রবিবার, ১২ আগ ২০১৮ ০৮:০৮ ঘণ্টা

অন্তিম শয়ানে হাদীস বিশারদ হোসাইন আহমদ বারকুটি (রহ)

Share Button

অন্তিম শয়ানে হাদীস বিশারদ হোসাইন আহমদ বারকুটি (রহ)

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী :: বৃহত্তর সিলেটের প্রবীণ শায়খুল হাদীস ও কওমী মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড আযাদ দ্বীনি এদারায়ে তালিম বাংলাদেশের সাবেক সভাপতি, শায়খুল হাদীস মাওলানা হোসাইন আহমদ বারকুটির দাফন সম্পন্ন হয়েছে। ১২ আগষ্ট ২০১৮ রোববার বাদ আসর সিলেটের গোলাপগন্জের নিজ গ্রাম বারকুট মাদরাসা ময়দানে জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। এতে হাজার হাজার আলেম উলামা,ভক্তমুরিদান অংশ নেন। জানাযায় ইমামতি করেন মরহুমের জামাতা হাফিজ মাওলান অাজদ উদ্দিন নুমানী। এর আগে গতরাত পৌনে ১২টার দিকে নিজবাড়ীতে তিনি শেষ নি: শাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে ৫ ছেলে,৩ মেয়ে সহ অসংখ্য ছাত্র,ভক্তমুরিদান রেখে যান।
কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড আযাদ দ্বীনি এদারায়ে তালিম বাংলাদেশের সাবেক সভাপতি,জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি, সিলেটের বরেন্য আলেম, খলিফায়ে শায়খে কৌড়িয়া (র) এর ইন্তেকালের সংবাদ মুহুর্তে ছড়িয়ে পড়লে সিলেটসহ দেশ-বিদেশের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে থাকা তার ভক্ত-স্বজনদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। প্রবীণ এই হাদীস বিশারদ র্দীঘ প্রায় অর্ধশতাব্দী কাল যাবৎ পবিত্র হাদীসের দরস দিয়ে গেছেন। রাত থেকেই বিভিন্ন স্থান থেকে আলেম-উলামাদের ঢল নামে বারকুট অভিমুখে।
জন্ম: তিনি সিলেট জেলার গোলাপগঞ্জ থানার বারকুটে জন্ম গ্রহণ করেন। কাগজপত্রে তার জন্ম তারিখ ১৯২৯ সালের ১৫ আগস্ট। মাওলানা হোসাইন আহমদ বারকুটি ১৯৫২ সালে রানাপিং মাদ্রাসা থেকে দাওরায়ে হাদীস পাশ করেন। ১৯৫৩ সালে রানাপিং থেকে কর্ম জীবনের সূচনা। ১৯৫৮ সালে পরিণয় সূত্রে আবদ্ধ হন। রানাপিং থেকে এসে ১৯৭২ সালে দেউল গ্রাম মাদ্রাসায় চলে যান। সেখানে ৩ বছর তিরমিজী ও বুখারী (১ম), ১৯৭৫ সাল থেকে জগন্নাথপুরের সৈয়দপুরে ৮ বছর, অতঃপর সিলেট জামেয়া কাসিমুল উলূম দরগাহে হযরত শাহজালাল (র.) মাদ্রাসায় ৩ বছর (সদরুল মুদাররিস ও নাজিম) এরপর ১৯৮৫ থেকে বারকুট মাদরাসার মুহতামিমের দায়িত্ব গ্রহণের পাশাপাশি ঢাকা দক্ষিণে ৩ বছর মুহাদ্দিসের দায়িত্ব পালন করেন।
এছাড়া রামধা মাদরাসা, ইছামতি কামিল মাদরাসায় প্রায় ৩ বছর অধ্যাপনা করেন। ২০০২ সাল থেকে জামেয়া ক্বাসিমুল উলূম মেওয়া মাদরাসায় শায়খুল হাদীসের দায়িত্ব পালনকরেন। প্রথমে আধ্যাত্মিক ময়দানে প্রথমে শায়খুল ইসলাম সায়্যিদ হোসাইন আহমদ মাদানী (র.) এর নিকট বায়াত হন। অতঃপর আল্লামা আব্দুল করীম শায়খে কৌড়িয়া (র.) এর নিকট বায়াত হয়ে খেলাফত প্রাপ্ত হন। ১৯৯১ সালে তিনি এদারার পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের দায়িত্ব পেয়ে ৬ বছর, এরপর ১৯৯৭ সালে নাজিমে উমুমী নির্বাচিত হন। ২০০১ সালে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে ২০০৭ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। অতঃপর বিগত ২৯/০৩/২০০৭ ঈসায়ী তারিখে তাকে সভাপতি নির্বাচিত করাহয় তিনি গত বছর (২০১৭)পযর্ন্ত সে দায়িত্বে ছিলেন। রাজনৈতিক ময়দানে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।
(অসমাপ্ত)

এই সংবাদটি 1,160 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com