দেওয়ান নূরুল আনোয়ার চৌধুরী; তিনি তাঁর কর্মে বেঁচে থাকবেন

প্রকাশিত: ১০:৫৯ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ৩১, ২০২১

দেওয়ান নূরুল আনোয়ার চৌধুরী; তিনি তাঁর কর্মে বেঁচে থাকবেন


সৈয়দ মবনু
*
প্রাককথা :

পৃথিবী আমার কিছু প্রেমিক-প্রেমিকা ছিলেন কিংবা আছেন, যারা ব্যক্তিগত কোন স্বার্থ ছাড়াই আমাকে ভালোবাসতেন, ভালোবাসেন। যাদের মধ্যে এমনও আছেন যারা আমাকে কোনদিন দেখেননি, খুব বেশি দেখেননি কিংবা তাদের কাছে খুব বেশি যাওয়া হয়নি। যাদের সম্পর্কে জেনেছি, তাদের কথা বললাম, তবে আমার বিশ্বাস অনেককে আমি জানিও না। যাদেরকে জানি শুধু তাদের কিংবা যাদেরকে জানিনা তাদেরও দোয়া এবং প্রেরণা আমাকে সমৃদ্ধ করেছে, অসংখ্য সফলতা এনে দিয়েছে, শত শত বিপদ থেকে রক্ষা করেছে, দাঁড়িয়ে থাকতে সাহায্য করেছে। ধর্ম, বর্ণ, ভাষা, জাতি, গোষ্ঠি নির্বিশেষে আমার প্রেমিক-প্রেমিকার কাছে আমি অনন্তকাল ঋণি হয়ে থাকবো। কিছু মানুষকে আমি এমন জানি, যারা আমার সাথে আত্মা ছাড়া আর কোন দিকেই আত্মীয় নয়, তবু সার্বক্ষণিক আমার জন্য দোয়া করেন, যেন আমি আরও বড় হই, আরও বড় লেখক। বেদনার কথা, আফসুসের কথা, ওরা ধীরে ধীরে অনেকই পৃথিবী থেকে বিদায় হয়ে যাচ্ছেন। এমনই একজন মানুষ ছিলেন দেওয়ান নূরুল আনোয়ার হোসেন চৌধুরী। ২৮ জুলাই ২০২১ খ্রিস্টাব্দের দুপুরে বন্ধুবর দেওয়ান মাহমুদ রাজা চৌধুরী যখন দেওয়ান নূরুল আনোয়ার চৌধুরীর মৃত্যুর সংবাদ দিলেন তখন মনের মধ্যে প্রচন্ড ধাক্কা অনুভব করি; আহারে আমার দোয়ার ভান্ডারে দোয়া সঞ্চয়কারি একটি যন্ত্র লুপ্ত হয়েগেলো, সিলেটের মানুষ হারালো তাদের এক নির্লোভ প্রেমিক।
দেওয়ান নূরুল আনোয়ার হোসেন চৌধুরী, যার পারিবারিক নাম ছিলো জুনেদ, তিনি ছিলেন বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য গবেষকদের মধ্যে অন্যতম একজন। গবেষণার পাশাপাশি তিনি ছিলেন প্রাবন্ধিক, অনুবাদক, সংকলক, সম্পাদক এবং গবেষকদের সংগঠক। সিলেট এবং সিলেটিদের আত্মপরিচয় অনুসন্ধানে যে দু’চারজন গবেষককে স্পর্শ না করলে এগিয়ে যাওয়া যায় না, তাদের অন্যতম একজন দেওয়ান নূরুল আনোয়ার চৌধুরী। তাঁর চিন্তা এবং চেতনায় প্রধান বিষয় ছিলো হযরত শাহজালাল (র.)