বুধবার, ০২ অক্টো ২০১৯ ১১:১০ ঘণ্টা

জাতিসংঘে পাক প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য এবং পক্ষ-বিপক্ষের ভাবনা

Share Button

জাতিসংঘে পাক প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য এবং পক্ষ-বিপক্ষের ভাবনা

সৈয়দ মবনুঃ
পাকিস্তানের জন্ম থেকে এ পর্যন্ত যারা প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন, তাদের মধ্যে এখনও আমার কাছে প্রিয় ব্যক্তি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এই প্রিয় হওয়ার কারণ তিনটি; এক. তিনি জনপ্রিয় ছিলেন ক্রিকেটার থাকতে-ই। দুই; পাকিস্তানের গত নির্বাচনের সময় আমি ইংল্যান্ড ছিলাম। নির্বাচনের রাতে (বৃটিশ সময়) আমার দাওয়াত ছিলো বার্মিংহামে শ্রদ্ধেয় বন্ধু আরিফিনের বাসায়। আরিফিন একজন পাকিস্তানি বৃটিশ। তিনি বার্মিংহামের একটি কোর্টের বিচারপতি। পারিবারিকভাবে শিক্ষিত এবং শিল্পপতি। আমার সাথে আরও ছিলেন খাজা মঈন উদ্দিন এবং সৈয়দ কফিল আহমদ। আরিফিনকে বন্ধু হিসাবে লেন-দেন এবং আচার-ব্যবহারে যতটুকু দেখেছি, সে একজন সৎ, ভদ্র, নম্র এবং জ্ঞানী ভালো মানুষ। বাংলাদেশের প্রতি তাঁর মনে এক রকমের প্রেম রয়েছে। দু-তিন বার বাংলাদেশে এসেছেন। আরিফিন ফালতু কথা মোটেও বলে না। তাই ইমরান খান সম্পর্কে আরিফিনের বক্তব্য আমি বিশ্বাস করি। তাই নির্বাচনের দিন আমরা আরিফিনের বাসায় টেলিভিশন দেখতে দেখতে দোয়া করছিলাম যেন ইমরান খানের বিজয় ঘটে।

তৃতীয়; ‘তাহরিকে ইনসাফ’ সংগঠনের সূচনালগ্নে ১৯৯৯ খ্রিস্টাব্দে তাঁকে আমি সরাসরি দেখেছি ইসলামাবাদের এক জনসভায় বক্তব্য দানকালে। তিনি সর্বদাই বক্তা ভদ্র, নম্র এবং বুদ্ধিমান। মাথাগরম বুদ্ধিশূন্য ওয়ায়িজ আর বক্তাদের মতো তিনি চিৎকার দিয়ে মাঠ গরম না করে সর্বদাই ভদ্র, নম্র এবং শান্ত ভাষায় গঠনমূলক বক্তব্য দিয়ে থাকেন। বক্তব্যে তাঁর উপস্থাপন শৈলী ভাল। তাঁর নরম কথাও চিন্তকদের মধ্যে যেমন চিন্তার উপাদান তৈরি করে, তেমনি উত্তেজকদের মধ্যে উত্তেজনা তৈরি করতে পারে। তিনি রাজনীতির মাঠে একেবারে ক্রিকেটের মতোই খেলে খেলে দীর্ঘদিনে রান উঠিয়ে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হতে চেষ্টা করছেন।

এই তিন কারণে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে আমি পছন্দ করি। তবে এই পছন্দ চিরস্থায়ী নয়। যেকোন সময় এই ভালোলাগা নষ্ট হয়েও যেতে পারে, কিংবা আরও বৃদ্ধি হতে পারে। তাই ভালোবাসা এবং ঘৃণা করা দুটাই আমার কাছে আপেক্ষীক বিষয়।

২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শুক্রবার জাতিসংঘের ৭৪তম সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান একটি ভাষণ দিয়েছেন। এই ভাষণ নিয়ে চারদিকে চলছে জবরদস্ত আলোচনা, সমালোচনা। কেউ করছেন ইমরান খানের প্রশংসা আর কেউ করছেন সমালোচনা। প্রায় ৪৮ থেকে ৫০ মিনিটের বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান চারটি পয়েন্টকে গোছালোভাবে উপস্থাপন করেছেন,

১. ভূ-মন্ডলীয় উষ্ণতা বৃদ্ধি বা বিশ্ব উষ্ণায়ন (Global Warming)
২. অর্থশোধন বা মানি লন্ডারিং (Money laundering)
৩. ইসলামভীতি বা ইসলামফোবিয়া (Islamophobia)
৪. কাশ্মীর।

এই চারটা পয়েন্টই ক্ষেত্র বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। প্রথম বিষয় : আবহাওয়া সংক্রান্ত। ভূমন্ডলীয় উষ্ণতা বৃদ্ধি বা বিশ্ব উষ্ণায়ন হলো জলবায়ূ পরিবর্তনের একটি বিশেষ ঘটনা। যদিও তা প্রকৃতির স্বাভাবিক জলবায়ূ চক্রের কারণেও হতে পারে। তবে এতে মানুষের কার্যক্রমের প্রভাবও রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সেদিকে সবার দৃষ্টি আকর্ষনের চেষ্টা করেছেন। বিশেষ করে উষ্ণায়নের ফলে ভারত-পাকিস্তানের ক্ষতিগ্রস্থদের প্রতি তিনি বিশ্ব নেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করেন। দ্বিতীয় বিষয় : অর্থশোধন বা মানি লন্ডারিং হল একটি অবৈধ অর্থনৈতিক কার্যক্রম। যে প্রক্রিয়ায় অবৈধ সম্পদের উৎস গোপন করার উদ্দেশ্যে সেই সম্পদের আংশিক বা পূর্ণ অংশ রুপান্তর বা এমন কোন বৈধ জায়গায় বিনিয়োগ করা হয় যাতে করে সেই বিনিয়োগকৃত সম্পদ থেকে অর্জিত আয় বৈধ বলে মনে হয়, তাকে আর্থোশোধন বা মানি লন্ডারিং বলা হয়। অনেক ক্ষেত্রে ব্যাংকের সক্রিয় সহায়তায় অর্থশোধন কার্যক্রম চলে। বাংলাদেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী