শায়খে হবিগঞ্জী রহ. টুকরো টুকরো শিক্ষা

প্রকাশিত: ৭:৫৪ অপরাহ্ণ, জুন ৪, ২০২০

শায়খে হবিগঞ্জী রহ. টুকরো টুকরো শিক্ষা

হাফিজ মাওলানা মুসা আল হাফিজ:


তিনি যখন হাটহাজারিতে পড়তেন, লিল্লাহ বোর্ডিং এ খানা গ্রহণ করতেন না। ছাতু বা ময়দা কিনে পানিতে মিশিয়ে আগুনে জাল দিয়ে তা খেয়ে নিতেন। যখন জামেয়া আরাবিয়া উমেদনগরের মুহতামিমের দায়িত্ব গ্রহণ করলেন, ব্যতিক্রমী এ বৈশিষ্টের ধারা ভিন্নভাবে বজায় রাখলেন। তাঁর আর্থিক অবস্থা বিশেষভাবে ভালো হয়েছে নব্বইয়ের দশকে। এর আগে অভাব-অনটন ছিলো না, তা নয়। কিন্তু মাদরাসায় বেতন একটি ধার্য থাকলেও তিনি তা গ্রহণ করেননি।ইন্তেকালের আগ পর্যন্ত একটি টাকাও নেয়া হয়নি। ওয়াজ- নসিহতে যেতেন। হাদিয়ার পরিমাণ সেকালে ছিলো পথখরচার অনুরূপ। অনেকেই ভালোবেসে বড় অঙ্কে টাকা দিতেন। সেগুলো প্রায়ই উমেদনগর মাদরাসার প্রয়োজনে ব্যয় হয়ে যেতো। মাদরাসার আয় ছিলো নিতান্তই নগন্য। এলাকা ছিলো বেদআতকবলিত। মাদরাসা ছিলো তাঁর আপন পরিবারের অংশ। নিজের পরিবারের প্রয়োজনের উপরে অনেক ক্ষেত্রেই প্রাধান্য পেয়েছে মাদরাসার প্রয়োজন।
২.
হাটহাজারিতে পাঠকালে দেখতে ছিলেন নিতান্তই ছোট। মুফতি ফয়জুল্লাহ রহ. তাঁকে স্নেহ করতেন খুবই। শুধু মেধার কারণে মহব্বত জন্মেছিলো, তা নয়।আদব ও পরহেজগারীই ছিলো প্রধান কারণ। হযরত আবদুল কাইয়ুম রহ. শুধু হাটহাজারী মাদরাসার শায়খুল হাদীস ছিলেন না, ছিলেন পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের অগ্রগণ্য এক বুজুর্গ । ছিলেন সাহেবে নিসবত তথা রুহানী জগতের বিশেষ যোগাযোগ সম্পন্ন ব্যক্তিত্ব। জাগ্রত অবস্থায় রাসূলে দুজাহানের (সাল্লাল্লাহুআলাইহিওয়াসাল্লাম) দিদারলাভে তিনি ধন্য হতেন। হবিগঞ্জী ছিলেন তাঁর একান্ত প্রিয় শিষ্য। একদিন তাঁর প্রদত্ব গুরুত্বপূর্ণ এক দায়িত্ব আঞ্জাম দেন হবিগঞ্জী। আবদুল কাইয়ুম রহ. খুবই বিমোহিত হন। তাকে বুকে জড়িয়ে বলেন, আমার বিশ্বাস তৈরী হয়ে গেছে, আল্লাহ পাক তোমাকে কামিয়াব করবেন। এ রকম বিশ্বাসের জায়গায় নিজেকে নিয়ে যাওয়া দু:সাধ্য এক বিষয় ছিলো। কিন্তু সে জায়গায় তিনি নিজেকে নিয়ে যান অল্প বয়সেই । সকল উস্তাদের নজর ছিলো তাঁর দিকে।সবাই মনে করতেন, তিনি এ জামেয়ার ইতিহাসে গৌরবময় স্বাক্ষর রাখবেন।। এটা যেমন তাঁর উস্তাদ শায়খুল হাদীস আহমদ শফির (দা,বা,) সাক্ষ্য, তেমনি তাঁর সহপাঠী শায়খুল হাদীস মকবুল হোসাইন আসগরীর (দা,বা,) বক্তব্য।
পড়াশোনার সাথে গতিশীল ছিলো কলম। আরবী ও উর্দু ভাষায় লেখতেন । সমকামের ভয়াবহতা নিয়ে একটি রেসালা লেখেন আরবীতে। নাম তাহযিরুল ইখওয়ান আন সুহবাতিল আমারিদি ওয়াসসিবইয়ান। এতে ছিলো মুফতি ফয়জুল্লাহ ও শায়খ কুরবান আলী রহ. এর বাণী ও প্রশংসা। সেটা মাধ্যমিক স্তরে পড়ুয়া এক শিক্ষার্থীর জন্য ছিলো বড় ব্যাপার। কিন্তু শায়খে হবিগঞ্জী প্রায়ই এ ধরণের অর্জনে ধন্য হতেন। উস্তাদগণ তাঁকে নিয়ে এমন সব মন্তব্য করতেন, যা বিস্ময়কর মনে হতো অনেকের কাছে।বড়দের বা উস্তাদদের উচ্চাশা অনেককে আত্মগর্বী করে। কিন্তু হবিগঞ্জী রহ. বলতেন, উস্তাদদের এই আশাবাদ আমাকে আরো দায়িত্ববান করেছিলো। মনে হয়েছিলো যে, একে পূর্ণতা না দিলে তাদের প্রতি অপমান হবে।
৩.
হাটহাজারিতে যতদিন ছিলেন,প্রতিটি জামাতে এক নম্বর ছিলেন। পরীক্ষায় সর্বোচ্চ নির্ধারিত নাম্বার ছিলো ৫০। তিনি প্রায়ই ৫০ এর অধিক নাম্বার লাভ করতেন। হাটহাজারীতে সেকালে নাম্বারদানে সবচে’ কঠোর শিক্ষকদের একজন ছিলেন হযরত মাওলানা মুহাম্মদ আলী রহ.। শরহে আকাইদের ব্যাখ্যা তিনি লেখেন কুনুযে এজাযী নামে। তিনি পড়াতেন শরহে আকাইদে নাসাফী। শরহে আকাইদের পরীক্ষায় যেখানে পূর্ণ ৫০ নাম্বার লাভ ছিলো বিরল ঘটনা, সেখানে, সে বছর দুই সহপাঠী পান ৫০ এর অধিক নাম্বার। একজন জামেয়া কাসিমুল উলূম দরগাহে হযরত শাহজালাল রহ. সিলেট এর সাবেক শায়খুল হাদীস মাওলানা আবদুল হান্নান দিনারপুরী রহ.। তিনি পান ৫২ আর শায়খে হবিগঞ্জী রহ. পান ৫৪ নাম্বার।এ দুই মেধাবী ছিলেন সেকালের মাণিকজোড়! পরীক্ষায় যাদের সাফল্য ছিলো এমন, তাঁরা আবার বিনয় ও খেদমতে ছিলেন অনন্য। জামেয়ার যে কোন কাজে সাড়া দানে তাঁরা ছিলেন অগ্রগামী। এই সাড়াদানের মাত্রাটা বুঝতে সহায়তা করবে একটি ঘটনা।
১৯৫৯ সাল। মাদরাসার পাকঘর পুকুরের ধারে। পাশেই ছিলো বাথরুমের সারি। এর পেছনে ছিলো বাথরুমের ময়লাভরা ড্রেন-নালা। একদিন ঝড় বয়ে গেলো তুমুল। প্রচণ্ড বাতাসে উড়ে গেছে পাকঘরের চাল। গিয়ে পড়েছে সেই ড্রেনে। সেটা উঠিয়ে এনে যথাস্থানে স্থাপন না করলে রান্না বান্না হবে না। ছাত্র-শিক্ষকদের খাবার দাবারের কী হবে? আবহাওয়া ছিলো খারাপ। ঝড় বয়েই চলছিলো। কে সেই চাল উঠিয়ে আনবে নর্দমা থেকে? কেউ কদম বাড়ালেন না। দুই ছাত্র এগিয়ে গেলেন। বুকঅবধি ময়লায় নেমে চালটি উঠিয়ে আনলেন। এ দুই ছাত্রই পরবর্তীকালের শায়খে হবিগঞ্জী ও শায়খে দিনারপুরী (রহ!)
মেধা ও খেদমতের এমন সমন্বয় যেখানে, সেখানে কেন ফুটবে না মনীষাফুল?

