বৃহস্পতিবার, ১১ অক্টো ২০১৮ ০৯:১০ ঘণ্টা

সিলেট-৪ আসনে জমিয়ত প্রার্থী মাওলানা আতাউর রহমানের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

Share Button

সিলেট-৪ আসনে জমিয়ত প্রার্থী  মাওলানা আতাউর রহমানের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

শাহিদ হাতিমিিসিলেট রিপোর্ট: আসন্ন ১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-৪ “গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুর, কোম্পানীগঞ্জ” আসনে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ মনোনীত জাতীয় সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী, জমিয়তের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব ও সিলেট জেলা শাখার সেক্রেটারী, হেফাজতে ইসলাম সিলেট জেলার সহসম্পাদক, বৃহত্তর জৈন্তা জনকল্যাণ ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান, খলীফায়ে ইমামবাড়ী, শায়খুল হাদীস মাওলানা আতাউর রহমান-এর সনানুসারে সংক্ষিপ্ত পরিচিতি এখানে তুলে ধরা হরো:
মাওলানা আতাউর রহমান। একজন বিচক্ষণ আলেমেদ্বীন। বিজ্ঞ মুহাদ্দিস ও শায়খুল হাদীস। আদর্শবান শিক্ষক ও সমাজ সেবক। সুদক্ষ সংগঠক, সু-বক্তা ও নন্দিত ওয়াইজ। রাজনীতিবিদ, নীতিবাদী ও প্রজ্ঞাবান। লেখক-গবেষক ও গ্রন্থকার। সময়ের এক সাহসী সন্তান। যোগ্য-কর্মঠ ও বলিষ্ট নেতৃত্ব যার মাঝে বিদ্যমান। আল্লামা বায়মপুরীর মানসসন্তান সিলেটের এ গৌরব পুরুষ। খলীফায়ে শায়খে ইমামবাড়ী। অবহেলিত বৃহত্তর জৈন্তা, সিলেট-৪ তথা গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুর, কোম্পানীগঞ্জের ক্ষণজন্মা মহান এ কৃর্তিমান সর্বদা এতদাঞ্চলের উন্নয়নের স্বপ্ন দেখেন। দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকগণের আগ্রহে নিম্নে শায়খুল হাদীস সাহেবের পরিচিতি তুলে ধরা হলো:-
১৯৬১ সালের ১৫ মে রোজ রবিবার সিলেট জেলাধীন গোয়াইনঘাট উপজেলার নন্দিরগাঁও ইউনিয়নের বহরগ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। বর্তমান বাড়ী কোম্পানীগঞ্জ উপজেলাধীন উত্তর রণিখাই ইউনিয়নের বরমসিদ্ধিপুর গ্রামে। জামিয়া দারুল কুরআন সিলেটে অধ্যাপনার সুবাদে সিলেট শহরস্থ মেজরটিলা এলাকায় স্বপরিবারে অবস্থান করছেন। তাঁর পিতার নাম মোঃ জমশেদ আলী ও মাতার নাম সমূজা খানম। তিনি ৯ভাই-বোনের মধ্যে ৩য়।
১৯৭১ সালে তিনি ইসলামী বুনিয়াদী শিক্ষা ও ৫ম শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ভাটরাই গ্রামের মক্তব ও প্রাইমারী স্কুল থেকে কৃতিত্বের সাথে সমাপ্ত করেন। তখন ঐ স্কুলের ছাত্র ক্যাপ্টেন নির্বাচিত হয়েছিলেন।
১৯৭২ সাল থেকে ১৯৮১ ইংরেজী সাল পর্যন্ত যথারীতি মক্তব ২য় বর্ষ থেকে আলিয়া ৪র্থ বর্ষ পর্যন্ত জামেয়া মুশাহিদিয়া খাগাইল মাদরাসায় কৃতিত্বের সাথে লেখাপড়া করেন। ঐ সময় “পূর্ব সিলেট ক্বওমী মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের” ফাইনাল পরীক্ষায় ছাফেলা ৩য় বর্ষে ২নং, আলিয়া ১ম বর্ষে ৩নং এবং আলিয়া ৪র্থ বর্ষে ২নং বৃত্তি লাভ করেন।
