স্বাধীনতাবিরোধীদের তালিকা প্রকাশ নিয়ে সংশয়

প্রকাশিত: ৭:৪৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২, ২০২২

স্বাধীনতাবিরোধীদের তালিকা প্রকাশ নিয়ে সংশয়

এ বছরের ১৬ ডিসেম্বর স্বাধীনতাবিরোধীদের তালিকার প্রথম পর্যায় প্রকাশ হওয়ার কথা থাকলেও তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, তালিকা তৈরিতে সংগৃহীত তথ্য এখনো পুরোপুরি যাচাই-বাছাই বাকি। তা ছাড়া তালিকাটি পর্যায়ক্রমে না একবারেই প্রকাশ করা হবে, এ ব্যাপারে এখনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

গত আগস্টে আইন সংশোধন করে মুক্তিযোদ্ধাদের পাশাপাশি রাজাকার, আলবদরসহ স্বাধীনতাবিরোধীদের তালিকা করার ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলকে (জামুকা)।

আগের আইনটি বাতিল করে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল আইন-২০২২ নামের আইনটির গেজেট প্রকাশ করা হয় চলতি বছরের ৭ সেপ্টেম্বর। এর আগে থেকেই স্বাধীনতাবিরোধীদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরির জন্য তথ্য সংগ্রহ করছে তিন সদস্যের একটি সাবকমিটি। নেতৃত্ব দিচ্ছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি শাজাহান খান।
এ তালিকার বিষয়ে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘শাজাহান খানের নেতৃত্বে আমরা একটি কমিটি করে দিয়েছি। এটার ব্যাপারে তিনি সবচেয়ে ভালো বলতে পারবেন। ’

স্বাধীনতাবিরোধীদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরির দায়িত্বে থাকা সাবকমিটির প্রধান সাবেক নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান গতকাল বৃহস্পতিবার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করছি তালিকায় যেন কোনো ভুলত্রুটি না থাকে। হাজার হাজার নাম। সে জন্য যাচাই-বাছাই করতে একটু সময় লাগছে। আমরা জানি, এ তালিকা প্রকাশের পর অনেক আলোচনা-সমালোচনা হবে, মামলাও হবে। তার পরও আমরা এ তালিকা করব। এখন যা নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছে, তা হলো এটা কি আমরা পর্যায়ক্রমে দেব, না একসঙ্গে দেব। এ নিয়ে আমাদের আলোচনা হচ্ছে। মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রীর সঙ্গেও কথা বলেছি। একসঙ্গে প্রকাশ করলে তর্ক-বিতর্ক যা-ই হোক, একসঙ্গেই শেষ হয়ে যাবে। ’

এর আগে গত অক্টোবরে শাজাহান খান কালের কণ্ঠকে বলেছিলেন, এ বছরের ১৬ ডিসেম্বর তালিকাটির প্রথম পর্যায় প্রকাশ হতে পারে। গতকাল তিনি জানান, এ পর্যন্ত ১৫০ থেকে ১৭৫ উপজেলার তথ্য হাতে এসে পৌঁছেছে। এগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে হবে। ১০-১৫টা উপজেলার যাচাই-বাছাই শেষ হয়েছে। এগুলো প্রকাশের পর্যায়ে আছে। এ ছাড়া বঙ্গবন্ধু যে তালিকা করে বিচার শুরু করেছিলেন, সেখানকার সাড়ে তিন হাজার নাম তালিকায় প্রকাশের অবস্থায় আছে।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় ২০১৯ সালের ১৫ ডিসেম্বর ‘একাত্তরের রাজাকার, আলবদর, আলশামস ও স্বাধীনতাবিরোধী তালিকা প্রকাশ : প্রথম পর্ব’ শিরোনামে ১০ হাজার ৭৮৯ জনের নামের একটি তালিকা প্রকাশ করে। সেই তালিকায় দেখা যায়, কয়েকজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদের নামও আছে। এ নিয়ে বিতর্ক তৈরি হলে তালিকাটি সরিয়ে নেয় মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। তালিকা তৈরির জন্য পরে ২০২০ সালের ৯ আগস্ট শাজাহান খানকে প্রধান করে ছয় সদস্যের একটি সাবকমিটি গঠন করা হয়। কোরাম সংকটের কারণে ঠিকমতো বৈঠক না হওয়ায় চলতি বছরের ১৩ এপ্রিল ওই কমিটির আকার ছোট করে তিন সদস্যে নামিয়ে আনা হয়। বর্তমানে শাজাহান খান ছাড়া কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন জাতীয় পার্টির কাজী ফিরোজ রশীদ ও আওয়ামী লীগের এ বি তাজুল ইসলাম।