তখনকার পশ্চিম পাকিস্তানে জামিয়া আশরাফিয়া লাহোর ছিলো প্রধানতম এক মাদরাসা। এখানে সদরুল মুদাররিসীন ছিলেন আল্লামা রসূল খান রহ.। তাঁকে বলা হতো হুজ্জাতুল ইসলাম বা ইসলামের দলীল। শায়খুল হাদীস ছিলেন ইদ্রিস কান্ধালভী রহ।
রসূল খান রহ. তাঁর মধ্যে দেখতেন বড় সম্ভাবনা। যে কারণে মা’কুলাত (বুদ্ধিবৃত্তিক বিষয়াবলী) ও মানকুলাতে (বর্ণনা ও শ্রুতিভিত্তিক বিষয়াবলী) তাঁর প্রাজ্ঞতাকে ক্রমেই তিনি যাচাই করতে থাকতেন। হবিগঞ্জীর সহাধ্যায়ী, জামেয়া আশরাফিয়া লাহোরের মুহতামীম মাওলানা ফজলুর রহিম বলেন, রসূল খান রহ. এর ইলমী যাচাইয়ে মাওলানা তাফাজ্জুল হক যেভাবে উত্তীর্ণ হন, জামেয়া আশরাফিয়ায় আমাদের সময়ে আর কেউ তেমনটি পারেননি।কিন্তু যোগ্যতার যতোই প্রমাণ তিনি রাখছিলেন, ইলমের প্রতি তার পিপাসা ততোই বাড়ছিলো। বিপুল অধ্যয়ন ও সাধনার বিচারে তিনি এতোটাই অগ্রগামী ছিলেন, আমাদের সময়ে কেউ পারেননি ততটা অগ্রগামী হতে।’’
যোগ্যতা যতোই প্রমাণিত হচ্ছে, সাধনা ততোই বাড়ছে, এমনটি যার বাস্তবতা, তাকদির তাঁর মাথায় তো মর্যাদার আমামা তোলে দেবেই!

ইদ্রিস কান্ধালভী রহ. ছিলেন গরম তবিয়তের বুজুর্গ । মেজাযে ছিলো নাজুকতা। তাঁর মেজায ও তবিয়তকে অনুধাবন করা অনেকের জন্য ছিলো কঠিনতর। কিন্তু মাওলানা ফজলুর রহিম (দা,বা,) এর ভাষায় ‘হযরত কান্দালভীর মেজায ও তবিয়তকে সহজেই পাঠ করে নেন হবিগঞ্জী। আপন নিষ্ঠা, সতর্কতা ও আখলাক দিয়ে কান্ধালভীর কাছে তিনি এমন স্বাভাবিক হয়ে গেলেন,যেমন স্বাভাবিক হয় দুধের কাছে চিনি! কান্দালভী রহ. মনে করতেন মাওলানা তাফাজ্জুল হক ইলমে হাদীসের সত্যিকার এক হামিল বা বাহক হবেন। ফলে তাঁকে যতো বেশি দেয়া যায়, সে দিকে তাঁর বিশেষ মনোযোগ থাকতো।
বোখারী শরীফ তিনি পড়াতেন বিশেষ পদ্ধতিতে। দারস হতো দুই ঘন্টার। সাধারণত ভোরেই হতো প্রথম ঘন্টা শুধু হাদীস পাঠ হতো। এক ঘন্টায় পাঠ বহুদূর এগিয়ে যেতো। দ্বিতীয় ঘন্টায় হতো হাদীসের তর্জমা ও আলোচনা। আলোচনা হয়তো চলছে প্রথম পারায়, কিন্তু দেখা যেতো হাদীসপাঠ এগিয়ে গেছে দশম পারায়। কান্ধালভীর রহ. দরসের আলোচনা ছিলো খুবই গুরুত্ববহ। একবার হলো কী?
হবিগঞ্জী রহ. গুরুতর অসুস্থ। ক্লাসে যেতে পারছেন না। কান্ধালভী জানতে চাইলেন, তাঁর অনুপস্থিতির কারণ। সহপাঠীরা অসুস্থতার কথা অবহিত করলেন। চিকিত্সার খোঁজ খবর নিলেন। পরে যখন তিনি সুস্থ হলেন, দেখা গেলো যে দারসগুলোতে হবিগঞ্জী অনুপস্থিত ছিলেন, কান্ধালভী সেগুলোকে আবারো পূণরাবৃত্তি করলেন। শুধু একজনের জন্য!
মাওলানা ফজলুর রহিমের ভাষায়, কান্ধালভী আর কারো জন্য কখনো এমনটি করেছেন বলে আমি জানি না! ছাত্রকে সচেষ্ট থাকতে হয়, উস্তাদের কোনো দারসই যেনো আমার থেকে না ছোটে! কিন্তু ছাত্র যখন নিজেকে ইলমের যোগ্যপাত্র প্রমাণে সক্ষম হয়, তখন উস্তাদ নিজেই যত্নবান হন, যেন আমার একটি কথাও তাঁর থেকে না ছোটে!
৬.
১৯৬২ ঈসায়ী। গেলেন বিন্নুরী টাউন, করাচিতে। উদ্দেশ্য, আল্লামা ইউসুফ বানূরী রহ. এর শিষ্যত্ব লাভ। মাদরাসায় ভর্তির জন্য একটি দরখাস্ত লেখলেন আরবীতে। দরখাস্ত পাঠ করে কোনো কথা না বলেই বানূরী রহ. তাঁর হাতে তোলে দিলেন লাইব্রেরীর চাবি। বললেন, চাবি নিয়ে যাও! তাঁর সাথে যান পুরনো সাথী মাওলানা আবদুল হান্নান দিনারপুরী । তাঁকে ভর্তি করা হলো শক্ত ইন্টারভিউ নিয়ে। কিন্তু হবিগঞ্জীর তো কোনো ভর্তিপরীক্ষা নেয়া হয়নি। একটি অনিশ্চয়তা কাজ করছিলো। ভর্তির বিষয়টি নিশ্চিত হবার জন্য যখন তিনি দ্বিতীয়বার বানূরী রহ. এর কাছে গেলেন, তিনি নির্দেশ দিলেন, দফতরে খাতায় নিজের নাম দেখে আসার জন্য। ছাত্রদের তালিকায় তিনি নিজের নাম অনুসন্ধান করছিলেন। কিন্তু বানূরী রহ. তার নাম লিখিয়েছেন উস্তাদদের তালিকায়। তাঁর জন্য বরাদ্ধ করেছেন উস্তাদদের ভাতা।
গেলেন ছাত্রত্ব পেতে, নিয়োগ পেলেন উস্তাদ হিসেবে। কিন্তু হবিগঞ্জী ছাত্র হয়েই থাকলেন। বানূরী প্রদত্ব বিবিধ দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি তিনি তাঁর দারসে উপস্থিতিকে নিজের জন্য অনিবার্য করে নেন। সহীহ বুখারী, হুজ্জাতুল্লাহিল বালিগা এবং তর্জমাতুল কুরআনের দারসে তিনি নিয়মিতই উপস্থিত থাকতেন অন্য ছাত্রদের মতোই। উস্তাদের মর্যাদা যখন অর্জিত, তখন কে বসতে চায় ছাত্রদের সারিতে? কিন্তু তালেবে ইলম হওয়ার স্বাদ তিনি পেয়ে গিয়েছিলেন। আঁজলাভরে তাই ইলমে ওহী সঞ্চয়ের কোনো সুযোগই হাতছাড়া করেননি।