১৯৮০ সালে তিনি খাগাইল জামেয়া মুশাহিদিয়া মাদরাসায় আল মুশাহিদ ছাত্র সংসদের জিএস নিযুক্ত হন এবং বাংলাদেশ মুসলিম ছাত্র পরিষদ, সিলেট জেলা শাখা (বর্তমান সিলেট বিভাগ) এর সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন।
১৯৮১ সালে তিনি নিখিল জৈন্তা মুসলিম ছাত্র পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক নিযুক্ত হন।
১৯৮২ সালে তিনি ইসলামী উচ্চ শিক্ষা লাভের জন্য বিশিষ্ট পার্লামেন্টারিয়ান আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী রাহ. স্মৃতি বিজড়িত কানাইঘাট দারুল উলূম মাদ্রাসায় আলিয়া ৫ম বর্ষে ভর্তি হন এবং বার্ষিক পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে ১ম স্থান অর্জন করেন ও ছাত্র নাযিম নিযুক্ত হন। সেখানে তিনি মুনাজারায় (তর্ক বিদ্যায়) সু-খ্যাতি অর্জন করেন, যে কারণে বৃহত্তর জৈন্তার বরেণ্য আলেমেদ্বীন, মুজাহিদে মিল্লাত আল্লামা শায়খ আব্দুল্লাহ হরিপুরী রাহ. তাঁকে অনেক ¯েœহ করতেন। একদা জৈন্তায় বেদ’আতীদের সাথে মুনাজারা করার জন্য হযরত শায়খে হরিপুরী রাহ. তাঁকেই নিযুক্ত করেছিলেন।
১৯৮৩ সালে আলিয়া ৬ষ্ঠ বর্ষের ফাইনাল পরীক্ষায় ৪র্থ নং বৃত্তি লাভ করেন।
১৯৮৫ সালে তিনি কানাইঘাট দারুল উলূম মাদরাসায় দাওরায়ে হাদীছ (টাইটেল) ক্লাসের সর্বোচ্চ পরীক্ষায় ১ম বিভাগে ১ম স্থান অধিকার করেন।
১৯৮৬ সালে তিনি জামেয়া মুশাহিদিয়া খাগাইল মাদরাসায় সিনিয়র শিক্ষক হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত হন। এখানে একটানা আট বছর আলিয়া ৪র্থ বর্ষ পর্যন্ত অত্যন্ত দক্ষতার সাথে অধ্যাপনা করেন।
১৯৮৭ সালে তিনি তোয়াকুল মাদ্রাসার মুহতামিম (১৯৯৬ এর সংসদ নির্বাচনে জমিয়ত উলামায়ে ইসলামের ব্যানারে খেজুরগাছ প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী) মাওলানা নূরুল ইসলাম রাহ. এর ২য় মেয়ে মোছাম্মাৎ আয়েশা খাতুনের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। বর্তমানে তিনি ৩ ছেলে ও ২ মেয়ে সন্তানের জনক। ১৯৮৭ সালে তিনি পীরেকামিল শায়খুল হাদীছ হযরত মাওলানা আব্দুল করীম সাহেব শায়খে ছত্রপুরী রাহ. এর নিকট বায়আত গ্রহণ করেন।
১৯৮৮ সালে তিনি তানযীমে আহলুস সুন্নাতি ওয়ালজামায়াহ কোম্পানীগঞ্জ থানা কমিটির সাধারণ সম্পাদক নিযুক্ত হন।
১৯৮৯ সালে তিনি তানযীমুল মুসলিমীন পরিষদ কোম্পানীগঞ্জ থানা কমিটির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।
১৯৯০ সালে তিনি সালুটিকর বাজার জামে মসজিদের খতীব নিযুক্ত হন। অদ্যাবদী সুদীর্ঘ ২৮ বছর যাবৎ তিনি উক্ত ঐতিহ্যবাহী মসজিদের খতীবের ন্যায় গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব অত্যন্ত দক্ষতার সাথে পালন করে যাচ্ছেন। জ্ঞানগর্ভ বয়ানের জন্য এলাকায় তিনি খুবই জনপ্রিয়।
১৯৯১ সালে তিনি শায়খুল হিন্দে ছানী, ফেদায়ে মিল্লাত সাইয়্যিদ আসআদ মাদানী রাহ. এর নিকট বায়আত গ্রহণ করেন।
১৯৯২ সালে তিনি ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশ কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি নিযুক্ত হন।
১৯৯৩ সালে তাঁর লেখা “ক্বওমী মাদ্রাসা কি ও কেন?” “মদ সম্পর্কে ইসলামের ভাষ্য” নামক দু’টি পুস্তক প্রকাশিত হয়। আরও ডজন খানেক বই/কিতাব অমুদ্রিত অবস্থায় রয়েছে।
