সোমবার, ১০ সেপ্টে ২০১৮ ০২:০৯ ঘণ্টা

ছয় নারীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ সিবিএস প্রধানের বিরুদ্ধে

Share Button

ছয় নারীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ সিবিএস প্রধানের বিরুদ্ধে

ডেস্ক রিপোর্ট: দ্বিতীয়বারের মতো যৌন নীপিড়নের অভিযোগ উঠার পর পদত্যাগ করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী সিবিএস টিভি চ্যানেলের প্রধান লেস মুনভেস। রোববার নতুন করে ছয় নারী তার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ তোলেন। এর কিছুক্ষণ পরই সিবিএস কর্তৃপক্ষ তার পদত্যাগের খবর জানায় ।
বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, গত বছর যুক্তরাষ্ট্রের ‘নিউইয়র্কার’ ম্যাগাজিনের একটি প্রতিবেদনে ছয়জন নারী সিবিএস প্রধান লেস মুনভেসের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ তোলেন। পরে সে অভিযোগ আমলে নিয়ে নিজস্ব তদন্ত শুরু করে সিবিএস কর্তৃপক্ষ। এরই মধ্যে রোববার তার বিরুদ্ধে নতুন অভিযোগ তুললেন আরো ছয় নারী। তবে লেস মুনভেস এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। রোববার এক বিবৃতিতে তিনি এ অভিযোগকে ‘বিস্ময়কর’ আখ্যা দেন।
তিনি বলেন, ‘এখন আমার বিরুদ্ধে কয়েক দশক আগের মিথ্যা অভিযোগ আনা হচ্ছে। যা আমার ব্যক্তিত্বের সঙ্গে যায় না।’ মুনভেসের পদত্যাগের খবর জানিয়ে সিবিএস এর দেয়া বিবৃতিতে বলা হয়েছে, প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান, প্রেসিডেন্ট ও সিইও’র পদ থেকে সরে দাড়াবেন লেস মুনভেস। জোসেফ ল্যানিয়েলো নতুন প্রেসিডেন্ট ও ভারপ্রাপ্ত সিইও হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন । ফিন্যান্সিয়াল টাইমসের খবরে বলা হয়েছে, পদত্যাগের কারণে মুনভেসকে বড় অঙ্কের অর্থ দেয়া হতে পারে। ধারণা করা হচ্ছে, পদত্যাগের কারণে তাকে ১০০ মিলিয়ন ডলার দেয়া হতে পারে। তবে সিবিএস কর্তৃপক্ষ বলেছে, অভিযোগের নিরপেক্ষ তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত মুনভেস অবসর ভাতা সুবিধা পাবেন না। এছাড়া, কর্মক্ষেত্রে নারীর সমতার দাবিতে গড়ে আন্দোলন ‘মি টু মুভমেন্টে’ তিনি যে বিপুল অঙ্কের অর্থ দিতে চেয়েছিলেন, অবসর ভাতা থেকে সে পরিমাণ অর্থ কেটে রাখা হবে। উল্লেখ্য, সম্প্রতি মুনভেস নিজের তরফে ও তার প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে ‘মি টু মুভমেন্টের’ জন্য ২ কোটি ডলার অর্থ অনুদান দেয়ার ঘোষনা দিয়েছিলেন। মুনভেস ১৯৯৫ সালে সিবিএস কর্পোরেশনে বিনোদন বিভাগের প্রধান হিসেবে যোগ দেন। পরে ২০০৬ সালে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী হিসেবে নিযুক্ত হন। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম প্রভাবশালী মিডিয়া ব্যক্তিত্ব হিসেবে সর্বমহলে সমাদৃত।
কী আছে নতুন অভিযোগে?
রোববার নিউইয়র্কার ম্যাগাজিনে পুলিৎজারজয়ী গণমাধ্যমকর্মী রোনান ফ্যারোর লেখা একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। সেখানে লেস মুনভেসের বিরুদ্ধে ছয় নারীকে যৌন হয়রানি করার অভিযোগ তুলে ধরেন তিনি। অভিযোগকারী নারীরা বলেছেন, তাদের সঙ্গে এসব নীপিড়নের ঘটনা ১৯৮০ ও এই শতাব্দীর প্রথম দশকে ঘটেছে। মুনভেস তাদেরকে জোর করে যৌন সম্পর্ক স্থাপন করতে বাধ্য করেছেন। সম্মতি ছাড়াই মুনভেস তাদের সঙ্গে যৌন ক্রিয়া করেছেন। কয়েকজন অভিযোগ করেছেন, মুনভেসের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তিনি তাদের ক্যারিয়ার ধ্বংস করে দিয়েছেন। কিন্তু মুনভেস এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, বিস্ময়কর এসব অভিযোগ অসত্য। প্রকৃত ঘটনা হলো, ২৫ বছর আগে অভিযোগকারী এসব নারীর তিন জনের সঙ্গে সম্মতিমূলক যৌন সম্পর্ক হয়েছিল। এটা সিবিএস কর্পোরেশনে যোগ দেয়ার পূর্বে বলে দাবি করেন তিনি। মুনভেস বলেন, আমি কখনোই নিজের ক্ষমতা ব্যবহার করে কোন নারীর উন্নতি ও ক্যারিয়ারের অগ্রগতি বাধাগ্রস্ত করি নি। ৪০ বছরের কর্মজীবনে আমি এ ধরণের বিব্রতকর অভিযোগ এর আগে শুনিনি।
এর আগে গত বছরের জুলাইতেও ছয় নারী মুনভেসের বিরুদ্ধে যৌন নীপিড়নের অভিযোগ এনেছিলেন। তারা দাবি করেছিলেন, মুনভেসের প্রস্তাব প্রত্যাখান করার কারণে তারা ক্যারিয়ারে ভোগান্তির শিকার হয়েছেন। এর প্রতিক্রিয়ায় মুনভেস বলেছিলেন, অতীতে তিনি হয়তো কিছু নারীকে বিব্রতকর পরিস্থিেিত ফেলেছিলেন। এগুলো ভুল ছিল। আমি তাদের কাছে দু:খ প্রকাশ করছি। এ অভিযোগের প্রেক্ষিতে সিবিএস কর্তৃপক্ষ তদন্ত শুরু করেছে। এখনো চুড়ান্তভাবে তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়নি।

এই সংবাদটি 1,007 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com