-সহ সিলেট এবং সিলেটিদের ইতিহাস-ঐতিহ্যকে উদ্ধার ও পুর্নগঠন করা। হযরত শাহজালাল (র.) সহ সিলেটের ইতিহাস নিয়ে যারা পুরানো কাগজপত্র ও দলিল-দস্তাবেজ ঘেঁটে গবেষণা করেছেন, তিনি তাদের মধ্যে একজন। তাঁর গবেষণায় আমরা খুঁজে পাই হযরত শাহজালালের (র.) সিলেট আগমন, ইবনে বতুতার সফর থেকে শুরু করে সিলেটের সাথে আরব দুনিয়ার যোগসূত্রের সন্ধান, প্রাচীন এবং ঐতিহাসিক কীর্তি, শিলালিপি ও নিদর্শনের বিবরণ, সিলেটি নাগরি ভাষা, মুসলমান সমাজের লৌকিক আচার-অনুষ্ঠান, লেখক-সাহিত্যিকদের পরিচিতি ইত্যাদি। আমার সাথে তাঁর যে ক’বার দেখা হয়েছে তিনি একটি কথাই বলেছেন, ‘মবনু আঞ্চলিক ইতিহাসগুলোকে সমৃদ্ধ করতে পারলেই বাংলাদেশের ইতিহাস সমৃদ্ধ হবে। আমি, আসদ্দর আলী প্রমূখ মরে গেলে সিলেট নিয়ে গবেষণা করবে কে? তোমরা এগিয়ে এসো এবং বেশি বেশি সিলেট নিয়ে গবেষণা করতে চেষ্টা করো। এক সময় দেখবে অনেক নিদর্শন হারিয়েগেছে। পরবর্তিরা আর খুঁজে পাবে না।’ তিনি এভাবে লেখক-সাহিত্যিক পেলে প্রেরণা দিতেন, গাইড করতেন, সংগঠিত করার চেষ্টা করতেন। যদিও তিনি বেশি সিলেট নিয়ে গবেষণা করেছেন, তবে শুধু সিলেট তাঁর মাথায় ছিলো না। তিনি যেকোন অঞ্চলের মানুষকে পেলে সেই অঞ্চলের কথা লিখতে উৎসাহ দিতেন। দেওয়ান নূরুল আনোয়ার হোসেন চৌধুরীর সাথে আমার চলাফেরা, দেখা-সাক্ষাত খুবই কম হয়েছে। তবে গবেষণার কাজে সিলেট থেকে কেউ তাঁর কাছে গেলে আমার কথা আলোচনা করতেন। তাদের মধ্যে কেউ কেউ আমাকে বলতেন। বিশেষ করে মো. তুতিউর রহমান যখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ‘হযরত শাহজালাল (র.)-সহ কয়েকজন উল্লেখযোগ্য আউলিয়া : ইসলাম প্রচার, রাষ্ট্র ও সমাজ জীবনে তাদের প্রভাব’ শীর্ষক ‘পি.এইচ. ডি’ গবেষণা করেন তখন দেওয়ান নূরুল আনোয়ার হোসেন চৌধুরীর কাছে গেলে তিনি সিলেটে আমার সাথে যোগাযোগের কথা বলেছিলেন। মো. তুতিউর রহমান কথাটি আমাকে উল্লেখ করে বলেছিলেন, ‘দেওয়ান সাহেব আপনাকে খুব পছন্দ করেন, ভালোবাসেন।’ প্রকৃত অর্থে এভাবেই আমার জানা হয়েছে দেওয়ান নূরুল আনোয়ার হোসেন চৌধুরীর প্রেমে আমি কতটুকু ছিলাম। ব্যক্তিগতভাবে তাঁর সাথে চলাফেরা, কথাবার্তা খুবই কম। দুই কিংবা তিনবার সিলেট কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ কেন্দ্রিক অনুষ্ঠানে তিনি সিলেট আসলে দেখা হয় এবং অনুমানিক ১৫ বছর আগে একবার সংসদের পক্ষ থেকে তাঁকে পূর্ণাঙ্গ মেহমানদারীর দায়িত্ব আমাকে দেওয়া হয়েছিলো। তাঁর থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা আম্বরখানাস্থ একটি হোটেলে করা হয়েছিলো, দায়িত্ব হিসাবে আমি সার্বক্ষণিক তাঁর পাশাপাশি ছিলাম। এই সময় গল্পে অনেক কথা হয়েছে।

