হাওর পাড়ে ব্যবসায়ীদের ‘মরার উপর খাড়ার ঘা’

প্রকাশিত: ১১:৫৫ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ৬, ২০১৭

হাওর পাড়ে ব্যবসায়ীদের ‘মরার উপর খাড়ার ঘা’

 

সিলেট রিপোর্ট: হাওরপাড়ের মানুষ স্বপ্নের ফসল হারিয়ে যখন দিশেহারা, তখন ‘মরার উপর খাড়ার ঘা’ হিসেবে অবতীর্ণ হয়েছে ঐ অঞ্চলের অসাধু ব্যবসায়ীরা। মাত্র দু’একদিনের ব্যবধানে বাড়িয়ে দিয়েছেন নিত্যপণ্যের দাম। ৫০ কেজি ওজনের যে চালের বস্তা দু’দিন আগেও বিক্রি হয়েছে ১ হাজার ৮শ’ টাকায়, সে চালের বস্তার বর্তমান দাম দুই হাজার ৮শ’ টাকা। যে আলু বিক্রি হয়েছিলো ১৩ টাকায়, সে আলুর দাম এখন ২০ টাকা। এই হল সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর, জামালগঞ্জ, তাহিরপুর, ধর্মপাশা, দিরাই ও শাল্লার বাজার চিত্র। এমন পরিস্থিতিতে চরম বিপাকে পড়েছেন কৃষকরা। প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোথাও কোথাও বাজার তদারকি ও মোবাইল কোর্ট চালানো হলেও বাস্তবের পরিস্থিতি আগের মতই।
হাওর পাড়ের সাধারণ কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, চৈত্র মাস তাদের কাছে নিদানের দিন। সারা বছর ধানের ভাড়াল পূর্ণ থাকলেও চৈত্র মাসে তা শূন্য হয়ে পড়ে। ঘরে ঘরে খাদ্যের সংকট দেখা দেয়। বুক ভরা আশা নিয়ে বৈশাখের ধান তোলার অপেক্ষায় এ মাসটি কাটান কৃষকরা। এরমধ্যে চৈত্র মাসের শেষ দিকে কেউ কেউ আগাম ধান কাটেন। আর এক পরিবার ধান কাটলে অন্য পরিবার ঋণ হিসেবে নিয়ে নিদানের দিন পার করে পরে সে ধান ফেরৎ দেয়। এবার সেই অকাল বৃষ্টিতে সোনালী ফসল হারিয়ে দিশেহারা কৃষক পরিবার। এরমধ্যে দুঃখের দিন শুরু হতেনা হতেই অসাধু ব্যবসায়ীরা সেই সুযোগ নিচ্ছেন। তরতর একেবারেই দাম বাড়িয়ে দিচ্ছেন ইচ্ছেমত।
জানাগেছে, হাওরের ফসল ডুবির সাথে সাথে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায় হঠাৎ করে চাল,আটা,ডাল তেলসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বেড়ে গেছে। এতে করে সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। মুনাফা লোভী ব্যবসায়ীরা হঠাৎ করে হাওর ডুবির পর পর নিত্য প্রয়োজনীয় মালামালের দাম বৃদ্ধি করে সাধারণ মানুষদেরকে বিপাকে ফেলে দিয়েছে। বিশেষ করে চাল ও আটার দাম বৃদ্ধি করায় সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টি সচেতনমহল উপজেলা প্রশাসনকে অবহিত করলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে এক ব্যবসায়ীকে গতকাল বুধবার ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
জগন্নাথপুর বাজার ঘুরে ক্রেতাদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, চাল, ডাল, তেলসহ নিত্য প্রয়োজনীয় প্রায় সকল পণ্যের দাম বেশী নিচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। টানা বৃষ্টিপাতে প্রয়োজনীয় মালামাল না আসা ও কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে ব্যবসায়ীরা ক্রেতাদের কাছ থেকে অতিরিক্ত দাম আদায় করছেন। বন্যার পানিতে হাওরের ফসল তলিয়ে যাওয়ায় অধিক লাভের আশায় কোন কারণ ছাড়াই ব্যবসায়িরা চাল, আটা ও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধি করছেন। চাল ও আটার এমন আকস্মিক মূল্য বৃদ্ধিতে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষ। চালের এমন উর্ধ্বগতিতে বিপাকে পড়েছেন কৃষকসহ খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ। তারা অবিলম্বে নায্যমূল্যে চাল বিক্রির দাবি জানিয়েছেন। এখনি চালের দামের মূল্য নিয়ন্ত্রণ না করলে দুর্ভোগ চরমে উঠতে পারে বলে আশংকা তাদের। এছাড়াও চাল,আটাসহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম স্থিতিশীল রাখতে বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রশাসনের মনিটরিং করার দাবি জানিয়েছেন ক্রেতারা।
