তরফরত্ন সৈয়দ আব্দুল্লাহ চলেগেলেন

প্রকাশিত: ৭:৩৯ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২, ২০২২

তরফরত্ন সৈয়দ আব্দুল্লাহ চলেগেলেন

সিলেট রিপোর্ট :

শেকড় সন্ধানী লেখক, ইতিহাস গবেষক হবিগঞ্জের বাহুবলের উত্তরসুর নিবাসী জনাব সৈয়দ আবদুল্লাহ আর নেই। তিনি গতরাত সোয়া ২ টায় (০২ এপ্রিল) ঢাকায় ইন্তেকাল করেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্নাইলাইহি রাজিউন।
আজ (বাদ জুহর) বেলা আড়াইটায় নিজ গ্রামে মরহুমের জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো প্রায় ৭২ বছর। একমাত্র পুত্র সন্তান সৈয়দ আনোয়ার আব্দুল্লাহ সহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখেযান।

জানাগেছে, সৈয়দ আব্দুল্লাহ ১৯৫১ সালের ৩রা নভেম্বর উত্তরসুর গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম। তার পিতার নাম সৈয়দ ফিরোজ আলী।
মাওলানা মুহিউদ্দীন খানের কাছে তাঁর লেখালেখির হাতেখড়ি।
মাসিক মদীনার তিন যুগের জনপ্রিয় লেখক। বৃহত্তর সিলেটের সমকালীন কীর্তিমান মনীষীদের তিনি অন্যতম। মধ্যযুগের বাংলা সাহিত্যে মুসলমানদের অবদান নিয়ে এই বরেণ্য ইতহাস গবেষকের লেখা জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত।
উলামায়েকেরামের জীবন কর্ম নিয়ে বাংলা ভাষায় এতো লেখালেখি দ্বিতীয় আর কেউ করেন নি। দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার মূখপাত্র মাসিক মঈনুল ইসলামে লাগাতার কয়েক বছর ধারাবাহিক পর্ব লিখেন, ” আযাদী আন্দোলনে আলেম সমাজ” শিরোনামে। আজীবন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের নিষ্ঠাবান দায়িত্বশীল ছিলেন। তিনি বাহুবল উপজেলা জমিয়তের সাহিত্য সম্পাদক ছিলেন।
ছিলেন ফেদায়ে মিল্লাত মাওলানা সাইয়্যেদ আসআদ আল মাদানী রহ. এর একনিষ্ঠ শিষ্য।

ঊনসত্তরের গণআন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধের একজন সংগঠক হিসাবে কাজ করেন। পাশাপাশি লিখেছেন বঙ্গবন্ধু সহ জাতীয় অনেক বিষয়ের উপর গবেষণাগ্রন্থ।

সিলেট ও তরফ (হবিগঞ্জের প্রাচীন নাম) অঞ্চল নিয়ে ব্যাপক কাজ করেছেন। তরফ সাহিত্য পরিষদের মতো মহীরুহের ন্যায় প্রতিষ্ঠান তিনি গড়ে তুলেছেন। প্রান্তিক ইতিহাস থেকে শেকড়ের সন্ধানে তার বিচরণ পলাশির পান্তর পর্যন্ত। পলাশি নিয়ে তারঁ লেখা গ্রন্থ উভয় বাংলায় সমাদৃত।

মাসিক মদীনার শুরু থেকে তিন যুগের জনপ্রিয় লেখক ও গবেষক। ৭০/৯০ দশকে লিখতেন সকল জাতীয় দৈনিক ও ইসলামি পত্রিকায়। মাওলানা মুহিউদ্দীন খান রহ অন্তরঙ্গ ঘনিষ্ট বন্ধু বান্ধবের তিনি একজন। খান সাহেবের বহু লেখায় তার কথা এসেছে। জাতীয় অধ্যাপক দেওয়ান আজরফ থেকে শুরু করে কবি আল মাহমুদ পর্যন্ত বহু খ্যাতিমান লেখকরা সৈয়দ আব্দুল্লাহর গবেষনাকর্ম ও সাহিত্য সাধনা নিয়ে লেখালেখি করেছেন।

বিএনএস ইংল্যান্ড সাহিত্য স্বর্ণ পদক সহ পেয়েছেন জাতীয় আন্তর্জাতিক অনেক সম্মাননা, পদক ও পুরস্কার। কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ পেয়েছেন বহু বর্ণাঢ্য সংবর্ধনা। ২০০৮ সালে সিলেট বিভাগের ২৫ টি শিল্প সাহিত্য ও সাংবাদিক প্রতিষ্ঠান মিলে গ্রামিণফোনের সহযোগীতায় বর্ণিল নাগরিক সংবর্ধনার মাধ্যমে তাকে “তরফরত্ন” উপাধীতে ভুষিত করা হয়।

সীরাত বিষয়ক বহু লেখালেখি তিনি করেছেন। সে সময়কার পত্রিকায় সকল রবিউল আওয়াল সংখ্যায় সৈয়দ আব্দুল্লাহর সীরাত বিষয়ক লেখা পাওয়া যাবে। আহলে বায়াত ও সাহাবাদের উপর তার বহু প্রান্ডুলিপি এখনো অপ্রকাশিত।

