সাবেক এমপি মাওলানা ওবায়দুল হক উজিরপুরী (র)

প্রকাশিত: ৯:৫৪ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৬, ২০১৭

সাবেক এমপি মাওলানা ওবায়দুল হক উজিরপুরী (র)

মুফতী সালাতুর রহমান মাহবুব : বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ, বেফাকুল মাদারিস’র (কওমী মাদরাসা বোর্ড) সাবেক সহ সভাপতি ও আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তা’লীম বাংলাদেশ  সভাপতি রানাপিং মাদরাসার শাইখুল হাদীস আল্লামা ওবায়দুল হক (রহ.) উজিরপুরী এদেশের মুসলিম মনিষিদের মধ্যে অতুলনীয় এক উজ্জ্বল নক্ষত্র ছিলেন। তিনি ছিলেন একজন প্রখ্যাত মুহাদ্দিস, মুফাসসির, শিক্ষাবীদ, রাজনীতিবাদ ও পার্লামেন্টারিয়ান।আমাদের জাতীয় ও সমাজ জীবনে তাঁর রয়েছে বহুমুখী  ও বিশাল অবদান। কুরআন, হাদিস, ফেক্বাহ,আরবী ও উর্দু সাহিত্য, ইসলামি শিক্ষা বিস্তার ও পার্লামেন্টারিয়ান সাধনার প্রতিটি ক্ষেেএ  ছিলেন অনুসরনীয় ব্যক্তিত্ব । তঁার জ্ঞান চরচা কেন্দ্রীভূত ছিল ইসললামী দরশন ভিিওক  সব্স্তরে শান্তি প্রতিষ্টিার লক্ক্যে, যা সাধারণ মানুষের চিন্তার ও মুক্তির বাতারুপে  গৃহীত হয়েছে।
বিশ শতকের প্রথমার্ধ  এদেশে বিশুদ্ধ  ইসলামি জ্ঞান চরচার পথ সুগম ছিল না। পরাধীনতার তখন নানাভাবে মুসলমানদের উন্নয়ন ও অগ্রযাএার পথে প্রতিবন্ধক  হয়েছিল। ব্রিটিশের আগ্রাসী তৎপরতায় উপমহাদেশের মুসলিম ঐতিহ্য ও ইসলামী সংস্কৃতি, রাজনীতি তখন নানাভাবে বাধাগ্রস্ত ছিলো । মুলত ঐ সময়টা ছিল এদেশের মুসলমানদের ধরমীয়, রাজনৈতিক,  সামাজিক, অথনৈতিক প্রতিটি ক্ষেেএয়  অধঃপতনের ।  এমনি যুগ সন্ধিক্ষণে শাইখুল হাদিস আল্লামা ওবায়দুল হক (রহ.) জন্ম গ্রহণ করেন।
আল্লামা ওবায়দুল হক (রহ.) বাংলাদেশের আধ্যাত্মিক রাজধানি খ্যাত সিলেট জেলার জকিগন্জ উপজেলার উজিরপুর গ্রামে ১৯৩৪ সালে জন্মগ্রহন করেন। শিশুকাল  থেকেই তঁার  শিক্ষা – দীক্ষার সূচনা হয়েছিল পরিপূর্ণ  ইসলামী আবহে । কৈশোরের সীমা অতিক্রম করা পযন্ত সুযোগ্য পিতা-মাতার তও্বধানে  প্রাথমিক শিক্ষা সম্পন্ন করেন।  তখন তার গ্রাম ও পাশ্ববতী এলাকায় কোনো মাদরাসা ছিল না। এই অবস্তায়ই তিনি নিজ গ্রামের পাশেই একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভতি হন। সেখানে ৫ম শ্রেনি পযন্ত লেখা পড়া করেন।  তার পর দুবাগ জুনিয়রর হাই স্কুলে ভতি  হয়ে অষ্টম শ্রেনি পযন্ত লেখা পড়া করেন।  প্রথম মেধা শক্তির অধিকারী এ বালকের প্রতি মন্তব ও স্কুলের শিক্ষকবৃন্দের দৃষ্টি আকষিত হলো । ইতো পূবে তার উপর দৃষ্টি  পড়ে আরেক রত্নের,তিনি হলেন সমাজ ইসলামি শিক্ষার প্রচার ও প্রসারের নিবেদিত প্রাণব্যক্তিত্ব মাওলানা আমানুদ্দীন  উজির পুরী।

