এবার তিনি তার অবস্থান পরিষ্কার করেছেন। বড়দিন উপলক্ষে শুভেচ্ছাবার্তায় তিনি এমনটা জানান দেন এক পোস্টে। তাতে তিনি বড়দিন ও হানুক্কা (ইহুদিদের ছুটির দিন) শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তাকে একজন অনুসারী জিজ্ঞেস করেছিলেন তিনি কি একজন নাস্তিক নাকি? জবাবে জাকারবার্গ বলেছেন, তিনি নাস্তিক নন। ধর্ম তার কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তবে তিনি কোনো ধর্মীয় বিধান অনুসরণ করেন কি না, করলে কিভাবে করেন এসব বিষয়ে বিস্তারিত বলেন নি। উল্লেখ্য, জাকারবার্গ বড় হয়েছে ইহুদি পরিবারে। তার স্ত্রী প্রিসিলা চ্যানের মাধ্যমে তিনি বৌদ্ধ ধর্মে আকৃষ্ট হয়ে পড়েন। এরপর গত গ্রীষ্মে তিনি সাক্ষাত করেন পোপের সঙ্গে। প্রযুক্তি খাতে বিলিয়নিয়ার জাকারবার্গ স্বীকার করেছেন তিনি অনেকটা সময় নানা প্রশ্নের মধ্য দিয়ে গিয়েছেন। নিজের কাছে অনেক প্রশ্ন করেছেন। এর ভিতর দিয়ে নিজের ধর্মীয় অবস্থান নির্ণয় করেছেন। তিনি লিখেছেন, আমি বড় হয়েছি ইহুদি পরিবারে। তারপর আমি অনেকটা সময় নানা দ্বিধাদ্বন্দের মধ্য দিয়ে গিয়েছি। কিন্তু এখন আমি বিশ্বাস করি ধর্ম অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তাই তিনি নিজের পক্ষ থেকে, স্ত্রী প্রিসিলা চ্যান, এক বছর বয়সী মেয়ে ম্যাক্স ও তাদের কুকুর বিস্টের পক্ষ থেকে অনুসারীদের বড়দিন ও হানাক্কার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। জাকারবার্গ লিখেছেন, আনন্দের সঙ্গে আমি ফেসবুকে শেয়ার করছি আমার প্রিয় জিনিসগুলোর একটি এবং তা হলো আমাদের সম্প্রদায় নিয়ে (বা ধর্মীয় বিষয় নিয়ে)। আমি আশা করি বন্ধুবান্ধব ও প্রিয়জনরা আপনাদের চারপাশে আছে। তাই জীবনে অর্থপূর্ণ জিনিসগুলো প্রতিফলিত হওয়ার একটি সুযোগ আছে আপনাদের মাঝে। আপনাদের এই বন্ধুত্বের আলো যেন আপনাদের জীবন ও পুরো বিশ্বকে আলোকিত করে। উল্লেখ্য, গত বছর এক সফরে চীনে যান তিনি। তখনই তিনি বৌদ্ধধর্মের প্রতি আকৃষ্ট হন। কারণ, তার স্ত্রী প্রিসিলা বৌদ্ধ ধর্ম অনুসরণ করেন। সেখানে এক বৌদ্ধ মূর্তির সামনে হাঁটু গেঁড়ে দিয়ে নিজে প্রার্থনা করছেন এমন ছবি ফেসবুকে শেয়ারিং দেন। তাতে তিনি লিখেছিলেন, সিয়ানের উইল্ট গুজ প্যাগোডা পরিদর্শনের সুযোগ হয়েছিল আমার। সেখানে আমি বিশ্ব শান্তি, বিশ্ব ও আমার পরিবারের সবার সুস্বাস্থ্য কামনা করেছি। প্রিসিলাও একজন বৌদ্ধ। সে আমাকে তার জন্য প্রার্থনা করতে বলেছিল। বৌদ্ধ ধর্ম এক চমৎকার ধর্ম ও দর্শন। লম্বা সময় নিয়ে আমি এ ধর্ম সম্পর্কে জানার চেষ্টা করছি। এর ভিতরকার গভীর সত্য আমি বুঝতে চেষ্টা করছি। তবে এই গ্রীষ্মে জাকারবার্গ ও প্রিসিলা চ্যান দু’জনে ভ্যাটিকানে সাক্ষাত করেছেন পোপ ফ্রাঁসিসের সঙ্গে। এ নিয়েও জাকারবার্গ পোস্ট দিয়েছেন। এতে তিনি লিখেছেন, পোপের করুণা ও আবেগপ্রবণ বার্তার ভক্ত আমরা। এ কথাই বলেছি পোপকে। তিনি কিভাবে সারাবিশ্বের প্রতিটি ধর্মবিশ্বাসের মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ রাখেন তা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এ ছাড়া বিশ্বে যেসব অঞ্চলের মানুষের ইন্টারনেট সুবিধা নেই তাদেরকে সংযুক্ত করার গুরুত্ব নিয়ে আলোচনা করেছি। আমরা তাকে আমাদের সৌরশক্তি চালিত বিমান আকুইলার মডেল সম্পর্কে ধারণা দিয়েছি। যেসব স্থানের সঙ্গে ইন্টারনেট সংযুক্তি নেই তাদেরকে আকুইলার মাধ্যমে সংযুক্ত করতে চাই। এ সাক্ষাতকারটির কথা আমি কখনো ভুলবো না। তিনি (পোপ) মানুষকে কতটা উষ্ণ, করুণা ও যত্বের সঙ্গে সহযোগিতা করেন তা আপনি অনুভব করতে পারবেন। এরপরেই তিনি আবার চীন সফরে যান। সেখানে আবার তিনি বৌদ্ধ ধর্মে আকৃষ্ট হয়ে পড়েন। এর ফলে তার ধর্মীয় বিশ্বাস নিয়ে নানা কথা চালু হয়। কেউ কেউ বলেন তিনি নাস্তিক। আসলেই কোনো ধর্মে বিশ্বাস করেন না। এর জবাবে জাকারবার্গ বলেছেন, তিনি নাস্তিক নন।