১৯৯৪ সালে তিনি হাদীস শাস্ত্রে উচ্চতর ডিগ্রি লাভের জন্য দেশের সর্বোচ্চ ইসলামী বিদ্যাপীঠ চট্টগামের হাটহাজারী মঈনুল ইসলাম মাদ্রাসায় ভর্তি হন এবং তথায় দাওরায়ে হাদীছের সর্বশেষ পরীক্ষায় ১ম বিভাগে উত্তীর্ণ হন। সেখানে তিনি ছাত্র নাজিম মন্ডলীর সদস্য (প্যানেল ছাত্র নাজিম) ছিলেন।
১৯৯৫ সালে ১৫ই এপ্রিল তিনি ২য় বার জামেয়া মুশাহিদিয়া খাগাইল মাদরাসায় মুহাদ্দিস পদে শিক্ষকতায় যোগদান করেন।
১৯৯৬ সালে তিনি গোয়াইনঘাট উপজেলার হাদারপার বাজার ক্বাসিমুল উলূম মাদরাসার মুহতামিম নিযুক্ত হন।
১৯৯৬ সালে তাঁর মুর্শিদ, আওলাদে রাসূল সাইয়্যিদ আসআদ মাদানী রাহ. এর সান্নিধ্যে ঢাকাস্থ চৌধুরীপাড়া জামে মসজিদে পূর্ণ রমজান মাস এতেকাফ করত: তাসাওউফের উচ্চতর শিক্ষা-দীক্ষা গ্রহণ করেন।
১৯৯৭ সালের ১৮ই জুন তিনি দলইরগাঁও দারুল হাদীস মাদরাসায় সিনিয়র মুহাদ্দিস পদে যোগদান করেন ও উক্ত সালে ৯ অক্টোবর অত্র মাদরাসার শিক্ষাসচিব নিযুক্ত হন এবং কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা জমিয়তের সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন।
ঐ বছরই উগ্র হিন্দু সমপ্রদায় কর্তৃক ভারতের ঐতিহাসিক বাবরী মসজিদ ভাঙ্গার প্রতিবাদে দুনিয়া ব্যাপী যখন তৌহিদী জনতা ফুঁসে উঠেছিল, তখন সিলেটের প্রত্যন্ত অঞ্চলে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখার কথা জানিয়ে সিটি পয়েন্টের বিশাল সমাবেশে তিনি বলেন- বাংলাদেশের কোন মুসলমান যেন এদেশের কোন হিন্দুর ওপর অত্যাচার, নির্যাতন অথবা আক্রমণ না করে। কোন মন্দির বা গীর্জা যেন না ভাঙ্গে। কেননা বাবরী মসজিদে হামলা করেছে ভারতীয় হিন্দুরা, সুতরাং তাদের বিচার ভারতের আদালতে হবে।
১৯৯৮ সালে তিনি সিলেট জেলা জমিয়তের নির্বাহী কমিটির সদস্য নিযুক্ত হন এবং পূর্ব সিলেট (বেসরকারী) ক্বওমী মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের পরিদর্শক হিসেবে সু-দীর্ঘ ৮ বছর অত্যন্ত দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন।
১৯৯৯ সালে তিনি মিছবাহুল উলূম মায়ারবাজার মাদরাসা ও শাহী ঈদগাহ প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি উক্ত মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা মুহতামিম ও উক্ত ঈদগাহের ইমাম হিসেবে অদ্যাবদি দায়িত্ব পালন করে আসছেন।
২০০১ সালে তিনি পূর্ব সিলেট ক্বওমী (বেসরকারী) মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের আরবী-উর্দূ সংবিধানটির বঙ্গানুবাদ করেন।
২০০২ সালে (ফেব্রুয়ারী-মার্চ) তিনি পবিত্র হজ¦ পালন করেন। মক্কা-মদীনা সহ আরব দেশের অনেক পবিত্র স্থানসমূহ জিয়ারত করে ধন্য হন।
২০০৩ সালের ১৭ই এপ্রিল তিনি যুুব জমিয়ত বাংলাদেশ, সিলেট জেলা শাখার সভাপতি নিযুক্ত হন। তাঁর দক্ষ নেতৃত্বে সিলেটের সকল উপজেলায় যুব জমিয়ত সু-সংগঠিত ও শক্তিশালী হয়ে উঠে এবং নবজীবন লাভ করে।
২০০৩ সালের নভেম্বর (মাহে রমজান) তিনি তাঁর মুর্শিদ ফেদায়ে মিল্লাত, আওলাদে রাসূল সাইয়্যিদ আসআদ মাদানী রাহ. এর সান্নিধ্যে দারুল উলূম দেওবন্দের মসজিদে রশীদে এতেকাফ করত: তাসাওউফের উচ্চ দীক্ষা অর্জন করেন।