৭.
আল্লাহওয়ালাদের সান্নিধ্য অর্জনের নেশা তাঁর মধ্যে ছিলো প্রবল।যাদের সিনায় ইলমের নূর, যাদের হৃদয়ে খোদার মহব্বত ও মারিফত, তাদের থেকে কীভাবে নেয়া যায় আর কত বেশি নেয়া যায়, সেই অন্বেষা শায়খে হবিগঞ্জীর মধ্যে ছিলো প্রবল। সে অন্বেষা তাকে নিয়ে যায় ভারতে; সাহারানপুরে-দেওবন্দে। মানুষ নিষ্ঠার সাথে নিরন্তর যার পিছুধাওয়া করে, তাকে শিকারের শক্তি সে পাবেই। যার প্রতি যার সাধনা ও অন্বেষা, তা তার জন্য ক্রমে ক্রমে সহজ ও স্বাভাবিক হতে থাকে। পাকিস্তানে যখন খোদার পথের সাধকদের দরোজায় দরোজায় হাজিরা দেয়ার চেষ্টার কমতি ছিলো না,ভারতে কমতি থাকবে কেন? তিনি বরাবরই চাইতেন ব্যক্তিত্বের পরশপাথর। ভারত গমনের পথে মিলে গেলো পরশপাথরের মতোই একজনকে। তিনি তাবলিগ জামাতের প্রতিষ্ঠাতা হযরতজ্বী ইলইয়াস রহ. এর সাহেবজাদা আল্লামা ইউসুফ কান্ধলভী রহ.। আগুন যখন আগুনের কাছে যায়, একাত্ম হতে বিলম্ব হয় না। হযরতজ্বী আস্থা ও ভালোবাসা তিনি অর্জন করে নিলেন অল্পতেই। তৈরী হলো বিশেষ হৃদ্যতা। হবিগঞ্জীর বিশেষ আবেদনে হজরতজ্বী তাঁকে নিয়ে গেলেন শায়খুল হাদীস জাকারিয়া রহ. এর সান্নিধ্যে। সেখান থেকে দেওবন্দে ফেদায়ে মিল্লাতের রহ. মেহমান হয়ে শায়খুল ইসলাম রহ. এর স্মৃতিময় মাদানী মঞ্জিলে লাভ করলেন অবস্থান । পাকিস্তানী ছাত্র ভর্তি যখন দেওবন্দে নিষিদ্ধ, তখনও তিনি লাভ করলেন ভর্তি
না হয়ে খুসুসী দারস বা বিশেষ পাঠ গ্রহণের অনুমতি।আর এভাবেই উস্তাদ হিসেবে পেয়ে গেলেন আল্লামা সায়্যিদ ফখরুদ্দীন মুরাদাবাদী রহ.কে, ইবরাহীম বলইয়াভী রহ.কে, হাকিমুল ইসলাম ক্বারী তৈয়ব রহ.কে! শুধু উস্তাদ হিসেবে পাওয়াটাই বিষয় নয়। বিষয় হচ্ছে তাঁদের সত্তা ও বৈশিষ্টের প্রত্যক্ষ সাক্ষাত পাওয়া। নিজেকে প্রদীপ বানিয়ে তাঁদের প্রদীপের আলোতে নিজেকে জ্বালানো!


অতএব এই পাওয়া শুধু কথার কথা হিসেবে পাওয়া নয়, এটি ছিলো জীবন্ত পাওয়া, কার্যকর পাওয়া। এ পাওয়া এতো অর্থবহ ছিলো যে, এগুলো তাঁকে মহান কিছু জ্ঞানকর্মের জন্মের সাথে যুক্ত করে দেয়। ইউসুফ কান্ধলভী রহ. যেমন তাঁকে দিয়ে হায়াতুস সাহাবার মতো অবিস্মরণীয় গ্রন্থের পাণ্ডলিপির প্রুফ সংশোধন করিয়েছেন, তেমনি দারুল উলূম দেওবন্দে তিনি যুক্ত হয়েছেন বুখারী শরীফের বিখ্যাত ব্যাখ্যাগ্রন্থ ইযাহুল বুখারী সঙ্কলনে। আল্লামা মুরাদাবাদী রহ. এর বুখারীর দারসের আলোচনার গ্রন্থনা এ বই। গ্রন্থনার কাজটি করেন মাওলানা রিয়াসত আলী বিজনূরী রহ.। শায়খে হবিগঞ্জীও যুক্ত হন এ কাজে।উভয়েই অনুলিখন করতেন এবং সম্পাদনা করতেন। পরে শুনাতেন শায়খে মুরাদাবাদী রহ.কে। হাটহাজারী কিংবা করাচিতেও এ ধারার কাজে তিনি সক্রিয় থেকেছেন। আল্লামা আবুল হাসান রহ. এর তানজিমুল আশতাত গ্রন্থনায় যেমন ভূমিকা রেখেছেন, তেমনি আল্লামা ইউসুফ বানূরী রহ. এর আদেশে তাঁর বিখ্যাত মায়ারিফুস সুনান এর তাসহীহ বা প্রুফ দেখার কাজ করেছেন।কিতাব এবং কুতুবদের নিয়ে যখন এমন ব্যস্ততা, এরই মধ্যে নিজস্ব রচনাধারাও জারি রেখেছেন। এ সময়েই তৈরী করেছেন জাওয়াহিরুল আদব ফি লিসানিল আরব এর মতো অসাধারণ গ্রন্থের পাণ্ডলিপি!
সময় ও সুযোগগুলোকে এভাবেই রঙ্গিন ও বর্ণাঢ্য করতে হয়। বহুমাত্রিকতা একটি অবাধ্য বুনো ঘোড়া। তাঁকে এভাবেই অধিকার করতে হয় সাধনার ব্যাপকতা দিয়ে, গতিময়তা দিয়ে!

