মঙ্গলবার, ১০ জানু ২০১৭ ০১:০১ ঘণ্টা

গুরু’র জন্মদিনে না বলা কিছু কথা!

Share Button

গুরু’র জন্মদিনে না বলা কিছু কথা!

এম জে এইচ জামিল:
২০০১ সালে এসএসসি পাশ করেই শান্ত সুনিবিড় গ্রাম ছেড়ে এসেছিলাম ইট-সুরকীর দেয়ালে ঘেরা পুন্যভুমি সিলেটে। শহরে আসার পর থেকে নানা প্রতিকুলতার মাঝেই নিজের লেখা-পড়া চালিয়ে যাচ্ছিলাম। তখন একমাত্র উপায় ছিল টিউশনি করে নিজের খরচ মেটানো। এভাবেই কেটে গিয়েছিল প্রায় ৫ বছর । লেখালেখিতে হাতেকড়ি ছিল ছোটবেলা থেকেই। কবিতা লিখতাম মাঝে মাঝে। তবে সাংবাদিকতা করবো কিংবা সাংবাদিক হবো এমনটা ইচ্ছা ছিলনা কখনোই। ২০০৬ সালে নগরীতে সাংবাদিকতায় আগ্রহী তরুন লেখকদের নিয়ে অনুষ্ঠিত একটি সাংবাদিক কর্মশালায় পরিচয় হয়েছিল সদা হাস্যোজ্জল চির তরুন Salim Awal সেলিম আউয়াল ভাইয়ের সাথে। একদিনের কর্মশালায় প্রায় অর্ধশতাধিক প্রশিক্ষনার্থীদের মধ্যে থেকে আমি অধম ভাইয়ের দৃষ্টিতে পড়ে গেলাম। লেকচারের মাঝখানে মোবাইল নাম্বারটি চেয়ে নিয়েছিলাম। তারপর একদিন ফোন দিয়ে চলে গিয়েছিলাম আম্বরখনা সিলসিলার পেছনে অবস্থিত সিফডিয়া অফিসে। যেখান থেকে অনেকেই সাংবাদিকতা শুরু করে আজ দেশের গন্ডি পেরিয়ে বিদেশেও যোগ্যতার উজ্জল স্বাক্ষর রেখে যাচ্ছেন। আর তা কেবল সম্ভব হয়েছিল গুরু’র অকৃতিম ভালবাসা ও স্বপ্ন জাগানিয়া প্রেরনার বলে।
সেদিন থেকেই গুরু আমাকে বললেন-তুমি ইচ্ছা করলে আজ থেকে অথবা কাল থেকে কাজ শুরু করে দিতে পারো। তিনি এও বলেছিলেন যে তোমার টিউশনি যেন হাতছাড়া না হয়ে যায়। প্রয়োজনে তুমি দিনের নিউজগুলা করবে আর বিকেল এবং রাতে তোমার টিউশনি চালিয়ে যাবে। তখন আমার বাসা ছিল মেজরটিলায়। তাই বাই সাইকেলে করে মদন মোহন কলেজে আসতাম।প্রায় সময় বাসায় না গিয়ে দুপুরে হালকা নাস্তা করে সিফডিয়াতে সময় দিতাম। বিকেলে গিয়ে টিউশনিতে সময় দিতাম। আর এখান থেকেই আমার সাংবাদিকতার শুরু। এরপর এখানে কাজ করা কালিন সময়েই সিলেটের একটি নতুন স্থানীয় পত্রিকায় স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে নিয়োগ পেলাম। আর তা কেবলই হয়েছিলো গুরু’র ভালবাসা ও প্রেরনার কল্যানে। আজ অবধি সাংবাদিক হতে পেরেছি কিনা সেটা বলতে পারিনা। তবে এইটুকু বলতে পারি । সাংবাদিকতার বিশাল এই জগতে আমার আসা ছিল গুরুর দাক্ষিন্য।
আজ গুরু’র জন্মদিন। নিজ কর্মগুনে মহিয়ান, বলিয়ান এই গুরুকে নিয়ে কলম ধরার ইচ্চা থাকলেও সাহসে কুলায় না। তবুও গুরুর প্রতি শ্রদ্ধা আর ভালবাসার আবেগে কয় লাইন লিখে ফেললাম। ভাল থাকেন গুরু। আপনার জীবনের প্রতিটি ক্ষন হোক হাজারো তরুনের স্বপ্ন জাগানিয়া প্রেরনার মসনদ। সুখ-সমৃদ্ধি আর ভালাবাসার ফাগুনে ভরে থাকুক আপনার জীবনের প্রতিটি মুহুর্ত। জন্মদিনের অনেক অনেক শুভেচ্ছা । শুভ জন্মদিন গুরু।
পরিশেষে একটি কালজয়ী গানের সুরে বলতে ইচ্ছে করছে-
হে আমার গুরু দক্ষিনা
গুরুকে জানাই প্রনাম।
যার শুভ প্রেরনায় আমি
লেখালেখির জগতে এলাম।।20170110120736

এই সংবাদটি 1,073 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com