শুক্রবার, ১০ নভে ২০১৭ ১২:১১ ঘণ্টা

দক্ষিণ সুরমা থেকে নিখোঁজ সিএনজি চালক’র লাশ উদ্ধার

Share Button

দক্ষিণ সুরমা থেকে নিখোঁজ সিএনজি চালক’র লাশ উদ্ধার

সিলেট রিপোর্ট:  দক্ষিণ সুরমার বরইকান্দি থেকে নিখোঁজের ৮দিন পর সিএনজি চালক হোসেন আহমদের লাশ সুনামগঞ্জের সুরমা নদী থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। গত ৮ নভেম্বর বুধবার বিকাল পৌণে ৩টার দিকে সুনামগঞ্জ সদর থানা পুলিশ লাশটি সুরমা নদীর হাউলাঘাট এলাকা থেকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে।
সুনামগঞ্জ সদর থানার এসআই জালাল আহমদ জানান- ৮ নভেম্বর বুধবার বেলা পৌনে ৩টার দিকে সুরমা নদীর তীরবর্তী স্থানীয়  হালুয়াঘাটে একটি লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয় এলাকাবাসী। খবর পেয়ে পুলিশ নদী থেকে অপরিচিত ব্যক্তির মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। মৃতদেহটির মুখমন্ডল গোলাকার, উচ্চতায় ৫’৬”, পরনে শার্ট, প্যান্ট, গেঞ্জি ছিল।

মৃতদেহটি অনুমান কয়েক দিনের পচাগলা, পকেটে একটি মোবাইল ফোনও রয়েছে। সেই মোবাইল ফোন থেকে হোসেন আহমদের বাড়িতে কল দেয়া হলে তার পিতাসহ অন্যরা লাশ সনাক্তের জন্য গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে যান। সেখানে গিয়ে সেই লাশ সিএনজি চালক হোসেন আহমদের বলে সনাক্ত করেন। গতকালই আত্মীয় স্বজনরা লাশ নিয়ে সিলেটে গ্রামের বাড়ীতে এনে আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করেন।

উল্লেখ্য, দক্ষিণ সুরমার বরইকান্দি থেকে প্রতিবন্ধি আজিজুর রহমানের ছেলে সিএনজি চালক হোসেন আহমদ (২৪) গত পহেলা নভেম্বর’১৭ রাত ১০টার দিকে অজ্ঞাত ফোন পেয়ে বাড়ী থেকে বের হন। সন্তান নিখোঁজ হওয়ার পর কোথাও খুঁজে না পেয়ে তিনি গত ৫ নভেম্বর দক্ষিণ সুরমা থানায় জিডি এন্ট্রি করেন নিহতের পিতা। যার নং ২০০ তারিখ-০৫-১১-১৭ইং।

সন্তান নিখোঁজের ঘটনায় থানায় করা জিডিতে শারীরিক প্রতিবন্ধী আজিজুর রহমান বলেন, গত পহেলা নভেম্বর রাত প্রায় ১০টার দিকে তার ছেলে হোসেন আহমদের মোবাইলে (০১৭৭৯১৬১৭৮৫) অজ্ঞাত ব্যক্তির কল আসে। সেই ফোন পেয়েই তার ছেলে হোসেন আহমদ ঘর থেকে বের হয়ে যায়। পরবর্তীতে রাত গভীর হওয়ার পরও সে বাড়িতে না আসায় তার ব্যবহৃত মোবাইলে ফোন দেয়া হলে মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। যা এখনো বন্ধ রয়েছে। তিনি জানান, নিখোঁজের সময় তার পরনে ছিল জিন্সের ফুল প্যান্ট, সার্ট এবং ওয়ালটন মোবাইলসেট সংযোগসহ। তার গায়ের রং উজ্জল শ্যামলা, উচ্চতা ৫ফুট ৪ ইঞ্চি। নিখোঁজ হোসেন আহমদের বাড়ি দক্ষিণ সুরমার কাজিরখলা বরইকান্দি গ্রামে।

এই সংবাদটি 1,067 বার পড়া হয়েছে