৯.
তাঁর আকর্ষণের কেন্দ্রে ছিলো কুরআন মজিদ ও বোখারী শরীফ। কুরআন মজিদ প্রতিনিয়ত তেলাওয়াত করতেন। মুখস্ত করার আগ্রহ বাড়তো প্রত্যহ। পাকিস্তানে জামেয়া আশরাফিয়া লাহোরে ছয় মাসের অবকাশে হিফজ করে নেন কুরআন মজিদ। হঠাত্ দেখা গেলো তিনি হাফিজ। খুবই ভালোমানের হাফিজ। কিন্তু কীভাবে? লোকেরা জানতো না। ফলে এ নিয়ে বৃহত্তর সিলেটে আছে নানা কিংবদন্তী। যেমন তিনি ছিলেন মুহাদ্দিস, স্ত্রী ছিলেন হাফিজা। স্ত্রী প্রশ্ন করলেন, কুরআন উপরে থাকে না হাদিস উপরে থাকে? তিনি বুঝতে পারলেন, আসলে কী বলা হচ্ছে। তিনি পরের দিন বের হয়ে গেলেন বাড়ী থেকে। কয়েক মাসের মধ্যে হাফিজ হয়েই ঘরে ফিরলেন। কিংবদন্তী তো বড়দের নিয়েই তৈরী হয়। এর মধ্যে বাস্তবতা থাকে না প্রায়ই। তাঁর তেলাওয়াত ছিলো অনবদ্য। জীবনের শেষ দিন অবধি কুরআন হিফজে রাখার ব্যাপারে ছিলেন যত্নশীল ও সচেষ্ট। আর কুরআন মজীদের তাফসীরের পাঠ তো গ্রহণ করলেন কত মনীষীর কাছ থেকে! যাদের মধ্যে আছেন হাফিজুল হাদীস আবদুল্লাহ দরখাস্তী রহ, আল্লামা ইদ্রিস কান্ধলভী রহ, আল্লামা ইউসুফ বানূরী রহ.! দেশে যখন ফিরলেন, জীবনের অন্যতম যিম্মা বানিয়ে নিলেন তাফসীরুল কুরআনকে। এ ধারায় কাটিয়ে দিলেন প্রায় পুরো কর্মজীবন।
বোখারী শরীফ তিনি সম্পূর্ণ পড়েন হাটহাজারিতে শায়খ আবদুল কাইয়্যুম রহ. এর দারসে। দ্বিতীয়বার পড়েন মুফতি ফয়জুল্লাহ রহ. এর বাড়ীতে, বিশেষ মজলিসে। তৃতীয়বার পড়েন লাহোরে শায়খ ইদ্রিস কান্দালভী রহ. এর কাছে। চতুর্থবার পড়েন ইউসুফ বানূরী রহ. এর কাছে। পঞ্চমবার পড়েন দারুল উলূম দেওবন্দে ফখরুদ্দীন মুরাদাবাদী রহ. এর কাছে। এ ছাড়া বোখারীর একংশ পড়েন শায়খ জাকারিয়্যা রহ. এর কাছে। তিনি বলতেন আরো সুযোগ পেলে আরো মুহাদ্দিসদের কাছে পড়তাম।
আল্লাহ তায়ালা বোখারী শরীফের সাথে তাঁকে বিশেষভাবে যুক্ত করে নেন। ১৯৬৬ সালে জামেয়া আশরাফুল উলূম বালিয়া থেকে বিদায় নিয়ে আল্লামা নূর উদ্দীন গহরপুরী রহ. সিলেট চলে আসেন। বালিয়াওয়ালারা একজন শায়খুল হাদিসের জন্য আবেদন করেন হাটহাজারির মুহতামিম আবদুল ওয়াহহাব রহ এর কাছে। তিনি পত্রযোগে বালিয়ায় বোখারী শরীফ পড়ানোর আদেশ দেন শায়খ হবিগঞ্জীকে। সেই থেকে ৫৮ বছর ধরে তিনি বোখারী পড়িয়ে আসছিলেন। যে দিন চলে যান, সে দিনও পড়িয়েছেন দুই ঘন্টা। ২০১৬ -১৭ সালে পুরো ত্রিশ পারা করে ৬০ পারা বোখারী পড়িয়েছেন দুই মাদরাসায়।
১০.
ওয়াজ মাহফিলে তিনি সফর করতেন দেশ-বিদেশে। প্রায় ৬০ বছর ধরে তিনি একাধারে তাফসীর ও ওয়াজ -নসীহত করে গেছেন। এতো দীর্ঘ সময় ধরে সেটা করার তাওফিক এক দুর্লভ ব্যাপার। তাঁর মতো জযবা ও জোশ সম্পন্ন ওয়ায়েজ বিরলই বলতে হবে। কিন্তু ওয়াজের চরিত্রই ছিলো আলাদা। এতে দারসে কুরআন আর দারসে হাদীসের স্বাদ ও আবহ চলে আসতো সহজেই। ইমান-আকিদা, দেশ,জাতি, তাহযিব-তামাদ্দুন, স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ত, দেশীয় ও বিশ্বরাজনীতি বার বার ঘুরে ফিরে আসতো তাঁর আলোচনায়। খুবই শক্ত ও বলিষ্ট ভাষায় কথা বলতেন। কিন্তু ভারসাম্যের নীতি থেকে সরে যাননি। প্রতিটি বাতিলের বিরুদ্ধেই উচ্চকিত ছিলেন। কিন্তু এমনভাবে বলতেন, যাতে দরদ থাকতো, মমতা থাকতো, দায়িত্ব থাকতো। বাতিল যাতে হক্বের দিকে আসে, সেটা থাকতো মনোযোগের কেন্দ্রে। বাতিল যাতে আরো দূরে সরে না যায়, আরো শক্ত রকমের বাতিলে পরিণত না হয়, সেটা তিনি খেয়াল রাখতেন। এই নীতি অক্ষুন্ন রেখেও শিরিক-বেদআতের বিরুদ্ধে আপোষ করেননি কোনো পরিস্থিতিতেই। পেশাদার বক্তা তিনি ছিলেন না। কোনো সহকারী বা প্রতিনিধি তার ছিলো না। ডায়রিও তেমন মেন্টেইন করতেন না। ওয়াজের ব্যাপারে কারো মধ্যস্ততা, কোনো শর্তাবলী ইত্যাদিকে পছন্দ করতেন না।
১১
অনেক সময় সারা রাত চলে যেতো সফরে। ফজরের আগে হয়তো এসেছেন। দেখা গেলো ফজরের পরেই বসে গেছেন দারসে। পড়াচ্ছেন ঘন্টার পর ঘন্টা। ক্লান্তির কোনো ছাপই নেই চেহারায়। তিনি দেশে আছেন আর দারস মিস হয়েছে, তা ছিলো প্রায় অসম্ভব।
ক্লাসে তিনি ছিলেন খুবই প্রাণবন্ত। দরকারী নয়, এমন আলোচনায় যেতেন না। ব্যাখ্যা করতেন অল্পকথায়। এমন প্রক্রিয়ায়, যাতে সকল মতামত ও ব্যাখ্যার শেষ কথাটা স্পষ্ট হয়ে যায়।ছাত্রদের মানসিকতা ও মেধার দিকে খেয়াল রাখতেন। তাদের বিকাশের প্রতিও ছিলেন যত্নবান। বায়জাবী শরীফকে তিনি নিজের নেসাবে রাখতেন। আমি যখন তাফসীরে পড়ি, বায়জাবীর ক্লাসে আমাকে ডেকে আনতেন। বলতেন তুমি তাদের সাথে আজকের সবক তাকরার করো, আমি শুনি। অন্যদের বলতেন, প্রশ্ন করার জন্য। তারা প্রশ্ন করলে আমার জবাব যখন সুন্দর হতো, যথার্থ হতো, তাঁর চেহারা খুশিতে উজ্জল হয়ে যেতো। এরপর বলতেন, এখানে আরো নুকাত আছে। যা সাধারণত আলোচনায় আসে কম। অত:পর শুরু হতো বিভিন্ন রুমুজ, আসরার, দাক্বায়িক ও হাক্বায়িকের বর্ণনা। দারসটা অন্য রকম হয়ে যেতো। সবাইকে বলতেন, যা তোমরা বুঝেছো, তা তোমাদের জন্য বলেছি আর যা বুঝতে পারোনি, তা আসলে মুসা আল হাফিজের জন্য বলেছি!
১২.
ব্যক্তিগত প্রসঙ্গ চলে আসছে, যা না এলেই ভালো হতো। কিন্তু আমি কীভাবে শায়খের বিশেষত্বকে আবিষ্কার করেছি, তা বুঝাতে হলে নিজের অভিজ্ঞতাটাই মনে হয় সবচে’ জীবন্ত। স্মৃতি ও শ্রুতি, এ দু’টি জ্ঞানের মাধ্যম। অনেক সময় শ্রুতির চেয়ে নিজস্ব স্মৃতিটাই হয়ে উঠে সহায়ক ও মর্মস্পর্শী। সে কারণে এই স্মৃতির সহায়তা নেয়া।।
২০০৭ ঈসায়ী। আমেরিকাস্থিত আন্তর্জাতিক সেবাসংস্থা আর রাহমান চ্যারিটি ফাউন্ডেশন একটি বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করে। ব্যতিক্রমী ছিলো এ উদ্যোগ। সেটি হলো, বাংলাদেশে বিভিন্ন ক্ষেত্রে ইসলামী ব্যক্তিত্বদের জাতীয়ভাবে পুরষ্কৃত করা। নগদ অর্থ, সনদ ও সম্মাননাপত্র প্রদান করা হয় পুরষ্কার হিসেবে। পুরষ্কারের নাম দেয়া হয় উলূমুল কুরআন জাতীয় পুরষ্কার, ২০০৭। সংস্থার পক্ষ থেকে একটি প্রস্তাবনা পেশ করা হয়। জাতীয় শ্রেষ্ঠ শায়খুল হাদীস, শ্রেষ্ঠ ইসলামী লেখক, শ্রেষ্ঠ মুফাসসিরে কুরআন, শ্রেষ্ঠ ওয়ায়েজ, শ্রেষ্ঠ রাহবারে তরিকত, শ্রেষ্ঠ কারী, সারা দেশে বোর্ডসমূহে দাওরা পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকারকারীদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ তরুণ প্রতিভা, শ্রেষ্ঠ শিশুশিক্ষক, এবং সারা দেশের সর্বকণিষ্ঠ হাফেজে কুরআনকে এ পুরষ্কার প্রদান করা হবে। বাছাই প্রক্রিয়া ছিলো খুবই জটিল। মাওলানা মুহিউদ্দীন খান রহ, শায়খে হবিগঞ্জী রহ. বেফাক মহাসচিব মাওলানা আবদুল জব্বার রহ. মুফতি ওয়াক্কাস দা,বা, সহ ৪০ জনের উপস্থিতিতে পুরষ্কৃতদের বাছাই করা হয়। প্রতিটি ক্যটাগরিতেই নানা রকম যুক্তি-তর্ক ও পর্যালোচনার মাধ্যমে বাছাই নিশ্চিত করা হয়। শায়খুল হাদীস হিসেবে আল্লামা আহমদ শফী (দা,বা,) তরিকতের শায়খ হিসেবে হযরত আমিনুদ্দীন শায়খে কাতিয়া রহ, লেখক হিসেবে হযরত মুহিউদ্দীন খান রহ, মুফাসসির হিসেবে শায়খে হবিগঞ্জী রহ, ওয়ায়েজ হিসেবে মাওলানা নুরুল ইসলাম ওলিপুরী দা,বা, কারী হিসেবে বিখ্যাত কারী উবায়দুল্লাহ রহ, শিশুশিক্ষায় অবদানের জন্য নুরানী বোর্ডের প্রধান কারী বেলায়েত রহ, আর সর্বকণিষ্ট হাফিজ হিসেবে নিতান্তই কম বয়সের একজনকে পুরষ্কৃত করা হয়, যার নাম ভুলে গেছি। সারা দেশে বোর্ডসমূহে দাওরায়ে হাদীস পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকারকারীদের মধ্যে আমাকে করা হয় পুরষ্কৃত। কিন্তু আমি তো প্রথম হই হবিগঞ্জ দ্বীনি শিক্ষা বোর্ডে। স্বাভাবিক বিচারে বেফাকে যিনি প্রথম হন, তাকেই এ দেয়ার কথা। তবে আরো নানাবিধ বিষয় ছিলো বিচার্য । কিন্তু বেফাক মহাসচিব আবদুল জব্বার রহ,সহ বরেণ্য আলেমগণ আমাকে কেন পুরষ্কারের জন্য বাছাই করেছিলেন, আল্লাহই মা’লুম।
ভারত, পাকিস্তান, ব্রিটেন, আমেরিকা ও আরবের অতিথিদের উপস্থিতিতে পুরষ্কার প্রদান করা হয়। সেটি ছিলো উমেদনগর জামেয়ার ত্রিশ সালা দস্তারবন্দী সম্মেলন।প্রায় অর্ধলক্ষ মানুষের সমাগম। দস্তারবন্দীর পর্বে সবাইকে একটি করে পাগড়ী দেয়া হলো, আমাকে দেয়া হলো দু’টি। আমার নাম ঘোষিত হলে হুজুর এগিয়ে এসে আমাকে হাত ধরে নিয়ে গেলেন। পাগড়ি পরাচ্ছিলেন জামেয়া আশরাফিয়া লাহোরের মুহতামিম আল্লামা ফজলুর রহিম (দা,বা,), আল্লামা আহমদ শফী (দা,বা,) শায়খে কাতিয়া (রহ,) শায়খে ইমামবাড়ী (দা,বা,) সহ অনেকেই। হুজুর আমাকে তাঁদের সামনে নিয়ে বললেন, ও রাইটার, আমাদের ফারিগ। আজ সে বড়দের কাতারে দাঁড়িয়ে পুরষ্কৃত হয়েছে। দোয়া করবেন, সে যেন সত্যিকার বড় হয়।
পাগড়ি প্রদানের সময় ভিড় থাকে প্রচণ্ড। এই পরিস্থিতিতে এই যে, পরিচয় করিয়ে দেয়া ও দোয়া প্রার্থনা,শাগরিদের জন্য কতো স্বপ্ন, আন্তরিকতা, মমত্ব ও অভিভাবকত্ব থাকলে এটা হয়! সত্যিকার উস্তাদ ও শায়খ তো এমনই হবেন! তাঁর এই ভূমিকা আমাকে প্রতিনিয়ত শাসন করে। যখনই নিজের ক্ষুদ্রতা, হীনতা ও নাপারা সমূহের দিকে তাকাই, তখনই সেই স্মৃতি ছড়ি হয়ে মাথার উপরে ঘুরতে থাকে। বলে, তোমার তো এমন হবার কথা ছিলো না! এমনটি তো তোমার কাছে আশা করা হয়নি!