২০০৪ সালের মাহে রমজানে মাত্র একমাসে ১ম ১৫ পারা কুরআন শরীফের সংক্ষিপ্ত তাফসীর ও তরজমা সালুটিকর বাজার জামে মসজিদে স্থানীয় ভাষায় তিনি শুনান। এতে এলাকার প্রায় অর্ধশতাধিক মুসল্লি ও উলামায়ে কেরাম উপস্থিত থাকতেন।
২০০৫ সালের মাহে রমজানে মাত্র এক মাসে ২য় ১৫ পারা কুরআন শরীফের সংক্ষিপ্ত তাফসীর ও তরজমা উক্ত মসজিদেই শুনান।
২০০৫ সালের ১৭ই ডিসেম্বর তিনি আলেমকুল স¤্রাট আল্লামা আব্দুল করীম শায়খে কৌড়িয়া (রহ.) এর মাদরাসায় সহকারী শায়খুল হাদীছ হিসেবে শিক্ষকতায় যোগদান করত: এক টানা ৩ বছর যাবৎ সাফল্যতার সাথে শিক্ষকতা করেন।
২০০৬ সালে তিনি খাদিমুল কুরআন পরিষদ সিলেট জেলা শাখার সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা শাখার সহ সাধারণ সম্পাদক নিযুক্ত হন। ২০০৭ সালে ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের মনোনয়নে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন কিন্তু জরুরী অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাচন স্থগিত হওয়ায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারেননি।
২০০৭ সালে ১৩ই আগস্ট সোমবার তিনি শায়খুল ইসলাম-কুতবুলআলম সায়্যিদ হুসাইন আহমদ মাদানী রাহ. এর বিশিষ্ট খলীফা, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সভাপতি, শায়খুল হাদীছ আল্লামা আব্দুল মুমিন শায়খে ইমামবাড়ী (দামাতবারাকাতুহু)-এর নিকট বায়আত গ্রহণ করেন।
২০০৮ সালের ১১ই অক্টোবর ইমামবাড়ী মাদ্রাসায় শায়খুল হাদীছ পদে যোগদানের সিদ্ধান্ত থাকা সত্বেও তাঁর উস্তাদে মুহতারাম আল্লামা আলীমুদ্দীন দুর্লভপুরী (দামাতবারাকতুহুম) এর পরামর্শে এবং স্বীয় মুর্শিদ হযরত শায়খে ইমামবাড়ীর আদেশে পূর্ণ ১ বছর শিক্ষকতা স্থগিত রেখে তাসাঊফের তিন চিল্লা আদায় করেন।
২০০৮ সালের ২৯ শে ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জমিয়তে ইলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ সিলেট-৪ (গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুর, কোম্পানীগঞ্জ) আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য তাঁকে মনোনীত করে। তাই তিনি নির্বাচনের জন্য নমিনেশন দাখিল করেন। কিন্তু উক্ত নির্বাচনে জমিয়ত চারদলীয় জোটের অর্ন্তভুক্ত ছিল বিধায় তখনকার বিএনপির শীর্ষনেতা, অর্থ ও পরিকল্পনামন্ত্রী সিলেটবাসীর প্রিয়নেতা এম. সাইফুর রহমান এর অনুরোধ-আশ^াসের ভিত্তিতে ও দলীয় সিন্ধান্তে নমিনেশন প্রত্যাহার করেন এবং চারদলীয় জোট মনোনীত প্রার্থী জনাব দিলদার হোসেন সেলিমকে সমর্থন করে তাঁর পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণা ও তৎপরতায় ঝাঁপিয়ে পড়েন।
২০০৯ সালে ১০-১০-৩০হিঃ তারিখে তিনি বিয়ানীবাজার উপজেলাধীন ঐতিহ্যবাহী দারুস সুন্নাহ মুরাদগঞ্জ মাদরাসায় সহকারী শায়খুল হাদীস হিসেবে শিক্ষাদানে নিয়োজিত হন, এবং সেখানে তিনি অত্যান্ত দক্ষতার সাথে ৩ বছর হাদীসের পাঠদান করেন।