লিখেছেন ঐতিহাসিক বহুগ্রন্থ। যা আমাদের জাতীয় ইতিহাসের অনন্য দলিল। মধ্যযুগের বাংলা সাহিত্য নিয়ে তার গবেষনা বুদ্ধা মহলে ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ণ আকর।

আরকানের প্রধানমন্ত্রী সৈয়দ মুস, কুরাইশ মাগন ঠাকুর, সভাকবি আলাওয়াল ও মহাকবি সৈয়দ সুলতানের উপর তার গবেষনা আন্তর্জাতিকভাবে সমৃদ্ধ। আরকানের মুসলমান সৈয়দ আব্দুল্লাহর লেখা ৯০ দশকের জনপ্রিয় গ্রন্থ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক ড. আহমদ শরীফের থিসিসকে তিনি চ্যালেঞ্জ করেন ১৯৮৮ ইংরেজীতে। এর পেক্ষিতে প্রচুর বির্তক তৈরী হলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তার থিসিস বাতিল ঘোষনা করে। এটি ইতিহাসের এক বিরল ঘটনা। গ্রামে পড়ে থাকা পশ্চাৎপদ জনপদের এক লেখকের কারণে আহমদ শরীফের মতো বামধারর গুরু ও পন্ডিতের থিসিস বাতিল হওয়া।

আজকের নতুন প্রজন্মের মাঝে ইসলাম ও ইতিহাস নিয়ে বাংলা সাহিত্যে অনেক লেখক তৈরী হলেও আজ থেকে পাঁচ দশক আগে এই শূন্যতা পূরণ হয়েছিল বাংলা সাহিত্যের যে ক’জন মনীষার হাত ধরে তাদের অনেকের সাথে আমাদের প্রজন্ম পরিচিত নন। আজকের বাংলা ইসলামি ধারার পথটি যেসব মনীষাদের সংগ্রামে তৈরী তাদেরকে ইতিহাস নিশ্চয় শ্রদ্ধার সাথে স্মরন করবে বহুকাল।

মুজাহিদে মিল্লাত মাওলানা শামসুদ্দিন কাসেমী,মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথী, মাওলানা মুহিউদ্দীন খান, মাওলানা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী, মাওলানা নুর হেসাইন কাসেমী, মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসউদ, মাওলানা মুখলেসুর রহমান (রায়ধরের চেয়ারম্যান সাহেব) মাওলানা মশিউর রহমান সাদী, মাওলানা আব্দুর রহমান দিঘলবাগী, মাওলানা কাজি মুতাসিম বিল্লাহ, মাওলানা আতাউর রহমান খান, মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ, প্রেন্সিপাল মাওলানা হাবিবুর রহমান, মাওলানা জুনাইদ বাবুনগরী, মাওলানা হারুন ইসলামাবাদীসহ দেশের বহু শীর্ষ আলেম উলামার সাথে সাথে তার ছিল গভীর বন্ধুত্ব।

তরফরত্ন সৈয়দ আব্দুল্লাহ পেশায় ছিলেন সরকারী চাকুরীজীবী। পেনশনের সমস্ত টাকা দিয়ে তিন খণ্ডে প্রকাশ করেন আকাবিরে দেওবন্দ এর জীবনী গ্রন্থ “মুসলিম মনীষা”। গড়ে তুলেন গ্রামীণ জনপদে পাঠাগার। তিনি “জামেয়া মাহমুদীয়া হামিদনগর” ও ‘জামেয়া মোবারকীয়া উত্তরসুর’ এর মতো কওমী মাদরাসা প্রতিষ্ঠার সাথেও সম্পৃক্ত। মফস্বলের সর্ব বৃহৎ গ্রামীণ জনপদের বইমেলা খ্যাত ঐতিহ্যবাহী “বাহুবল একুশে বই মেলা”র তিনি অন্যতম রূপকার ও প্রতিষ্ঠাতা।
খলিফায়ে মাদানী সদরে জমিয়ত শায়খে কৌরিয়া, আব্দুল মোমিন শায়খে ইমামবাড়ী, আহমদ শফী, শায়খে কাতিয়া, শায়খে ধরন্ডলী, শায়খে গহরপুরীসহ সিলেটের সকল খলিফায়ে মাদানীর সাথে ছিল সুগভীর হৃদ্যতা ও সুসম্পর্ক।

বর্ষীয়ান এই লেখক গবেষকের বাড়ীতে ২০০৭ সালে আমন্ত্রিত হয়ে ছিলাম। আম ও লিচুর দাওয়াত ছিলো। অসুস্থ অবস্থায় মাঝে মধ্যে মোবাইলে আমাদের খোঁজখবর নিতেন,দোয়া চাইতেন। আখেরাতের কথা স্মরণ করে কাদঁতেন…

আল্লাহ তায়ালার শাহী দরবারে মিনতি জানাই, তিনি যেন তার বান্দার সকল নেক কাজকে কবুল করেন। জান্নাতের সর্বোচ্চ মাকাম দান করুন। আমীন।

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী
সাধারণ সম্পাদক, জালালাবাদ লেখক ফোরাম।
০২.০৪.২০২২

এই সংবাদটি 216 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com