বুধবার, ১২ ডিসে ২০১৮ ১০:১২ ঘণ্টা

মোহনগঞ্জের মাদরাসা দারুল কুরআনের সম্মেলন সম্পন্ন

Share Button

মোহনগঞ্জের মাদরাসা দারুল কুরআনের সম্মেলন সম্পন্ন

সিলেট রিপোর্ট,সোহেল আহম্মেদ : নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ উপজেলার ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মাদরাসা দারুল কুরআনের ইসলামী মহাসম্মেলন সম্পন্ন হয়েছে।

সোমবার (১০ ডিসেম্বর) সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত মাদরাসা সংলগ্ন ময়দানে অনুষ্ঠিত এ মহতি সম্মেলনে মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক মুফতি মাজহারুল হক কাসেমীর সভাপতিত্বে ও প্রতিষ্ঠানের প্রাক্তন ছাত্র হাফেজ জুনাইদ আহমাদের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শাইখুল আরব ওয়াল আজম আওলাদে রাসূল সায়্যেদ হুসাইন আহমাদ মাদানী রহ. এর সুযোগ্য পৌত্র সায়্যেদ আল্লামা আযহার মাদানী।

এছাড়াও কুরআন ও হাদীসের আলোকে গুরুত্বপূর্ণ বয়ান করেন মাওলানা নূরুল ইসলাম খাঁন সুনামগঞ্জী, মাওলানা হাসান জামিল, জামিয়া নূরিয়া নেত্রকোনা’র মুহতামিম, খলিফায়ে শায়েখে বালিয়া মাওলানা সিরাজুল ইসলাম, জামিয়া মিফতাহুল উলুম, নেত্রকোনা’র সিনিয়র মুহাদ্দিস মাওলানা আহমাদুল হক প্রমুখ উলামায়ে কেরাম।

প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে তাক্বওয়া তথা সর্বাবস্থায় আল্লাহকে ভয় করার উপদেশ দেন এবং তাক্বওয়া অবলম্বনকারীদের জন্য আল্লাহর পক্ষ হতে পাঁচটি পুরষ্কারের কথা উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, যারা জীবনের সর্বাবস্থায় তাক্বওয়া অবলম্বন করে চলবে তাদের প্রথম পুরষ্কার হলো মহান আল্লাহ তা’আলা তাদের সমস্ত গুনাহ ক্ষমা করে দিবেন। দ্বিতীয় পুরষ্কার হলো মুত্তাকী তথা আল্লাহ ভীরুদের কৃত নেক আমলের সাওয়াব আল্লাহ তাআ’লা বহুগুণ বৃদ্ধি করে দিবেন। তৃতীয় পুরষ্কার হলো মুত্তাকীদেরকে আল্লাহ তাআ’লা পর্যাপ্ত পরিমাণ রিযিক দান করবেন। চতুর্থ পুরষ্কার হলো মুত্তাকীদেরকে মহান আল্লাহ তা’আলা সমস্ত বিপদ আপদ ও পেরেশানি থেকে হেফাজত করবেন। পঞ্চম তথা সর্বশেষ ও সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পুরষ্কার হলো মুত্তাকীদেরকে মহান আল্লাহ তা’আলা ফুরক্বান দান করবেন। আর ফুরক্বান হচ্ছে এমন এক নূর বা আলো যার বদৌলতে বান্দা হক ও বাতিল চিনতে পারবে, কোনটি জান্নাতের পথ ও কোনটি জাহান্নামের পথ সেটা বুঝতে পারবে।

বয়ানের পর আওলাদে রাসূল সা. আল্লামা আযহার মাদানী উপস্থিত অগনিত আলেম উলামা ও তৌহিদী জনতাকে সাথে নিয়ে মুসলিম উম্মাহর জন্য মাগফিরাত, রহমত, শান্তি ও নিরাপত্তা কামনায় মহান আল্লাহ তা’আলার দরবারে মুনাজাত করেন।

 