মার্ক জাকারবার্গ::

মার্ক জাকারবার্গ, মার্ক জুকারবার্গ বা মার্ক যুকারবার্গ (ইংরেজি: Mark Elliot Zuckerberg; জন্ম: ১৪ মে, ১৯৮৪) একজন আমেরিকান কম্পিউটার প্রোগ্রামার ও সফটওয়্যার ডেভেলপার। তার পুরো নাম মার্ক এলিয়ট জাকারবার্গ। যার আসল পরিচিতি হল জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ ওয়েবসাইট ফেসবুক প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে। তিনি বর্তমানে ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এবং প্রেসিডেন্ট। জাকারবার্গ এবং তার কয়েকজন সহপাঠী মিলে ২০০৪ সালে এটিকে একটি ব্যক্তি মালিকানা প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেন যখন তিনি হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন। মাত্র ২৬ বছর বয়সেই জাকারবার্গ টাইম ম্যাগাজিনের দৃষ্টিতে বছরের সেরা ব্যক্তিত্বরূপে নির্বাচিত হয়েছেন।
১৯৮৪ সালে নিউইয়র্কের হোয়াইট প্লেইন এলাকাতে মনোচিকিৎসক ক্যারেন ও দন্তচিকিত্‍সক এডওয়ার্ড জাকারবার্গের ঘরে জন্ম নেন মার্ক জাকারবার্গ। জাকারবার্গের তিন বোন রয়েছে, র‍্যান্ডি, ডোনা এবং এরিএল। জাকারবার্গ একজন ইহুদী হিসেবে বেড়ে উঠেছিলেন। কিন্তু বর্তমানে তিনি নিজেকে একজন নাস্তিক হিসেবেই বর্ণনা করেন।
আর্ডসেলি হাই স্কুলে জাকারবার্গ গ্রিক এবং ল্যাটিন ভাষায় পারদর্শী হয়ে ওঠেন। তিনি ফিলিপস এক্সটার একাডেমীতে স্থানান্তরিত হন। সেখানে তিনি বিজ্ঞান এবং ক্লাসিক্যাল শিক্ষায় পুরস্কৃত হন। তিনি অসিক্রীড়া তারকা ছিলেন এবং অসিক্রীড়া দলের অধিনায়ক ছিলেন। কলেজে তিনি মহাকাব্যিক কবিতার লাইন থেকে আবৃত্তি করার জন্য পরিচিত ছিলেন।
২০০৪ সালে হার্ভার্ডে পড়ার সময় বন্ধুদের সাথে মিলে প্রতিষ্ঠা করেন সামাজিক যোগাযোগ ওয়েবসাইট ফেইসবুক ডট কম।
সম্মাননা
২০১০ সালে ফেসবুকের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে মার্ক জাকারবার্গ বিশ্বের সর্বাধিক পঠিত সাপ্তাহিকটাইম ম্যাগাজিন কর্তৃক তাদের প্রচ্ছদে ঠাঁই করে নেন৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক টাইম ম্যাগাজিন ঐ বছর তাকে পারসন অব দ্য ইয়ার হিসেবে মনোনীত করেছিল।

এই সংবাদটি 1,280 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com