১৩
রাজনীতিতে তিনি ছিলেন খুবই আদর্শনিষ্ঠ।জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের রাজনীতিতে জড়িত ছিলেন আমৃত্যু। দলটির কেন্দ্রিয় সহসভাপতি ও হবিগঞ্জ জেলা সভাপতির দায়িত্বে ছিলেন তিনি। আদর্শের বিজয় কীভাবে হয়, কোন প্রক্রিয়ায় হয় এবং আদর্শের পতাকাবাহীদের মাথা কীভাবে উচু হয়, এটা তিনি খুব গভীরভাবে লক্ষ্যে রাখতেন। ক্ষমতাবানদের কাছে হাজিরা দেয়া বা তাদের খুশি রাখার চেষ্টাকে তিনি সমগ্র সত্তা দিয়ে ঘৃণা করতেন। যখন চারদলীয় জোট ক্ষমতায়, তখনও জোটের এমপি, মন্ত্রীদের তাঁর কাছে যেতে হতো। একবার নবিগঞ্জে জোটের পক্ষ থেকে বিএনপির এক প্রার্থীকে দাঁড় করানো হয়। তিনি ও তাঁর দলকে উপেক্ষা করা হয়। তিনি দাঁড় করিয়ে দেন মাওলানা আবদুল মালিক চৌধুরীকে। প্রশ্ন করলাম, হুজুর! এতে তো জোটের ভোট ভাগ হয়ে যাবে? বললেন, তা হবে না। শুধু একটা শিক্ষা হবে ওদের। আর যাতে আমাদের অবহেলা না করে। তিনি মাঠে নেমে পড়লেন চৌধুরীর পক্ষে। বিএনপি হাইকমান্ড পেরেশান হয়ে গেলেন। তারা যোগাযোগ করলেন হবিগঞ্জীর সাথে। তিনি ছাড় দিচ্ছেন না। পরে হুজুরের মাদরাসায় এলেন কেন্দ্রিয় নেতৃবৃন্দ,সাবেক মন্ত্রী ও খালেদাজিয়ার উপদেষ্টা। তারা নিজেদের ভুল স্বীকার করলেন। এক সাবেক মন্ত্রী বললেন, হুজুর, আপনার জেলায় যদি আপনাকে জিজ্ঞেস না করে আমরা জোটগত কিছু করি, তাহলে আপনার হাতের লাঠি দিয়ে পেটাবেন। মাওলানা আবদুল মালেককে বসানো হলো। তার যাবতীয় খরচের অর্থ প্রদান করতে চাইলেন বিএনপির প্রার্থী। কিন্তু তাতে জ্ঞাপন করা হয় অসম্মতি।
যখন আওয়ামী লীগ ক্ষমতায়, সমাজ কল্যাণ মন্ত্রী ছিলেন হবিগঞ্জের এমপি। তাঁকে আসতে হতো মাদরাসায়। অন্যান্য এমপিরা তো আসতেনই। ওয়াজ মাহফিলে ঘন্টার পর ঘন্টা বসে আছেন এমপি, এ দৃশ্য ছিলো একান্তই স্বাভাবিক। মন্ত্রী আসবেন আর পোস্টারে নাম দিতে হবে, প্রশ্নই আসে না।
শাপলা চত্বরে হেফজতের অবস্থান কর্মসূচির আগে এ কর্মসূচি প্রথমে পালিত হয় হবিগঞ্জে। প্রশাসনকে সেখানে নতি স্বীকার করতে হয়। জনতার হাতে ছিলো লাঠি। প্রশাসন ছিলো মারমুখি। শত শত পুলিশ সারি বেঁধে বন্দুক হাতে দাঁড়িয়ে আছে আর ঠিক সামনাসামনি লাঠি হাতে দাঁড়িয়ে আছে অগণিত জনতা। তিনি ঘোষণা দিলেন, আমি পিছু হটবো না। আমার কর্মসূচি পালন করতে দিতে হবে। মন্ত্রী যোগাযোগ করলেন। বাড়াবাড়ির জন্য দু:খ প্রকাশ করলেন। সরকারের তরফে প্রতিনিধি পাঠালেন। শায়খের কর্মসূচি শান্তিপূর্ণভাবে সফল হলো। এরপর এলো হেফাজতের ঢাকা ঘেরাউয়ের কর্মসূচি। সেখানে শুরুতে আল্লামা আহমদ শফির সাথে শায়খে হবিগঞ্জীর একান্ত বোঝাপড়া ও পরামর্শ প্রক্রিয়া জারি থাকলেও ঢাকায় এসে তিনি কোনোভাবেই আমিরে হেফজতের সাথে দেখা করতে পারেননি।যদিও তিনি ছিলেন হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর। সে অন্য এক ইতিহাস।
শাপলাচত্বর পরবর্তী হেফজতের চিত্র ও চরিত্রে তিনি ছিলেন ব্যথিত। আমীরে হেফাজত এবং শীর্ষস্থানীয় সকল আলেমের উপস্থিতিতে হাটহাজারিতে জ্বালাময়ী বক্তব্য রেখে আপন ভিন্নমত তোলে ধরেন।
১৪
এহসান ও তাসাউফ ছিলো তাঁর প্রধান এক ক্ষেত্র। যখন তাফসীরে জালালাইন পড়েন, তখনই বায়আত গ্রহণ করেন মুফতিয়ে আযম ফয়যুল্লাহ রহ. এর কাছে। তাঁর ইন্তেকালের পরে বায়আত গ্রহণ করেন হযরত বদরুল আলম শায়খে রেঙ্গা রহ. এর কাছে। কঠোর সাধনা শেষে লাভ করেন খেলাফত।