ঢাকা দারুল উলুম রাহমানিয়া মাদরাসার মুহতামিম, বিশিষ্ট ওয়ায়েজ ও চিন্তক আলেমে দ্বীন মাওলানা হাসান জামিল বলেছেন, যুগে যুগে ইসলামের শত্রুরা ইসলামকে ধ্বংস করার জন্য কুরআন এবং কুরআনের ধারক বাহক উলামায়ে কেরামকে শেষ করে দেওয়ার ঘৃণ্য ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। ইসলামের শুরুলগ্ন থেকেই ইসলামের শত্রুরা ইসলামকে ধ্বংস করার জন্য, মুসলমানদের ঈমান আমলকে ধ্বংস করার জন্য সাধারণ মানুষদেরকে সর্বপ্রথম কুরআন থেকে দূরে সরিয়ে দেওয়ার ষড়যন্ত্র করেছে। আর সে কারনে প্রথমেই তাদের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয়েছেন কুরআনের ধারক বাহক উলামায়ে কেরাম।

মাওলানা হাসান জামিল বলেন, খ্রিস্টানরা যখন স্পেন দখল করলো তখন ওই দেশ থেকে ইসলামকে নিশ্চিহ্ন করার লক্ষ্যে সর্বপ্রথম কুরআন শিক্ষা কেন্দ্র তথা মাদরাসাগুলোকে বন্ধ করে দেয় এবং কুরআনের ধারক বাহক উলামায়ে কেরামকে ঢালাওভাবে হত্যা করে ফেলে। পরবর্তীতে ইংরেজরা যখন এই পাক-ভারত উপমহাদেশ থেকে ইসলামকে নিশ্চিহ্ন করতে চাইলো এবং ১৭৫৭ সাল থেকে ১৭৫৮ সাল পর্যন্ত অবিরাম চেষ্টা চালিয়েও ব্যর্থ হলো তখন তারা তদন্ত কমিশন গঠন করলো। তদন্ত কমিশন তদন্ত শেষে তিনটি সুপারিশ পেশ করলো যেগুলো বাস্তবায়ন করতে পারলেই কেবল ইসলাম ধ্বংস করা সম্ভব হবে।
সেই সুপারিশগুলো ছিল-‘এক. মুসলমানদের বুক থেকে সর্বপ্রথম আল কুরআনকে ছিনিয়ে নাও। দুই. কুরআনের শিক্ষক উলামায়ে কেরামকে শেষ করে দাও। তিন. মুসলমানদের নিজস্ব শিক্ষা ব্যবস্থা ও সংস্কৃতিকে ধ্বংস করে আমাদের অর্থাৎ ইংরেজদের কুশিক্ষা ও অপসংস্কৃতিকে ঢুকিয়ে দাও। মুসলিম যুবকদের ঈমানী চেতনাকে ধ্বংস করতে পারলে তাদের বিরুদ্ধে আমাদেরকে যুদ্ধ করতে হবেনা। অটোমেটিক ইসলাম ধ্বংস হয়ে যাবে।’

তিনি বলেন, তৎকালীন সময়ের উলামায়ে কেরাম জীবন দিয়েছেন কিন্তু ইংরেজদের এই অপচেষ্টাকে সফল হতে দেননি। ইসলাম এদেশে কচুরিপানার মত ভেসে আসেনি। উলামায়ে কেরামের রক্তের বদৌলতে এই উপমহাদেশে ইসলামের পতাকা উড্ডীন হয়েছে। বিখ্যাত ইসলামী ঐতিহাসিক মাওলানা জাফর রাহ. তার লিখিত কিতাব ‘তারিখে কালাপানী’এর মধ্যে ওই সময় উলামায়ে কেরামের উপর যে নির্মম নির্যাতন করা হয়েছিল তার একটা বাস্তব চিত্র ফুটিয়ে তুলেছেন। তিনি লিখেছেন, দিল্লি থেকে পাকিস্তান পর্যন্ত ‘জেটি’ সড়ক নামে যে ঐতিহাসিক মহা সড়ক রয়েছে সে সড়কের দুপাশে এমন কোন গাছ ছিলনা যে গাছে কোন আলেমের লাশ ঝুলেনি।

