সৈয়দপুরের আইনজীবীগন

প্রকাশিত: ৮:১০ পূর্বাহ্ণ, জুন ২, ২০২০

সৈয়দপুরের আইনজীবীগন

সৈয়দপুর এশিয়া মহাদেশের একটি ঐতিহবাহী গ্রাম। সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী এই গ্রামের অনেক সুনাম রয়েছে। ধর্মকর্মে,শিক্ষা-সংস্কৃতিতে রয়েছে ঈর্ষনীয় স্থানে।
দেশে-বিদেশে বিশেষকরে ইউরোপ-আমেরিকায় তাদের বসবাসের ফলে প্রবাসীদের মধ্যে মানবতাবোধ জাগ্রত হতে দেখা যায় যে কোন সময়েই। এখানে গ্রামের শিক্ষা দীক্ষার বিষয়টি উঠে এসেছে। বিশিষ্ট গবেষক #মাশূক_ইবনে_আনিস তার ফেসবুক আইডি থেকে বৃটিশ আমল থেকে এযাবত পর্যন্ত আইন পেশায় যারা নাম লেখিয়েছেন তাদের তালিকা তুলে ধরেছেন। সিলেট রিপোর্ট এর পাঠকদের জন্য লেখাটির গুরুত্ব বিবেচনায় এখানে হুবহু তুলে ধরা হলোঃ

প্রাক্তন : ১.এডভোকেট সৈয়দ আওসাফ হোসেইন ( মরহুম ) মুক্তার সাহেব (১৯৩৭ সাল) ২. এডভোকেট সৈয়দ শামসুল আলম ( মরহুম ) কন্টাই মিয়া মুক্তার সাহেব ৩. এডভোকেট সৈয়দ আবদুল মালিক (১৯৬৭/৬৮ সাল) —জি এম বাংলাদেশ ব্যাংক ( মরহুম ) ৪. এডভোকেট সৈয়দ কবির আহমেদ ইপিসিএস ( মরহুম ) ১৯৭২/৭৩ সাল।

বর্তমান : ৫. এডভোকেট সৈয়দ শায়েখ আহমেদ ৬. এডভোকেট সৈয়দ শামসুল ইসলাম ৭.এডভোকেট সৈয়দ আকিকুল হক ৮.এডভোকেট সৈয়দ আবদুল মুকিত ৯.এডভোকেট মল্লিক মঈন উদ্দিন সোহেল ১০.এডভোকেট সৈয়দ সাদেকুজ্জামান সাদেক ১১. এডভোকেট মির্জা বাবুল বেগ ১২.এডভোকেট সৈয়দ মহসিন আহমেদ ১৩. এডভোকেট সৈয়দ শামীম আহমেদ ১৪.এডভোকেট মাওলানা সৈয়দ ফওয়াদুল জওয়াদ ১৫. এডভোকেট সৈয়দ জিয়াউল ইসলাম ১৬. এডভোকেট ব্যারিস্টার সৈয়দ আলী আশরাফ জামি ১৭. এডভোকেট সৈয়দ মাসুদ হাসান ১৮. এডভোকেট সৈয়দ আহমদ মোসলেহ মিজান ১৯. এডভোকেট সৈয়দ সোয়েব আহমেদ সামনু ২০. এডভোকেট প্রিন্সিপাল মো .আবদুর রাহমান ২১. এডভোকেট সৈয়দ ইয়াসির আরাফাত ২২. ব্যারিস্টার সৈয়দ আরাফ রহমান ২৩. এডভোকেট ব্যারিস্টার
সৈয়দ নাফে।

একটি জনগোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য তাঁর আঞ্চলিক ইতিহাসেরই একটি অংশ। ঐতিহ্য ও আধুনিকতার মাঝে একটি দ্বান্ধিক অমিল সব সময়ই বিদ্ধমান থাকে। তবু; আধুনিক মানুষ তাঁর আঞ্চলিক ইতিহাসকে ঘেঁটেই স্বীয়-ঐতিহ্যের অংকুরে প্রবেশ করে।