ফাযিলে দেওবন্দ আল্লামা ওবায়দুল হক’র মেধা ও জ্ঞান পিপাসা দেখে তিনি তার পিতা-মাতার পরামর্শে তার তত্ত্বাবধানেই তিনি রানাপিং  মাদরাসায় ভতি হয়েছিলেন। ফলে অল্প  দিনের মধ্যেই চতুরদিকে তঁার  খ্যাত ছড়িয়ে পড়ে।  সেখান থেকে কৃতিত্বের সাথে লেখা পড়া সম্পান করে উচ্চ শিক্ষার জন্য তিনি ঢাকার বড়কাটার আশরাফুল উলূম মাদরাসায় ভতি হন।  তথায় আল্লামা যাকারিয়া (রহ.) এর শাগরিদ আল্লামা মুহিবুর রহমান যারোকাড়ি ও পীরজী হুজুর প্রমুখ এর তত্বাবধানে ইসলাম বিষয় শিক্ষা অরজন করেন।  পরে সেখান  থেকে উচ্চ শিক্ষা সম্পনে করে তঁার  আপন উস্তাদ আল্লামা রিয়াছত আলী (রহ.) এর নির্দেশে কানাইঘাট উপজেলা লালার চকস্ত একটি মাদ্রাসায় শিক্ষক হিসেবে যুগদেন।  ঐ মাএ ৩/৪  মাস শিক্ষকতার   মাঝেই  আল্লামা রিয়াছত  আলী (রহ.) র অভিপ্রায়  তার কাছে পৌছার পর ১৯৬০ সালে রানাপিং মাদরাসায় শিক্ষকতা শুরু করেন।