মাওলানা হাসান জামিল বলেন, বর্তমানেও উলামায়ে কেরাম বেঁচে থাকতে ইসলামের কোন বিকৃতি সাধন করতে কাউকে দেওয়া হবেনা। ৭১ এ দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভোমত্ব রক্ষায় মুক্তিযুদ্ধ হয়েছে। ইসলাম রক্ষায়, শরিয়ত রক্ষায় প্রয়োজন হলে বাংলার উলামায়ে কেরাম আপামর তৌহিদী জনতাকে সাথে নিয়ে আরেকটি মুক্তিযুদ্ধ করবে, তবুও ইহুদি খ্রিস্টানদের দালালদেরকে ইসলামের সামান্যতম ক্ষতি করতে দেওয়া হবেনা ইনশাআল্লাহ্।

তিনি আরো বলেন, কুরআন বুঝে পড়া ওয়াজিব, না বুঝে পড়লে সওয়াব হয়না ‘এমন বক্তব্য যারা দেয় তারা স্পষ্টতঃ জাহেল ও গোমরাহ। হাদীসে পাকে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ করেছেন, যে ব্যক্তি কুরআনের একটি হরফ তেলাওয়াত করে সে একটি নেকী পায়। আর এই এক নেকী দশ নেকীর সমান। আমি বলিনা যে, আলিফ লাম মীম একটি হরফ বরং আলিফ একটি হরফ, লাম একটি হরফ এবং মীম একটি হরফ।(এই হিসাবে এখানে প্রতি অক্ষরে দশ নেকী করে মোট ত্রিশ নেকী পাবে।)

মাওলানা জামিল বলেন, যারা বলে কুরআন বুঝে না পড়লে সওয়াব হয়না তাদেরকে জিজ্ঞেস করুন তারা আলিফ লাম মীমের অর্থ জানে কিনা। তারা কেন, পৃথিবীর কারোরই এই আলিফ লাম মীমের সঠিক অর্থ জানা নেই। এর দ্বারা কি বুঝানো হয়েছে সেটা একমাত্র মহান আল্লাহ তাআ’লার এলেমের মধ্যেই রয়েছে।

এর দ্বারা এটা স্পষ্ট হয়ে গেল যে, কুরআনুল কারীম না বুঝে পড়লেও সওয়াব হয়, গুনাহ হয়না। তাই আমি বলবো যারা ‘ কুরআন বুঝে পড়া ওয়াজিব, না বুঝে পড়লে সওয়াব হয়না’ এমন বক্তব্য যারা দেয় তারা জাহেল ও গোমরাহ্।

তিনি উপস্থিত তৌহিদী জনতাকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, যারা এমন বক্তব্য দেয় তারা মূলত মুসলমানকে কুরআন থেকে দূরে সরিয়ে দেওয়ার ঘৃন্য ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। কারন তারা এটা জানে যে, কুরআন বুঝে পড়া ওয়াজিব,না বুঝে পড়লে সওয়াব হয়না’ এই ফতুয়া যখন সাধারণ মুসলমানদের কাছে যাবে তখন তারা নিরুৎসাহিত হয়ে এক পর্যায়ে কুরআন তেলাওয়াত ছেড়ে দিবে। ইসলাম ও মুসলমানদের জঘন্য শত্রু আবু জেহেল নিজেও মানুষকে কুরআন শ্রবণ করা থেকে বিরত থাকত এবং অন্যদেরকেও বিরত থাকার জন্য বলতো। কিন্তু আজ আবু জেহেলের দোসররা সরাসরি না বলে ঘুরিয়ে প্যাঁচিয়ে বলে। তাদের উদ্দেশ্য এক আর সেটা হচ্ছে সাধারণ মুসলমানদেরকে কুরআনুল কারীম থেকে দূরে সরিয়ে দেওয়া।

তিনি উপস্থিত তৌহিদী জনতাকে কারো কথায় বিভ্রান্ত না হয়ে জীবনের সর্বাবস্থায় হক্কানী উলামায়ে কেরামকে অনুসরণ করে চলার আহ্বান জানান।

এই সংবাদটি 1,011 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com