তাসাউফে তার দৃষ্টিভঙ্গিতে ছিলো উভয় বুজুর্গের কর্মধারার প্রতিফলন। ফলত সমকালে তা হয়ে উঠে একান্তই আলাদা। মুরিদ তো করতে চাইতেন না। অনেক বলার পরেই কেবল রাজি হতেন। নিজেকে একজন ওয়ায়েজ, শায়খুল হাদিস বা রাজনীতিকের মধ্যেই লুকিয়ে রাখতেন। নিজের আসল সত্তাকে প্রকাশ হতে দিতেন না। তাঁর আসল সত্তা ছিলো তার আধ্যাত্মিকতা। বলতেন, কুতুবিকে কিতাবের মধ্যে লুকাইতে পারবায়? না পারলে খাঁটি পীর হতে পারবা না। একদিন দাওরায়ে হাদিসের বিদায়ী ছাত্রদের উদ্বুদ্ধ করা হলো,, হুজুরের কাছে বায়আত গ্রহণের জন্য। কীভাবে বিষয়টি তিনি জানলেন। মসজিদে বয়ান রাখলেন, কেউ কেউ তাশকিল করে, যেন লোকেরা আমার কাছে মুরিদ হয়। এভাবেই ক্যাম্পেইন করা হয়। অমুকের মুরিদ হও, অমুক এতো বড় পীর। এটা নির্বাচনী প্রচারণা নয়। এটা এহসান ও তাসাউফ। লাখ লাখ ভক্ত দিয়ে কী হবে? মুরিদের সংখ্যা দিয়ে কী হবে? মুরিদ বাড়াতে চাইলে এলাকার পর এলাকা মুরিদে মুরিদে ভরে যেতো। কেউ না চাইতেই যদি মুরিদ বাড়তে থাকে, সেটা খারাপ নয়। কিন্তু এ জন্য প্রচারণা, ক্যাম্পেইন খুবই খারাপ। তিনি এশকে খোদার অভিব্যক্তিসমূহকে লুকাতে ছিলেন পরম যত্নবান। বলতেন এটা গোপন সম্পর্ক। এটা দেখিয়ে বেড়ালে চলে? হাল, মাকাম, কারামত ইত্যাদির পিছে পড়া থেকে সালিকদের নিষেধ করতেন।কিন্তু হালওয়ালাদের সমালোচনা করতেন না। প্রকৃতপক্ষে তিনি নিজেই ছিলেন হালওয়ালা। তবে সালিকদের শেখাতেন সহজ রাস্তা। বলতেন, আল্লাহর পরিচয় ও তার সাথে সম্পর্কটাই মা’রিফত। সুন্নতে রাসূলই (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) শরীয়ত ও তরিকত। এ পথেই সহজে পরিত্রাণ । এটাই যথার্থ পথ। অন্য দিকে নজর দিলে বিপদ বাড়বে, ভেজাল মিশ্রিত হবে।
তরিকতে শায়খের ইজাজত লাভ ছিলো খুবই দুরূহ। ইজাজত প্রাপ্তদের সংখ্যাও অনেক কম। বছরের পর বছর নিরীক্ষা না করে তিনি কাউকেই ইজাজত দিতেন না।আবার ইজাজত লাভ করে কে কী করছে,সেটারও নজরদারি করতেন গভীরভাবে। ফলে এমনও হয়েছে যে,ইজাজত দেয়ার পরে তিনি খলিফাদের তালিকা থেকে কিছু নাম কেটেও ফেলেন।
১৫.
রোদন করতেন বিপুল । সেটা করতেন সাধারণত একান্তে। সম্মিলিত মুনাজাতেও অনেক সময় কান্নার ঢেউ জেগে উঠতো। একটি মায়াবী, মোহন ধরণ ছিলো উচ্চারণে ও ভাবধারায়। বিনয় ও আবেগ ছিলো, ছিলো তা’জিম ও আদব। যখন ছাত্র ছিলেন, তখনই হৃদয়গ্রাহী এই মুনাজাতকে নিজের সঙ্গী করে নেন। শেষ রাতের কান্না তখনই ছিলো তাঁর নিত্যকর্ম। সেটা দৃষ্টিবান উস্তাদদের নজর এড়ায়নি।তাঁর সহপাঠী শায়খুল হাদীস মাওলানা মকবুল হোসাইন আসগরী (দা.বা.) বর্ণনা করেন একটি বিরল ঘটনা। যখন শায়খে হবিগঞ্জী রহ. বিন্নুরী টাউন করাচিতে ছিলেন, ইউসুফ বানূরী রহ. এক রাতে তাহাজ্জুদের সময়ে তাঁকে ডেকে নেন আপন হুজরায়। অত্যন্ত মমতার সুরে বলেন, মাওলানা! তুমি যখন রোদন করো, রোদনের সেই আওয়াজ মদীনা মোনাওয়ারায় চলে যায়!