হাজারবছর বয়সি জনপদ বা গ্রাম সৈয়দ পুর— সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর থানা বা উপজেলায় অবস্হিত একটি ঐতিহ্যবাহী গ্রাম। শিক্ষা, সাহিত্য সংস্কৃতি ও ইতিহাস ঐতিহ্য লালিত এই জনপদের সন্তানেরা তৎকালিন সিলেট জেলা কোর্টে, সুনামগঞ্জ মহকুমা কোর্টে আইন পেশা চালিয়ে ছিলেন অত্যন্ত সগৌরবে। বর্তমানে সিলেট কোর্টে, সুনামগঞ্জ জেলা কোর্টে এবং বাংলাদেশ হাইকোর্টেও সৈয়দ পুরের আইনজীবী গন কৃতিত্বের সঙ্গে তাঁদের পেশা চালিয়ে জেলা আইনজীবী সমিতিতেও নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছেন। পিপি, জিপি, এপিপি, নোটারি পাবলিক, এবং আইনজীবী সমিতির নির্বাচিত সভাপতি /সাধারণ সম্পাদকের মত গুরুত্বপূর্ণ পদেও সমাসীন আছেন সৈয়দ পুরের এডভোকেট বৃন্দ।

১৯৩৭ ইংরেজি সনে সুনামগঞ্জের মহকুমা কোর্টে প্রথম সৈয়দপুরী হিসেবে আইন পেশা শুরু করেন মরহুম সৈয়দ আওসাফ হোসেইন মুক্তার সাহেব। তিনি সৈয়দপুরের পশ্চিম পাড়াস্হ ঐতিহ্যবাহী বড়বাড়ীর কৃতি সন্তান। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে তিনি আইন সনদ লাভ করে এডভোকেট হিসেবে তালিকাভুক্ত হন। তিনি প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ হাসনাত এম হোসাইন ও প্রখ্যাত নাক কান গলা বিশেজ্ঞ ডাক্তার হাফিজ সাহেবের নানা। তিনি আজীবন সুনামগঞ্জ শহরে বসবাস করতেন এবং একজন প্রবীণ আইনবেত্তা হিসেবে সকলের কাছে সম্মানের পাত্র ছিলেন।
পরবর্তীতে— আনুমানিক ৬০ দশকের দিকে সুনামগঞ্জে আইন পেশায় আসেন মরহুম সৈয়দ শামসুল আলম কন্টাই মিয়া মুক্তার সাহেব। অত্যন্ত সুনামের অধিকারী এই আইনজীবী সৈয়দ পুরের ইশান কোনার ঐতিহ্যবাহী হাকিম বাড়ীর ( সৈয়দ আওলাদ হোসেন হাকিম) কৃতি সন্তান। তিনি আজীবন আইন পেশায় নিয়োজিত ছিলেন এবং সুনামগঞ্জ শহরে জীবন কাটিয়েছেন। স্বাধীনতা পরবর্তীতে তিনি সনদ গ্রহণ করে
এডভোকেট হিসেবে সুনামগঞ্জ মহকুমা কোর্টে তালিকাভুক্ত হন।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এম শেষ করে তারই সাথে আইন সনদপ্রাপ্ত হয়ে ১৯৬৭/৬৮ সালে সিলেট বারে এডভোকেট হিসেবে যোগদান করেন প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ এডভোকেট মরহুম সৈয়দ আবদুল মালিক। সৈয়দ পুর গ্রামের সম্ভান্ত পরিবারের উচ্চশিক্ষিত সৈয়দ আবদুল মালিকের শিক্ষা, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ভূমিকা অত্যন্ত ব্যাপক ছিল। তিনি আইন পেশায় দীর্ঘ সময় না দিয়েই বাংলাদেশ ব্যাংকের উচ্চ পদে যোগদান করেন। এবং মৃত্যুপূর্বে তিনি বাংলাদেশ ব্যাংকের জি এম এর পদে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি সৈয়দ পুর গ্রামের মোকাম পাড়ায় জন্ম গ্রহন করেন এবং সিলেট শহরেই স্হায়ীভাবে বসবাস করতেন।
