৫ ই মে; শাপলা চত্বর ও আল্লামা বাবুনগরী

প্রকাশিত: ২:১৬ অপরাহ্ণ, মে ৪, ২০২০

৫ ই মে; শাপলা চত্বর ও আল্লামা বাবুনগরী


জুনাইদ আহমদঃ
বিশ্বমানবতার মুক্তির দূত হযরত মুহাম্মদুর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ইজ্জত সম্মান রক্ষার্থে গণজাগরণ মঞ্চের ব্যনারে শাহবাগে অবস্থান করা নাস্তিক-মুরতাদদের বিরুদ্ধে ২০১৩ সালে ঐতিহাসিক আন্দোলন গড়ে তুলেছিল হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ।

আমীরে হেফাজত শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী হাফিযাহুল্লাহুর ডাকে ক্বায়েদে মিল্লাত আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী হাফিযাহুল্লাহুর বলিষ্ঠ নেতৃত্বে দলমত নির্বিশেষে লাখো লাখো তৌহিদি জনতার স্বতস্ফূর্ত অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয়েছিল ২০১৩ সালের ৫ ই মে’র ঢাকা অবরোধ।

আধ্যাত্মিক জগতের সম্রাট আল্লামা শাহ আহমদ শফী (দা.বা.) এর গভীর রজনীর জায়নামাজের অশ্রুর বরকত আর মুসলিম উম্মাহর অবিসংবাদিত নেতা আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী (দা.বা.) এর বলিষ্ঠ নেতৃত্ব ও ঈমানদীপ্ত হুংকারে লেজ গুটিয়ে পালাতে বাধ্য হয়েছিল শাহবাগী নাস্তিকরা। থরথর করে কেঁপেছিল সরকারের মসনদ।

সেদিন শত বাঁধা উপেক্ষা করে জান বাজি রেখে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ঢাকা মতিঝিলের শাপলা চত্বরে সমবেত হয়েছিল নবীপ্রেমিক প্রায় কোটি তৌহিদি জনতা। শাপলা চত্বরে আসতে বিভিন্ন পয়েন্টে বাঁধা,আক্রমণ ও হামলার স্বীকার হতে হয়ছিল তৌহিদি জনতার। ৫ ই মে, সন্ধার আগেই ঝরেছিল একাধিক নবীপ্রেমিকের তাজা প্রাণ।

সারাদিন বিক্ষোভ শেষে প্রচন্ড রোদে পিপাসা কাতর নবীপ্রেমিকগণ যখন গভীর রজনীতে খোলা আকাশের নীচে মহান প্রভুর কুদরতি পায়ে সিজদারত,
জিকিররত ছিলো ঠিক তখনি নির্দেশে সংঘটিত হয়ছিলো ইতিহাসের বর্বরতম হত্যাযজ্ঞ।
বিদ্যুৎ বন্ধ করে,চতুর দিক থেকে আসা এলোপাতাড়ি গুলির মুহুর্মুহু শব্দে কেঁপে উঠেছিল শাপলার আকাশ-বাতাস। বুলেটের আঘাতে জর্জরিত হয়েছিল নবী প্রেম লালন করা ঈমানদারদের বুক।

নবীপ্রেমিকদের পবিত্র খুনে লাল হয়েছিল শাপলার প্রান্তর। রক্তে রঞ্জিত হয়েছিল শাপলার পিচ ডালা রাস্তা। শাহাদাতের অমীয় সুধা পান করেছিলেন বহু তাহাজ্জুদরত নবীপ্রেমিক। সেই ভয়াল রাতের চিত্র আজো মনে হলে কলিজা আত্মা কেঁপে ওঠে। চোখ দিয়ে অশ্রু ঝরে।

নবী সা. এর ইজ্জত রক্ষায় নবীপ্রেমিকদের এ পবিত্র খুন কভু বৃথা যাবে না। আজ নয় কাল,শাপলা চত্বরে ঝরা রক্তের প্রতিটা ফোটার বদৌলতে এদেশে ইসলামের বিজয় নিশান পতপত করে উড়বে,ইনশাআল্লাহ।

