মঙ্গলবার, ০৯ অক্টো ২০১৮ ০৪:১০ ঘণ্টা

গ্রেনেড হামলার রায়: সতর্ক অবস্থানে পুলিশ

Share Button

গ্রেনেড হামলার রায়: সতর্ক অবস্থানে পুলিশ

একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা রায়কে ঘিরে যে কোনো ধরনের নাশকতা ঠেকাতে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এরই মধ্যে বাড়ানো হয়েছে নজরদারি। ব্যবস্থা করা হয়েছে কয়েক স্তরের নিরাপত্তার।

বুধবার সকালে আলোচিত এই মামলার রায়ের তারিখ আছে। এতে আসামিদের মধ্যে আছেন বিএনপির প্রবাসী নেতা তারেক রহমান, বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিণ্টু, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার ভাগ্নে সাইফুল ইসলাম ডিউক।

হামলায় অংশ নেয়া জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদের সদস্য ছাড়াও পুলিশের তিন জন সাবেক আইজি ছাড়াও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার সাবেক কর্মকর্তারাও মামলার আসামি। এ কারণে পুলিশকে নানা আশঙ্কার কথা বিবেচনা করেই নিতে হচ্ছে প্রস্তুতি।

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের জনসভায় প্রকাশ্যে যে গ্রেনেড হামলা হয়, সেটি বিশ্বের ইতিহাসেই বিরল। তবে প্রকাশ্যে ঘটা এই হামলার বিচার শেষ করতেই লেগে গেছে ১৪ বছরের বেশি।

শুরু থেকেই মামলার তদন্ত নিয়ে অভিযোগ ছিল। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এর আলামত কেবল সংগ্রহ করেনি, এমনটি নয়। সেগুলো নষ্টও করেছে ইচ্ছাকৃত।

আবার তদন্তের নামে যা হয়েছে, সেটি হাস্যরস তৈরি করে সে সময়ই। নিরীহ হকার জজ মিয়াকে প্রধান আসামি করে পুলিশের তদন্ত যে বানোয়াট ছিল, সেটি প্রকাশ পায় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলেই। তখন জানা যায়, জজ মিয়ার পরিবারকে প্রতি মাসে মাসোহারা দিত। আবার একটি বিচারিক তদন্ত হয়েছে, যাতে দাবি করা হয়, প্রতিবেশী একটি দেশে এই হামলার অনুশীলন করা হয়।

তবে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নতুন করে তদন্ত করে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের শিক্ষা উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিণ্টুসহ ২২ জনকে আসামি করে। শুরু হয় বিচার। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর অধিকতর তদন্তে আসামি করা হয় বিএনপির বর্তমান ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান, জোট সরকারের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরসহ আরও ৩০ জনকে।

এই ৫২ আসামির মধ্যে জামায়াত নেতা আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদ, জঙ্গি নেতা মুফতি আবদুল হান্নানসহ তিন জনের ফাঁসি কার্যকর হয়েছে অন্য মামলায়। বাকিদের সিংহভাগের ফাঁসি দাবি করেছে রাষ্ট্রপক্ষ। তাদের দাবি, সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করার মতো যুক্তি আদালতে উপস্থাপন করতে পেরেছেন তারা।

এরই মধ্যে এই রায় নিয়ে বিএনপির পক্ষ থেকে নানা বক্তব্য দেয়া হচ্ছে। তারেক রহমানকে ফাঁসানো হলে ‘জনগণ মেনে নেবে না’-জাতীয় বক্তব্যও এসেছে।

বিএনপি এই ধরনের বক্তব্য দিয়েছিল ৮ ফেব্রুয়ারি বেগম খালেদা জিয়ার মামলার রায়ের আগেও। যদিও পরে দলটি তাদের নেত্রীর দ-ের প্রতিবাদে কর্মসূচি দিয়েছে নমনীয়।

তবে সেই রায়ের আগে যেমন টানটান উত্তেজনা ছিল, এবার সেটি অনুপস্থিত। আবার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তখন রাজধানীতে সভা-সমাবেশ বা জমায়েত নিষিদ্ধ করে যে নির্দেশ জারি করেছিল, তেমনটিও এবার নেই।

ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া জানিয়েছেন, এই রায়কে ঘিরে কোনো ধরনের হুমকি নেই। তার পরও তারা সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়েছেন।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী জানিয়েছে, ঢাকার পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারের পাশে বসানো এই আদালতের আশেপাশে বসানো হবে তল্লাশি চৌকি। রাজধানী জুড়ে থাকবে কয়েক স্তরের নিরাপত্তা। সাদা পোশাকেও দায়িত্ব পালন করবে পুলিশ সদস্যরা।
সব মিলে এদিন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রায় পাঁচ হাজার সদস্য নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবে।

আবার যেহেতু বিএনপির কয়েকজন নেতা আসামি তাই দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয় নয়াপল্টনসহ বিএনপি অধ্যুষিত কয়েকটি এলাকায় বিশেষ নজরদারি থাকবে। রায়ের পর কেউ যাতে সড়কে নেমে যান চলাচলে বিঘœ না ঘটাতে পারে, নাশকতা করতে না পারে সেজন্য গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি সড়কে থাকবে অতিরিক্ত পুলিশ।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বাংলাদেশ পুলিশ সদর দপ্তরের জনসংযোগ ও গণমাধ্যম শাখার সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি) সোহেল রানা ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘রায় ঘোষণার দিন কোনো জঙ্গিগোষ্ঠীর হামলার কোনো হুমকি নেই। তবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে পুলিশ। বিভিন্ন এলাকায় পুলিশের কয়েক স্তরের নিরাপত্তা ও তল্লাশি চৌকি থাকবে।’

ঢাকার পাশাপাশি দেশব্যাপী র‌্যাবের ব্যাটালিয়নগুলোকে সজাগ থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বাহিনীটির আইন ও গণমাধ্যম শাখার সহকারী পরিচালক মিজানুর রহমান ভূঁঞা ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে র‌্যাবের সদস্যরা মোতায়েন থাকবে। ওই দিন আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে র‌্যাবের সর্বোচ্চ শক্তি প্রয়োগ করবে। ’

এই সংবাদটি 1,006 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com