জীবনের সর্বোচ্চ ডিগ্রী প্রাপ্তির পর-পরই সরকারের উচ্চপদস্হ কর্মকর্তা বা ইপিসিএস (ইস্ট পাকিস্তান সিভিল সার্ভিস) অফিসার হিসেবে চাকুরি জীবন শুরু করেন এডভোকেট মরহুম সৈয়দ কবির আহমেদ। তিনি সৈয়দ পুর গ্রামেের ঐতিহ্যবাহী পরিবারের সন্তান। সক্রিয় রাজনীতির সঙ্গে তিনি অতোপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন। এবং জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি সুনামগঞ্জ ৩ আসন থেকে এবং সুনামগঞ্জ ৪ আসন থেকে দুই দুইবার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।সরকারি চাকুরির পর তিনি ১৯৭২/৭৩ সনে সুনামগঞ্জ কোর্টে এডভোকেট হিসেবে তালিকাভুক্ত হন। মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত তিনি অত্যন্ত সুনামের সঙ্গে আইন পেশা চালিয়ে যান।তিনি সুনামগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচিত সভাপতি ছিলেন। এবং আজীবন সুনামগঞ্জ শহরেই বসবাস করেছেন।
বর্তমানে সৈয়দ পুরের যে সকল আইনজীবী গন ঢাকা হাইকোর্ট, সিলেট কোর্ট ও সুনামগঞ্জ কোর্টে নবীন ও প্রবীণ আইনজীবীদা কৃতিত্বের সঙ্গে পেশা চালিয়ে যাচ্ছেন, তাঁদের সম্পর্কে আমার ব্যক্তিগত জানা থেকে দেশ বিদেশের সকল সৈয়দপুরিয়ানের অবগতির জন্য সংক্ষিপ্ত তথ্য ও পরিচিতি মূলক একটি লেখা তুলে ধরছি।
এডভোকেট সৈয়দ শায়েখ আহমেদ: বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, প্রবীণ আইনজীবী এডভোকেট সৈয়দ শায়েখ আহমেদ এক উচ্চশিক্ষিত সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান। তিনি সৈয়দ পুরের প্রবীণ মুরুব্বী ডাক্তার মরহুম সৈয়দ মহিউদ্দিন ( কাচা মিয়া ) সাহেবের দ্বিতীয় সন্তান। তিনি তাঁর এম এ ডিগ্রী সম্পন্ন করার সাথে সাথে আইন বিষয়ে উচ্চতর ডিগ্রী ও বার সমাপ্ত করেই ১৯৮২ সাল থেকেই সুনামগঞ্জ মহকুমা আদালতে আইন পেশা শুরু করেন। ১৯৮৩ সালে এরশাদ শাসনে থানাকে উপজেলায় উন্নত করলে সৈয়দ শায়েখ আহমেদ জগন্নাথপুর উপজেলা কোর্টে আইন পেশা চালিয়ে যান। অত্যন্ত সুবক্তা—আকর্শনীয় ব্যক্তিত্বের অধিকারী এবং বিশিষ্ট সংগঠক এডভোকেট সৈয়দ শায়েখ আহমেদ
জগন্নাথপুর উপজেলার শিল্প সাহিত্য সংস্কৃতি শিক্ষা ও সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদান রাখের। এ সময় জগন্নাথপুরে প্রথম প্রেসক্লাব প্রতিষ্ঠা হলে তিনি প্রতিষ্ঠাতা সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। জগন্নাথপুরে প্রথম কলেজ প্রতিষ্ঠাকালে সৈয়দ শায়েখ আহমেদকে প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষর দায়িত্ব প্রদান করা হয়। সৈয়দ পুর গ্রামের ইশান কোনায় তাঁর পৈতৃক বাড়ি। তিনি সুনামগঞ্জ জেলা শহরে স্হায়ী ভাবে বসবাস করছেন। তিনি জেলা আইনজীবী সমিতির একাধিকবার সভাপতি সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।তাঁর পরিবারের অন্যান্য সদস্যরাও উচ্চ শিক্ষিক এবং বাংলাদেশ সরকারের
