বেফাকের অতীত-বর্তমান (১)

প্রকাশিত: ১:০৭ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১৮, ২০২০

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরীঃ বেফাক বাংলাদেশের কওমী মাদরাসা সমুহের সমন্বিত সর্ববৃহত বোর্ড। দেশের অধিকাংশ কওমী মাদরাসাই এখন বেফাকের অধিনে।
অপর দিকে বৃহত্তর সিলেটের অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানই আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তালিম এর অর্ন্তভুক্ত। সংগঠন দুটির প্রতিষ্ঠার পেছনে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম সম্পৃক্ত। আর জমিয়ত হলো উপমহাদেশের প্রাচীনতম একটি ঐতিহ্যবাহী সংগঠন। যুগে যুগে হক্কানী উলামায়ে কেরামগনই জমিয়তের নেতৃত্বে ছিলেন। শায়খুল হিন্দ, শায়খুল ইসলাম থেকে নিয়ে শায়খে কৌড়িয়া, হযরত আতহার আলী,শায়খুল হাদীস আজিজুল হক,শামসুদ্দীন কাসেমী,ফখরে মিল্লাত মুহিউদ্দীন খান,আশরাফ আলী বিশ্বনাথী থেকে সর্বশেষ খলিফায়ে মাদানী আল্লামা আব্দুল মোমিন শায়খে ইমামবাড়ী (র), মুফতি ওয়াক্কাস, শায়খুল হাদীস মাওলানা নুর হোসাইন কাসেমী পর্যন্ত জমিয়তের একটি ঐতিহ্যবাহী ধারাবাহিকতা রয়েছে। ইতিহাস প্রমান করে জমিয়ত শুধু শুধু রাজনৈতিক দলই নয়,এটা দেশ ও মুসলিম মিল্লাতের বৃহত স্বার্থ সংরক্ষণকারী একটি জামাত। বিভিন্ন সময়ে বহুমুখী কাজ আঞ্জাম দিয়েছে এই জমিয়ত। আজকের প্রজন্মের অনেকেই হয়তো এসব অজানা ।

তরুণ প্রজন্মের কেউ কেউ সম্প্রতি বেফাককে ‘রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব মুক্ত’ করার কথা বলছেন। তাদের উদ্দেশ্যে কিছু বলতেই হয়। বেফাক কেনো যে কোন সামাজিক সংগঠন,সংস্থাকেই রাজনৈতিক প্রভাব মুক্ত রাখা দরকার। দলীয় দৃষ্টিভঙ্গির আলোকে এসব বোর্ড পরিচালনা করা ঠিক নয়। সকল দলের লোকদের নিয়েই সামাজিক কাজ করতে হয়। কিন্তু এর অর্থ এই নয়, যে কোন রাজনৈতিক ব্যক্তি সামাজিক সংগঠনের দায়িত্বে থাকতে পারবেননা। বরং যারা রাজনৈতিক ভাবে সচেতন এমন লোকদারাই সামাজিক কাজ বেশী হয়,এবং ভাল হয়। অরাজনৈতিক সাধু ব্যক্তিকে যিনি পুর্ব-পশ্চিম কিছুই বুঝেন না এমন আবুলদের দিয়ে আপনি সফলতা কতটুকু আশা করেন? হ্যাঁ -এমন কিছু রাজনৈতিক ব্যক্তিও আছেন যারা সামাজিক কাজ কর্মে একেবারেই অপরিপক্ষ। বিষয়টির উপর ব্যাপক আলোচনার জন্য স্বতন্ত্র পুস্তিকা রচনার প্রয়োজন। আপাতত এখানে শুধু ফেসবুকের কিছু বন্ধুদের মাত্রাতিরিক্ত কথাবার্তার জবাবেই এই প্রয়াস।
অনুসন্ধানে জানাগেছে, ২৫, ২৬ ডিসেম্বর ১৯৭৬ সালে পটুয়াটুলি জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে শায়খুল হাদীস মাওলানা আযীযুল হককে সভাপতি ও মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে সাধারণ সম্পাদক করে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ পুনর্গঠন করা হয়। উক্ত সম্মেলনে কওমী মাদরাসা সমুহকে একটি বোর্ডের অধিনে আনার জন্য আরজাবাদ মাদরাসার সাবেক শায়খুল হাদীস মাওলানা রিজাউল করীম ইসলামাবাদী (র.)-কে আহ্বায়ক করে একটি সাব কমিটি গঠন করা হয়। মাওলানা ইসলামাবাদী ১৯৭৮ সালে লালবাগের শায়েস্তা খান হলে কওমী মাদরাসা সমূহের এক সম্মেলন আহ্বান করেন। উক্ত সম্মেলনে ‘বেফাকুল মাদারিসিল কওমিয়্যাহ আল-আরাবিয়্যাহ বাংলাদেশ’ নামে বাংলাদেশ কওমী মাদ্রাসা বোর্ড গঠিত হয়। সম্মেলনে খোৎবায়ে ইস্তেকবালিয়া পাঠকরেন জমিয়তের তৎকালীন মহাসচিব মাওলানা মুহিউদ্দীন খান।
বেফাক প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে খতিব মাওলানা উবায়দুল হক, শায়খুল হাদীস তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জীও (র) সম্পৃক্ত ছিলেন।

বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়ার সাবেক মহাসচিব মাওলানা আব্দুল জব্বার জাহানাবাদীর মুখেই বেফাকের ইতিহাস শুনুন। পরবর্তীতে তুলে ধরাহবে ফখরে মিল্লাত মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (র) এর জবানবন্দি। মাওলানা আব্দুল জব্বার সাহেব ২০০৬ সালে এক লেখায় বলেনঃ বাংলাদেশ স্বাধীন হবার পর যখন জমিয়ত গঠন করা হয় তখন জমিয়তের উদ্যোগে কিছু কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়। ১৯৭৭ সালে প্রখ্যাত মুহাদ্দিস মাওলানা রিজাউল করিম ইসলামাবাদীকে আহ্বায়ক করে বেফাক গঠনের জন্য ৬০ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছিল। দক্ষিণ অঞ্চলের কাজের দায়িত্ব আমার উপর ছিল।
১৯৭৮ সনে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে চট্টগ্রামের পটিয়া মাদ্রাসার মুহতামিম হযরত মাওলানা মোহাম্মদ ইউনুস সাহেব কে সভাপতি, শাইখুল হাদিস মাওলানা আজিজুল হক সাহেব কে মহাসচিব করে বেফাকের কমিটি গঠন করা হয়।
হযরত মাওলানা রিজাউল করিম ইসলামাবাদী, হযরত মাওলানা আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া, মাওলানা শামসুদ্দিন কাসেমী, মাওলানা আব্দুল আজিজ গহরডাঙ্গা মাদ্রাসার প্রমুখ বেফাকের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন। বেফাক প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এর তদানীন্তন মহাসচিব মাসিক মদীনা সম্পাদক হযরত মাওলানা মুহিউদ্দীন খান সাহেবের ও বিরাট অবদান রয়েছে। আমি তখন জমিয়তের সহসাধারণ সম্পাদক। তখন জমিয়তের সভাপতি ছিলেন শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক সাহেব, সহ-সভাপতি মাওলানা শামসুদ্দিন কাসেমী, পৃষ্ঠপোষক হযরত শায়খে কৌড়িয়া। মহাসচিবের অনুমতিক্রমে আমি জমিয়তের সভা ডেকে এ ব্যাপারে কাজ করেছি।
হাকীমুল ইসলাম হযরত মাওলানা ক্বারী তৈয়ব সাহেব রহমতুল্লাহি, হযরত মাওলানা মুহাম্মাদুল্লাহ হাফেজ্জী হুজুর, মাওলানা ছিদ্দিক আহমদ, মাওলানা আমিনুল ইসলাম প্রমুখ বিভিন্নভাবে পৃষ্ঠপোষকতা করেছেন। মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী,মাওলানা আশরাফ আলী কুমিল্লা প্রমুখ এ ব্যাপারে পরিশ্রম করেছেন।
হযরত মাওলানা আসআদ মাদানী রহমতুল্লাহি স্বাধীনতার পর থেকে বাংলাদেশ সফর করেছেন।
তিনি আমাদেরকে দ্বীনের কাজে যথেষ্ট অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন।
ফেদায়ে মিল্লাত রহমতুল্লাআলাই বেফাকের সম্মেলনে যখন আগমন করেন তখন তিনি আমাদেরকে বিভিন্ন বিষয়ে অনেক পরামর্শ প্রদান করেন।
আমাদের দাবিদাওয়াগুলো সরকারের কাছে পৌঁছানোর কথাও তিনি বলেন। তিনি বলেন ভারতে আমরা কোনো সমাবেশ করলে তার প্রস্তাবাবলী সরকারের কাছে পৌঁছে দিয়ে থাকি।
বেফাক আজ অনেক দূর এগিয়েছে আলহাজ্ব মাওলানা ইউনুস সাহেবের ইন্তেকালের পর হযরত মাওলানা মুহাম্মদ হারুন ইসলামাবাদী রহমাতুল্লাহ,, হযরতপুর নুরুদ্দিন গহরপুরী সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।
বর্তমান সভাপতি হচ্ছেন শায়খুল ইসলাম সায়্যিদ হোসাইন আহমদ মাদানী এর খলিফা হযরত আল্লামা শাহ আহমদ শফী সাহেব। হযরত হাজী ইউনুস ও গহরপুরের হযরত ছিলেন শায়খুল ইসলাম (রহ) এর বিশিষ্ট সাগরেদ।

সূত্রঃ ফেদায়ে মিল্লাত হযরত মাওলানা সাইয়েদ আসআদ মাদানী (র) স্মারকগ্রন্থ, জামেয়া আরজাবাদ,ঢাকা।
#জমিয়তের অতীত -বর্তমান
উপস্থাপনায়ঃ মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী
পরিচালকঃ নগর মাদানিয়া বালক-বালিকা মাদরাসা,মোহনগঞ্জ।
১৮.০৭.২০২০

এই সংবাদটি 122 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com