স্মরণ-শায়খুল হাদীস আব্দুল মান্নান শায়খে দলইরগাওঁ (র)

প্রকাশিত: ২:৫৯ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৫, ২০১৭

স্মরণ-শায়খুল হাদীস আব্দুল মান্নান শায়খে দলইরগাওঁ (র)

সিলেট রিপোর্ট: আজ  ২৫ জানুয়ারী সিলেটের প্রখ্যত বুর্যুগ শায়খুল হাদীস হযরত মাওলানা আব্দুল মান্নান (শায়খে দলইরগাওঁ) এর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী। ২০১৬ সালের এই দিনে তিনি ইহলোক ত্যাগ করে পরলোকে চলে যান। মরহুম পিতার স্মরণে স্মৃতিচারণ মুলক একটি লেখা সিলেট রিপোর্ট এর পাঠকদের জন্য প্রেরণ করেছেন হযরতের সুযোগ্য ছেলে মাওলানা মাহমুদুল হাসান। লেখাটি পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো:

বাবাকে নিয়ে স্মৃতিচারণ –
সন্তান জন্মের পর যেমন প্রথমেই মায়ের বুকের উষ্ণতার স্পর্শ পায়, তেমনই বাবাও মাথার উপর ছায়া হয়ে থাকেন। কবে প্রথম কে বাবার আঙ্গুলটা ধরেছিল তা হয়তো কেউ বলতে পারবে না। কিন্তু বাবার সেই আঙ্গুলটা ছেলেমেয়েরা ধরেই থাকে, অথবা ধরে থাকার স্মৃতিটা টের পায়। মা যেমন পরম মমতায় সন্তানকে কাছে টেনে জড়িয়ে ধরে থাকেন, একটা সময় পর বাবারা সহজে আর সেটা করেন না। মাঝেমধ্যে আমার মনে হয় বাবার জন্য সেই দূরে থাকা কষ্টের হয়। আজ লিখছি আর বাবাকে দেখছি, বড় মায়া ভরা চোখ নিয়ে যিনি সন্তানকে দেখতেন। ভাবনার আকাশে ঘুর পাক খাচ্ছে হাজারো স্মৃতি। এলোমেলো ভাবনা নিয়ে বিষন্ন হৃদয়ে হাতে কলম নিয়ে বসে আছি। বিন্দু বিন্দু অশ্রু কণা জমাট হয়ে গাল বেয়ে গড়িয়ে পড়ছে। ভিজে যাচ্ছে পাতার পর পাতা অশ্রুতো আর থামছে না। বাঁধ ভাঙ্গা অশ্রুর বান উঠেছে আজ। তব্ওু লিখতে হবে, তাই বাবার সামান্য স্মৃতি রোমন্থন করলাম। হয়তো অনেকেই লিখনিতে সাহিত্যের স্বাদ পাবেন না। সাহিত্যের স্বাদ দেয়ার মন মানসিকতা নেই। বাবাকে নিয়ে লিখলে লেখা শেষ হবে না, কিছুই লিখা যাবেনা। প্রতিটা দিন মুহুর্ত বাবা, বাবা তো আমারই। বাবার ছায়াটা না থাকলে আমি কি হতাম? এখনকার আমার মতো হতে পারতাম না।
বাবাকে নিয়ে দীর্ঘ একটি লিখার ভাবনা অনেক দিন থেকেই। বাবার মৃত্যুর সংবাদ পেয়েছিলাম খুব ক্রিটিকাল একটা মুহুর্তে। বাবাকে নিয়ে অনেকবারই ক্লিনিকে গিয়েছি এবং সুস্থাবস্থায় ফিরেও এসেছি। কিন্তু সেবারে ঘটনাটা উল্টো ঘটল, ক্লিনিকেই বাবার মৃত্যু সংবাদ শুনতে হলো। সেদিন ক্লিনিকে ছিল স্বজনদের উপছে পড়া ভীড়, বাড়ির মূল ফটকে গাড়ি থামা মাত্রই অসহনীয়, অনাকাণ্খিত সেই ভীড় আর গভীর রাত্রিতে হাজার হাজার মানুষের কোলাহলে আমি চেতনাহীন হয়ে গিয়েছিলাম। গভীর রাত্রিতে বিদ্যুৎ বেগে দেশ-বিদেশে ছড়িয়ে পড়ল বাবার মৃত্যু সংবাদ। গোটা উত্তর সিলেটের মানুষের কান্নার রোলে আকাশ পাতাল বিষন্ন হয়ে গেল। আমার মনে হল যেন আমিই শুধু আশ্রয়হীন হয়নি, গোটা উত্তর সিলেট আশ্রয়হীন হয়ে গেল।