সচিব পর্যায়ে দায়িত্বশীল আছেন।
এডভোকেট সৈয়দ শামসুল ইসলাম : সৈয়দ পুর গ্রামের সুনামগঞ্জ শহরে স্হায়ী বসবাসকারীদের অন্যমত পরিবার সৈয়দ শামসুল ইসলামের। সৈয়দ পুর গ্রামের হাড়িকোনার সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান এডভোকেট সৈয়দ শামসুল ইসলাম একজন বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ। তিনি সুনামগঞ্জ ৩ আসনে ইসলামী ঐক্যজোটের প্রার্থী হয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।
সুনামগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচিত সভাপতি হিসেবে সৈয়দ শামসুল ইসলাম বেশ সুনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেন। প্রবীণ এই আইনজীবী সুনামগঞ্জ শহরেই স্হায়ীভাবে বসবাস করছেন।
এডভোকেট সৈয়দ আকিকুর রহমান : বিশিষ্ট
শিক্ষাবিদ এডভোকেট সৈয়দ আকিকুর রহমান সৈয়দ পুরের হাড়ি কোনার একটি শিক্ষা সম্ভ্রান্ত পরিবারের সুযোগ্য সন্তান। ভদ্র বিনয়ী এবং দক্ষ এই আইনজীবী সরকারি জিপি হিসেবেও কৃতিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে তাঁদের পারিবারিক বাড়ি সৈয়দ পুর গোয়াল গাঁও এলাকায় হলেও সিলেট শহরে তিনি স্হায়ীভাবে বসবাস করছেন।
এডভোকেট সৈয়দ আবদুল মুকিত :সৈয়দ পুর গ্রামের নোয়া পাড়ার ঐতিহ্যবাহী তালেবর বাড়ির মাস্টার সৈয়দ আবদুল হান্নান সাহেবের সুযোগ্য সন্তান সৈয়দ আবদুল মুকিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স সম্পন্ন করে ল’ ডিগ্রী শেষে সনদপ্রাপ্ত হয়ে সিলেট জজকোর্টে আইন পেশা শুরু করেন।৮০ দশক থেকে তিনি সিলেট অবস্থান করে আইনজীবী হিসেবে অনেক সুনাম অর্জন করেছেন। তাঁর অন্যান্য ভাই বোন সকলেই উচ্চশিক্ষিত।
এডভোকেট মল্লিক মঈন উদ্দিন সোহেল : মূলত সরকারি কৃষি কর্মকর্তা হিসেবে শিক্ষা পরবর্তী চাকুরী জীবন শুরু করলেও উচ্চ শিক্ষা সমাপ্তির পর এডভোকেট মল্লিক মঈন উদ্দিন সোহেল দীর্ঘদিন জগন্নাথপুরে শিক্ষকতা পেশার সঙ্গেও জড়িত ছিলেন। এ জন্যই তিনি জগন্নাথপুরে সোহেল স্যার হিসেবে অধিক খ্যাত। সৈয়দ পুরের সুযোগ্য পন্ডিতজন— পিতা কাজি মল্লিক জহির উদ্দিন
