শবে বরাত: গুরুত্ব ও ফজিলত

প্রকাশিত: ৮:৪৩ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ৪, ২০২০

শবে বরাত: গুরুত্ব ও ফজিলত

আবু নাসির ইকবালঃ
আগামী ৯ এপ্রিল, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে উদযাপিত হবে পবিত্র শবে বরাত। মুসলিম উম্মাহর কাছে এটি একটি মহিমান্বিত, তাৎপর্যমণ্ডিত ও ফজিলতপূর্ণ রাত। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হাদিসে এ মহিমান্বিত রাতকে ‘লাইলাতুন্ নিসফ্ মিন শাবান’ ১৫ শাবানের রাত বলেছেন। সেই হিসেবে শবে বরাত পালিত হয় শাবান মাসের পঞ্চদশ রজনীতে। ফার্সি শব্দ ‘শব’ অর্থ রাত। আর ‘বারাআত’ অর্থ মুক্তি। সুতরাং ‘শবে বরাতের’ শাব্দিক অর্থ দাঁড়ায়- মুক্তির রাত। এ রাতে যেহেতু আল্লাহ তা‘আলা পাপী বান্দাদের ক্ষমা করেন এবং জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেন, সেহেতু এ রাতকে শবে বরাত বলা হয়।

• কোরআন ও হাদিসে শবে বরাত:

শবে বরাত বা ‘লাইলাতুন নিসফি মিন শাবান’ পরিভাষা কোরআনের কোথাও ব্যবহৃত হয়নি। তবে কুরআনে কারীমের একটি আয়াতের ব্যাখ্যায় মুফাসসিরগণ ‘শবে বরাত’ প্রসঙ্গে আলোচনা করেছেন।

আল্লাহ তা’আলা বলেন:
“আমি তো তা অবতীর্ণ করেছি এক বরকতময় রজনীতে এবং আমি তো শুধু সতর্ককারী। এ রজনীতে প্রত্যেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় স্থিরীকৃত হয়”। (সূরা দুখান: ৩,৪)

মহিমান্বিত রজনীর ব্যাখ্যায় অধিকাংশ সাহাবী (রাদি.) ও তাবেয়ী (রহ.)-রা বলেছেন যে, এ রাতটি হলো ‘লাইলাতুল কদর’।

তবে শবে বরাতে মহান আল্লাহ তা’আলা কর্তৃক স্বীয় বান্দাদের বিশেষ মাগফিরাত ঘোষণার কথা সহীহ হাদীস দ্বারা প্রমাণিত।

হাদীস শরীফে বলা হয়েছে:
‘‘মহান আল্লাহ মধ্য শাবানের রাতে তাঁর সৃষ্টির প্রতি দৃষ্টিপাত করেন এবং মুশরিক ও বিদ্বেষ পোষণকারী ব্যতীত সকলকে ক্ষমা করে দেন।’’ (ইবনে মাজাহ, আস- সুনান ১/৪৪৫ )

এ হাদীস থেকে প্রমাণিত হয় যে, এ রাত্রিটি একটি বরকতময় রাত এবং এ রাতে আল্লাহ তাঁর বান্দাদেরকে ক্ষমা করেন। এ ক্ষমা অর্জনের জন্য শিরক ও বিদ্বেষ বর্জন ব্যতীত অন্য কোনো আমলের কথা হাদীসে উল্লেখ নেই। তবে এ রাতে বেশি বেশি নফল ইবাদতের ধারাবাহিকতা সাহাবায়ে কেরাম (রাদি.)-দের থেকেই চলে আসছে।

• শবে বরাতের প্রচলিত কিছু ভুল:

এ রাত্রিতে ভাগ্য লিখন এর ব্যাপারে কিছু কিছু হাদীসে উল্লেখ করা হয়েছে যে, এ রাত্রিতে ভাগ্য অনুলিপি করা হয় বা পরবর্তী বছরের জন্য হায়াত-মউত ও রিযক ইত্যাদির অনুলিপি করা হয়। এ অর্থে বর্ণিত হাদীসগুলো অত্যন্ত দুর্বল অথবা বানোয়াট। এ অর্থে কোনো সহীহ বা গ্রহণযোগ্য হাদীস বর্ণিত হয় নি।