আমি খুব স্পষ্টভাবে আমার জীবনকে দু’ভাগে ভাগ করতে পারি। বাবার মৃত্যুর দিন থেকে জীবনের দ্বিতীয় খন্ডটুকু শুরু হয়েছে। এই অংশটুকু আমাকে প্রতিনিয়ত শেখাচ্ছে। অনেক সহায় থাকলেও বাবাহীন আমি কত অসহায়। প্রথম ক’টা মাস বাবার কথা মনে করলে আমি খেতে চলতে পারতাম না। সমস্ত দুনিয়া ক্রমাগত অন্ধকার হয়ে জীবন যাপনকে তুচ্ছ মনে হতো। একটা সময় ধাক্কা খেতে শুরু করলাম। নিজেকে অনেক বুঝালাম ভুলে থাকতে হবে। ভুলে থাকলে ভালো থাকার চেষ্টা করা যায়। ভুলে থাকতে না পারলে অসুস্থ হয়ে যাই। কিংবা কী জানি ভুলে থাকার চেষ্টাটাই অসুস্থতা। আমার বাবাকে পূর্ণবয়ষ্ক হয়েও বাবা-মা’র জন্য অঝোরে কাঁদতে দেখেছি। তখন মাঝে মাঝে ভাবতাম কেন বাবা এতো অবুঝের মতো কাঁদছেন। কিন্তু আমি এখন জানি এই কান্না সমস্ত জীবনের। কখনো সশব্দে, কখনো নীরবে, কখনো গুমরে উঠা কান্না। আপনি হয়তো সেই সৌভাগ্যবানদের একজন। যে কিনা বাবার গলা জড়িয়ে ধরতে পারেন। তার সাথে চড়া গলায় তর্কে অংশ নিতে পারেন। তার কাছে কোন কিছুর আবদার করতে পারেন। আপনাকে বলছি আমি পারিনা। আমি সেই দূর্ভাগাদের একজন। যে কিনা সমস্ত জীবনেও এ সুযোগ পাবনা। আমি আগে যেমন বুঝিনি আপনিও হয়তো আগ মূহুর্ত পর্যন্ত বুঝতে পারবে না। কি চিরস্থায়ী শূন্যতা বুকের ভেতর তৈরী হয় বাবাকে হারিয়ে।
বাবা মানে কিছুটা দূরের মানুষ, সংসারের রাশভারী নামজাদা মেহমান। তাকে পাতলা পর্দার মতো ঘিরে থাকে ভয়, রাগ, শাসন, আর গাম্ভীর্য। আবার কিভাবে যেন তার মধ্যেই খুঁজে পাওয়া যায় এক আকাশ সমান নির্ভরতা। একরাশ নিরাপত্তার অনুভূতি তিনি ভালোবাসেন ঠিকই, স্নেহও করেন কিন্তু সবই যেন সীমিত মাত্রায়। বাবার সাথে সন্তানের সম্পর্ক মিশে থাকে খানিকটা দূরত্ব, খানিকটা সংকোচ, খানিকটা ভীতি মেশানো শ্রদ্ধায়। আর এমন শ্রদ্ধাশীল বাবারাই পারেন সন্তানের জীবনকে বদলে দিতে।
এমন বাবাই ছিলেন আমার পিতা শায়খুল হাদীস আল্লামা আব্দুল মান্নান (রহঃ)। তিনি ছিলেন আমার জীবনের আলোক বর্তিকা স্বরূপ। সেই ছোট্ট থেকেই হৃদয় উজাড় করা বুকভরা ভালবাসা দিয়ে মানুষের মতো মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। ছোটবেলায় ক্লাস ফাইভ পর্যন্ত স্কুলেই পড়েছি। ক্লাস ফাইভে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বৃত্তি প্রাপ্ত ছাত্র হওয়ার কারনে স্কুলের টিচাররা মাদরাসায় ভর্তি হওয়ার জন্য কোন অবস্থাতেই ছাড়পত্র দিচ্ছিলেন না। তাদের কথা একটাই যে, আমরা তাকে স্কুল থেকে ছুটি দেব না। কিন্তু আমার বাবা নাছোড়বান্দার মতো আমাকে নিয়ে আসলেন এবং হিফজে ভর্তি করলেন। সে টানা-হেচড়ার কারণে প্রায় বছরখানেক শার্ট-প্যান্ট পরেই হিফজ পড়তে হয়। আমি আজ একজন কোরআনের হাফিজ, তার পুরোটাই বাবার অবদান।
