নারী ও হিন্দুদের নিয়োগ দেয়া হবে ইসলামী ব্যাংকে

প্রকাশিত: ১১:২৫ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৯, ২০১৭

নারী ও হিন্দুদের নিয়োগ দেয়া হবে ইসলামী ব্যাংকে

ডেস্ক রিপোর্ট: টানা ৩৪ বছর জামায়াতের নিয়ন্ত্রণে থাকার পর বদলে গেল ইসলামী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ। ব্যবস্থাপনায় এসেছে বড় ধরনের পরিবর্তন। একই সঙ্গে ইসলামী ব্যাংকের বিদেশী অংশীদারিত্বেও পরিবর্তন এসেছে। যা কিছু হয়েছে ব্যাংকটির শেয়ারহোল্ডার ও ইসলামিক ডেভেলেপমেন্ট ব্যাংকের (আইডিবি) চাপেই হয়েছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বর্তমানে প্রায় ৬৭ হাজার কোটি টাকার আমানত এবং ৫৫ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ থাকা ইসলামী ব্যাংকের লভ্যাংশ এতদিন কোথায় গেছে, কিভাবে খরচ হয়েছে তা খতিয়ে দেখার কথা ভাবছে সরকার। অন্যদিকে পর্ষদ পরিবর্তন হলেও আপাতত কর্মকর্তা ছাঁটাই করার পরিকল্পনা নেই ব্যাংকটির। কিন্তু কারও বিরুদ্ধে গাড়ি পোড়ানোর অভিযোগ পাওয়া গেলে তাকে তাৎক্ষণিক বরখাস্ত করার ঘোষণা দিয়েছে ইসলামী ব্যাংকের বর্তমান পর্ষদ। ব্যাংকটির চেয়ারম্যান আরাস্তু খান জানিয়েছেন, এতদিন একটি বিশেষ দলের লোকদের কেবল নিয়োগ দেয়া হয়েছে। তবে এখন থেকে নারী ও হিন্দুরাও ইসলামী ব্যাংকে নিয়োগ পাবেন। বলেন, পরিচালনা পর্ষদে খুব শীঘ্রই যোগ দিবেন নারী সদস্য। এছাড়া সিএসআরের অর্থ-অপব্যবহার রোধে কঠোর নীতি গ্রহণ করবে ইসলামী ব্যাংক। অনুমোদন ছাড়া কোন অর্থই ছাড় করা হবে না। অদূর ভবিষ্যতে পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপের (পিপিপি) মাধ্যমে সরকারের বড় বড় প্রকল্পে ইসলামী ব্যাংক কোতোয়ালি থানার এসআই নাজমুল ও এএসআই হাদিবুর রহমান। একইসঙ্গে অর্থায়ন করবে বলে জানান ব্যাংকের চেয়ারম্যান।

