বুধবার, ১১ জানু ২০১৭ ১২:০১ ঘণ্টা

তিন ভারতীয় চ্যানেলের পক্ষে আইনজীবী নিয়োগ

Share Button

তিন ভারতীয় চ্যানেলের পক্ষে আইনজীবী নিয়োগ

ডেস্ক রিপোর্ট:  বাংলাদেশে ভারতীয় তিন টিভি চ্যানেলের সম্প্রচার বন্ধে জারিকৃত রুলের ওপর হাইকোর্টে শুনানি চলছে। বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি জেবিএম হাসানের ডিভিশন বেঞ্চে এ শুনানি হচ্ছে। টিভি চ্যানেলগুলো হচ্ছে- স্টার জলসা, স্টার প্লাস ও জি বাংলা। চ্যানেলগুলোর পক্ষে লড়তে আইনজীবী  নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। আদালতে আজ ওই তিন ভারতীয় চ্যানেলের পক্ষে শুনানি করছেন আবদুল মতিন খসরু ও ব্যারিস্টার শামসুর রহমান। রিট আবেদনকারীর পক্ষে শুনানিতে অংশ নিচ্ছেন একলাছ উদ্দিন ভূইয়া।
২০১৪ সালের জুলাই মাসে রোজার ঈদকে সামনে রেখে স্টার জলসায় প্রচারিত ‘বোঝেনা সে বোঝেনা’ সিরিয়ালের পাখি চরিত্রের নামে পোশাক কিনতে না পেরে বাংলাদেশে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে পত্র পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়। সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী শাহিন আরা লাইলী ওই তিন টিভি চ্যানেল বাংলাদেশে সম্প্রচার বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট করেন। ওই বছরের ১৯ অক্টোবর হাইকোর্ট রুল জারি করেন। রুলে বাংলাদেশে ভারতীয় তিন টিভি চ্যানেলের সম্প্রচার বন্ধে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না তা জানতে চাওয়া হয়। গত রোববার ও সোমবার এ রুলের ওপর শুনানি হয়।

এই সংবাদটি 1,046 বার পড়া হয়েছে

সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে আলাপে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি নাগরিক বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার বিভিন্ন ঘটনা ও স্মৃতি নিয়ে গত বৃহস্পতিবার একটি বই প্রকাশ করেছেন ক্যামেরন। খবর নিউজউইক।  ‘ফর দ্য রেকর্ড’ নামক বইটিতে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সু চির সঙ্গে তার আলাপও তুলে ধরেছেন। যেখানে রোহিঙ্গারা বার্মিজ নয় বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের নেত্রী।  ১৯৯১ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার জয়ী সু চির সঙ্গে প্রথম আলাপ তুলে ধরে ক্যামেরন বইতে লেখেন, ‘আমি গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির সাথে বৈঠক করি। তিনি শিগগিরই প্রেসিডেন্ট পদে লড়াই করবেন। ১৫ বছরের গৃহবন্দীত্ব থেকে সত্যিকার গণতন্ত্রের পথে যাত্রা, তার এ দারুণ গল্প নিয়েই আমরা কথা বলেছি।’  কিন্তু মাত্র এক বছর পরেই ক্যামেরন যখন সু চির সাথে লন্ডনে সাক্ষাৎ করেন তখন দেশটির অবস্থা, বিশেষ করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিষয়ে সু চির অবস্থান নিয়ে স্মৃতিকথায় বিরক্তি প্রকাশ করেছেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। তিনি লেখেন, ‘কিন্তু ২০১৩ সালের অক্টোবরে সু চি যখন লন্ডন সফরে আসেন, সবার চোখ তখন রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর। তাদের নিজ বাসস্থান থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছিল বৌদ্ধ রাখাইনরা। ধর্ষণ, হত্যা, জাতিগত নিধনসহ অনেক কিছুই আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম। আমি তাকে বললাম, বিশ্ব সব দেখছে। তিনি উত্তর দিলেন, তারা আসলে বার্মিজ নয়, তারা বাংলাদেশি।’  রোহিঙ্গাদের নিয়ে এ বক্তব্য এমন সময় এল যখন জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন তাদের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যেখানে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হওয়া সহিংসতার দিকে মিয়ানমার সরকার নজর দিচ্ছে না। প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমার গণহত্যার তদন্ত ও এতে জড়িত অপরাধীদের শাস্তি কার্যকর করতে ব্যর্থ হয়েছে।
সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে আলাপে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি নাগরিক বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। ২০১০ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার বিভিন্ন ঘটনা ও স্মৃতি নিয়ে গত বৃহস্পতিবার একটি বই প্রকাশ করেছেন ক্যামেরন। খবর নিউজউইক। ‘ফর দ্য রেকর্ড’ নামক বইটিতে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সু চির সঙ্গে তার আলাপও তুলে ধরেছেন। যেখানে রোহিঙ্গারা বার্মিজ নয় বলে দাবি করেছেন মিয়ানমারের নেত্রী। ১৯৯১ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার জয়ী সু চির সঙ্গে প্রথম আলাপ তুলে ধরে ক্যামেরন বইতে লেখেন, ‘আমি গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সু চির সাথে বৈঠক করি। তিনি শিগগিরই প্রেসিডেন্ট পদে লড়াই করবেন। ১৫ বছরের গৃহবন্দীত্ব থেকে সত্যিকার গণতন্ত্রের পথে যাত্রা, তার এ দারুণ গল্প নিয়েই আমরা কথা বলেছি।’ কিন্তু মাত্র এক বছর পরেই ক্যামেরন যখন সু চির সাথে লন্ডনে সাক্ষাৎ করেন তখন দেশটির অবস্থা, বিশেষ করে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিষয়ে সু চির অবস্থান নিয়ে স্মৃতিকথায় বিরক্তি প্রকাশ করেছেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। তিনি লেখেন, ‘কিন্তু ২০১৩ সালের অক্টোবরে সু চি যখন লন্ডন সফরে আসেন, সবার চোখ তখন রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর। তাদের নিজ বাসস্থান থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছিল বৌদ্ধ রাখাইনরা। ধর্ষণ, হত্যা, জাতিগত নিধনসহ অনেক কিছুই আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম। আমি তাকে বললাম, বিশ্ব সব দেখছে। তিনি উত্তর দিলেন, তারা আসলে বার্মিজ নয়, তারা বাংলাদেশি।’ রোহিঙ্গাদের নিয়ে এ বক্তব্য এমন সময় এল যখন জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন তাদের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যেখানে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হওয়া সহিংসতার দিকে মিয়ানমার সরকার নজর দিচ্ছে না। প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমার গণহত্যার তদন্ত ও এতে জড়িত অপরাধীদের শাস্তি কার্যকর করতে ব্যর্থ হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com