১৬.
২০০৯ ঈসায়ী। দেশের অন্যতম দ্বীনী গবেষণাপ্রতিষ্ঠান মারকাযুদ দা’ওয়া তখন মিরপুর পল্লবীতে। প্রশস্ত জমি প্রয়োজন মারকাযের। প্রতিনিয়ত দোয়া করছেন হযরত মুফতি আবুল হাসান মুহাম্মদ আবদুল্লাহ, হযরত মাওলানা আবদুল মালিক সাহেবসহ শিক্ষক-শিক্ষার্থীগণ।
একদিন মারকাযে বিশেষভাবে দাওয়াত করা হয় শায়খে হবিগঞ্জীকে। বাদ জোহর। শিক্ষক ও ছাত্রদের ভরপুর মজমা। মাওলানা আবদুল মালিক সাহেব রাখলেন সূচনাবক্তব্য। তিনি বললেন, ‘‘ মারকাযের জন্য প্রশস্ত কিছু জায়গার প্রয়োজনে বহুদিন ধরে অনেক দোয়া ও প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে। কিন্তু জমির ব্যবস্থা হয়নি।কিছুদিন আগে আমাদের সাবেক এক শিক্ষার্থী স্বপ্নে দেখেছেন, হুজুরে আকরাম সাল্লাল্লাহুআলাইহিওয়াসাল্লাম বলছেন, মাওলানা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জীকে দিয়ে দোয়া করাও। তোমাদের মারকাযের জায়গার ব্যবস্থা হয়ে যাবে।’’
বিস্মিত হবার মতো বিষয়। শায়খে হবিগঞ্জী সে দিন দোয়া করলেন। কিছুদিনের মধ্যেই কেরাণীগঞ্জের হযরতপুরে মারকাযের জন্য দশবিঘার মতো জমির ব্যবস্থা হয়ে গেলো। এটি হলো ঘটনার একদিক। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ আরেক দিক হলো, বিশ্বস্তসূত্রে জানার পরে হুজুরের পরিচিতিমূলক একটি লেখায় যখন তা উল্লেখ করলাম, তিনি দেখে বললেন, ’’এগুলো প্রকাশ না করাই ভালো। অন্তত বেঁচে থাকাকালে এসব গোপন রাখা পছন্দ করতেন আমাদের বড়রা।’’
১৭.
দশটি বছর মাহে রমজান যাপনের সৌভাগ্য হয়েছে তাঁর সান্নিধ্যে। এমন জীবন্ত রমজান আর কোথায় মিলবে? মাগরিব পরে এশা অবধি নফল সালাতে একপারা তেলাওয়াত, প্রতিতারাবিহে দুই পারা, কোনো রমজানে তিন পারা, চার রাকাত পর পর দীর্ঘ তারওয়ীহা, বিতিরের পরে তাফসীরুল কুরঅান, এক অন্য রকম আবহে ও মগ্নতায় চলে আসতো তাহাজ্জুদের প্রহর। তাহাজ্জুদে তেলাওয়াত হতো তিন পারা,কখনো চার পারা। এরপর সেহরি ও ফজরের নামাজের পরে দুই থেকে আড়াই ঘন্টা ঘুম। এটাই ছিলো মাহে রমজানের নিদ্রা। এরপর তেলাওয়াত আর তেলাওয়াত। আসর পরে নির্ধারিত হাফিজরা শায়খের তেলাওয়াত শুনতেন। ইফতারের কিছুক্ষণ আগে তেলাওয়াত সমাপ্ত হতো। দ্রুতলয়ে কুরঅান তেলাওয়াত তিনি করতেন না।এমন এক মায়াবি আবহ ছিলো তেলাওয়াতে, যা বিস্ময়কর। শেষ রাতের তেলাওয়াতে রহমত ও আশাবাদের আয়াতগুলো বার বার তেলাওয়াত করতেন। ভীতি ও খওফে খোদার আয়াতগুলো পূণরাবৃত্তি করতেন ক্রমাগত… কণ্ঠস্বর হতো কম্পমান,কান্না গমগম করতো, আওয়াজ রুদ্ধ হতো বার বার। আর মুনাজাতের আয়াতসমূহে এ অবস্থা হতো আরো প্রবল ও গভীর। তেলাওয়াতের স্বাদ কী? কালামে এলাহীর সাথে সম্পর্কের গভীরতা কেমন হবে, তার একটি নমুনা দেখা যেতো শায়খের মধ্যে।

১৮.
রমজানে কোনো ব্যস্ততাকেই জায়গা দিতেন না। যেনো তার আর কোনো দুনিয়া নেই। তিনি যেন এক জগত থেকে সফর করে অন্য এক জগতে চলে আসতেন, সেই জগতে কাটিয়ে দিতেন পুরো মাস। কথা তেমন বলতেই চাইতেন না। একান্ত প্রয়োজনে কেউ সাক্ষাৎ করতে চাইলে অনুমতি দিতেন, যথাসম্ভব অল্পকথায় বিদায় করে দিতে চাইতেন। পত্রপত্রিকাও তেমন পড়তেন না রমজানে। পত্রিকা প্রতিদিনের মতোই আসতো, দু’ চার মিনিট নজর বুলাতেন সংবাদসমূহে। সাংবাদিক এলেন জাতীয় ইস্যুতে কথা বলতে। বললেন,পুরো বছর জাতীয় বিষয় নিয়ে পড়ে থাকি। এই রমজানে আমাকে নিজের বিষয় নিয়ে পড়ে থাকতে দাও।
শেষ দশদিন এ’তেকাফ হতো। আলেম- ওলামাসহ অনেকেই আসতেন।দূর- দূরান্ত থেকে সালিকগণ আসতেন। সালিকদের মা’মুলাত এবং এ’তেকাফরতদের ব্যবস্থাপনার বিষয়গুলো আমাকে বলতেন দেখার জন্য। কোনো ধরণের অব্যবস্থাপনা হলে খুবই ব্যথিত হতেন। কেউ অনর্থক কথা বলছে,গল্প করছে, এটা লক্ষ্য করলে মর্মাহত হতেন।বিশেষ করে কোনো আলেম থেকে এমনটা হয়ে গেলে নারাজির প্রকাশ ঘটতো বেশি। আপন রুটিনের পাবন্দিকে খুবই গুরুত্ব দিতেন। নেযামুল আওকাতকে প্রভাবিত করে, এমন সবকিছুকে যথাসম্ভব এড়িয়ে চলতেন। বিকল্প উপায়ে প্রয়োজন সম্পন্ন করার ব্যবস্থা নিতেন। এমনকি এ সময়ে কেউ মুরিদ হলে সবক বুঝিয়ে দেয়ার জন্য আমার কাছে পাঠিয়ে দিতেন। এ’তেকাফরত কারো সবক যদি পরিবর্তন হতো,নতুন সবক দেয়া হতো,সেটা কীভাবে আদায় করতে হবে,জানতে চাইলে বলতেন,মুসা আল হাফিজের কাছে যাও, সে দেখিয়ে দেবে। ( আলহামদুলিল্লাহ, এভাবে সালিকদের অনেককেই আমার সাথে বিশেষভাবে যুক্ত করে দেন , যাদের কেউ কেউ পরে শায়খের খেলাফতও লাভ করেছেন।)
১৯.