অর্থশোধন বা মানি লন্ডারিং একটি ফৌজদারী অপরাধ। ফৌজদারী বলা হয় এই অপরাধসমূহকে যা সংগঠিত হলে পুলিশ বিনা পরোয়ানায় অপরাধীকি গ্রেফতার করতে পারে, ১৫৪ ধারায় এজাহার রুজুর মাধ্যমে মামলা করতে পারে, ১৫৬ ধারায় ম্যাজিস্ট্রেটের অনুমতি ছাড়াই তদন্ত পরিচালনা করতে পারে। তৃতীয় বিষয় : ইসলামোফোবিয়া, যা হলো, ইসলামভীতি বা ইসলামবিদ্বেষ বা মুসলিমবিরোধী মনোভাব। ইসলামফোবিয়া নিন্দার্থে বা ব্যাঙ্গার্থে ব্যবহার করা হয়। শব্দটি ইসলাম ও মুসলিমদের প্রতি বিদ্বেষ পোষণকারী রাজনৈতিক চিন্তকদের চিন্তা বুঝানোর অর্থে তৈরি। এই শব্দের প্রথম ব্যবহারকারি মনে করা হয় ফরাসি উপনিবেশিক শাসক Alain Quellien-‡K| (The Muslim Policy in West Africa, 1910)| এই শব্দের ব্যাপক পরিচিতি আসে ১৯৮৫ খ্রিস্টাব্দে প্যালেস্টাইনী বংশোদ্ভূত আমেরিকান লেখক এডওয়ার্ড সাঈদ-এর ব্যবহারের মাধ্যমে। অনেকের মতে তিনি প্রথম একাডেমিক জার্নালে এই শব্দ ব্যবহার করেন। বর্তমানে ‘ইসলামোফোবিয়া’ বলতে যা বুঝা হয় অনেকের মতে আক্ষরিক অর্থে শব্দটি এর সাথে সংশ্লিষ্ট নয়। বর্তমানে এই শব্দকে প্রাতিষ্ঠানিক পরিচিতি এনে দিয়েছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক চিন্তক বা থিংক ট্যাংক প্রতিষ্ঠান -রানিমেইড ট্রাস্ট’। রানিমেইড ট্রাস্ট যুক্তরাজ্যের প্রথম সারির একটি চিন্তক গ্রুপ, যারা বর্ণবাদ বিরোধী গবেষণা করে এবং সরকার ও পাবলিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে তাঁদের নীতি প্রণয়নের ক্ষেত্রে সাহায্য করে। ১৯৯৬ খ্রিস্টাব্দে এই প্রতিষ্ঠান আঠারো সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিশন গঠন করে, যার প্রধান ছিলেন অধ্যাপক গরডন কনওয়ে। এই আঠারো সদস্যের কমিটিতে ধর্মীয় পরিচয়ের দিকে মুসলিম, খ্রিস্টান, হিন্দু, শিখ ও ইহুদি সবাই ছিলেন। এই কমিটি যে রিপোর্টগুলো প্রকাশ করেন তাঁর শিরোনাম ছিলো Islamophobia a Challenge For Us AllÕ । রিপোর্টটি প্রকাশিত হবার সাথে সাথেই মিডিয়া ও অন্যান্য মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনার জন্ম দেয়। রিপোর্টটিকে স্বাগত জানিয়ে এবং এর বিরোধিতা করে পক্ষে-বিপক্ষে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হয়। রানিমেইড ট্রাস্ট-এর এই রিপোর্টটির প্রায় বিশ বছর পর আরেকটি ফলো-আপ রিপোর্ট প্রকাশ করে ÔIslamophobia – still a challenge to us allÕ শিরোনামে। ফলো-আপ রিপোর্টটির শিরোনামে বোঝা যায়, অন্তত রানিমেইড ট্রাস্ট মনে করছে, এই সমস্যাটি এখনও আমাদের সবার জন্যে একটা চ্যালেঞ্জ। প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সেদিকে বিশ্বনেতাদের দৃষ্টি আকর্ষন করে জুজুর ভয় দেখা এবং দেখানো বাদ দিতে সবাইকে অনুরোধ করেছেন। ইমরান খান বলেন, -বর্তমান বিশ্বে মুসলমানদের সংখ্যা ১ দশমিক ৩ বিলিয়ন। পৃথবীর সবক’টি মহাদেশেই মুসলমানদের বসবাস। নাইন ইলেভেনের পর থেকে আশঙ্কাজনকভাবে ইসলামফোবিয়ার ক্রমবৃদ্ধি। এই বৃদ্ধিটা উদ্বেগজনকও বটে। শুধু উদ্বেগজনকই নয়, এটাই মূলত বিভাজন সৃষ্টি করেছে।’ ইমরান খান মুসলিম মহিলাদের পোষাক, বিশেষ করে হিজাবের বিরোধীতা যারা করেন তাদের প্রতি নিন্দা প্রকাশ করেছেন। তিনি র্যাডিক্যাল মুসলিম ও মোডারেট মুসলিম বলে কিছু আছে বলে মনে করেন না, যা প্রকৃত ইসলামেরই কথা তিনি বলেছেন বলে মনে হয়। তিনি বলেন, ইসলাম তো একটাই। ইমরান খান যে কথাটি আজ আন্তর্জাতিক মঞ্চে দাঁড়িয়ে বলছেন, তা আমি ১৯৯৪ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত আমার ‘জীবন ধর্ম সংস্কৃতি’ গ্রন্থে বলেছিলাম। আমি বলেছিলাম, যারা ইসলামের সাথে আধুনিকতা যুক্ত করেন তারা মূলত খতমে নবুওয়াতকে অস্বীকারই করছেন। হযরত নবী করিম (স.) যেদিন আল্লাহর পক্ষ থেকে দ্বীনকে পূর্ণাঙ্গ বলে ঘোষণা করেছেন এর পর এতে আর সংযুক্তির সুযোগ নেই। ইমরান খান এই কথাই বলেছেন, ‘র্যাডিক্যাল মুসলিম আর মোডারেট মুসলিম আবার কী? ইসলাম তো একটাই। আর সেটা হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ইসলাম।’ পশ্চিমাদের ইসলামফোবিয়ার কারণ সম্পর্কে ইমরান খান তাঁর ব্যাক্তিগত অভিজ্ঞতা ও অনুসন্ধানের কথা বলে বলেন,‘ আমি পশ্চিমের দেশগুলোতে দীর্ঘ সময় কাটিয়েছি ক্রিকেট খেলে। পশ্চিমাদের মন-মানস কীভাবে কাজ করে, তা আমি ভালো করে জানি। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কথাটি হলো, ইসলামফোবিয়ার অন্যতম কারণ ১৯৮৯ খ্রিস্টাব্দে প্রকাশিত সেই বই, যেখানে জঘন্য ভাষায় নবি করিম (স.)-কে ব্যাঙ্গ-বিদ্রুপ করা হয়েছিল।’ প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এখানে সালমান রুশদির চতুর্থ উপন্যাস ‘দ্য স্যাটানিক ভার্সেস (The Satanic Verses)-এর কথা বলেন, যা ১৯৮৮ খ্রিস্টাব্দে প্রথম প্রকাশিত। প্রকৃত অর্থে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের কথাটাই সত্য, সালমান রুশদির উপন্যাস ‘দ্য স্যাটানিক ভার্সেস’-এর বিরোধীতা করেই পশ্চিমা জগতে বিশেষ করে ইংল্যান্ডে মুসলমানেরা ময়দানের আন্দোলন-সংগ্রাম শুরু করেছিলেন। তখন যদিও আমরা বেশ ছোট, তবে ইংল্যান্ড অবস্থানের কারণে রুশদী বিরোধী আন্দোলনগুলোর বিভিন্ন চিত্র খুব কাছ থেকে দেখার সুযোগ হয়েছে। মূলত ইসলাম এবং ইসলামী বিভিন্ন বিষয়ে পশ্চিমারা এই সময় মুসলমানদের মুখোমুখি হয়। ইমরান খান মনে করেন, পশ্চিমারা আসল সমস্যা বুঝতে পারে না। কারণ, ইসলাম সম্পর্কে তাদের গভীর অনুধাবন নেই। ইসলামের শান্তি-সম্প্রীতি ও ভ্রাতৃত্ব সম্পর্কে তারা ওয়াকিবহাল নয়। তাই ইসলাম তাদের কাছে একটি উগ্র, সাম্প্রদায়িক ও মারমুখো অসহিষ্ণু ধর্মের নাম।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান জাতিসংঘের ৭৪তম সাধারণ অধিবেশনের ভাষণে চতুর্থ পয়েন্টে বলেছেন কাশ্মীরের অবস্থা, কাশ্মীরীদের সাথে ভারত সরকারের অশুভ আচরণ এবং এ প্রসঙ্গে বিশ্বনেতাদের করণীয় বিষয়ে। এই পয়েন্টে তিনি কিছুটা আবেগি, কিছুটা জ্বালাময়ী, কিছুটা প্রতিবাদী হয়ে ভারত সরকারের সমালোচনা করেছেন। তবে এখানেও তিনি ন¤্র এবং ভদ্রভাবে গঠনমূলক বক্তব্য শৈলীর দিকে সচেতন থেকেছেন বলে আমরা মনে করি। তিনি তাঁর বক্তব্যে পরিষ্কার করতে চেষ্টা করেছেন, কাশ্মীরের জনগণের উপর ভারত সরকার জুলুম-নির্যাতনের বিষয়টি। ভারত যখন বিশ্বকে বলতে চায় পাকিস্তান জঙ্গি, তখন ইমরান খান জবাবে বিশ্বনেতাদেরকে বলেন, সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধে সময়ে পাকিস্তানের ভূমিকা ছিলো অগ্রণী। তিনি স্মরণ করিয়ে দেন ১৯৮০ খ্রিস্টাব্দের সোভিয়েত ইউনিয়নের বিরুদ্ধে যুদ্ধে আমেরিকার নির্দেশে পাকিস্তান কীভাবে আফগান মুহাহিদদেরকে প্রথমে মুক্তিযোদ্ধা আখ্যায়িত করে প্রশিক্ষণ দিয়েছে এবং পরবর্তীতে আবার এই মুজাহিদদেরকে আমেরিকা কর্তৃক সন্ত্রাসী আখ্যা দিয়ে নির্মূলের জন্য মাঠে এসেছে। দুনো অবস্থায়ই পাকিস্তান ছিলো আমেরিকার সাথে। তালেবান এবং আল-কায়দা বিরোধী যুদ্ধে পাকিস্তানের কোন স্বার্থ না থাকার পরও পাকিস্তান সেই সময় ৭০ হাজার তরতাজা প্রাণ এবং নগদ ১৫০ বিলিয়ন ডলার অর্থ হারিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান তাঁর ভাষণে বিশ্বকে সেকথাও স্মরণ করিয়ে দেন। এক সময়ের সুকৌশলি ক্রিকেটার ইমরান খান প্রধানমন্ত্রীর ভাষণে ভারতের সঙ্গে তাঁর অতীত-বর্তমান সু-সম্পর্কের কিছু চিত্র উপস্থাপন করে বলেন, সরকার গঠনের পর তাঁর খুব ইচ্ছে ছিলো প্রতিবেশি ভারতের সঙ্গে একটি আন্তরিক বন্ধুত্বপূর্ণ সুসম্পর্ক গড়ে তুলা। কিন্ত সেটা আর হলো না। তিনি দীর্ঘ ঘটনা বর্ণনার পর ভারত কর্তৃক ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল প্রসঙ্গে কথায় আসেন এবং বলেন ভারত সরকার ৯০০,০০০ সৈন্য মোতায়েন করে কাশ্মীরে বর্তমানে ৮ মিলিয়ন লোককে বন্ধি করে দিয়েছে। কারফিউ জারির বর্ণনা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ভারতের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ মোদি যে ভারতের ফ্যাসিবাদি সংগঠন আরএসএস-এর জীবনসদস্য, তা বিশ্বনেতাদের সামনে উপস্থাপন করে বলেন, মোদী হলেন হিটলার ও মোসলনী উত্তরসূরী। ইমরান খানের স্পষ্ট কথা, ‘নাৎসিরা যেভাবে আর্য জাতির আধিপত্যে বিশ্বাসী ছিল, আরএসএসও তেমনিভাবে হিন্দু জাতীয়তাবাদের শ্রেষ্ঠত্বে বিশ্বাসী। তারা মনে করে হিন্দু ধর্মের স্বর্ণযুগের অবসান হয়েছে মুসলিম শাসনের মাধ্যমে। তারা মুসলমান ও খ্রিস্টানদেরকে প্রকাশ্যে গালমন্দ করে। এসব কোনও গোপন তথ্য নয়, প্রকাশিত সত্য।’ ইমরান খান সবাইকে ইন্টারনেট সার্চ ইঞ্জিন গোগলে সার্চ করে গোলওয়ালকারের মতো আরএসএসের প্রতিষ্ঠাকালীন গডফাদারকে যাচাই করে দেখতে অনুরোধ করেন। তিনি আরএসএসের জঘন্যতা মানসিকতার প্রমাণ হিসেবে মহাত্মা গান্ধীকে হত্যাকে যে এই গ্রুপের সদস্যরা হত্যা করেছিলো তা স্মরণ করিয়ে দেন বিশ্বনেতাদেরকে। তিনি বলেন, নরেন্দ্র মোদিকে বলা হয়, গোজরাটের কসাই। নরেন্দ্র মোদি গোজরাটের মুখ্যমন্ত্রি থাকাকালে তাঁর নেতৃত্বে ২০০২ খ্রিস্টাব্দে আরএসএস ২০০০ জন মুসলমানকে কসাইয়ের মতো জবাই করেছিল। ইমরান খান মনে করেন, এর কারণ একটাই- আরএসএস-এর ঘৃণার আদর্শ, মুসলিমবিরোধী সহিংসতার রাজনীতি। ইমরান খান এই সময় বিশ্বনেতাদেরকে স্মরণ করিয়ে দেন, এমন কথা আমি বলছি না, তা ভারতের প্রসিদ্ধ এবং প্রাচীণ রাজনৈতিক দল কংগ্রেসও এক বিবুতিতে স্বীকার করেছে বলেছে, ‘আরএসএস-এর ক্যাম্পগুলোতে সন্ত্রসীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। এসব কারণে মোদির আমেরিকা সফরেও নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল খুদ মার্কিন প্রশাসন।’ অতঃপর পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান প্রশ্ন করেন বিশ্বনেতাদেরকে, কোন প্রকারের মানসিকতা থাকলে ৮ মিলিয়ন মানুষকে বন্ধি করা যায়, যেখানে নিরীহ নারী, শিশু, বৃদ্ধ এবং অসুস্থ্য মানুষ রয়েছে? ইমরান খান বলেন, ভারত কর্তৃক কাশ্মীরে ১০০,০০০ মানুষকে হত্যা করা হয়েছে, হাজার হাজার নারীকে ধর্ষণ করা হয়েছে, ইতোপূর্বে এ বিষয়ে জাতিসংঘ একটি প্রতিবেদনও তৈরি করেছিলো। তারপরেও বিশ্বনেতৃত্ব নীরব কেন? কেন তারা কোন প্রতিক্রিয়া দেখাতে রাজি নয়? পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বিশ্বনেতাদেরকে ব্যঙ্গ করে বলেন, ‘উল্টো কেউ কেউ ভারতে বাজার তৈরিতে ব্যস্ত। বস্তুবাদ ও পুঁজিবাদের কাছে ভোগ আর মোনাফাই মুখ্য। মানবতা কেবলই তুচ্ছ, নেহায়েত গৌন।’ তিনি বিশ্বকে ভাবতে বলেছেন, কাশ্মীর থেকে কারফিউ উঠিয়ে নেওয়ার পর কী অবস্থা হবে? ৮ মিলিয়ন মানুষ যখন অবরোধ থেকে বেড়িয়ে এসে ৯০০,০০০ সৈন্যের মুখোমুখি হবে, তথন পরিস্থিতি কী দাঁড়াবে? এখানে এসে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান আশঙ্কাবোধ করেন, কাশ্মীরে তখন রক্তের বন্যা বইবে। কারণ হিসাবে তিনি বলেন, কাশ্মীরারা খাঁচার ভেতরের পশুর মতো আজ তাদের ঘরে বন্দী। তাদের রাজনৈতিক নেতৃত্ব গ্রেফতার। এমনকি ইন্ডিয়ার সমর্থকদেরও গ্রেফতার করা হয়েছে। ১৩,০০০ যুবককে তুলে নেওয়া হয়েছে। তাদেরকে বন্দী করে রাখা হয়েছে অজ্ঞাত স্থানে। শত শত তরুণীরা ভারতীয় সেনাদের কর্তৃক ধর্ষিত। অনেক মানুষ সেনাদের গুলিতে অন্ধত্ববরণ করেছে। তিনি মনে করেন, এসব নির্যাতন কাশ্মীরদেরকে কেবল উগ্রতার দিকেই নিয়ে যাবে।’ তিনি আশঙ্কা করেন, পুলওয়ামায় নতুন আরেকটি অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার। এবং তিনি মনে করেন, এমনটি ঘটলে ভারত আবারও এর যার দায়ভার পাকিস্তানের ঘাড়ে চাপানোর চেষ্টা করবে। উল্লেখ্য যে, জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের পুলওয়ামা জেলার লেথপোরায় (আবন্তিপোরারের কাছে) ২০১৯ খ্রিস্টাব্দের ১৪ ফেব্রুয়ারি নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের বহনকারী একটি গাড়িতে স্করপিও গাড়ি দ্বারা আত্মঘাতী বোমা হামলা করে স্বাধীনতাকামী কাশ্মীরীরা। এই হামলায় ভারতের ৪৮ জন সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্স (সিআরপিএফ)-এর মৃত্যু ঘটে। (ঞযব ঞরসবং ড়ভ ওহফরধ। ১৫ ফব্রেুয়ারি ২০১৯)। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, এমন কিছু ঘটলে ভারত অপ্রচার করবে তা পাকিস্তান করিয়েছে। সেই অপপ্রচারের প্রস্তুতি হিসাবে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদী ইতোমধ্যে বলেদিয়েছেন, ‘পাকিস্তান সীমান্তে ৫০০ সন্ত্রসী হামলার জন্যে প্রহর গুণছে।’ ইমরান খান প্রশ্ন করেন, মাত্র ৫০০ সন্ত্রাসী ০ দশমিক ৯ মিলিয়ন সৈন্যের বিরুদ্ধে কী করবে? অতঃপর তিনি বলেন, ভারত আসলে ইসলামি সন্ত্রাসবাদের প্রপাগান্ডা তৈরির জন্যে কেবল একটি অজুহাত দাঁড় করাতে চায়। কথিত ইসলামি সন্ত্রাসবাদের অনেক সুবিধা আছে। এই ইসলামি সন্ত্রাসবাদের সনদ ভারতকে মানবাধিকার লঙ্গন ও কাশ্মীরিদের উপর নিষ্ঠুরতার বৈধতা প্রধান করে! আমরা খামাখা কেন শান্তিপূর্ণ পরিবেশকে অশান্ত করতে যাবো? কিন্তু প্রতিবেশি ভারত আমাদেরকে শান্তিতে থাকতে দেয় না। এমন কোনও ঘটনা নোই, যা ভারত ঘটায়নি। কাশ্মীরে তাদের নিষ্ঠুরতার কারণে খুব শিগগির আরও একটি পুলওয়ামার ঘটনা ঘটবে। আর তারা আমাদেরকে আবারও দোষ দেবে এবং আবারও বোমা ফেলার চেষ্টা করবে।’ প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান জাতী সংঘের সভাপতিকে উদ্দেশ্য করে বলেন, আপনি কি একবারও এটা ভাবেন না যে, ৮০ মিলিয়ন কাশ্মীরিকে অবরুদ্ধ দেখতে দেখতে একদিন ভারতের ১৮০ মিলিয়ন মুসলমান ভ্রাতৃত্বের টানে মারমুখো হয়ে উঠতে পারে? আর প্রায় ১ দশমিক ৩ বিলিয়ন মুসলমান এইসব ঘটনা দেখছে এবং তারা এটা ভালো করেই জানেন যে, কেবল কাশ্মীরি মুসলমানদের সঙ্গেই এমন নিষ্ঠুর আচরণ করা হচ্ছে। বিশ্বের কোথাও যদি মাত্র ৮০০০ ইহুদি এভাবে অবরুদ্ধ হয়, ইহুদিদের প্রতিক্রিয়া তখন কেমন হবে? ইউরোপীয়রা তখন এর প্রতিবাদ কোন ভাষায় জানাবে? এ ছাড়া অন্যান্য মানবগোষ্ঠী কীভাবে এর প্রতিক্রিয়া দেখাতে পারে? শুধু মুসলমানদের বেলায় কোনও প্রতিক্রিয়া নেই। কেন, আমরা কি কোনও কম জাতের সন্তান? আপনারা কি বুঝেন না এসব বৈষম্য যে আমাদেরকে আহত করে।

জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য এবং পক্ষ-বিপক্ষের ভাবনা

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের জাতী সংঘে দানকৃত ভাষণের পক্ষে-বিপক্ষে বিশ্বব্যাপি আলোচনার ঝড় উঠেছে। এখানে আলোচিত চারটি বিষয়ই গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্ব উষ্ণায়ন, মানি লন্ডারিং, ইসলামভীতি বা ইসলামফোবিয়া ; এই তিন বিষয় পূর্ণাঙ্গ আন্তর্জাতিক সমস্যা। কাশ্মীরের বিষয়টি ইসলামী কিংবা মানবিক চেতনায় বিবেচনা করলে আন্তর্জাতিক, নতুবা আঞ্চলিক। রাষ্ট্রীয়ভাবে কাশ্মীর সমস্যা হলো ভারত, পাকিস্তান এবং চীন কেন্দ্রিক বিষয়। তবে এখানে পূর্ণাঙ্গ স্বার্থ জড়িত ভারত এবং পাকিস্তানের। তাই কাশ্মীর প্রসঙ্গে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বক্তব্য সরাসরি ভারত সরকারের কর্ম এবং নীতির বিরুদ্ধে চলে গিয়েছে। ফলে ভারত সরকার তা সরাসরি বিরোধীতা এবং প্রত্যাখান করছে। বিশ্বের মুসলমানেরা বেশিরভাগই পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বক্তব্যের সমর্থক। জাতিসংঘে ইমরান খানের ভাষণের ২৪ ঘন্টার মধ্যেই কাশ্মীরের পরিস্থিতি পাল্টে যায়। রাজপথে নেমে আসে মজলুম কাশ্মিরীরা। মসজিদে মসজিদে মোদি বিরোধী স্লোগান শুরু হয়ে যায়। পাকিস্তানের জনপ্রিয় ইংরেজি সংবাদ মাধ্যম ‘ডন’ হেডলাইন করেছে; ‘জাতিসংঘে ইমরান খানের বক্তব্য ৯২ খ্রিস্টাব্দের বিশ্বকাপ জয়ের মতোই স্মরণীয় হয়ে থাকবে।’ তবে পাকিস্তানের ইসলামিক নেতাদের মধ্যে ইমরান খানের বক্তব্যের পক্ষে-বিপক্ষে বিভিন্ন প্রতিক্রিয়া প্রকাশ হচ্ছে। পাকিস্তানের মুসলিম পন্ডিত ও শীর্ষস্থানীয় আলেম মাওলানা জাহিদ-উর-রাশদী ইমরান খানের সফলতার জন্য দোয়া করে এক ভিডিও বার্তায় বলেছেন, জাতিসংঘ অধিবেশনে ইমরান খানের বক্তব্য শুধু পাকিস্তান নয়, গোটা মুসলিম বিশ্বের অন্তরের আওয়াজ ছিল। আমি দোয়া করি, পাকিস্তানের চাওয়া-পাওয়া পূরণে তিনি সফলতা লাভ করুন। বিশ্বজুড়ে ইসলামফোবিয়া মোকাবেলায় পাকিস্তান, মালয়েশিয়া ও তুরস্কের উদ্যোগে টিভি চ্যানেল প্রতিষ্ঠা একটি যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি শুনলাম, ইমরান খান, মাহাথির মোহাম্মদ ও এরদোগান সম্মিলিতভাবে একটি টিভি চ্যানেল খোলার উদ্যোগ নিয়েছেন, এই খবর শুনে আমি সবচেয়ে বেশি খুশি হয়েছি। এ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পারলে ইসলাম ও উম্মতের অনেক বড় খেদমত হবে। পাকিস্তানের অন্যতম শীর্ষ আলেম ও সাবেক বিচারপতি আল্লামা তাকি উসমানি এক টুইট বার্তায় বলেছেন, ইমরান খান জেনারেল এসেম্বলিতে যে ভাষণ প্রদান করেছেন; বিশেষ করে নিজ আত্মবিশ্বাস, সাহসিকতা এবং বাকপটুতার সঙ্গে পশ্চিমাবিশ্বকে ইসলামফোবিয়ার ভয়াবহতা এবং কাশ্মীর বিষয়ে যেভাবে চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়েছেন-এর জন্য তিনি মুবারকবাদ পাওয়ার যোগ্য। আর তিনি তার এই ভাষণের মাধ্যমে কাশ্মীর-সংকটের ব্যাপারে নিজ ইচ্ছা এবং দৃঢ় সংকল্প প্রকাশ করেছেন, যা সকল পাকিস্তানি জনগণের হৃদয়ের আওয়াজ। পাকিস্তানের প্রসিদ্ধ ইসলামি স্কলার ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব মাওলানা তারিক মাসুদ এক বক্তৃতায় বলেন, ইমরান খান জাতিসংঘ অধিবেশনে পুরো পাকিস্তান, বিশেষ করে কাশ্মীরের মুসলিমদের মুখপত্র হিসেবে চমৎকার ভাষণ দিয়েছেন। বিশ্ব নেতাদের সামনে কাশ্মীরে চলমান জুলুম ও অত্যাচারের বিবরণ তুলে