* জন্ম এবং শিক্ষাজীবন :

দেওয়ান নূরুল আনোয়ার হোসেন চৌধুরীর জন্ম বৃহত্তর সিলেটের হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার সদরঘাটে ১৯৩৯ খ্রিস্টাব্দের ২৮ ফেব্রæয়ারি। তাঁর বাবার নাম দেওয়ান গওহর চৌধুরী এবং মা কুলসুম আকতার চৌধুরী। তাদের পূর্ব-পুরুষ হযরত শাহ তাজ উদ্দিন কোরেশী (র.) হযরত শাহজালাল ইয়ামনি (র.)- এর সফরসঙ্গী হয়ে সিলেট এসেছিলেন। পারিবারিক শিক্ষা দিয়ে শুরু করে নিজ গ্রামের পাঠশালায় প্রাথমিক শিক্ষা সমাপ্ত করেন। মাত্র সাত বছর বয়সে ১৯৪৬ খ্রিস্টাব্দে তিনি মা-বাবা হারান (বাবার মৃত্যু ৭ জানুয়ারি এবং মায়ের মৃত্যু ২৬ জানুয়ারি)। এরপরের বছর ১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দে তিনি তৃতীয়মান পরিক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। ১৯৫০ খ্রিস্টাব্দে তিনি দিনারপুর এম.ই মাদরাসায় ভর্তি হন। ১৯৫৩ খ্রিস্টাব্দে দিনারপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ক্লাস সেভেনে ভর্তি হয়ে ১৯৫৪ খ্রিস্টাব্দে এসএসসি উত্তীর্ণ হন। ১৯৫৯ খ্রিস্টাব্দে মৌলভীবাজার কলেজ থেকে আইকম এবং ১৯৬২ খ্রিস্টাব্দে ঢাকা সলিমুল্লাহ কলেজ (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়) থেকে বি.এ. পাস করেন। ১৯৬৫ খ্রিস্টাব্দে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এল এল বি সম্পন্ন করেন।

* কর্মজীবন :

দেওয়ান নূরুল আনোয়ার হোসেন চৌধুরীর কর্ম জীবন শুরু ১৯৬৬ খ্রিস্টাব্দে ঢাকা জর্জকোর্টে যোগদানের মাধ্যমে। পরবর্তীতে তিনি সিলেট জেলা দায়রা জর্জ আদালতে কিছুদিন আইন পেশার সাথে জড়িত ছিলেন। ১৯৬৯ খ্রিস্টাব্দে তিনি ইস্ট পাকিস্তান সিভিল সার্ভিসে যোগদেন। কর্মজীবনে তিনি জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, শ্রম ও কর্মসংস্থান, সংস্থাপন ও ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের উপসচিব, দুর্নীতি দমন ব্যুরোর ডাইরেক্টর এবং ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক ছিলেন। ১৯৯২ খ্রিস্টাব্দে তাঁকে সচিবালয়ের যুগ্ম-সচিবের ‘সিনিয়রিটি’ দান করা হয়। ১৯৯৭ খ্রিস্টাব্দে তিনি এই পদ থেকেই অবসর গ্রহণ করেন।
দেওয়ান নূরুল আনোয়ার হোসেন চৌধুরী যদিও রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ প্রতিষ্ঠান সচিবালয়ের উপ-সচিবের দায়িত্ব আদায় করেছেন এবং পারিবারিকভাবে তিনি ছিলেন বৃহত্তর সিলেটের ঐতিহ্যবাহি পরিচিত পরিবারগুলোর একটি নবীগঞ্জের দেওয়ান পরিবারের ছেলে, কিন্তু তবু তিনি ব্যক্তিগত জীবনে ছিলেন অত্যন্ত সাদাসিদে ফকিরী জীবনের অধিকারী একজন মানুষ। তাঁর সহকর্মি অনেকেই বলেছেন, দেওয়ান নূরুল আনোয়ার হোসেন চৌধুরী বাংলাদেশে সিভিল সার্ভিসে শিষ্টাচার, সততা, যোগ্যতা ও ন্যায়পরায়ণতায় ‘আইডল‘ হিসেবে পরিচিত ছিলেন।

* লেখালেখির জীবন :