শিক্ষকতার দীঘ জীবনে আল্লামা ওবায়দুল হক ছিলেন একজন নিবেদিত প্রাণ আদর্শ শিক্ষক। শিক্ষাজ্ঞনে তার বিরামহীন গতি অন্য থেকে আলাদা অবস্তানে নিয়ে আসে। তিনি হয়ে ওঠেন সবার প্রিয় শিক্ষক। একজন আদর্শ  শিক্ষকের প্রোজ্জ্বল উদাহরণ হয়ে ওঠেন তিনি। দীর্ঘকাল যাবত শাইখুল হাদিসের পদে অদিষ্টত থেকে ঈষণীয় সাফল্য অজনে সক্কম হন। তঁার  শিক্ষকতা জীবনের অম্লান স্তৃতি বহুকাল পযন্ত  ধরে রাখবে  ঐতিহ্যবাহী  রানাপিং মাদরাসা। রানাপিং এর মাটি মানুষ তাদের প্রিয় উজিরপুরী হুজুরকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ রাখবে কালের পর কাল।  ইসলাম যেহেতু পূণাঈ  জীবন ব্যবস্থার নাম, সেহেতু মাওলানা ওবায়দুল হক (র:) শিক্ষকতার পাশাপাশি রাজনৈতিক কম্কান্ডের সাথে জরিত হন ।
তিনি ছাত্র জীবনে জমিয়াতুওালাবা গঠনের মাধ্যমে ছাত্র রাজনীতির অঙ্গনে সম্পৃক্তহন। উল্লেখ্য জমিয়াতুওলাবা ছিল ক্বওমি মাদ্রাসায় ইতিহাসে গঠিত প্রথম ছাত্র সংগঠন । এটা ১৯৫৪ সালে ঢাকা উওর রানাপিং মাদরাসা থেকে যাএা শুরু করেন ।
রাজনৈতিক অঙ্গনে তাঁর হাতেখরি হয় শাইখুল হাদীস আল্লামা মুশাহিদ বায়ুমপুরী ও আল্লামা রিয়াছত আলী (র:)’র হাতে ! ১৯৮১ সালে হযরত মুহাম্মদ উল্লাহ হাফিজ্জী হুজুরের প্রসিডেন্ট নিবাচনে অংশ গ্রহণ করে আলেম সমাজকে ঐক্যবদ্ধ প্লাটফরমে একিভূত করেন । তিনি হাফেজ্জী হুজূরের প্রতিষ্ঠিত খেলাফত আন্দোলনে যোগদেন । কিছুদিন পর খেলাফত আন্দোলনে বিভক্তির সৃষ্টি হলে দেশের শীষস্থানীয় উলামায়ে কেরাম, ইসলামী চিন্তাবীদ ও বুদ্ধিজীবির সমন্বয়ে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিশ নামে নতুন রাজনৈতিক দল হিসাবে আত্নাপ্রকাশ করে । তখন তিনি শাইখুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হক র: এর হাত ধরেই সেই থেকেই তিনি বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের সকি্যয় কমী হিসাবে রাজনীতির ময়দানে অগ্ণী ভূমিকা পালন করেন !
এক পযায়ে তিনি বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের নায়েবে আমির,ভারপ্রাপ্ত আমির, আমূতু দলের অভিভাবক পরিসদের চেয়ারমান পদ অলংকৃত করেন । স্বীয় মেধা ও যোগ্যতায় তিনি দলের কেন্দীয় নেতৃত্ব যথারীতি চািলয়ে যান । খেলাফত মজলিসের কেন্দ্র ঘোষিত সবকটি গুরুত্বপূর্ণ আন্দোলন সংগ্রামে আল্লামা ওবায়দুল হক প্রথম সারি থেকে নেতৃত্ব দিয়ে দেশ-জাতি ও ইসলামের সিপাহসালারের ভৃমিকা পালন করেন ,নাস্তিক মুরতাদ ও তসলিমা বিরোধী আন্দোলন, ধমদোহীদের বিচারে মৃতুদনডের বিধান সম্বলিত ব্লাস্ফেমী আইন পাসের দাবী সংসদে উপস্তাপন করেন, বাবরি মসজিদ ভাঙায় সংসদে তীব্র নিন্দা করে অবিলম্বে বববরী মসজিদ পুন:নির্মাণের দাবী জানিয়েছেনএবং শাইখুল হাদীসের ডাকে শান্তি পূণ্ লংমাচে গুলি করে ৫জন কে শহীদ করা হয় এ ঘটনার তীব নীনদা ও তদন্ত কমিটি দাবী করেনএবং কওমী সনদের সীকৃতি র জনৈ মক্তাগনে শাইখুল হাদিস আজিজুল হক র: র সাথে অবস্তান করেন ।
১৯৯১ সালে জাতীয় সংসদ নিবাচনে ৭ টি ইসলামী দলের সমন্বয়ে গঠিত ইসলামী ঐক্যজোটের পক্ষ থেকে সিলেট-৫ আসনে নিবাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করে নিবাচনে বিজয়ী হন ! ফলে গোটা বাংলাদেশের ঐ সব দলের তথা ইসলামী ঐক্যজোটের একমাত্র জাতীয় সংসদরূপে তিনি জাতীয় সংসদে আসন গ্রহণ করেন । ঐ সময়ে গোটা বাংলাদেশের ধম্ প্রাণ আলেম সমাজের তিনিই ছিলেন মূখ্য ভাষ্যকার ও একমাএ প্রতিনিধি । শাইখুল হাদীস আজিজুল হক র: একদিন কোন মজলিসে বলেছিলেন গোটা বাংলাদেশে অনেক উলামায়ে কেরাম আছেন তবে শাইখুল হাদীস ওবায়দুল হক একজন হাদীস বিশারদ ও এম পি তাই উলামা সমাজে এম পি সাহেব হূজুর বলতেই তিনাকেই বুজায় এবং এক নামেই গোটা দেশ চিনত । শাইখুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হক র: ঐ বৃদ্ধ বয়সে জানাযায়  হাযির হলেন যা কলবী মহববতের আলামত। অবশ্য ঐ সংসদে আরো একজন হক্কানী আলেম ও সদস্য নিবাচিত হয়ে ছিলেন । তিনি হচ্ছেন কিশোরগঞ্জের মাওলানা আতাউর রহমান খাঁন  কিন্তু  তিনি আলেম সমাজের প্রতিনিধিরূপে নহে   বরং  বিএনপি দলীয় সংসদরূপে নিবাচিত হয়েছিলেন ।