তিনি ছিলেন ‘জামে শাখসিয়াত’ তাঁর ব্যক্তিত্বে ছিলো বহুমুখি কর্ম—ধারার সমাহার। বাংলাদেশের সমাজ বাস্তবতায় দীন ইসলামের সবগুলো প্রয়োজন ও কর্মতৎপরতায় তাঁর সমন্বিত অংশগ্রহণ ছিল। প্রতিটি শাখায় তিনি কাজ করেছেন প্রজ্ঞা ও দক্ষতার সঙ্গে। তাঁর শিষ্যদের দিকে তাকান, দেখবেন সেখানে আছেন শায়খ গিয়াসুদ্দীন শায়খে বালিয়া রহ. এর মতো কালজয়ী মনীষী, শায়খ নূর হোসাইন কাসিমী (দা,বা,) এর মতো বহুমুখী গুণাবলীর জাতীয় ব্যক্তিত্ব আবার ময়মনসিংহের মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহ সাদী (দা,বা,) এর মতো শায়খুল হাদীস ও আঞ্চলিক নেতৃত্ব, কামরাঙ্গিরচরের শায়খুল হাদীস মাওলানা সোলাইমান নোমানীর (দা,বা,) মতো বিদগ্ধ আলেম ও মুহাদ্দিস, খেলাফত মজলিসের মহাসচিব মাওলানা নেজামুদ্দীন রহ, এর মতো বিচক্কণ রাজনীতিক ও ব্যবস্থাপক, মাওলানা আবদুল রব ইউসুফির (দা,বা,) মতো রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, মাওলানা আবদুল মালিক রহ, এর মতো মুফাসসির ও শায়খুল হাদীস { যার ছাত্র হচ্ছেন মাওলানা নুরুল ইসলাম ওলিপুরী (দা,বা,)}, মাওলানা আশরাফ আলী বানিয়াচঙ্গীর (রহ.) মতো মুফাসসির ও হাদীসবেত্বা থেকে নিয়ে উজ্জ্বল ও বহুবিস্তারিত অনেকেই। নানা খাতে অবদান রেখেছেন তাঁর শিষ্যরা। এর মধ্যে প্রতিফলিত হয়েছিলো তার ব্যক্তিত্বের নানামুখি প্রভাব।
তিনি আসলে বড়দের হাতে নিজেকে তৈরী করেই বড় হয়েছেন। উপমহাদেশের মহান মনীষীদের অনেকেরই সান্নিধ্য থেকে লাভ করেছেন আলো। যাদের একজনের সান্নিধ্য ও শিষ্যত্বই একজনকে দীপ্তিমান করে তোলার জন্য যথেষ্ট। তাঁর ব্যক্তিত্ব ছিলো তাদের বহুমুখি আলোর একটি শিখা। ফলত তিনি তাঁর কালে হয়ে উঠেছিলেন অতীত মনীষীদের আয়না। যে দিকে তাকালে বুঝা যায় আয়নায় বিম্বিত সেই উচ্চতা ও মহিমাময় গুণাবলী থেকে আমরা কত দূরে এবং কত নিচে নেমে কত বেশি ক্ষুদ্র হয়ে যাচ্ছি !
২০.
তাঁর ব্যক্তিত্বের বুনিয়াদ ছিলো আপন পরিবারে। সেটা বাল্য ও কৈশোরেই ভিত্তি লাভ করে। বাবা শায়খ আবদুন নূর রহ. ছিলেন মুত্তাকি ও বিজ্ঞ আলেম, সালিশ ব্যক্তিত্ব। তাঁর কাছেই তিনি লাভ করেন প্রাথমিক শিক্ষা। নানা ছিলেন সমাজসংস্কারক, সুফি সাধক, ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের মুজাহিদ মাওলানা আসাদুল্লাহ রহ.। তাঁর বিদুষী কন্যা মুহতারামা শামসুননিসা রহ, ছিলেন শায়খে হবিগঞ্জীর জননী।রত্নগর্ভা এই মায়ের জীবিত সন্তানদের প্রত্যেকেই আলোকদীপ্ত । এঁরা হলেন শায়খ তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী রহ, শায়খুল হাদীস আল্লামা ইমদাদুল হক যিনি বুখারী শরীফের ব্যাখ্যাকার, হাফিজ মাওলানা শামসুল হক সা’দী, যিনি হবিগঞ্জ দ্বীনী শিক্ষা বোর্ডের পরিচালক, ডা. সিরাজুল হক এমবিবিএস,যিনি আমেরিকার মিশিগান বায়তুল মুকাররম মসজিদ ও মাদরাসার পরিচালক, শায়খুল হাদীস হাফিজ আহমদুল হক, যিনি ওআইসি ইউনিভার্সিটির লেকচারার এবং বায়তুস সালাম উত্তরার শায়খুল হাদীস।
এই বাবা আর মায়ের হাতেই প্রথম প্রশিক্ষণ পান সন্তানরা। কেমন ছিলো সেই মায়ের তাকওয়া? তাঁর বড় ছেলে তাফাজ্জুল হক রহ. এর বয়স তখন আঠারো মাস। পই পই করে হাঁটেন। উঠানে দৌড়ান। পুকুর ছিলো পাশেই। একদিন হেঁটে গিয়ে পড়ে গেলেন পুকুরে। খবর পেলেন মা। সন্তান পুকুরে পড়ে গেছে, এ সংবাদ একজন মাকে দিশেহারা করে ফেলতে পারে। কিন্তু এই মা বের হলেন না ঘর থেকে। কিছুটা দূরে পুকুর। পর্দার ব্যাপার ছিলো। তিনি তাহলে সন্তানের জন্য কিছুই করলেন না? হ্যাঁ, করলেন। যিনি জীবন দেয়া-নেয়ার মালিক, তার দরবারে তিনি সেজদায় পড়ে গেলেন। রোনাজারি করলেন।কিছুক্ষণ পরে কে একজন পুকুর থেকে সন্তানকে উঠিয়ে এনে ঘরে ফিরিয়ে দিলেন।
আরেকবার আগুন লাগলো বাড়ীতে। সবাই আগুন নেভাতে দৌড়ঝাপ করছে। আর এই রমণী ঘরে যা আছে, সব কিছুর কথা ভুলে পবিত্র কুরআন মজিদ বুকে নিয়ে গোয়ালঘরে চলে গেলেন। জায়নামায বিছিয়ে মগ্ন হলেন নামাজে। আগুন নিভে গেলো একসময়। ঘরে দেখা গেলো তিনি নেই। খোঁজতে খোঁজতে গোয়ালঘরে তাঁকে পাওয়া গেলো, সেজদায় লুটিয়ে আছেন!
এমন মা কীরূপ তরবিয়ত দেবেন সন্তানকে? তাঁর সম্পদ যে তাকওয়া ও খোদার সাথে সম্পর্ক, সেটাই তো তিনি শেখাবেন সবচে’ বেশি। পরিবারের বীজতলায় যদি মহান গুণাবলির চাষাবাদ না হয়, কেমনে ফলবে মহান মানুষী ফসল? শায়খে হবিগঞ্জী রহ. সে বীজতলারই ফসল, যেখানে খোদার সমীপে প্রত্যহ বর্ষিত হতো চোখের পানি, উচ্চারিত হতো জিগরের ফোপানি।
পিতা শায়খ আবদুননুর রহ. এর একটি স্বপ্নের কথা প্রায়ই বলতেন হবিগঞ্জী। একদিন তিনি স্বপ্নে দেখেন, কিশোর সন্তান তাফাজ্জুল হককে নিজ হাতে কুরবানী করে দিচ্ছেন। এ স্বপ্নের তা’বির করা হলো, তাঁকে দ্বীনের জন্য উrসর্গ করে দিতে হবে। দুনিয়াবী কোনো কিছু তাঁর থেকে পাওয়ার আশা ত্যাগ করতে হবে। তিনি তাই করলেন এবং আনন্দিত হলেন।
বাবা যদি এমন হন, মা যদি এমন হন, সন্তান তবে কেন হবেন না তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী রহ!

এই সংবাদটি 124 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com