জানা গেছে, ১৯৮৩ সালের ১৩ মার্চ বাংলাদেশের প্রথম ইসলামী ব্যাংক হিসেবে এই ব্যাংকের যাত্রা। প্রতিষ্ঠার পর থেকে ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদে জামায়াত নেতারাই ছিলেন। তাদের মধ্য থেকেই চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যানসহ সব স্তরের কর্মকর্তাদের নিয়োগ দেয়া হতো। বিভিন্ন সময়ে জঙ্গী কর্মকা-সহ রাজনৈতিক সহিংসতায় অর্থায়নের অভিযোগ ওঠে ইসলামী ব্যাংকের বিরুদ্ধে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ব্যাংকটিকে জামায়াতমুক্ত করে সরকারের নিয়ন্ত্রণে নেয়ার প্রস্তাব দেয় বিভিন্ন মহল। বিষয়টি তদন্তের জন্য প্রভাবশালী একটি গোয়েন্দা সংস্থাকে দায়িত্ব দেয়া হয়। এরপর ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের পর ব্যাংকটিকে জামায়াতমুক্তর কাজ শুরু হয়। এরই অংশ হিসেবে ২০১৫ সালের জুন মাসে পরিবর্তন আনা হয় পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান পদে। জামায়াত নেতা সাবেক চেয়ারম্যান আবু নাসের মুহাম্মদ আবদুজ জাহেরের স্থানে বসানো হয় প্রকৌশলী মোস্তফা আনোয়ারকে। অবশ্যই এর আগে ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে ক্ষতিকর কার্যকলাপ প্রতিরোধে এই ব্যাংকটিতে বিশেষ নিয়ন্ত্রণ আরোপ করে বাংলাদেশ ব্যাংক। এ কারণে ব্যাংকটি উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) নিয়োগের বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদনের বাধ্যবাধকতা সৃষ্টি করে। এরপর পরিচালনা পর্ষদ থেকে বিদায় নেন অধ্যাপক ড. একে এম সদরুল ইসলাম, ব্যারিস্টার মুহাম্মদ বেলায়েত হোসেন, মোঃ আবদুস সালাম, হুমায়ুন বখতিয়ার, ইঞ্জিনিয়ার ইস্কান্দার আলী, ড. আবদুল হামিদ ফুয়াদ আল খতিব, মোঃ আবুল হোসাইন, নাসের আহমদ আল খোন্দকার এবং এএইচজি মহিউদ্দিন। এই পরিচালকদের সরিয়ে বসানো হয় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক সামীম মোহাম্মদ আফজাল, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক সৈয়দ আহসানুল আলম, পূবালী ব্যাংকের সাবেক এমডি হেলাল আহমদ চৌধুরী ও এম আযিযুল হককে। গত বৃহস্পতিবার রাজধানীর একটি হোটেলে অনুষ্ঠিত পরিচালনা পর্ষদের সভায় ইসলামী ব্যাংকের শীর্ষ পর্যায়ে ব্যাপক রদবদল করা হয়। পুনর্গঠন করা হয় পরিচালনা পর্ষদ। পর্ষদের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মোস্তফা আনোয়ারকে সরিয়ে নতুন চেয়ারম্যান করা হয় সাবেক সচিব আরাস্তু খানকে। ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদে যোগ দেন বিডিবিএলের সাবেক এমডি জিল্লুর রহমান, সাবেক অতিরিক্ত আইজিপি আবদুল মাবুদ, অধ্যাপক ডাঃ কাজী শহিদুল আলম ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের সেন্ট্রাল প্রকিউরমেন্ট টেকনিক্যাল ইউনিটের সদস্য বোরহান উদ্দিন আহমেদ। একইভাবে নিয়োগ পান মেজর জেনারেল (অব) ইঞ্জিনিয়ার আবদুল মতিন, মোঃ সাইফুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. মোঃ সিরাজুল করিম, আইনজীবী মিজানুর রহমান, রূপালী ব্যাংকের সাবেক ডিএমডি জয়নাল আবেদীন, শাইনপুকুর সিরামিকস লিমিটেডের সিইও মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির। তবে আইডিবির প্রতিনিধি ড. আরেফ সুলেমান আগের অবস্থানে রয়েছেন। বর্তমানে ইসলামী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদে ১৬ জন পরিচালক। এর মধ্যে ৭ জনই স্বতন্ত্র পরিচালক। এর আগে এই ব্যাংকে পরিচালকের সংখ্যা ৯ থেকে ১১ জনের মধ্যে সীমিত ছিল। ওই পর্ষদ সভা থেকে পদত্যাগ করেন ব্যাংকের এমডি মোহাম্মদ আবদুুল মান্নান। ইউনিয়ন ব্যাংকের এমডি আবদুল হামিদ মিঞা আগামী সপ্তাহেই নতুন এমডি হিসেবে দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন বলে সূত্র জানিয়েছে। এদিকে ইসলামী ব্যাংক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান হিসেবে সাবেক সচিব সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম ও ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক সামীম মোহাম্মদ আফজালকে নির্বাচিত করা হয়। নতুন নেতৃত্ব ১২ ও ১৩ জানুয়ারি সোনারগাঁও হোটেলে সব শাখার প্রধানদের সম্মেলনে দিকনির্দেশনা দেবে। ইসলামী ব্যাংকের মালিকানায় বড় পরিবর্তনকে একটি বেসরকারী ব্যাংকের অভ্যন্তরীণ বড় সংস্কার হিসেবে দেখছেন বিশিষ্ট ব্যাংকার ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গবর্নর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ। তিনি জনকণ্ঠকে বলেন, এতদিন ব্যাংকটি জামায়াতে ইসলামীর একটি প্রতিষ্ঠান হিসেবে পরিচিত ছিল। এ পরিচয় থেকে বের হয়ে আসার একটা প্রচেষ্টা দেখা যাচ্ছে। এতে জামায়াতপন্থী নন এমন মানুষদের কাছে ইসলামী ব্যাংকের গ্রহণযোগ্যতা ও আস্থা আরও বাড়বে।