শাপলার নবীপ্রেমিকদের পুঁজি করে যারা সেদিন নিজেদের আখের গোছাতে ব্যস্ত ছিলো,যারা সেদিন রক্তের বিনিময়ে সওদা করেছিল কতিপয় দুনিয়াদার;আল্লাহ তায়া’লা তাদের মাফ করুন। হেদায়াত দান করুন। ইতিহাস কভু শাপলার সেই ঘাতকদের ক্ষমা করবে না। শাপলার ঘাতকদের মুখোশ দিনদিন উন্মোচন হচ্ছে, আরো হবে ইনশাআল্লাহ। নবীপ্রেমিকদের রক্তের সাথে গাদ্দারীর ফল তাদের অবশ্যই ভোগ করতে হবে, ইতিহাসের আস্তাকুঁড়ে নিক্ষিপ্ত হবে তারা।

আলহামদুলিল্লাহ,আজ প্রায় তিনবছর প্রাণপ্রিয় শায়েখ আল্লামা বাবুনগরী হাফিযাহুল্লাহুর খেদমত,সাহচর্য ও সান্নিধ্যে আছি। প্রায় সময়ই শায়খের মুখে হেফাজত আন্দোলনের বিভিন্ন স্মৃতিচারণ শুনি। রক্তের রাঙানো ৫ ই মে’ সম্পর্কে শায়েখ যখনি কিছু স্মৃতিচারণ করতে চান তখনি ঢুঁকরে কেঁদে উঠেন। যেন শায়েখ আবারো ফিরে গেছেন শাপলার মঞ্চে। শায়খের চোখের সামনের যেন ভেসে উঠছে নবীপ্রেমিকের তাজা লাশের হৃদয়বিদারক দৃশ্য। আহ….

রমজানের দু’দিন আগেও কথা প্রসঙ্গে শায়েখ বলতেছিলেন-শাপলা চত্বরে ৫ ই মে’র ভয়াল রাতে আমি মঞ্চেই ছিলাম। আমাকে বলা হয়েছিল চলে যেতে ।কিন্তু আমি সাফ জানিয়ে দিয়েছিলাম যে,এই লক্ষ লক্ষ নবীপ্রেমিকদের রেখে আমি কোথাও যেতে পারিনা,যাবো না। মরন হলেও নবীপ্রেমিকদের সাথে আমি এখানেই আছি,থাকবো। একজন ক্বায়েদ(নেতা) এমনি হওয়া চাই। যিনি কভু কর্মীদের মৃত্যুমুখে ফেলে নিজের জীবনের ভাবনা করবেন না।

শায়েখ আরো বললেন-শাপলা চত্বরে সে রাতে আমি ওজু করে পবিত্র হয়েছিলাম।প্রস্তুত ছিলাম শাহাদাতের জন্য। ব্যাকুল হয়েছিলাম নবীপ্রেম নিয়ে শাহাদাতের অমীয় সুধা পান করার জন্য।

আমি,বন্ধুবর ইনআমুল হাসান সহ সেদিন শায়খের সামনে যারা উপস্থিত থেকে কথাগুলো শুনছিলাম আমাদের দু’চোখ অশ্রুসিক্ত হয়েছিলো। আহ!উম্মাহর কি দরদী একজন ক্বায়েদ আল্লামা বাবুনগরী!

সে রাতের ভয়াবহতা আঁচ করতে পেরে অন্যরা যখন নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত তখন আল্লামা বাবুনগরী কর্মীদের মনোবল বৃদ্ধি করতে ওজু করে পবিত্র হয়ে স্টেইজে-ই বসা ছিলেন আল্লাহর রাস্তায় শহীদ হওয়ার তামান্না নিয়ে। আল্লাহু আকবার…

আজ যাঁরা নিজেদের হেফাজত আন্দোলনের রূপকার বলে বেড়ান তারা ক’জন শেষ পর্যন্ত সেই ভয়াল রাত্রিতে জানবাজি রেখে শাপলা চত্বরে ছিলেন? জেল খেটেছিলেন? রিমান্ডের নির্যাতন ভোগ করেছিলেন? ইতিহাস একদিন এ সব প্রশ্নেরও জবাব দেবে ইনশাআল্লাহ। ইতিহাস একদিন চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেবে – কারা হেফাজতের সময় ও আগে- পরে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়ে ধন-দৌলতের পাহাড় গড়েছে ? কারা শাপলার শহীদানের রক্তের সাথে বেঈমানী করেছে ?