উপজেলা কাজির দায়িত্বের সুবাদে তিনি স্হানীয় জগন্নাথপুরেই বেড়ে ওঠেন। ছাত্র জীবনে বাম রাজনীতির সঙ্গে কিছুদিন জড়িত থাকলেও প্রচন্ড মেধাবী এই মানুষ পরবর্তীতে বি এন পি রাজনীতির সঙ্গে জড়িত হন। এবং সরাসরি চাকুরি ইস্তেফা দিয়ে ল সম্পন্ন করে সুনামগঞ্জ কোর্টে আইন পেশা শুরু করেন। তিনি সুনামগঞ্জ জেলা বি এন পির বর্তমান জেলা কমিটির সম্মানিত সহ সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। জেলা আইনজীবী সমিতির সদ্ব্য সাবেক সভাপতির দায়িত্বে ছিলেন মল্লিক মঈন উদ্দিন সোহেল। সৈয়দ পুর গ্রামের ঈশান কোনা এলাকায় মল্লিক সোহেলর পৈতিৃক নিবাস। তিনি পেশাগত কারণে স্হায়ীভাবে সুনামগঞ্জ শহরেই বসবাস করছেন।
এডভোকেট সৈয়দ সাদেকুজ্জামান সাদেক : সৈয়দ পুর ইশান কোনা হাকিম বাড়ির সুযোগ্য সন্তান— সৈয়দ সাদেক বৃহত্তর সিলেটে সর্ব্বজন খ্যাত একজন স্বনামধন্য ক্রীড়াবিদ। সুনামগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্হায় সৈয়দ সাদেকের রয়েছে বিশেষ পরিচিতি। তিনি সুনামগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচিত পৌর কাউন্সিলর ছিলেন। উচ্চশিক্ষিত মার্জিত এবং বিশিষ্ট ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব এডভোকেট সৈয়দ সাদেকুজ্জামান সাদেক সিলেটে সুনামগঞ্জে অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে আইন পেশা চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি একজন বড় মাপের ক্রীড়া প্রশিক্ষক ও সংগঠক। স্হায়ীভাবে সুনামগঞ্জে বসবাস করলেও তিনি এখন সিলেট শহরেই বসবাস করেন।
এডভোকেট সৈয়দ মহসিন আহমেদ : সিলেট বিভাগের একমাত্র ল ‘কলেজ— সিলেট ল ‘কলেজের বর্তমান অধ্যক্ষ, বহুবিষয়ে উচ্চতর ডিগ্রী সম্পন্ন সিলেটের খ্যাতিমান আইনজীবী সৈয়দ মহসিন আহমেদ সৈয়দ পুরের এক স্বনামধন্য রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান। প্রখ্যাত রাজনীতিবিদ মজলুম জননেতা সৈয়দ আবদুল হান্নান চেয়ারম্যান সাহেবের তৃতীয় পুত্র সন্তান সৈয়দ মহসিন একাধারে এল এল এম, আরবি সাহিত্যে অনার্সের পর ল ‘সনদ গ্রহণ করেই সিলেটে আইন পেশা শুরু করেন। অত্যন্ত বিজ্ঞ এই আইনজীবী বাংলাদেশ হাইকোর্টেও আইন পেশা চালিয়ে যাচ্ছেন। তাঁর প্রত্যেক ভাই বোনই উচ্চতর শিক্ষায় শিক্ষিত। তিনি সিলেট শহরেই বসবাস করছেন। আইন পেশায় তিনি অত্যন্ত সুনামের অধিকারী।
এডভোকেট মির্জা বাবুল বেগ : অত্যন্ত বিনয়ী মেধাবী এবং উচ্চশিক্ষিত এই আইনজীবী সৈয়দ পুর গ্রামের পশ্চিম পাড়ার ঐতিহ্যবাহী বেগ বাড়ির কৃতি সন্তান। তিনি একজন খুব উঁচু মানের বিজ্ঞ ছাত্র সংগঠক ছিলেন। সিলেট জেলা কোর্টেও তাঁর রয়েছে ব্যাপক পরিচিতি। এই বিজ্ঞ আইনজীবী বর্তমানে সিলেট শহরে অবস্থান করে আইন পেশা চালিয়ে যাচ্ছেন। একজন দক্ষ রাজনীতিবিদ হিসেবেও তাঁর প্রচুর জনপ্রিয়তা রয়েছে।