পরেরদিন রোজা রাখা সম্পর্কে যে হাদীসে এসেছে:
“এই রাত (শবেবরাত) জেগে ইবাদত কর এবং দিনে (অর্থাৎ পনেরো শা’বান) রোযা রাখ।” (ইবনে মাজাহ : ১৩৮৮)

এই হাদীসটি ‘জয়ীফ’(দুর্বল)। যেহেতু ফাযাইলের ক্ষেত্রে ‘জয়ীফ’ গ্রহণযোগ্য তাই শবে বরাতের ফযীলতের ব্যাপারে এ হাদীসটি বয়ান করা যাবে।

তবে কথা হল গোটা শাবান মাসেই শুধু শেষের দুই দিন ছাড়া, রোযা রাখা মুস্তাহাব। তাছাড়া প্রতি মাসের ‘আয়্যামে বীজ’ (চাঁদের ১৩,১৪,১৫ তারিখ) রোযা রাখা মুস্তাহাব। এ দৃষ্টিকোণ থেকে এ দিনের রোযা রাখা হলে ইনশাআল্লাহ ছওয়াব পাওয়া যাবে।

যতদূর সম্ভব অনাড়ম্বরভাবে কবর জিয়ারত করা।
আয়েশা (রা.) বর্ণনা করেন, “রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মধ্য শাবানের রাতে মদিনার কবরস্থানে এসে মৃতদের জন্য দোয়া ও ইস্তেগফার করতেন।”(তিরমিজি,হাদিস নং: ৭৩৯)

শবে বরাত বিষয়ক অন্য কিছু হাদীসে এ রাত্রিতে বিশেষ পদ্ধতিতে, বিশেষ সুরা পাঠের মাধ্যমে, নির্দ্দিষ্ট সংখ্যক রাকআত নামাজ আদায়ের বিশেষ ফযীলতের কথা উল্লেখ করা হয়েছে।
যেমন: ৩০০ রাক‘আত নামাজ, প্রতি রাক‘আতে ৩০ বার সূরা ইখলাসপড়া, ১০০ রাক‘আত, প্রতি রাক‘আতে ১০ বার সুরা ইখলাস, ৫০ রাক’আত ইত্যাদি।

মোল্লা আলী ক্বারী র: মধ্য শাবানের রাতে সালাত আদায়ের ফযীলত সংক্রান্ত হাদীসগুলোর অসারতা উল্লেখপূর্বক বলেন, এ সালাত চতুর্থ হিজরী শতকের পর ইসলামের মধ্যে অনুপ্রবেশ করেছে, যার উৎপত্তি হয়েছে বায়তুল মুকাদ্দাস থেকে। এ ব্যাপারে অসংখ্য জাল হাদীস তৈরী করা হয়েছে যার একটিও সঠিক বা নির্ভরযোগ্য নয়। (আল-আসরার, পৃ- ৩৩০-৩৩১)

• শবে বরাত উদযাপনের ইতিহাস:

সাহাবায়ে কেরাম, তাবেয়ি, তাবে তাবেয়ি এর যুগে এই নামে কোন বিশেষ আমল ছিল না। শবে বরাতের এই বিশেষ আমল চালুই হয়েছে ৪০০ হিজরির পর বায়তুল মুকাদ্দাসে। এরপর প্রায় তিনশ বছর চালু ছিল। তারপর শিয়াদের কিছু অঞ্চল ছাড়া বাকি সব জায়গায় তা বন্ধ হয়ে যায়। ভারতের কিছু নও-মুসলিম ইরানে বিস্তার লাভ করা এই শবেবরাত ভারতেও প্রচলন করলো। তারপর তা ধীরে ধীরে ভারতবর্ষের সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে।