এদিকে পরিচালনা পর্ষদের এই আমূল পরিবর্তনে দেশী ব্যবসায়ীদের মালিকানা বাড়ছে ইসলামী ব্যাংকে। পাশাপাশি বিদেশীদের অংশীদারিত্ব কমছে। মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক উদ্যোক্তাদের একটা অংশ ইসলামী ব্যাংক থেকে নিজেদের শেয়ার বিক্রি করে দিচ্ছে। প্রতিষ্ঠার সময়ে ইসলামী ব্যাংকে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক দেশগুলোর বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে বিনিয়োগ ছিল ৭০ শতাংশ। বর্তমানে তা ৫২ শতাংশে নেমেছে। এসব কিনে নিয়েছেন দেশী ব্যবসায়ীরা। এছাড়া শেয়ারবাজারে গত বছরের শেষে বিদেশী বিনিয়োগকারীদের পোর্টফোলিও বিনিয়োগ ছিল ১১ দশমিক ১১ শতাংশ। গত ডিসেম্বর শেষে তা ৬ দশমিক ৩৯ শতাংশে নেমে এসেছে। দেশী উদ্যোক্তা যারা ইতোমধ্যে ইসলামী ব্যাংকের শেয়ার কিনেছেন তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো প্লাটিনাম এনডেভার্স, প্যারাডাইস ইন্টারন্যাশনাল, ব্লু ইন্টারন্যাশনাল, এবিসি ভেঞ্চার, গ্রান্ড বিজনেস, এক্সেল ডায়িং এ্যান্ড প্রিন্টিং, হযরত শাহজালাল (র.) ইন্ডাস্ট্রিয়াল সিটি। এ প্রতিষ্ঠানগুলো গত বছরের মে থেকে পরবর্তী ৭-৮ মাসের মধ্যে শেয়ারবাজার থেকে শেয়ার কিনেছে। অবশ্য হযরত শাহজালাল (র.) ইন্ডাস্ট্রিয়াল সিটি এরই মধ্যে পুরো শেয়ার বিক্রি করে দিয়েছে বলে জানা গেছে। ইসলামী ব্যাংকের ওয়েবসাইট থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, জর্ডান ইসলামিক ব্যাংক, কাতারের ইসলামিক ইনভেস্টমেন্ট এ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কর্পোরেশন, দুবাই ইসলামিক ব্যাংক এবং বাহরাইন ইসলামিক ব্যাংক উদ্যোক্তা হিসেবে ব্যাংকটি প্রতিষ্ঠাকালে বিনিয়োগ করেছিল। তবে এখন ইসলামী ব্যাংকে এ প্রতিষ্ঠানগুলোর কোন শেয়ার নেই। এর মধ্যে দুবাই ইসলামিক ব্যাংক এবং বাহরাইন ইসলামিক ব্যাংক ২০১৪ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে শেয়ারবাজারের মাধ্যমে নিজেদের পুরো শেয়ার বিক্রি করেছে। অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোর শেয়ার বিক্রির তথ্য পাওয়া যায়নি। এদিকে কুয়েতের সরকারী ব্যাংক কুয়েত ফাইন্যান্স হাউসও নিজের প্রায় সাড়ে ৮ কোটি ৪৫ লাখ ৬৩ হাজার ৭৮২টি শেয়ার বিক্রির উদ্যোগ নিয়েছে, যা ইসলামী ব্যাংকের মোট শেয়ারের সোয়া ৫ শতাংশেরও বেশি।

