বুধবার, ২৯ জানু ২০২০ ০৮:০১ ঘণ্টা

মাওলানা শায়খ নূরুল ইসলাম আহমদাবাদী

Share Button

মাওলানা শায়খ নূরুল ইসলাম আহমদাবাদী

রুহুল আমীন নগরী::সিলেটের বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক মাওলানা নুরুল ইসলাম এল.এল.বি
(১৩ মে ২০১৮)রোববার দিবাগত রাত ১১টায় বিয়ানীবাজার উপজেলার দুবাগ ইউনিয়নের গজুকাটা গ্রামের নিজবাড়ীতে ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ……. রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৮ বছর। তিনি স্ত্রী, ৩ ছেলে, ৭ মেয়ে, আত্মীয়-স্বজন সহ অসংখ্য শুভাকাঙ্খী রেখে গেছেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে বার্ধ্যকজনিত রোগে ভোগছিলেন। মাওলানা নুরুল ইসলাম সিলেটবাসীর নিকট এলএলবি হুজুর হিসেবে পরিচিত।
তিনি সিলেট জেলার বিয়ানীবাজার উপজেলার গজুকাটা গ্রামে জন্মগ্রহন করেন। হাইস্কুল শেষ করে সিলেট এম সি কলেজ থেকে বি. এ, পাশ করে এল. এল. বি. তে ভর্তি হন। এসময় আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী রাহ. এর সান্নিধ্যে এসে দ্বীনী শিক্ষার প্রতি আকৃষ্ট হয়ে যান। তিনি সিলেটের অন্যতম আদর্শ কাওমী মাদরাসা জামিয়া মাদানিয়া আংগুরা মুহাম্মদপুরে ভর্তি হয়ে মিশকাত পর্যন্ত পড়াশুনা করে জামিয়া হোসাইনিয়া গহরপুর থেকে দাওরায়ে হাদীস পাশ করেন।
কর্মজীবনে তিনি জামিয়া মাহমুদিয়া সুবহানীঘাট, মখজনুল উলুম গফফারিয়া খাড়াভরা, জামিয়া মুহাম্মদিয়া শাহগলিতে শিক্ষকতা করেন। তিনি তার বাড়ির কাছে আহমদাবাদ নামে একটি মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করে এর মুহতামিম হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।তিনি উপমহাদেশের বা-কেরামত বুজুর্গ খলীফায়ে মাদানী আল্লামা আহমদ আলী বাশকান্দীর খলীফা ছিলেন।
এছাড়া তিনি জামিয়া দারুল উলূম দেওভোগ মাদরাসা, জামিয়া বাহরুল উলূম বালিঙ্গা মাদরাসা, জামিয়া মুহাম্মদিয়া চন্দরপূরে মুহতামিমের দায়িত্ব পালন করেন।
তার আসাতিজায়ে কেরামঃ শায়খুল হাদীস আল্লামা নূর উদ্দীন গহরপুরী, শায়খ মাওলানা আবদুল হাই রাহ. মাওলানা খলীলুর রহমান পাতনী, মাওলানা সাদ উদ্দীন ভাদেশ্বরী, মাওলানা আবদুল আজীজ দয়ামীরী, মাওলানা শায়খ জিয়া উদ্দীন প্রমূখ।
রাজনৈতিকভাবে তিনি জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এর আদর্শে অনুপ্রাণিত ছিলেন। বিয়ানীবাজার থানা থেকে শুরু করে জেলার সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় অফিস সম্পাদক ও প্রশিক্ষণ সম্পাদক পর্যন্ত দায়িত্ব পান।
তিনি রাজনৈতিকভাবে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের নীতি নির্ধারনী কাজে সম্পৃক্ত ছিলেন। তার লিখনী ও বক্তব্যে সর্বদা আকাবিরে দেওবন্দের দার্শনিক মতামত প্রস্ফুটিত হত। জমিয়তের সাংগঠনিক নিয়মনীতি সংক্রান্ত তার কয়েকটি বইয়ের পান্ডুলিপি ছিল।
আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী রাহ. এর নির্বাচনের মধ্য দিয়ে তার রাজনৈতিক মাঠে প্রথম বিচরণ। ১৯৭৯ সালে যখন হাফিজ্জী হুজুর বটগাছ নিয়ে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হন তখন সিলেটে শুদ্ধ বাংলা ভাষায় যারা বক্তব্য দিতেন তারা হলেন কিশোরগঞ্জের জামিয়া ইমদাদিয়ার শায়খুল হাদীস মাওলানা শফীকুর রহমান জালালাবাদী, প্রিন্সিপ্যাল মাওলানা হাবীবুর রহমান, মাওলানা মনসুরুল হাসান রায়পুরী, মাওলানা নূরুল ইসলাম আহমদাবাদী, মাওলানা আবদুল বাসিত খান প্রমূখ।
১৯৯৬ সালের সংসদ নির্বাচনে তিনি জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের মনোনয়নে সিলেট ৬ বিয়ানীবাজার গোলাপগঞ্জ আসন থেকে নির্বাচন করেন।
জামিয়া আংগুরায় অধ্যয়নকারীদের মধ্যে তিনিই সর্বপ্রথম পুস্তক রচয়িতা। ১৯৮২ সালে ” ইসলামী নেতৃত্বের ধারা ও মুফতী মাহমূদ” নামে একটি বই রচনা করেন যা জমলামিয়ার প্রকাশনা বিভাগের প্রথম প্রকাশনা। এছাড়া সীরাতে রাহমাতুল্লিল আলামীন নামে তার একটি অনুবাদ গ্রন্থ রয়েছে। এছাড়া তার অনেকগুলো বইয়ের পান্ডুলিপি রয়েছে।
তিনি আকাবিরে দেওবন্দর রাজনৈতিক মিশনকে অত্যন্ত আকর্ষনীয়ভাবে প্রশিক্ষন দিতেন।

এই সংবাদটি 1,122 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com