ধরেছেন। অবশ্যই তাকে সাধুবাদ জানাচ্ছি। তিনি বলেন, প্রোপাগান্ডার মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী ইসলামকে সন্ত্রাসী ধর্মের যে তকমা লাগানো হয়েছে, তার বিরুদ্ধে ইমরান খানের দলিলভিত্তিক আলোচনা অবশ্যই প্রশংসার দাবি রাখে। পুরো জাতির উচিৎ- প্রধানমন্ত্রীর শুকরিয়া জ্ঞাপন। পাকিস্তানের ওলামা কাউন্সিলের নেতা তাহির মাহমুদ আশরাফী, তাবলিকের সুপসিদ্ধ বক্তা মাওলানা তারিক জামিল, মাওলানা জিয়াউদ্দিন কাদেরীসহ অনেক ওলামায়ে কেরাম ইমরান খানের ভূয়সী প্রশংসা করেন। তারা বেশিরভাগই দেওবন্দী আলেমদের প্রতিনিধিত্বকারী বিশ্ববিখ্যাত পাকিস্তানী আলেম। তাদের সবারই সম্পর্ক জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম পাকিস্তানের বিভিন্ন গ্রুপের সাথে। তবে এখানে আপত্তি উঠালেন পাকিস্তানের অন্যতম বিরোধীদলীয় নেতা ও জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের (এফ) আমীর মুফতি ফজলুর রহমান। তিনি ইমরান খানের বক্তব্যকে কান্ডজ্ঞানহীনতা আখ্যা দিয়ে ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ এক সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন, ইমরান খানের বক্তব্য ভালো হোক কিংবা খারাপ; ইমরান খানকে জায়েজ প্রধানমন্ত্রী মানতে পারছি না। ২৫ জুলাই ইমরান খানের ক্ষমতা গ্রহণের তারিখ থেকে আমরা যে সংকটে ভুগছি, কোন বক্তব্য সেই সংকট নিরসন করতে পারবে না।’ তিনি তাঁর বক্তব্যে ইমরান খানের বক্তব্যগুলোকে কাশ্মীরকে বিক্রি করার অপরাধের ওপর পর্দা দেওয়ার অপচেষ্টা বলে উল্লেখ করেন। মুফতি ফজলুর রহমান ও তাঁর ভক্ত-কর্মিরা ইমরান খানের এই বক্তব্যকে মুনাফিকি বলে বিভিন্ন বক্তব্যে উল্লেখ করেন। তারা বলেন, ইমরান খান তলে তলে ভারত এবং আমেরিকার কাছে কাশ্মীরকে বিক্রি করে শুধু শুধু মাঠকে গরম করে জনপ্রিয়তা বৃদ্ধির চেষ্টা করছেন। মুফতি ফজলুর রহমান এবং ইমরান খানকে নিয়ে বাংলাদেশেও দেখা যাচ্ছে বিভিন্নজনের বিভিন্ন বক্তব্য। উভয়ের ভক্তরা প্রতিপক্ষকে গালাগালি এবং নিজ পক্ষের প্রশংসায় মাঠ গরম করে দিয়েছেন। এখানে কেউ ইমরান খানকে একেবারে খোলাফায়ে রাশিদিনের সাথে নিয়ে যাচ্ছেন, কেউ মানিয়ে ফেলছেন আমীরুল মুমিনিন। আবার কেউ মুনাফিক কিংবা গাদ্দার বলতেও পিছু যাচ্ছেন না। অন্যদিকে কারো কাছে মুফতি ফজলুর রহমান একেবারে আল্লাহর বিশেষ ওলি-দরবেশ এবং কারো কাছে গাদ্দার এবং মৌলভী ১০ পর্সেন্ট। বিপরীতমুখি বক্তব্য রাজনীতির পুরাতন একটি নিয়ম, তবে এই সব গালাগালি উপমহাদেশীয় রাজনৈতিক চরিত্রেরই বৈশিষ্ট্য। মুফতি ফজলুর রহমানের সমর্থক যারা বাংলাদেশে, বিশেষ করে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের একটি গ্রুপের কেউ কেউ তাদের নেতার সুরের সাথে মিলিয়ে ইমরান খানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন কথা বলছেন। আবার কেউ কেউ মাওলানা জাহিদ-উর-রাশদী, মুফতি তকি উসমানী প্রমূখের অনুসরণে ইমরান খানের বক্তব্যের প্রশংসা করছেন।
আমরা রাজনীতিতে পক্ষ-বিপক্ষের কারো বক্তব্যকেই বাঁকা দৃষ্টিতে দেখতে চাই না। কারো বক্তব্যই আবেগে আপ্লুত হয়ে অন্ধ বিশ্বাস করতে চাই না, আবার কারো বক্তব্যই বিচারহীনভাবে উড়িয়ে দিতে চাই না। সবগুলো বক্তব্যকে জ্ঞান, বুদ্ধি, কর্ম এবং প্রেমের সমন্বয়ে পর্যবেক্ষণ করে সত্যকে আবিস্কার করতে চাই। আমরা আবেগ এবং প্রতিহিংসার চর্চাকে বাদ দিয়ে বিষয়টির সঠিক পন্থায় পর্যালোচনা করে সমাধানের পথ বের করতে চাই। আমাদের কাছে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের জাতী সংঘে প্রদত্ত বক্তব্য যেমন গুরুত্বপূর্ণ, তেমনি গুরুত্বপূর্ণ তাঁর প্রসংশা এবং তাঁর বিরুদ্ধে সন্দেহ প্রকাশও। কারণ, রাজনীতিতে কোন শেষ কথা নেই। ইমরান খানের বিরোধীরা বলছেন, তিনি নাকি এবারের নিউইয়র্ক সফরে সবচে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ঘটিয়েছেন প্রকাশ্যে ইসরাইলকে স্বীকৃতি দানের কথা বলে। প্রথমে আমাদের বুঝতে হবে জাতী সংঘের কি শক্তি বা সামর্থ আছে কাশ্মীর কিংবা ফিলিস্তিনের সমস্যার সমাধানের? জাতি সংঘের ইতিহাসে সবচে গরম বক্তব্য দিয়েছিলেন ফিলিস্তিনের পিএলও নেতা ইয়াসির আরাফাত। জাতী সংঘের ইতিহাসে তিনিই একমাত্র ব্যক্তি যে পিস্তল সাথে নিয়ে মঞ্চে গিয়ে বক্তব্য দিয়েছিলেন। এই বক্তব্যই ইয়াসির আরাফাতকে বিশ্বের কাছে ফিলিস্তিনের মুকুটহীন স¤্রাট বলে পরিচিত