ইসলামী ঐক্যজোটের একমাএ  এমপি হিসেবে ৬ষ্ট জাতীয় সংসদের বিভিন্ন অধিবেশনে আঞ্চলিক ও জাতীয় বিভিন্ন ইসু্যতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন  এবং
জাতীয় সংসদে সব্ প্রথম শাহজালাল্লের পুণেভূমি সিলেট বিভাগের দাবী ও নোটিশ উপস্থাপন করে পালামেন্টে সিলেটি এমপিদের আস্থা অজনে সক্ষম হন  ! তাই বলা যায় সিলেট বিভাগের প্রথম উপস্থাপক তিনি । শাইখুল হাদীস ওবায়দুল হক র: একটি মহান জীবনের মহা নিদশন শেওলা-জকিগঞ্জ রাস্তা,যেই রাস্তার পিছনে একটি ইতিহাস রয়েছে  এবং যেই রাস্তার জনৈ এম পি হওয়ার পূবে অএ অজ্ঞলের সব জায়গা তারঁ ঐ রাস্তার কথা তিনি আলোচনা করতেন ।কুশিয়ারা নদীর ভাঙনের সংসদে বলতেন বাংলাদেশের মানচিত্র পরিবর্তন হচ্ছে।
প্রতিটি বাজেট বক্ততায় অর্থনীতির সাবিক সফলতার লক্ষ্যে ইসলামী অর্থনীতি অনুসরণ করার জন্য সংসদকে অবহিত করতেন এবং ইসলামী অর্থনীতির সুফল তুলে ধরে তা বাস্তবায়নের দাবী জানান !

আল্লামা ওবায়দুল হক ৫ বছর সংসদে থাকাকালীন সময়ে সংসদ অধিবেশন না থাকলে দরসে হাদিসের টানে মাদ্রাসায় চলে আসতেন । আধ্যাত্মিকতার জগতে মাওলানা হক (রহ:)  ছিলেন প্রখ্যাত বুজুগ্ হযরত মাওলানা আব্দুল গফ্ফার  শায়খে মামরখানী (রহ:) এর খলীফা দীঘ্ পরিশ্রম ও সাধনার শেষে ১৯৭৫ সালে তাজকিয়ায়ে ক্বলবের মেহনতের প্রাপ্তি হিসেবে স্বীয় মুশিদ হযরত শায়খে মামরখানী (রহ)’র কাছ থেকে ইজাজত হাছিলে সক্ষম হন ।

আপাদমস্তক সুন্নতী সাজে তিনি ছিলেন সারাজীবন সজ্জিত । জীবনের সবক্ষেেএ সায়ি্যদুল মুরসালীন (স:) এর আর্দশ প্রতিষ্ঠায় ছিলেন তৎপর  । তাকে দেখলেই মনে হতো সুন্নতে রাসূলের এক জীবন্ত মূত্ প্রতীক ।
তিনি ১৭ জানুয়ারি ২০০৮ সালে বৃহস্পতিবার রাতে ইন্তেকাল করেন এবং পরদিন ১৮ জানুয়ারি রোজ  শুক্রবার আসরের নামাজের পর জানাজা নামাজ অনুষ্ঠিত হয়  এবং লাখো লাখো মানুষ টল নামে জানাজা মাঠে ।
শেওলা টু জকিগঞ্জ রোডের পাশে ও উজিরপুর জামে মসজিদের পশ্চিমে সাবেক এম.পি. শাইখুল হাদীস আল্লামা ওবায়দুল হক উজিরপুরী (র:) এর দাফন সম্পন্ন করা হয় । তারই পাশে তারঁই বড় ছেলে আমি অধমের আব্বা বিশিস্ট  সমাজসেবক ও শিক্ষানুরাগী ডাক্তার শামছুল হক র: কে সমাহিত করা হয়।
আল্লাহ তাকে জান্নাতুল ফিরদাউস নসীব করুন !
আমীন ছুম্মা আমীন।
লেখক: ফাযিল, জামিয়া রাহমানিয়া সাত মসজিদ মুহাম্মদ পুর ঢাকা । সাবেক ইমাম ও খতীব শাহ জমির উদ্দীন চাঁদনীঘাট জামে মসজিদ ও পরিচালক মারকাজুল কোরআন ( হিফজ বিভাগ)চাঁদনীঘাট সিলেট।  পৌত্র ,আল্লামা ওবায়দুল হক র:।   পেশ ইমাম ও শিক্ষক ফো্ড স্কয়ার মসজিদ ও ইভীনীং মাদ্রাসা লন্ডন,
ভাইস প্নিনসিপাল আল রেজওয়ানা একাডেমি বাথনালগীন লন্ডন , উইকেনড হিফজ শিক্ষক কুরতবা ইনস্টিউট পপলা লন্ডন।

এই সংবাদটি 18 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com