দেওয়ান নূরুল আনোয়ার হোসেন চৌধুরীর লেখালেখি শুরু হয় স্কুল জীবন থেকে। তিনি ব্যক্তি জীবনে নিজে যেমন বিশ্বাসের দ্বা›িদ্বকতায় ছিলেন না, তেমনি লেখালেখিতে তিনি তাঁর পাঠককেও বিশ্বাস-অবিশ্বাসের মধ্যখানে বিপদে ফেলে রাখতে পছন্দ করতেন না। তিনি তাঁর আজীবনের গবেষণায় অতীতের সামগ্রিকতা সম্বন্ধে যাথানুপাতিক ধারণা দিয়ে যেতে চেষ্টা করেছেন। সহজ ভাষায় সমকালের সাথে অতীতের বিভিন্ন বিষয়ের রূপ-গন্ধকে শাব্দিকভাবে স্পর্শ দিতে চেষ্টা করেছেন। ইতিহাসের তথ্যসূত্রকে সমৃদ্ধ করতে দেশীয় উপাদান-উপকরণের সাথে বিদেশী উপাদান ও উপকরণ সংগ্রহ করে পুনর্মূল্যায়ন ও বিশ্লেষণ করেছেন। তাঁর গবেষণায় পাঠক স্বপ্রমাণে দেখতে পাবেন, ‘ঐতিহাসি ভাষা আন্দোলন’ এবং ‘বাংলাদেশের জাতীয় চেতনা ও স্বাধীনতা সংগ্রাম’-এর প্রেরণা সিলেট থেকে সঞ্চারিত হয়েছে। তাঁর লেখায় ইউরোপে সিলেটিদের ছড়িয়ে পড়ার ইতিহাস সম্পর্কে বিভিন্ন প্রশ্নও রয়েছে। তিনি ইউরোপের সাথে সিলেটের প্রাচীন, মধ্য ও আধুনিক যুগের মিল-বন্ধন আবিষ্কারের চেষ্টা করেছেন। তাঁর কথার স্বপক্ষে অনেক নতুন তথ্য তিনি দিয়েছেন। তিনি বলতেন; ‘সিলেটের মত বিশ্বের অনেক অঞ্চল এতোটা ইতিহাস সমৃদ্ধ নয়।’
দেওয়ান নুরুল আনোয়ার চৌধুরীর প্রকাশিত গ্রন্থের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘জালালাবাদের কথা’, ‘সিলেট বিভাগের ইতিহাস’, ‘নির্বাচিত কয়েকটি প্রবন্ধ’, ‘ছিলটের প্রচলিত পই-প্রবাদ ডাক-ডিঠান’, ‘হযরত শাহজালাল (র.) দলিল ও ভাষ্য’ ইত্যাদি। ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ কর্তৃক প্রকাশিত হয়েছে তাঁর অনুবাদকৃত ‘আল-কোরআনের বঙ্গানুবাদ’ এবং ‘শবেবরাতের বেদাত দূরীকরণ’। তাঁর জীবনের প্রথম প্রকাশিত গ্রন্থ ছিলো তাসাউফ জগতের অন্যতম বুজুর্গ হযরত দাতা গঞ্জে বখস আলী হুজুরী ইবনে জালালী (র.) কর্তৃক প্রণিত গ্রন্থ ‘কাশফুল আসরার’-এর ইংরেজি থেকে বাংলায় অনুবাদ, যা যা ১৯৭৯ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত। ১৯৮০ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত হয় দ্বিতীয় গ্রন্থ ‘সীরাতুন্নবী ও আন্তর্জাতিক ইসলামী সম্মেলন’, ১৯৮১ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত হয় তাঁর গবেষণালব্ধ গ্রন্থ ‘হযরত শাহজালাল (র.) দলিল ও ভাষ্য’। এতে তিনি তথ্যসহ বর্ণনা করতে চেষ্টা করেছেন হযরত শাহজালালের জন্ম, সিলেট আগমনের তারিখ, তাঁর সংগ্রাম, তাসাউফ সাধনা, মৃত্যু বিষয়ক বিভিন্ন বিষয়। এতে তিনি প্রমাণের চেষ্টা করেছেন যে, হযরত শাহজালালের ৩৬০ আউলিয়া শুধু সিলেটেই ইসলাম প্রচার করেননি, বরং সমস্ত বাংলাদেশে ছিলো তাদের দাওয়াতি মিশন। তাঁর এই গ্রন্থটি ইউরোপ-আমেরিকা সহ প্রায় বিশটি বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণার জন্য সিলেক্ট হয়েছে। এরপূর্বে বাংলা ভাষায় হযরত শাহ জালাল (র.)