সরেজমিনে জগন্নাথপুর সদর বাজারসহ বিভিন্ন হাটবাজারে ব্যবসায়ী ও ক্রেতাদের সাথে কথা বলে চালের মূল্যের ব্যাপক পার্থক্য দেখা গেছে। তথ্য মতে পুরাতন ২৮ ও ২৯ জাতের চাল বস্তা প্রতি বর্তমান বাজার দর ২৫০০ থেকে বাড়িয়ে অনেকে ২৯০০ টাকা করে বিক্রি করছেন। তিন দিন আগে যার বাজারমূল্য ছিল ২১০০ থেকে ২২০০ টাকা । আটার দাম হঠাৎ করে বাড়িয়ে দ্বিগুণ করা হয়েছে। মজিদপুর গ্রামের রমা বৈদ্য নামের এক ক্রেতা বলেন, একমাত্র বোরো ফসল হারিয়ে আমরা যখন কষ্টে আছি ঠিক তখনি রাতারাতি চালসহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বাড়িয়ে আমাদের ঘুম হারাম করা হয়েছে। ইজলা গ্রামের কৃষক আনিছ মিয়া বলেন,ব্যবসায়িরা কোন কারণ ছাড়াই অধিক লাভের আশায় চাল,আটাসহ প্রয়োজনীয় মালের দাম বৃদ্ধি করছেন। সার্বক্ষণিক মনিটরিং না থাকলে সাধারণ মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়বেন। জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাসুম বিল্লাহ বলেন, বাজার নিয়ন্ত্রণ রাখতে প্রশাসনিক নজরদারি অব্যাহত থাকবে। অতিরিক্ত দাম আদায় করলে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে। তিনি প্রয়োজনে মূল্যতালিকা টানানোর ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থেকে রেজওয়ান আহমদ জানান,যখন সারা দেশের ন্যায় দক্ষিণ সুনামগঞ্জের সব হাওরের ফসল তলিয়ে যাচ্ছে,ঠিক তখনি কোন কারণ ছাড়া লাগামহীনভাবে বাড়ছে চাল ও আটার দাম। ভ্রাম্যমাণ আদালত উপজেলার নোয়াখালী বাজার থেকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। দুই তিন দিনের ব্যবধানে উপজেলা শহর ও গ্রামীণ বাজারে চাল ও আটার মূল্য হু হু করে বেড়েছে । বস্তা প্রতি চালের দাম ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা, আঠার দাম ২৫০ থেকে ৩৫০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। সাথে সাথে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রীর দামও বাড়ছে। বাজারে চালের আমদানি কম ও খোলা বাজারে চাল না থকায় মূল্য বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে মিল মালিক ও খুচরা বিক্রেতারা কারণ দেখালেও এ অজুহাত মানতে নারাজ সাধারণ কৃষক ও ক্রেতারা । বন্যার পানিতে হাওরের ফসল তলিয়ে যাওয়ার অধিক লাভের আশায় কোন কারণ ছাড়াই ব্যবসায়িরা চাল ও আটার মূল্য বৃদ্ধি করছেন বলে দাবী তাদের। চাল ও আটার এমন আকস্মিক মূল্য বৃদ্ধিতে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন বিভিন্ন মহলের মানুষ । চালের এমন উর্ধ্বগতিতে বিপাকে পড়েছেন কৃষকসহ খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ। এখনি চালের দামের মূল্য নিয়ন্ত্রণ না করলে দুর্ভোগ চরমে উঠতে পারে বলে আশংকা তাদের। তবে চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে আনতে গতকাল বুধবার দিনব্যাপী উপজেলার শান্তিগঞ্জ বাজার, ডুংরিয়া বাজার, পাগলা বাজার, নোয়াখালী বাজার, পাথারিয়া