আল্লামা বাবুনগরী হেফাজতের ৫ ই মে’র ভয়াল রাতের বুলেটের কলিজা কাঁপানো আওয়াজ শুনেছেন। দেখেছেন সে রাতের বর্বরতা। তাই আজো তিনি নিঃস্বার্থভাবে হেফাজতের জন্য কাঁদেন।

৬ ই মে মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার হয়েছিলেন আল্লামা বাবুনগরী হাফিযাহুল্লাহু। রিমান্ডের নির্যাতন ভোগ করেছিলেন। ডায়বেটিস,উচ্চ রক্তচাপ সহ নানা অসুস্থতা নিয়ে দীর্ঘদিন কারাগারে মানবেতর জীবনযাপন করেছিলেন। জীবনমৃত্যুর সন্ধিক্ষণে বেকায়দায় পড়ে সরকার জামিনে মুক্তি দিয়েছিলো আল্লামা বাবুনগরীকে। হেফাজত আন্দোলনের পর এই পাঁচ বছরে ঘরেবাইরে বহুকিছু হলেও আমার জানামতে-আল্লামা বাবুনগরীর মামলাগুলোর আজো কোন নিষ্পত্তি হয়নি। এখনো ঝুলে আছে সেসব মিথ্যা মামলা…..

হেফাজত আন্দোলনে আল্লামা বাবুনগরীর ত্যাগের কথা বলতে গেলে ফিরিস্তি বেশ লম্বা হয়ে যাবে। রিমান্ডের সময় অসুস্থ হওয়া আল্লামা বাবুনগরী আজো পরিপূর্ণ সুস্থ হতে পারেননি। পা-দু’টো যেন থাকতেও নেই। হাঁটতে পারেন না। দৈনিক প্রায় ৪৫-থেকে ৫০ টা ট্যাবলেট খেতে হয়।উন্নত চিকিৎসার অভাবে ক’দিন পরপর অসুস্থ হয়ে যান। এভাবোই জীবনযাপন করছেন দুনিয়া বিমুখ এ আল্লাহর ওলী।

আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী; সত্যের প্রস্ফুটিত আলোকমঞ্জরি। মিথ্যার বিরুদ্ধে অনির্বাণ শিখা। পৃথিবীর জন্য একবিংশের এক বিরাট সুসংবাদ। হাদিস শাস্ত্র যাকে বুকে জায়গা দিয়েছে ধন্য রবে। পণ্ডিতরা যার শাস্ত্রীয় জ্ঞানকে জায়গা দিয়েছেন কলবে। আল্লাহ যাকে পাঠিয়েছেন উম্মাহর কাণ্ডারি করে। অন্যায়-অসত্যের বিপরীতে যিনি সত্য-ন্যায়ের আওয়াজ তোলেন নববি পাটাতনে দাঁড়িয়ে। যার জন্ম হয়েছে দাসত্বের শৃঙ্খল থেকে জাতির মুক্তিকে স্বাগত জানানোর জন্য। নবীর ইজ্জত রক্ষার ঈমানী আন্দোলনে আল্লামা বাবুনগরীর ত্যাগ তিতিক্ষা ইতিহাসের পাতায় স্বর্ণাক্ষরে যুগ যুগ ধরে লিখা থাকবে, ইনশাআল্লাহ। আল্লাহ তায়া’লা আল্লামা বাবুনগরী হাফিযাহুল্লাহুকে সুস্থতার সহিত দীর্ঘ নেক হায়াত দান করুন

এবং হেফাজত আন্দোলনে যাঁরা নিঃস্বার্থ কাজ করেছেন,হামলা-মামলার শিকার হয়েছেন,কারাবরণ করেছেন,মামলা কাঁধে নিয়ে আজো কষ্টের জীবনযাপন করছেন তাদের যাবতীয় ত্যাগ তিতিক্ষা আল্লাহ তায়া’লা কবুল করুন ও উত্তম বিনিময় দান করুন,বিশেষকরে যাঁরা শাহাদাত বরণ করেছেন আল্লাহ তায়া’লা তাঁদেরকে জান্নাতুল ফিরদাউস নসিব করুন, আমিন।

[অসমাপ্ত স্মৃতিচারণে-
জুনাইদ আহমদ,
ফাযেলে দারুল উলুম হাটহাজারী।

নাসিরাবাদ, চট্টগ্রাম।
১০ ই রামাদান, ১৪৪১ হি.
৪ ঠা মে, ২০২০ ইংরেজী।
সকাল ৭:১৫ মিনিট ]

এই সংবাদটি 4144 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com