এডভোকেট সৈয়দ শামীম আহমেদ ( এডিশনাল পি পি, সিলেট) : উচ্চতর শিক্ষার সমাপ্তি করেই আইন বিষয়ে ল ‘সনদ গ্রহণ করার পর থেকেই এডভোকেট সৈয়দ শামীম আহমেদ সিলেট কোর্টে অত্যন্ত দক্ষতার আইন পেশা চালিয়ে যাচ্ছেন।সৈয়দ শামীম একজন দক্ষ সংগঠক। সিলেটের ছাত্র ও যুব রাজনীতিতে তাঁর রয়েছে উল্লেখ যোগ্য সংগ্রাম, ত্যাগ ও জেল জুলুমের ইতিহাস। সদ্য সাবেক সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটিতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। সিলেট বিভাগের একমাত্র ল কলেজ ছাত্র সংসদে সৈয়দ শামীম নির্বাচিত ভিপি ও জি এস এর দায়িত্ব সগৌরবে পালন করেন। মহানগর যুবলীগের সভাপতি এবং পৌর ছাত্রলীগের তিনি সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। সৈয়দ শামীম বর্তমানে সিলেট কোর্টে এডিশনাল পি পি ‘র দায়িত্বও দীর্ঘদিন ধরে পালন করে আসছেন। ১/১১ এর কারাবরণকারী এই আইনজীবী সিলেট কোর্টের অত্যন্ত পরিচিত মুখ। সৈয়দ পুর গ্রামের হাড়ি কোনার বিশিষ্ট মুরুব্বী, আওয়ামী রাজনীতিক সৈয়দ আসকর আলী মেম্বারের সুযোগ্য সন্তান সৈয়দ শামীম এখন সিলেট শহরেই বসবাস করছেন।
এডভোকেট মাওলানা সৈয়দ ফওয়াদুল জওয়াদ : সৈয়দ পুরের ঐতিহাসিক কাজিবাড়ির বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, কাজি মাওলানা সৈয়দ আকিকুল হক সাহেবের সুযোগ্য সন্তান এডভোকেট সৈয়দ ফওয়াদ একজন বিশিষ্ট লেখক এবং বিজ্ঞ আইনজীবী। তিনি এক সময় বিখ্যাত মাসিক মদিনা পত্রিকায় কাজ করতেন এবং ধর্মীয় বিভিন্ন বিষয়ে প্রবন্ধ নিবন্ধ লিখতেন। পিতার কাজি ও শিক্ষকতা দায়িত্বের সুবাদে সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই পৌর এলাকায় তিনি বেড়ে ওঠেন। তিনি তাঁর উচ্চশিক্ষা সমাপ্তির সঙ্গে সঙ্গে ল’ ডিগ্রী গ্রহণ করে জেলা শহর সুনামগঞ্জে আইন পেশায় নিয়োজিত হন।স্বনামধন্য উচ্চশিক্ষিত পরিবারের সন্তান সৈয়দ ফওয়াদের অন্যান্য ভাইয়েরাও সরকারি এবং বেসরকারি উচ্চপদে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি অত্যন্ত ভদ্র বিনয়ী আইনজীবী হিসেবে সুনামগঞ্জ বারে সমাধীক পরিচিত। সুনামগঞ্জ শহরেই স্হায়ী ভাবে তিনি স্বপরিবারে বসবাস করছেন।
এডভোকেট সৈয়দ জিয়াউল ইসলাম : সদ্য সাবেক
সুনামগঞ্জ জেলা বারের নির্বাচিত
সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট সৈয়দ জিয়াউল ইসলাম সৈয়দ পুর গ্রামের হাড়ি কোনার সম্ভ্রান্ত পরিবারের একজন কৃতি সন্তান। তিনি সুনামগঞ্জ জেলা কোর্টের এ পি পির দায়িত্ব পালন করছেন। তাঁর অন্যান্য ভাইয়েরাও সরাসরি ও বেসরকারী উচ্চ পদে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।
এডভোকেট ব্যারিস্টার সৈয়দ আলী আশরাফ
জামি : বাংলাদেশে উচ্চশিক্ষা সমাপ্ত করে বর্তমানে বৃটেনে অবস্থানকারী ব্যারিস্টার সৈয়দ জামি প্রবাসী হওয়ার আগেই সিলেট জেলা বারের একজন আইনজীবী হিসেবে তালিকাভুক্ত ছিলেন। তিনি বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, লেখক, কবি ও রাজনীতিক কর্ণেল (অব:) সৈয়দ আলী আহমদের জৈষ্ঠ্য সন্তান। সৈয়দ পুর পশ্চিম পাড়া নিবাসী এডভোকেট সৈয়দ জামির পরিবারের অন্যান্য সদস্যরাও উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত।অত্যন্ত মেধাবী এই তরুণ ব্যারিস্টার ইংল্যান্ডে তাঁর আইন পেশা কৃতিত্বের সঙ্গে চালিয়ে যাচ্ছেন।
এডভোকেট সৈয়দ মাসুদ হাসান : সৈয়দ পুর গ্রামের আগুন কোনার মরহুম সৈয়দ সিদ্দেক আলী ‘র জৈষ্ঠ্য সন্তান সৈয়দ মাসুদ একজন নবীন আইনজীবী। উচ্চ শিক্ষা সমাপ্তির পর-পর ই তিনি তাঁর আইন সনদ গ্রহণ করে সিলেট কোর্টে প্র্যাকটিস শুরু করেন। তিনি প্রখ্যাত আইনজীবী সৈয়দ মহসিনের সহযোগী হিসেবে কোর্টে এবং বারে দায়িত্ব পালন করছেন।
এডভোকেট সৈয়দ সোয়েব আহমদ সামনু : ল’কলেজের প্রিন্সিপাল এডভোকেট সৈয়দ মহসিন আহমেদের অনুজ এবং প্রখ্যাত রাজনীতিবিদ, বামপন্হি মজলুম জননেতা সৈয়দ আবদুল হান্নান চেয়ারম্যান সাহেবের কনিষ্ঠ পুত্র সৈয়দ সামনু একজন তরুন আইনজীবী। তিনি অত্যন্ত মেধাবী এবং স্মার্ট একজন উচ্চ শিক্ষিত মানুষ। সৈয়দ পুরে পৈতৃক নিবাস হলেও তিনি তাঁর পিতা মাতাসহ সিলেট শহরের শাহী ঈদগাহ এলাকায় বসবাস করছেন এবং সিলেট কোর্টেই তাঁর আইন পেশা চালিয়ে যাচ্ছেন।
এডভোকেট সৈয়দ আহমদ মোসলেহ মিজান : সৈয়দ পুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ মরহুম সৈয়দ নাজমুল হোসেন সাহেবের সুযোগ্য সন্তান এডভোকেট সৈয়দ মিজান একজন তরুণ আইনজীবী। অত্যন্ত উচ্চ শিক্ষিত ও সম্ভ্রান্ত পরিবারের এই কৃতি আইনজীবী উচ্চ শিক্ষা শেষ করেই আইন সনদ গ্রহণ করে সিলেট জেলা বারে যোগদান করেন এবং সিলেট জজকোর্ট তাঁর পেশা চালিয়ে যাচ্ছেন।
এডভোকেট প্রিন্সিপাল মো.আবদুর রাহমান : সৈয়দপুর
কলেজের প্রিন্সিপাল বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ আবদুর রাহমান
উচ্চতর শিক্ষা গ্রহণ শেষে আইন বিষয়ে ডিগ্রী করে সনদ নিয়ে সিলেট কোর্টে প্র্যাকটিস করছেন। সৈয়দপুর