মাদরাসা পাগল একজন বাবা:
আমি প্রথম যে সময় খাগাইল মাদ্রাসায় ভর্তি হই তখন সেখানে সবেমাত্র দাওরায়ে হাদীস খোলা হয়েছে, নেই পর্যাপ্ত বিল্ডিং এবং কিতাবাদী। হঠাৎ বাবা আমাকে সপ্তাহের জন্য রেখে চাঁদার জন্য দূর দূরাšেরÍ প্রত্যন্ত অঞ্চলে চলে যেতেন । দিনকে রাত আর রাতকে দিন করে মাইলের পর মাইল পায়ে হেঁটে হাজার হাজার টাকা চাঁদা করে নিয়ে আসতেন। ক্লান্তি ভর করত তার শরীরে, উনাকে বিধ্বস্থ দেখাত তখন। কিন্তু মুখে লেগে থাকতো স্বর্গীয় হাসি। তখনো রাস্তাঘাট এখনকার মতো এত উন্নত ছিলনা। উনার প্রতি মানুষেরও এতো ভালবাসা ছিল যে, কাউকে চাঁদার কথা বললে না করতো না। আমার চোখের সামনেই তিলে তিলে খাগাইল মাদ্রাসাকে গড়ে তোললেন এক আদর্শ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে। জামেয়া মুশাহিদিয়া কাসিমুল উলূম খাগাইল টাইটেল মাদ্রাসার সুনাম ছড়িয়ে পড়ল গোটা উত্তর সিলেটে। এবং আমার বাবা ছিলেন এ মাদ্রাসায় প্রতিষ্ঠাতা শায়খূল হাদীস। উনার একক প্রচেষ্ঠা ও এলাকাবাসীর সার্বিক সহযোগিতায় মাদ্রাসায় দ্বিতল ভবন নির্মিত হলো। যে সময় উনার হাত ধরে মাদ্রাসা উন্নতি চরম শিখরে পৌঁছালো, তখন হঠাৎই বিপত্তি ঘটে গেল কোম্পানীগঞ্জের একটি যাত্রা গানের প্রতিবাদ করায়। তিনি তখন স্থানীয় চেয়ারম্যান সাহেবের সাথে রাগ করে চলে আসেন। এবং উনার সাথে সাথে মাদরাসার সমস্থ ছাত্র-শিক্ষকও চলে আসেন।
অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে আমার বাবার জন্মস্থান দলইর গাঁও গ্রামের সমস্থ মানুষ একত্রিত হয়ে তখনকার দলইর গাঁও মাদ্রাসাকে টাইটেল মাদ্রাসায় রূপান্তরিত করেন। এবং এখানেও উনি প্রতিষ্ঠাতা শায়খূল হাদীস হিসেবে হাদীসের দারস দিতে শুরু করেন। কিন্তু টাইটেল খুললে কি হবে। নেই কোন পর্যাপ্ত বিল্ডিং, নেই কোন কিতাবাদী, আবারও শুরু হলো আমার বাবার বিরামহীন সংগ্রাম। নাওয়া-খাওয়া ভুলে গিয়ে ভাবনাতে শুধুই মাদ্রাসা। গ্রামের সমস্থ মানুষ অকাতরে এগিয়ে আসলেন সর্বধরনের সাহায্য-সহযোগিতা করতে। উনিও গ্রামের পর গ্রাম ঘুরে চাঁদা সংগ্রহ করতে লাগলেন। ধীরে ধীরে মাদ্রাসার উন্নতি হতে লাগল। মাদ্রাসার উন্নতির জন্য বিদেশ সফরেও গেলেন। আলহামদুল্লিল্লাহ, মাদ্রাসায় দ্বিতল ভবন হলো, মাদ্রাসার মসজিদও হলো, মহিলা