২০১০ সালের ৯ সেপ্টেম্বর তিনি খলীফায়ে মাদানী হযরত শায়খে ইমামবাড়ী দামাত বারাকাতুহুম এর খেলাফত লাভ করেন। ২০১১ সালের ৫ই মার্চ ১ম বারে তিনি জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ, সিলেট জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। উক্ত সনে তিনি “বিশিষ্ট পার্লামেন্টারিয়ান আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী রাহ.” এর জীবনী লিখেন ও প্রকাশ করেন এবং জমিয়তের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য ও সিলেট
বিভাগীয় জমিয়তের সদস্য সচিব নিযুক্ত হন। ২০১১ সালের ৮ই ডিসেম্বর সিলেটবাসীর জন্য মরণফাঁদ ভারতকর্তৃক টিপাইমুখেরবাঁধ নির্মাণের প্রতিবাদে সিলেট জেলা জমিয়ত এক বিশাল রোডমার্চ কর্মসূচি পালন করে। উক্ত রোডমার্চ কর্মসূচি ঘোষণা সংবাদ সম্মেলনে তিনি সভাপতিত্ব করেন এবং রোডমার্চ সফলের জন্য রাত-দিন অক্লান্ত পরিশ্রম করেন। তিনি রোডমার্চ বাস্তবায়ন কমিটির যুগ্মসচিব ছিলেন।
২০১১ সালের ১লা জানুয়ারী তিনি হায়দরী বাজার মাদানিয়া মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা মুহতামিম নিযুক্ত হন।
২০১২ সালের ২২ শে এপ্রিল বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও সিলেট জেলা সভাপতি জননেতা এম. ইলিয়াস আলী গুমের প্রতিবাদে ৪ দলীয় জোট আহুত হরতাল পালনকালে জমিয়তের জন্য নির্ধারিতস্পট সিলেট বন্দরবাজার পয়েন্ট থেকে শায়খুল হাদীস মাওলানা আতাউর রহমান, বর্তমান জেলা যুব জমিয়তের সভাপতি মাওলানা মুহাম্দ আলী, সাবেক সহ সভাপতি মাওলানা রফিক আহমদ মহল্লী, সিলেট মহানগর যুব জমিয়তের সাংগঠনিক সম্পাদক হাফিজ আব্দুল করীম দিলদারসহ জমিয়তের চার জন নেতাকর্মীকে সম্পূর্ণ অগণতান্ত্রিকভাবে গ্রেফতার করে নিয়ে যায় ক্ষমতাসীন সরকারের লেলিয়ে দেয়া পুলিশ বাহিনী এবং দীর্ঘ একমাস কারাভোগ করেন জমিয়তের উল্লেখিত নেতৃবৃন্দ।
২০১২ সালের ১১-১০-৩৩হিঃ তারিখে বাবায়ে জমিয়ত আল্লামা আশরাফ আলী বিশ^নাথী রাহ. প্রতিষ্ঠিত বিশ^নাথ মাদানিয়া মাদরাসায় সহকারী শায়খুল হাদীস হিসেবে ১বছর দায়িত্ব পালন করেন।
২০১২ সালে তিনি বৃহত্তর জৈন্তার বৃহৎ নদীদ্বয় ধলাইনদী ও সারীনদীর উজানে বাঁধ নির্মাণে প্রতিবাদে মানববন্ধন, মিটিং, মিছিলসহ জৈন্তাবাসীর অধিকার আদায়ে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেন। উক্ত সনে তিনি শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের আঙ্গিনায় ভাস্কর্য নির্মাণের প্রতিবাদে গঠিত “শাহজালাল ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও ভাস্কর্য প্রতিরোধ কমিটি সিলেট”র যুগ্ম সচিবের দায়িত্ব পালনসহ ভাস্কর্য বিরোধী আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা রাখেন।
২০১২ সালে তিনি বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট সিলেট জেলা শাখার যুগ্ম সচিব নিযুক্ত হন এবং ঐবছরই “হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ” সিলেট জেলা শাখার সহকারী সম্পাদক হিসেবে নাস্তিক-মুরতাদ বিরোধী আন্দোলন বলিষ্ট ভূমিকা রাখেন।