তালিকা তৈরির প্রক্রিয়া : সাবকমিটি প্রাথমিকভাবে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে স্বাধীনতাবিরোধীদের তালিকা ও তথ্য সংগ্রহ করবে। পরে তা পাঠানো হবে সংসদীয় স্থায়ী কমিটির কাছে। স্থায়ী কমিটি অনুমোদন করলে সেটা যাবে জামুকায়। জামুকা এ নিয়ে আলাপ-আলোচনা ও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে প্রকাশের জন্য পাঠাবে মন্ত্রণালয়ে। মন্ত্রণালয় চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করবে।

জামুকার নতুন আইন : ২০০২ সালের জামুকার আগের আইনটি রদ করে চলতি বছরের আগস্টে সংসদে নতুন আইন পাস করা হয়। এ আইন অনুযায়ী ১৯৭১ সালের ২৬শে মার্চ থেকে ১৬ই ডিসেম্বর পর্যন্ত মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে রাজাকার, আলবদর, আলশামস, মুজাহিদ বাহিনী ও শান্তি কমিটির সদস্য বা আধাসামরিক বাহিনীর সদস্য হিসেবে যারা সশস্ত্র যুদ্ধে অংশ নিয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছে বা খুন, ধর্ষণসহ অন্যান্য যুদ্ধাপরাধ সংঘটনের মাধ্যমে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছে, তাদের বিদ্যমান তালিকা প্রকাশ এবং নতুন তালিকা প্রণয়ন ও গেজেট প্রকাশের জন্য সরকারের কাছে সুপারিশ করবে জামুকা। এর আগে জামুকা শুধু মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা প্রণয়ন ও গেজেট প্রকাশের সুপারিশ করতে পারত।

বিতর্কমুক্ত তালিকা নিয়ে সংশয় : স্বাধীনতাবিরোধীদের তালিকা এবারও কতটা বিতর্কমুক্ত হবে, তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির। কালের কণ্ঠকে তিনি বলেন, ‘জামুকা তো এখন পর্যন্ত মুক্তিযোদ্ধাদের একটা তালিকাই করতে পারেনি, যা সবচেয়ে সহজ ছিল। আমরা সব সময় বলেছি, স্বাধীনতাবিরোধীদের তালিকা তৈরির কাজটা বিশেষজ্ঞদের। প্রশাসন ও মন্ত্রণালয় লজিস্টিক সহায়তা দেবে। গবেষকদের সহায়তা নিয়ে তালিকার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত প্রশাসন দেবে। ’

গতবারের তালিকার উদাহরণ টেনে শাহরিয়ার কবির বলেন, জামুকাকে দায়িত্ব দিলে তারা এটার দায়িত্ব দেবে জেলা প্রশাসকদের ওপর। গতবার এক জেলা প্রশাসক লিখেই দিয়েছেন যে তাঁর জেলায় কোনো রাজাকার নেই।

গবেষকদের প্রত্যক্ষ সম্পৃক্ততা নেই কেন : প্রশ্ন উঠেছে, স্বাধীনতাবিরোধীদের তালিকা তৈরির মতো জটিল ও স্পর্শকাতর কাজের সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধের গবেষকদের সরাসরি যুক্ত করা হচ্ছে না কেন। এ বিষয়ে মুনতাসীর মামুন বলেন, ‘সরকারি পর্যায়ে যখন কাজ হয়, তখন তারা অন্য কাউকে জায়গা দিতে চায় না। তারা তাদের মন মতো করে। আমার এ ক্ষেত্রে আসলে কোনো মন্তব্য করার নেই। এত দিন পরে তারা করছে। আমরা আমাদের মতো কাজ করেছি। ’

এ বিষয়ে শাজাহান খান অবশ্য অন্য ব্যাখ্যা দিলেন। তিনি বলেন, ‘আমাদের যে গবেষকরা এ বিষয়ে বই লিখেছেন, আমরা সেগুলো ভিত্তি ধরে কাজ করছি। তাহলে তো তাঁদের সম্পৃক্ততা হলো। ’

এই সংবাদটি 58 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com