-এর জীবনী সম্পর্কে আর কোন তথ্যনির্ভর গ্রন্থ ছিলো না। ১৯৮৩ খ্রিস্টাব্দে বাংলা একাডেমী থেকে প্রকাশিত হয় তাঁর গবেষণালব্ধ বই ‘জালালাবাদের কথা’। এই বইয়েল প্রথম খন্ডে সিলেটের প্রাচীন ইতিহাস এবং দ্বিতীয় খন্ডে সিলেটের ভৌগলিক ও প্রাকৃতিক বিবরণ, সিলেটের ইতিহাস, শিক্ষা, ভাষা ও সংস্কৃতি, লোক সাহিত্যে সিলেটের অবদান, সংবাদপত্রে মুসলিম অবদান, মুসলিম আমলে সিলেটের ভূমি রাজস্ব ব্যবস্থা, বিচার ও প্রশাসন বিভাগ ইত্যাদি বিষয় স্থান লাভ করেছে। ১৯৯৬ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত হয় ‘স্বাধীনতা সংগ্রামে সিলেট ’, ১৯৯৭ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত ‘ আমাদের সুফীয়ায়ে কেরাম ’, ১৯৯৭ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত ‘মাওলানা সৈয়দ নজির উদ্দিন আহমদ জীবন ও কর্ম’, ১৯৯৭ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত ‘আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামের বিস্মৃত ইতিহাস-২য় খন্ড’। এরপর আরও প্রকাশিত হয় ‘হযরত দাউদ কুরায়শী ও তাঁর বংশধরগণ’, ‘শিকড়ের সন্ধানে : শিলালিপি ও সনদে আমাদের সমাজচিত্র’, ‘আমাদের সাংস্কৃতিক স্বাধীনতা : উত্তরাধিকার ও মুসলমানী নগরী’, ‘আল কুরআনে মুহাম্মদ (সা.)’, হযরত শাহজালাল (র.) ও ৩৬০ আউলিয়া সিলেট -জালালাবাদ ঐতিহাসিক রূপরেখা’, ‘সিলেট বিভাগের ইতিহাস’। জীবনের শেষ পর্যায়ে এসে তাঁর কয়েকটি প্রবন্ধ নিয়ে প্রকাশিত হয় ‘নির্বাচিত কয়েকটি প্রবন্ধ’ শিরোনামের গ্রন্থটি।
দেওয়ান নূরুল আনোয়ার হোসেন চৌধুরী আইন পেশায় থাকতে আমীনূর রশীদ চৌধূরী কর্তৃক সম্পাদিত প্রাচীনতম সাপ্তাহিক ‘যুগভেরী’ এবং মুহমুদ আলী কর্তৃক সম্পাদিত ঐতিহাসিক ‘নওবেলাল’ পত্রিকার কোর্ট প্রতিনিধি ছিলেন। ষাটের দশকে বিভিন্ন জাতীয় ও আঞ্চলিক পত্রিকা-ম্যাগাজিনে গণদাবি নিয়ে তিনি প্রচুর কলাম ও নিবন্ধ লিখেছেন। বিশেষ করে মনু নদীর ভাঙ্গন রোধে বাঁধ নির্মাণ, শেরপুর -মিরপুর সড়ক তৈরি প্রসঙ্গ। প্রবাসীদের সমস্যা নিয়েও তাঁর অনেক লেখা রয়েছে। দেওয়ান নুরুল আনোয়ার হোসেন চৌধুরী প্রচুর পড়তেন এবং জীবনে যা রুজি করেছেন তার বেশিরভাগ অংশই বই খরিদে খরচ করেছেন। তিনি অত্যন্ত ভালো পাঠক ছিলেন। আমাদের মতো ছোটদের বইও তিনি খুব মন দিয়ে পড়তেন।

দাম্পত্যজীবন :

দেওয়ান নুরুল আনোয়ার হোসেন চৌধুরী বিয়ে করেন বাংলাদেশের সাবেক প্রধান বিচারপতি সৈয়দ এ বি মাহমুদ হুসেন-এর মেয়ে সৈয়দা তাহেরা খাতুন চৌধুরীকে। তাঁর মৃত্যুর এক বছরপূর্বে সৈয়দা তাহেরা খাতুন চৌধুরী ইন্তেকাল করেন। দাম্পত্যজীবনে তারা ৪ ছেলে সন্তান এবং নাতি-নাতিন রেখে গেছেন। তাদের দুজনের কবর আজিমপুর কবরাস্থানে পাশাপাশি রয়েছে।

এই সংবাদটি 87 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com