২০১৩ সালের ১লা জুলাই তিনি অবহেলিত জৈন্তাবাসীর উন্নয়নের জন্য সম্পূর্ণ সামাজিক সংগঠন “বৃহত্তর জৈন্তা জনকল্যাণ ফাউন্ডেশন” গঠন করেন এবং উক্ত ফাউন্ডেশন চেয়ারম্যান হিসেবে তিনি বৃহত্তর জৈন্তাসহ সিলেটের উন্নয়নের জন্য বিভিন্নভাবে কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। ২০১৩ সালের ২রা সেপ্টেম্বর জমিয়তের কেন্দ্রীয় সাবেক মহাসচিব, ১৮ দলীয় জোটের শীর্ষনেতা, সাবেকমন্ত্রী, মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস সাহেব-কে ক্ষমতাসীন সরকার অন্যায়ভাবে গ্রেফতারের প্রতিবাদে এবং অবিলম্বে তাঁও মুক্তির দাবীতে ঐদিনই বাদ আছর সিলেটে মাওলানা আতাউর রহমানের নেতৃত্বেই সর্বপ্রথম
বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা করা হয়। মহাসচিবের মুক্তির জন্য প্রতিনিয়ত ধারাবাহিক কর্মসূচি পালন করেন।
২০১৩ সালের রমজানুল মোবারকের পর ১০-১০-৩৪হিঃ তারিখ থেকে তিনি সাবেক সংসদ সদস্য, জমিয়তের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এ্যাডভোকেট মাওলানা শাহীনূর পাশা চৌধুরী প্রতিষ্ঠিত জামেয়া দারুল কুরআন সিলেটের মূল শায়খুল হাদীস, তাঁর মূর্শিদ, খলীফায়ে মাদানী আল্লামা আব্দুল মুমিন শায়খে ইমামবাড়ীর আদেশে তাঁর স্থলে উক্ত জামেয়ায় শায়খুল হাদীস পদে অদ্যাবদি ছয় বছর যাবত শিক্ষাদানে নিয়োজিত রয়েছেন।
২০১৩ সালের ১লা অক্টোবর রোজ মঙ্গলবার স্থানীয় দরবস্তবাজারে অনুষ্ঠিত জমিয়তের বিশাল সমাবেশে জমিয়তের তখনকার কেন্দ্রীয় সিনিয়র সহ সভাপতি, বর্তমান মহা সচিব আল্লামা নূর হুসাইন ক্বাসেমী ঘোষণা করেন যে, আসন্ন ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-৪ (গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুর, কোম্পানীগঞ্জ) আসনে জমিয়তের দলীয় প্রার্থী হিসেবে মাওলানা আতাউর রহমানকে মনোনীত করা হয়েছে। ২০১৪ সালের ১৩ই সেপ্টেম্বর শনিবার তিনি ২য় বারে সিলেট জেলা জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০১৫ইং ৭ই নভেম্বর শনিবার তিনি জমিয়তের উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব নির্বাচিত হন। ২০১৬ সালের ২৯শে অক্টোবর তিনি ভোলাগঞ্জ মাদ্রাসার মুহতামিম নিযুক্ত হন। ২০১৭ সালের ২৩ই ফেব্রুয়ারী তিনি সালুটিকর হাজী তেরা মিয়া মাদানিয়া মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা মুহতামিম নিযুক্ত হন। ২০১৭ সালের রমজানের পর থেকে তিনি চাক্তা রওজাতুল ইসলাম ক্বওমী মাদ্রাসায় বোখারী শরীফ পাঠদান করেন।
২০১৮ সালের ২৪শে ফেব্রুয়ারী সিলেট বিভাগীয় জমিয়তের ঐতিহাসিক কর্মীসম্মেলনে বৃহত্তর সিলেটের সব কয়টি আসনের সাথে সিলেট-৪ এ মাওঃ আতাউর রহমান কে জমিয়তের প্রার্থী হিসেবে ঘোষনা করা হয়। ২০১৮ সালের ২৬শে ফেব্রুয়ারী হরিপুর মাদ্রাসার ছাত্র মোজ্জাম্মিল হত্যার প্রতিবাদে ও খুনিদের ফাঁসির দাবীতে সূচিত আন্দোলনের প্রতিটি মিটিং-মিছিলে তাঁর স্বরব উপস্থিতি ও বজ্রকন্ঠের ভাষণ আন্দোলনকে প্রাণবন্ত করে তুলে।
২০১৮ সালের ১০ই মে তিনি ৩য় বারে সিলেট জেলা জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।
২০১৮ সালের ২০সেপ্টেম্বর জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের পক্ষ থেকে কেন্দ্রীয়ভাবে সিলেট-৪আসনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একমাত্র দলীয় প্রার্থী মনোনীত হন।

এই সংবাদটি 1,027 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com