মাদ্রাসার ভবনও হলো। এর সবকিছুই হলো মাদ্রাসা পাগল আমার বাবার জন্য। অথচ এই মাদ্রাসার চাঁদা করতে গিয়ে রুটিন হীনতার কারণে শরীরে বাসা বেঁধেছে ভয়ানক ডায়াবেটিকস, কিডনী ও হার্টের সমস্যা দেখা দিল। কিন্তু মাদ্রাসার প্রয়োজনের বেলায় এসবকে তুচ্ছজ্ঞান করতেন। আজ এই মাদরাসাটি কোম্পানীগঞ্জের একমাত্র টাইটেল মাদ্রাসা স্বগৌরবে দাঁড়িয়ে আছে। আজ আমার পিতা নেই, তবে মাদরাসার সমস্থ ধূলিকণায় জড়িয়ে আছে উনার অবদান ও হাজারো স্মৃতি।
একজন দীনের দায়ী হিসেবে বাবা:
মাদরাসার দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি দীনের দাওয়াত পৌঁছানোর জন্য উনি উত্তর সিলেটের সকল মাহফিলে উপস্থিত হতেন। উত্তর সিলেটের এমন কোন মাহফিল বাকী থাকতো না যেখানো উনার দাওয়াত থাকতো না। এবং উনিও যথাসাধ্য চেষ্টা করতেন সকল মাহফিলে উপস্থিত হতে। এসব মাহফিলে উপস্থিত হওয়ার মূল লক্ষ্য থাকতো মসজিদ-মাদরাসার উন্নতি সাধন। যেখানেই যেতেন গিয়ে মাদরাসার সার্বিক পরিস্থিতির খোঁজ-খবর নিতেন। বেতন বাকী থাকলে এলাকার মুরব্বিয়ানদের সাথে নিয়ে আলোচনায় বসতেন। এবং মাদ্রাসার স্থায়ী আয়ের জন্য বিল, জমি ইত্যাদি দিয়ে স্থায়ী আয়ের ব্যবস্থা করতেন। আমার পিতা সবসময় ছোট ছোট মাহফিল এবং ছোট মাদ্রাসাকে গুরুত্ব দিতেন। এ বিষয়ে প্রশ্ন করলে বলতেন যে, বড় মাদ্রাসাগুলো চলার অনেক উসিলা আছে , সেখানে না গেলে তেমন ক্ষতি হবে না কিন্তু ছোট ছোট মাদরাসার মাহফিলে না গেলে তাদের ভীষণ ক্ষতি হয়ে যাবে। এমনকি মৃত্যুর চার দিন আগেও দূর্গম চাতল পাড় মাদ্রাসা ও পুটামারা মাদ্রাসার মাহফিলে গেছেন। এ লিল্লাহিয়াতের জন্য মহান আল্লাহ এক মাদ্রাসার মাহফিলে উনাকে মুত্যু দান করেন। অনেক সময় দেখা গেছে গরীব মাদ্রাসা পর্যাপ্ত ভাড়াটাও দিতে পারছেনা, কিন্তু উনি নিজের পকেট থেকে ভাড়া দিয়ে যাচ্ছেন। কোন অনুযোগ করেন নাই যা এই জামানার আলেমদের মধ্যে পাওয়া বিরল।
সর্বজন শ্রদ্ধেয় একজন বাবা:
মহান আল্লাহতায়ালা আমার পিতাকে এমন ব্যক্তিত্ব দিয়েছিলেন যে, উত্তর সিলেটের সকলের নিকট সমান জনপ্রিয় ছিলেন। এবং উনার মতো এতো জনপ্রিয় ব্যক্তির জন্ম এখনো হয় নাই। এই জনপ্রিয়তাকে উনি কাজে লাগিয়েছেন মসজিদ মাদরাসা ও সামাজিক উন্নয়নের পেছনে। কোনদিনই ব্যক্তিস্বার্থে জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগান নাই। উনার জনপ্রিয়তার সর্বোৎকৃষ্ট উদাহরণ হলো জানাযার নামাজে লাখো মানুষের উপস্থিতি। এতো বৃহৎ জানাযা উত্তর সিলেটে আর কোথাও হয় নাই।
একজন আদর্শ পিতা হিসেবে আমার বাবা:
একজন আদর্শ পিতা হিসেবে যত গুণাবলি উনার মধ্যে থাকার তা সবই ছিল। আমাদের পরিবারের সকল ভাই-বোন উনারই আদর্শে গড়ে উঠেছেন। জীবন চালনার পথে যতধরনের সাহায্য-সহযোগিতা, সুপরামর্শ, দোয়া প্রয়োজন তার সবটাই উনার কাছ থেকে পেয়েছি। বাবা থাকা অবস্থায় কোন ধরনের শূন্যতা অনুভূত হয়নি। আজ এ পর্যন্ত পৌঁছেছি তাতে বাবার অবদানের কথা ভূলবার নয়।
একজন আদর্শ শিক্ষক, প্রিন্সিপাল ও শায়খূল হাদীস হিসেবে বাবা:
বাবার জীবনের বেশিরভাগ অংশ জুড়ে ছিল দায়িত্বশীলতা। একদিকে ছিলেন শায়খূল হাদীস অপর দিকে ছিলেন প্রিন্সিপাল। কিন্তু অপার নির্ভরতার সাথে উনি নিজ দায়িত্ব আঞ্জাম দিতেন। ছাত্র-শিক্ষকদের সাথে উনার ব্যবহার ছিল খুবই হৃদ্যতাপূর্ণ। উনার মেজাজ ছিল সহজ-সরল, ন¤্রতার চাদরে ঢাকা। এখনকার কিছু কিছু মাদরাসার দায়িত্বশীলদের মতো চরম খিট খিটে ছিলনা। ছাত্র-শিক্ষকগণ ভীতিহীন মনোভাব নিয়ে উনার নিকটবর্তী হতে পারতো। হুজুরদের বিপদ-আপদের চরম মূহুর্তে মাদ্রাসার টাকা না থাকলে নিজের পকেটের টাকা দিয়েও সাহায্য করতেন। একজন আদর্শ প্রিন্সিপাল হিসেবে উনি অন্যান্য মাদ্রাসার প্রিন্সিপালদের জন্য এক রুল মডেল। হাদীসের দারসে উনার প্রাণবন্ত আলোচনা ও উপস্থিতি ছিল খুবই মুগ্ধকর। নেসাবের যতটুকু পড়াতেন বিস্তারিত পড়াতেন। যেমন কোন কোন মাদ্রাসায় দেখা যায় বুখারীর এক পারা বা দুই পারা ভালভাবে পড়ানো হয়। অতঃপর শুধু এবারত পড়ানো হয়। এটা আমার পিতা নাপছন্দ করতেন।
মৃত্যুর পূর্ব মুহুর্তে বাবা:
মোট কথা বাবাকে নিয়ে লিখতে চাইলে আরও অনেক কিছু লিখার আছে। কাগজের পর কাগজ লিখা যাবে উনার অবদানের বিষয়ে, তবুও লিখে শেষ হবে না। ২৫ জানুয়ারি ২০১৬ খ্রিস্টাব্দ বাবা রাত ১০.৩০ মিনিটের সময় সিলেটের মাউন্ট এডোরা ক্লিনিকে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। সেদিনের সকালবেলা জমি জামা সংক্রান্ত একটি মামলার কাজে শহরে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন । যাওয়ার প্রাক্কালে দুবাই প্রবাসী আদরের ছোটবোন, যে তখন স্বামীসহ দেশে ছিল, সে বলল “বাবা আসার সময় বড় বড় মাছ ও কলিজা নিয়ে আসবেন। সাথে সাথে আপনার নাতি নাতনীদের জন্য বরই ও কমলা নিয়ে আসবেন”। বিকাল বেলা পিতা আসলেন সিএনজিযোগে, সিএনজি ভর্তি বাজারে মেয়ের আবদার রক্ষা করতে আনলেন বিশাল চারটি মাছ, কলিজা, অনেকগুলো কমলা ও বরই। বিশ্রাম নেয়ার পর দুপুরের খাবার খেলেন। সেদিন সম্ভবত শীতকালের সবচেয়ে ঠান্ডা দিন ছিল। আসরের নামাজ আদায়ের পর দেখি বাবা প্রস্তুতি নিচ্ছেন কোম্পানীগঞ্জের দূর্গম এলাকা বাগজুর মাদ্রাসার মাহফিলে যাওয়ার জন্য। শারিরীক অবস্থাও তেমন ভালো ছিলনা বলে আম্মু না যাওয়ার জন্য