বাজার, মিনবাজার সহ বিভিন্ন বাজারে ভ্রাম্যমাণ আদালত করেছেন দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আলমগীর কবীর। তিনি কোন কোন দোকানের সামনে দাড়িয়ে থেকে চালের দাম ২২০০ টাকা ও আটার দাম ১১৫০ টাকা নির্ধারণ করে সাধারণ কৃষক ও জনতাকে চাল ও আটা ক্রয় করার সুযোগ করে দিয়েছেন। এ ব্যাপারে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আলমগীর কবির জানান, চাল ও আটাসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য যাতে ব্যবসায়ীরা বেশি নিতে না পারে এজন্য উপজেলার অধিকাংশ বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত করেছি এবং তা প্রতিদিনই অব্যাহত থাকবে।
জামালগঞ্জ থেকে আলতাফুর রহমান জানান, জামালগঞ্জের হালির হাওরের বাধ ভেঙ্গে ফসল ডুবিতে উপজেলায় কৃষকদের বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে। উত্তাল হয়ে উঠেছে জামালগঞ্জ। গত দ’ুদিন থেকে উপজেলা সদরের প্রধান সড়কে মিছিল অব্যাহত রয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুরে হালির হাওর পাড়ের কয়েক হাজার কৃষক পাউবো, পিআইসি ও সিন্ডিকেট ঠিকাদারদের শাস্তির দাবীতে মিছিল শেষে প্রায় ঘন্টাব্যাপী উপজেলা পরিষদ চত্বর ঘেরাও করে রাখে।
ফসল হারা বিক্ষুব্ধ কৃষকরা পাউবোর দুর্নীতিবাজ পিআইসিদের শাস্তির দাবী জানান। বিক্ষুব্ধ কৃষকদেরকে সান্ত¡না দিতে উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি মনিরুল হাসান তাদের কাছে এলে তারা কয়েক দফা দাবী তুলে ধরেন। দাবীগুলোর মধ্যে রয়েছে, জামালগঞ্জ উপজেলাকে দুর্গত এলাকা ঘোষণা করা, দুর্নীতিবাজ পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রতিনিধিদের সহায়তায় সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার ও পিআইসিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা। কৃষকদের কাছে সরকারি-বেসরকারি ও এনজিও সংস্থার নিকট হতে ঋণসহ সকল ঋণের সুদ মওকুফ করা। ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেট ভেঙ্গে বাজার মূল্য স্থিতিশীল রাখা। ক্ষতিগ্রস্ত সকল ওয়ার্ডে রেশনিং প্রথা চালু করা, ১০ টাকা কেজি মূল্যে চাল বিতরণ করা। উপস্থিত কৃষকদের ঘেরাও কালে সমবেত কৃষকদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ইউসুফ আল আজাদ,উপজেলা পরিষদের ভাইসচেয়ারম্যান রশীদ আহমদ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এম নবী হোসেন, মোবারক আলী,কামিনীপুরের কৃষক জাকির হোসেন প্রমুখ।
এ বিষয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনার মনিরুল হাসান কৃষকদের সকল দাবীর সাথে একাত্মতা পোষণ করে বলেন, পাউবোসহ পিআইসিদের বিরুদ্ধে আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। অচিরেই ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক পরিবারের মধ্যে কম মূল্যে চাল বিতরণ করার বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হবে। বাজারের দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ রাখতে নিয়মিত ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে ।
উপজেলা প্রশাসনের পক্ষে সহকারী কমিশনার ভূমি মনিরুল হাসান জানান, বিকেল ৩ টায় সার্বিক পরিস্থিতি মোকাবেলায় ব্যবসায়ী, জনপ্রতিনিধি ও সুশীল সমাজের ব্যক্তিদের নিয়ে বৈঠক করেন।

এই সংবাদটি 100 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com