করে দিয়েছিলো। কিন্তু তারপরও ফিলিস্তিন সমস্যার সমাধান হয়নি। তাই স্মরণ রাখতে হবে ইমরান খানের বক্তব্যে কাশ্মীর সমস্যার সমাধানও হবে না। যদি সমাধান না হয় তবে বক্তব্য গরম-ঠান্ডা কিংবা গঠন মূলক হলেই কি, আর না হলেই কি? ১৯৪৭ খ্রিস্টাব্দ থেকে যে সমস্যার সমাধান হয়নি, সেই সমস্যার সমাধান ইমরান খানের এক বক্তব্যে হয়ে যাবে, তা-ই ভাবাটাই বুকামি। তবে এই বক্তব্য আন্তর্জাতিক সমাজে কাশ্মীর বিষয়কে আলোচিত এবং গুরুত্বপূর্ণ করবে, তা অস্বীকার করা যাবে না। স্থানীয় আন্দোলন-সংগ্রামের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক সমর্থনটাও গুরুত্বপূর্ণ যেকোন স্বাধীনতা সংগ্রামের জন্য। কাশ্মীরের স্বাধীনতা আন্দোলনে সংগ্রামী-জিহাদীদের অভাব নেই। কিন্তু আন্তর্জাতিক মহলে বিষয়টিকে উপস্থাপনের জন্য কৌশলী নেতার অভাব রয়েছে, তা অস্বীকার করা যাবে না। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান তাঁর এই বক্তব্যের মাধ্যমে এই অভাবের কিছুটা পূরণ করেছেন বলে আমরা মনে করি। অনেকের অভিযোগ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সরাসরি কাশ্মীরের স্বাধীনতার কথা না বলে কৌশলী বক্তব্যের মাধ্যমে মূলত ভারতের স্বার্থ রক্ষা করেছেন। মূলত বুঝের অভাবে এমন ভুল বুঝাবুঝির সৃষ্টি হচ্ছে। আমাদের বুঝতে হবে ইমরান খান একটি রাষ্ট্রের প্রধানমন্ত্রী আর মুফতি ফজলুর রহমান বিরোধী দলের নেতা। ইমরান খান চাইলেও মুফতি ফজলুর রহমানের মতো কথা বলতে পারবেন না। প্রধানমন্ত্রীকে সর্বদাই কৌশলী কথা বলতে হবে। রাজনীতিতে যত উঁচু আসনে বসা হয়, তত উঁচু কথা বলতে হয়। অনেক সময় উঁচু কথা নীচুদের বুঝ স্পর্শ করে না বলে ভুল বুঝাবুঝির সৃষ্টি হয়। যেমনটি হচ্ছে বর্তমান পাকিস্তানে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এবং জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নেতা মুফতি ফজলুর রহমানের বক্তব্যকে কেন্দ্র করে। প্রকৃতপক্ষে প্রত্যেককে তার নিজের স্থানে রেখে বিবেচনা করলে এমনটি হতো না। কোন বিষয়কে সঠিক পথে পরিচালনার জন্য রাজনীতিতে এমন পক্ষ-বিপক্ষ প্রয়োজন। আমাদের স্মরণ রাখতে হবে, শুধু বক্তব্য দিয়ে যেমন এরকমের সমস্যার সমাধান কোনদিন হয়নি এবং হবেও না, তেমনি বক্তব্য না দিলে সমস্যা সম্পর্কে মানুষের ভুল ধারণাও দূর হয় না। মানুষের ভুল ধারণা দূর না হলে আন্তর্জাতিক জন-সমর্থন লাভ হয় না।
কাশ্মীরের ব্যাপারে ৩১ আগস্ট ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ ফেসবুক ওয়ালে আমি বলেছিলাম; ‘কাশ্মীরের স্বাধীনতার জন্য বঙ্গবন্ধুর মতো নেতা প্রয়োজন। ৭ মার্চের মতো একটি দিক নির্দেশনামূলক ভাষণ প্রয়োজন। ৬ দফার মতো আন্দোলনী ইশতেহার প্রয়োজন। ১৯৭০ খ্রিস্টাব্দের মতো গণজোয়ারের প্রয়োজন। আগড়তলার মতো প্রবাসী সরকার গঠন প্রয়োজন। একাত্তরের মতো নিয়মতান্ত্রিক একটি স্বাধীনতা সংগ্রাম প্রয়োজন। অতঃপর আন্তর্জাতিক মহলের সমর্থন প্রয়োজন। কাশ্মীরিরা যতদিন এগুলো অর্জনে ব্যর্থ হবে ততদিন কাশ্মীরের সমস্যার সমাধান হবে না। শুধু শ্লোগান আর মিছিলে কোন কিছু অর্জিত হয় না। অর্জনের জন্য নিয়মতান্ত্রিক এবং বুদ্ধিভিত্তিক ত্যাগের প্রয়োজন হয়। বিগত সত্তর বছরে কাশ্মীরীরা বঙ্গবন্ধুর মতো কোন নেতা পায়নি বলেই তাদের সমস্যার সমাধান এখনও হয়নি। ভারত যেমন চায় না কাশ্মীর স্বাধীন হোন, তেমনি পাকিস্তানও চায় না কাশ্মীরের স্বাধীনতা। ফলে কাশ্মীরীরা তিনভাগে বিভক্ত, ১. ভারতপন্থী কাশ্মীরী, ২. পাকিস্তানপন্থী কাশ্মীরী, ৩. স্বাধীনতাকামী কাশ্মীরী। ভারতপন্থীরা স্বাধীনতা চায় না, তারা চায় স্বায়ত্ব শাসন। পাকিস্তানপন্থীরা স্বাধীনতা চায় না, তারা চায় পাকিস্তানের সাথে মিশে যাওয়া। শুধু স্বাধীনতাকামীরা চায় উভয় কাশ্মীর মিলে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা। সাধারণ মানুষের মধ্যে স্বাধীনতাকামীদের জনপ্রিয়তা বেশি থাকলেও সহযোগিতার অভাবে তাদের কর্মতৎপরতা সীমিত। ভারত যখন ৩৭০ ধারা বাতিল করে দিলো তখন ভারতপন্থী গ্রুপ আর ভারতের পক্ষে থাকতে পারলেন না, তারা সরাসরি স্বাধীনতাকামীদের পক্ষ নিয়ে আজাদি আজাদি বলতে শুরু করলেন। ফলে স্বাধীনতাকামীদের আওয়াজ এখন বড় হয়ে সামনে আসছে। পাকিস্তানপন্থীদের সহযোগিতা প্রয়োজন কাশ্মীরের স্বাধীনতার জন্য, তাই এখন আর কেউ পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বলতে চাচ্ছেন না। এখন যদি কাশ্মীরীরা বঙ্গবন্ধুর মতো স্বাধীনতাকামী নেতার নেতৃত্ব লাভ করতে পারে এবং আমাদের একাত্তরের মতো একটি প্রবাসী সরকার গঠন করে নিয়মতান্ত্রিক স্বাধীনতা সংগ্রামের ডাক দিতে পারে তবে হয়তো কাশ্মীর খুব দ্রুত স্বাধীনতা লাভ করতে পারে।’ আজ আবার বলতে চাই বক্তব্য কিংবা মিছিল দিয়ে কাশ্মীর সমস্যার সমাধান হবে না। কাশ্মীর সমস্যার সমাধানের জন্য নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রামের প্রয়োজন এবং তা শুরু করতে হবে কাশ্মীরী জনতা।