হাড়িকোনার সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান প্রিন্সিপাল আবদুর রাহমান একজন সুযোগ্য আইনজীবী হিসেবে সিলেট বারে অত্যন্ত জনপ্রিয়।
এডভোকেট সৈয়দ ইয়াসির আরাফাত : সৈয়দপুরের বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ, জগন্নাথপুর উপজেলার সম্মানিত কাজি সৈয়দ জুনেদ আহমেদের জৈষ্ঠ্য পুত্র এডভোকেট সৈয়দ ইয়াসির আরাফাত তাঁর শিক্ষা জীবনের সর্বোচ্চ ডিগ্রী সমাপ্তির সাথে সাথে আইন বিষয়েও সনদ লাভ করেন। তিনি সিলেট জেলা বারের সদস্য এবং জেলা জজকোর্ট আইন পেশায় নিয়োজিত আছেন। পৈতৃক নিবাস সৈয়দপুরের নোয়া পাড়ায় হলেও তিনি পেশার প্রয়োজনে সিলেট শহরেই বসবাস করছেন। তিনি সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্য, সিলেট জেলা বারে নিয়মিত আইন পেশা পরিচালনা করে আসছেন ২০১৬ সাল থেকে।
ব্যারিস্টার সৈয়দ আরাফ রহমান : বীর মুক্তিযোদ্ধা, প্রখ্যাত রাজনীতিবিদ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম উপদেষ্টা জননেতা সৈয়দ আতাউর রহমানের একমাত্র সুযোগ্য সন্তান। সৈয়দ আরাফ রহমান দীর্ঘদিন যুক্তরাজ্যের লন্ডনে লেখাপড়া শেষ করে, বার শেষ করে অতি সম্প্রতি বাংলাদেশ হাইকোর্টে আইন পেশায় যোগদান করেছেন। একজন তরুন আইনজীবী হিসেবে সৈয়দ আরাফের প্রচুর সম্ভাবনা অপেক্ষা করছে। তিনি মা বাবাসহ স্হায়ীভাবে ঢাকা শহরেই বসবাস করছেন।
ব্যারিস্টার সৈয়দ নাফে : প্রখ্যাত আইনজীবী সৈয়দ শামসুল ইসলামের সুযোগ্য সন্তান সৈয়দ নাফে যুক্তরাজ্যে আইন বিষয়ে পড়েলেখা শেষ করে, বার শেষ করে অতি সম্প্রতি বাংলাদেশ হাইকোর্টে যোগদান করেছেন। সৈয়দপুরের স্বনামধন্য পরিবারের এই তরুণ আইনজীবীর পৈতৃক নিবাস হাড়িকোনায় হলেও পরিবারসহ স্হায়ীভাবে সুনামগঞ্জ বসবাস করছেন। পেশাগত কারণে সৈয়দ নাফে ঢাকায় অবস্থান করছেন।
প্রচন্ড সম্ভাবনাময় ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন এই তরুন ব্যারিস্টার।
সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর উপজেলার সৈয়দ পুর গ্রামের যেসকল বিজ্ঞ আইনজীবীগন দেশে আইন পেশা চালিয়ে গ্রাম তথা এলাকার সুনাম বৃদ্ধি করছেন—এই আলোচনায় তাঁদের সম্পর্কে যৎসামান্য আলোকপাত করা হলো। আগামীতে সময় ও সুযোগ করে আমাদের যুক্তরাজ্যে অবস্থানকারী ব্যারিস্টার ও সলিসিটরদের এবং আইন বিষয়ে অধ্যয়নকারী সুসন্তানদেরকে নিয়ে আরও একটি আলোচনায় আলোকপাত করার আগাম আশা রাখছি।

লেখক: মাশূক ইবনে আনিস
সিলেট, ৩০ মে ২০২০ সাল।

এই সংবাদটি 144 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com