ইসলামী ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে প্রায় ৬৭ হাজার কোটি টাকার আমানত এবং ৫৫ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ রয়েছে। বিনিয়োগের উল্লেখযোগ্য অংশ কৃষি, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে। দেশের মোট রেমিটেন্সের এক-তৃতীয়াংশ আসছে ৩১২টি শাখার এ ব্যাংকের মাধ্যমে। আমদানি ও রফতানি বাণিজ্যের উল্লেখযোগ্য অংশও হচ্ছে এ ব্যাংকের মাধ্যমে। অন্য ব্যাংকের তুলনায় মুনাফায়ও এ ব্যাংক এগিয়ে আছে। রবিবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে দুপুরে মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির নবনির্বাচিত (এমসিসিআই) কমিটির সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ব্যবসার দিক দিয়ে ইসলামী ব্যাংক এক নম্বর ব্যাংক। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মুহিত বলেন, ইসলামী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদে সাম্প্রতিক যে পরিবর্তন তা ব্যাংকটির জন্য ভাল হয়েছে। ‘ইয়েস, ইট লুকস গুড…।’ তবে তাদের মুনাফা আসলে কোথায় যায়, এটা নিয়ে একটা প্রশ্ন তো ছিলই। ইসলামী ব্যাংকের ফরেনার পার্টনার চেঞ্জ হয়েছে। তিনি বলেন, ইসলামী ব্যাংকের মূল বিনিয়োগকারী ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (আইডিবি) চেয়েছে বলেই ইসলামী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদে পরিবর্তন এসেছে। অন্যান্য বিনিয়োগকারীও এ পরিবর্তন চেয়েছে। ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের এ পরিবর্তন অর্থনৈতিক সুশাসন প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে কোন প্রভাব ফেলবে না। ব্যাংকিং ব্যবস্থাপনায় মূল বিষয় হলো গ্রাহকসেবা নিশ্চিত করা, সেটা অব্যাহত থাকবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ব্যাংকটিতে অনেক সমস্যা ছিল। এর মালিকানাতেও পরিবর্তন এসেছে। কমনসেন্স বলে ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদে আরও পরিবর্তন আসবে। এর মাধ্যমে কোন শিল্পগোষ্ঠীর হাতে ব্যাংকটির মালিকানা চলে যাচ্ছে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, এ বিষয়ে তার কিছু জানা নেই। ইসলামী ব্যাংক কোন ব্যবসায়ী গ্রুপের দখলে যাচ্ছে কিনা- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ব্যবসায়ী গ্রুপের হাতে যাচ্ছে কি-না সে বিষয়ে এখনও কিছু বলতে পারছি না। কোন্ কোন্ গ্রুপ জড়িত তাও বলতে পারছি না। তবে নতুন পরিচালনা পর্ষদে যারা এসেছেন, তাদের আমার কাছে ভাল মনে হয়েছে। তাদের দুজন আমার পরিচিত। আই লুক গুড।

এদিকে, গত বৃহস্পতিবার ইসলামী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ এবং ব্যবস্থাপনায় বড় ধরনের পরিবর্তনের পর জরুরী সংবাদ সম্মেলন ডাকে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। দায়িত্ব নেয়ার পর নতুন চেয়ারম্যান হিসেবে সাংবাদিকদের সামনে বক্তব্য রাখেন সাবেক সচিব আরাস্তু খান। রবিবার মতিঝিলের ইসলামী ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে জরুরী সংবাদ সম্মেলনে আরাস্তু খান বলেন, এতদিন একটি বিশেষ দলের লোকদের কেবল নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এখন থেকে নিয়োগ প্রক্রিয়া আরও স্বচ্ছ করা হবে। দেশের সব শ্রেণীর মেধাবীরা যেন এ ব্যাংকে নিয়োগ পেতে পারেন সে ব্যাপারে উদ্যোগ নেয়া হবে। এছাড়া সিএসআরের অর্থ অপব্যবহার রোধে কঠোর নীতি গ্রহণ করা হবে। অনুমোদন ছাড়া কোন অর্থই ছাড় করা হবে না। তিনি বলেন, তবে ব্যাংকের দর্শন বা মৌলিক নীতির কোন পরিবর্তন হবে না। আগের মতোই শরিয়াহ অনুযায়ী এ ব্যাংক পরিচালিত হবে।