সবশেষে বলবো, ইমরান খান কিংবা মুফতি ফজলুর রহমান কেউ-ই নবী-রাসুল কেউ নয়। ভুল তাদেরও হতে পারে। তাদের ভুলকে দলীয় চিন্তার উর্ধ্বে গিয়ে ভুলই বলতে হবে। আবার তাদের শুদ্ধ এবং সুন্দরকে সকল সংকীর্ণতার উর্ধ্বে গিয়ে শুদ্ধ এবং সুন্দর বলে সমাদর করতে হবে। কাশ্মীর বিষয়ে অপেক্ষা করতে হবে কোথাকার পনি কোথায় গড়ায় তা দেখার জন্য।

এই সংবাদটি 1,061 বার পড়া হয়েছে

বিশ্বের প্রভাবশালী ১শ নারীর তালিকা প্রকাশ করেছে ফোর্বস ম্যাগজিন। এই তালিকার শীর্ষ একশ নারীর মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছেন জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল। তালিকার ২৯তম অবস্থানে রয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  বাংলাদেশের ইতিহাসে দীর্ঘকালীন সময় ধরে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনা। তিনি চতুর্থবারের মতো জয়ী হয়ে টানা তিনবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। গত নির্বাচনে তার দল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সংসদের ৩শ আসনের মধ্যে ২৮৮টিতেই জয় লাভ করে।  ১৯৮১ সাল থেকে টানা প্রায় ৩৮ বছর ধরে বাংলাদেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের দলীয় প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন শেখ হাসিনা। ১৯৯৬ সালের ২৩ জুন প্রথমবার দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন তিনি। এরপর থেকেই শক্ত হাতে দলকে নিয়ন্ত্রণ করছেন শেখ হাসিনা। দেশের খাদ্য নিরাপত্তা, শিক্ষার উন্নয়ন এবং স্বাস্থ্যসেবার প্রতি জোর দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী।  ফোর্বসের তালিকায় প্রভাবশালী শীর্ষ ১০ নারীর তালিকায় আছেন অ্যাঙ্গেলা মেরকেল, ক্রিস্টিনে লেগারদে, নেন্সি পেলোসি, আরসুলা ভন দের লেয়েন, মেরি বারা, মেলিন্ডা গেটস, আবিগেইল জনসন, আনা পেট্রিসিয়া বোটিন, গিনি রোমেটি এবং মেরিলিন হিউসন। ২০১৮ সালে ফোর্বসের প্রভাবশালী ১শ নারীর তালিকায় শেখ হাসিনার অবস্থান ছিল ২৬তম।
বিশ্বের প্রভাবশালী ১শ নারীর তালিকা প্রকাশ করেছে ফোর্বস ম্যাগজিন। এই তালিকার শীর্ষ একশ নারীর মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছেন জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল। তালিকার ২৯তম অবস্থানে রয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাংলাদেশের ইতিহাসে দীর্ঘকালীন সময় ধরে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনা। তিনি চতুর্থবারের মতো জয়ী হয়ে টানা তিনবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। গত নির্বাচনে তার দল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সংসদের ৩শ আসনের মধ্যে ২৮৮টিতেই জয় লাভ করে। ১৯৮১ সাল থেকে টানা প্রায় ৩৮ বছর ধরে বাংলাদেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের দলীয় প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন শেখ হাসিনা। ১৯৯৬ সালের ২৩ জুন প্রথমবার দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন তিনি। এরপর থেকেই শক্ত হাতে দলকে নিয়ন্ত্রণ করছেন শেখ হাসিনা। দেশের খাদ্য নিরাপত্তা, শিক্ষার উন্নয়ন এবং স্বাস্থ্যসেবার প্রতি জোর দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। ফোর্বসের তালিকায় প্রভাবশালী শীর্ষ ১০ নারীর তালিকায় আছেন অ্যাঙ্গেলা মেরকেল, ক্রিস্টিনে লেগারদে, নেন্সি পেলোসি, আরসুলা ভন দের লেয়েন, মেরি বারা, মেলিন্ডা গেটস, আবিগেইল জনসন, আনা পেট্রিসিয়া বোটিন, গিনি রোমেটি এবং মেরিলিন হিউসন। ২০১৮ সালে ফোর্বসের প্রভাবশালী ১শ নারীর তালিকায় শেখ হাসিনার অবস্থান ছিল ২৬তম।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com