উনিশ শতকের শেষের দিক থেকে বাংলাদেশে ঘটা করেই পালিত হয়ে আসছে এই শবে বরাত।

কেবলমাত্র বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, ইরানসহ কয়েকটি দেশে শবেবরাত পালনের ব্যাপকতা লক্ষ্য করা যায়। অন্যান্য দেশে শবেবরাতের তেমন কোনো অস্তিত্ব নেই।

অনেকে মনে করেন, যদি এ রাতে ভালো খাবার খাওয়া যায়, ভালো কাপড় পরা যায়, তা হলে সারা বছরই ভালো অবস্থায় দিন যাবে। এই রাত আসার আগে বিশেষ খাবারের ব্যবস্থা করা হয়। বাসাবাড়িতে রুটি-হালুয়া, পোলাও, কোরমা, ফিরনি ইত্যাদি তৈরি করে, ধুমধাম করে আনন্দের সাথে খেতে দেখা যায়। এভাবে সব আয়োজন সম্পন্ন হয়ে থাকে শবেবরাত উদযাপন করার জন্য। অনেকে এমন আছেন যে, নতুন জামা, নতুন টুপি পরে আতর-গোলাপ মেখে রাতভর নফল নামাজ, জিকিরে কাটিয়ে দেন। সকালে ফজরের নামাজ আদায় না করেই ঘুমিয়ে যান।

একটি কথা সবারই জানা থাকা জরুরি, যতই নফল নামাজ পড়িনা কেন; তা এক রাকাত ফরজ নামাজের সমান হবেনা।
তবে হ্যাঁ, নফল নামাজে অনেক সওয়াব রয়েছে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু তা কখনো ফরজ নামাজের সমান নয়। তাই নফলের চেয়ে ফরজের প্রতি বেশি গুরুত্ব দেওয়া উচিত।

এ রাতে ইবাদত করতে চাইলে ফরজ নামাজ জামাতে আদায় করে, একাকী বা ঘরে নিরিবিলি ইবাদত করার পদ্ধতিই অপেক্ষাকৃত উত্তম।

• আমাদের কী করণীয়:

খোলাফায়ে রাশেদা, তাবেয়ি, তাবে তাবেয়িদের যুগে শবে বরাত উপলক্ষে কোন নির্দিষ্ট নামাজ বা ইবাদত ছিল না। কারণ ইসলাম হলো জীবন ঘনিষ্ঠ ধর্ম। একটা কথা বুঝুন যে, আমরা শবে বরাতকে কেন গুরুত্ব দেই; কারণ, হুজুরদের কাছ থেকে শুনেছি যে, ঐ রাতে দোয়া কবুল হয়। কিন্তু এই বিষয়ের হাদীসটি দুর্বল।

অথচ সহিহ মুসলিম সহ অন্যান্য সহীহ হাদীসের কিতাবে রয়েছে, প্রতি রাতের এক তৃতীয়াংশ পার হওয়ার পর আল্লাহ তায়ালা বান্দাদের ক্ষমা করার জন্য, দোয়া কবুল করার জন্য ডাকতে থাকেন। অতএব আমরা যদি প্রতি রাতে ঘুমানোর আগে দুই-চার রাকাত নামাজ পড়ে আল্লাহর কাছে মন খুলে দোয়াটা করে শুই, তাহলে আমাদের প্রতি রাতেই শবে বরাত হবে।

এটাই হলো ইসলামের মূল শিক্ষা যে, আপনি প্রতি রাতে আল্লাহ তালার কাছে কিছু কিছু চান। আর সারা বছরে চাওয়া ত আপনি একদিনে চাওয়া যায় না। আপনার প্রতিদিনের যা সমস্যা আছে তা নগদ আল্লাহতালার কাছে চান, মনের আবেগ জানান। আল্লাহ কবুল করবেন। আপনার জীবনটা আল্লাহ মুখি হবে। আল্লাহর সাথে সম্পর্ক হবে। পাশাপাশি আলেম-ওলামাদের সোহবত নিতে হবে, বইপত্র পড়তে হবে। আল্লাহ তায়ালা আমাদের তৌফিক দান করুন। আমীন।

এই সংবাদটি 48 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com