অনেক বোঝালেন। মা’র সাথে পরিবারের সবাই বোঝালেন, কিন্তু উনার সাফ কথা “আমি যদি না যাই তাহলে মাদ্রাসার ভীষণ ক্ষতি হয়ে যাবে”। পরদিন সকালে এলাকার গণ্যমান্য মুরব্বিয়ানদের সাথে মাদ্রাসার উন্নতির বিষয়ে বেঠক রয়েছে। আমারও সেদিন রাত্রিবেলা গ্রীণলাইন বাসযোগে দুবাই প্রবাসী ছোট বোনের স্বামীকে নিয়ে চোখ অপারেশনের জন্য ঢাকায় যাওয়ার জন্য টিকেট করা। বাড়িতে এশার নামাজ পড়ে পিতার সাথে সিএনজিযোগে শিবের বাজার পর্যন্ত আসি কিন্তু ঘূনাক্ষরেও বুঝতে পারিনি এটাই বাবার সাথে আমার শেষ সফর। আমি ছিলাম শিবের বাজার প¦ার্শবর্তী শ্বশুর বাড়িতে। রাত নয়টার দিকে পিতার অসুস্থতার সংবাদ শুনেই বিহবল হয়ে গেলাম। পিতার পার্মানেন্ট ডাক্তার জনাব আক্তারুজ্জামান সাহেবকে ফোন দিয়ে তড়িৎ বেগে মাউন্ট এডোরা ক্লিনিকের সিসিইউ-তে ভর্তির ব্যবস্থা করে রাখলাম। আমি রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকলাম। যখন গাড়ি নিকটবর্তী হলো উনাকে অজ্ঞান অবস্থায় দেখলাম। এমন অবস্থায় বাবাকে অনেকবার ক্লিনিকে নিয়ে গিয়েছি, সেই সাহসের বশবর্তী হয়ে মনের মধ্যে বদ্ধমূল ধারণা ছিল এবারও পিতাকে সুস্থ করতে পারবো। কিন্তু সেই ধারণাকে ভুল প্রমাণ করে সিসিইউ থেকে ডাক্তার সাহেব বের হয়ে মৃত্যুর সংবাদ দিলেন।
আজ এক বৎসর পূর্ণ হতে চলল, বাবার স্মৃতি আজও সবাইকে কাঁদায়। নিজে অনেক সময় লুকিয়ে লুকিয়ে কাঁদি। কাউকে বুঝতে দিতে চাইনা মনের কষ্ট। জমাট বাঁধা কষ্টগুলো অশ্রুকণা হয়ে ঝরে যায়। বাবাহীন জীবনে কাউকে বুঝতে দেইনা মনের কষ্টগুলো। অনেক সময় কেউ যেচে জিজ্ঞেসও করে না মনের অব্যক্ত বেদনা সম্পর্কে। বাবাহীন জীবনে আপন লোকর অভাব বোধ হচ্ছে ভীষণ। আসলে জীবনটাই ছিন্ন পাতার মতো, যাদেরকে দেখলাম বাবার অনুগ্রহ অনুকম্পার উপর ভিত্তি করে জীবনের ভীত গড়লেন আজ সবাই কেমন পর হয়ে গেছেন। জীবনটাই এমন। সবকিছু মেনে নিতে হয়। একসময়ের আপনও পর হয়ে যায়। বাবা আজ কেন যেন মনে হচ্ছে এসব। বাবা সারাজীবন যেন তোমারই আদর্শের উপর চলতে পারি, তোমার রেখে যাওয়া প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নের ধারাটা যেন ধরে রাখতে পারি, বাবা আপনি মাদ্রাসার জন্য যা করে গেছেন তা কেউ ভুলবে না। এ অবদানের স্মৃতি কেউ মেটাতেও পারবে না। বাবা আপনার রেখে যাওয়া ইলমে নববীর আদর্শে আদর্শিত সন্তানেরা আপনার রেখে যাওয়া আমানতকে রক্ষা করবে ইনশআল্লাহ….।
পরিশেষে মহান প্রভুর দরবারে মিনতি ভরা প্রার্থনা, প্রভু হে, আমার বাবাকে জান্নাতুল ফেরদাউস দান করুন।

এই সংবাদটি 123 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com