নতুন নেতৃত্বে আসায় ইসলামী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনায় পরিবর্তন হলেও ব্যাংক আগের নিয়মেই পরিচালিত হবে জানিয়ে আরাস্তু খান বলেন, এ ব্যাংকে যারা নিচের পদে কর্মরত তাদের কারও চাকরি যাবে না। এ কারণে এ ব্যাংকের প্রতি দেশের জনগণের আস্থাও অটুট থাকবে। পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপের (পিপিপি) মাধ্যমে সরকারের বড় বড় প্রকল্পে ইসলামী ব্যাংক অর্থায়ন করবে। চেয়ারম্যান বলেন, ইসলামী ব্যাংকের সম্পদের পরিমাণ অনেক। এ ব্যাংকের মাধ্যমে সরকারের বড় বড় প্রকল্পে অর্থায়ন হবে। কারণ সরকার কখনও ঋণখেলাপী হয় না। তাই মুনাফা কম হলেও অর্থ মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে এসব প্রকল্পে অর্থায়ন হবে। তিনি বলেন, পরিবর্তন দেশে হয়, সমাজে হয়। তেমনিভাবে ইসলামী ব্যাংকের ম্যানেজমেন্টেও পরিবর্তন হয়েছে। তবে এটি শরিয়াহসম্মতভাবে চলবে। এর আইনকানুন কঠোরভাবে অনুসরণ করা হবে।

ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক সৈয়দ আহসানুল আলম বলেন, সিএসআরের একটি টাকাও আর চোখ বুজে ব্যয় করা হবে না। অপব্যবহার রোধে আরও উদ্যোগ নেয়া হবে। এখন থেকে দেশের কল্যাণে সিএসআরের অর্থ ব্যয় করা হবে। তবে তিনি আট মাস আগে ব্যাংকে যোগ দেয়ার পর তদন্ত করে সিএসআরের কোন অর্থই অপব্যবহার হয়নি বলে দাবি করেন। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সৈয়দ আহসানুল আলম বলেন, আগে পরিচালনা পর্ষদ ভাল ছিল। তবে তাদের দিকে তীর্যক প্রশ্ন ছিল সবার। তারা ছিলেন প্রশ্নবিদ্ধ।

তিনি আরও উল্লেখ করেন, কোন অবস্থাতেই এ ব্যাংকের নাম পরিবর্তন করা হবে না। ইসলামী ব্যাংক পরিচালনার ক্ষেত্রে দর্শন বা মৌলিক নীতির কোন পরিবর্তন করা হবে না। আগে এ ব্যাংকে ইসলাম বেচাকেনা হয়েছে দাবি করে সৈয়দ আহসানুল আলম বলেন, এখন থেকে প্রকৃত ইসলামী দর্শনে চলবে এ ব্যাংক। এ ব্যাংককে গরিব মানুষের ব্যাংক বলা হলেও মাত্র ৪ শতাংশ অসহায়-গরিব মানুষ এ ব্যাংক থেকে ঋণ পেয়েছেন। এখন থেকে ১০ শতাংশ গরিব মানুষ এ ব্যাংক থেকে ঋণ পাবেন। তিনি বলেন, ১০ লাখ নারী উদ্যোক্তাকে এসএমই ঋণ দেয়া হবে।—
সুত্র-জনকন্ঠ

এই সংবাদটি 2 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com