আব্দুল হাই বংশিপ্পার হুজুর একজন আদর্শ শায়খুল হাদিস ছিলেন

প্রকাশিত: ৬:০৭ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ৩১, ২০২০

আব্দুল হাই বংশিপ্পার হুজুর একজন আদর্শ শায়খুল হাদিস ছিলেন

সৈয়দ রিয়াজ আহমদঃ
আল- জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারীর এক উজ্জ্বল নক্ষত্র আল্লামা আব্দুল হাই (বংশিপ্পার হুজুর)।
উনি জামিয়া হোসাইনিয়া হাফিজিয়া আরাবিয়া দারুল হাদিস সৈয়দপুরে’র দীর্ঘদিনের সুনামধন্য ও সফল শায়খুল হাদিস ছিলেন এবং দুনিয়া বিমুখতা,নির্লোভ,প্রচারবিমুখ,এখলাস এর এক মুর্ত প্রতিক ও উজ্জল দৃষ্টান্ত হয়ে যুগের পর যুগ বেচে থাকবেন ইনশাআল্লাহ ।

মাওলানা আব্দুল হাই (বংশিপ্পার হুজুর) রহ. রায়ধর মাদরাসায় তিনি একাধারে জালালাইন শরীফ পর্যন্ত লেখা-পড়া করার পর বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি দরসগাহ মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসায় ভর্তি হন
(রায়ধরে পড়াকালীন সময়ে শাইখুল হাদীস আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী রহ. বংশিপ্পা হুজুরের ২/৩ জামাত নিচে পড়তেন,তো অনেক সময় হবিগঞ্জী রহ.কিতাব বুঝার জন্য বংশিপ্পার হুজুরের সহযোগীতা নিতেন) এবং হাটহাজারী মাদরাসায় দাওরায়ে হাদীস সমাপন করেন। হাটহাজারী মাদ্রাসায় বংশিপ্পার হুজুরেরর বোখারীর ওস্তাদ ছিলেন শায়খুল ইসলাম হুসাইন আহমাদ মাদানী রহ. এর শাগরিদ শায়খুল হাদিস মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম রহ.।

তাঁর কর্মজীবন শুরু হয় নিজ জেলা হবিগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী রায়ধর দারুল হাদীস মাদরাসা থেকে, যেখানে তিনি দীর্ঘদিন লেখা-পড়া করেছিলেন। তিরমিজি শরীফ পড়ানো থেকে তাঁর শিক্ষকতা জীবন শুরু। একবছর পর রায়ধর মাদরাসায় বুখারী শরীফের কিছু অংশ তাঁর ভাগে আসে। তখন থেকেই তিনি শায়খুল হাদীস। একাধরে ৮ বছর রায়ধরে শিক্ষকতা করেন। পরে একই জেলার ইমামবাড়ী দারুল হাদীস মাদরাসায় প্রায় ৪ বছর, উমেদনগর দারুল হাদীস মাদরাসায় ৮ বছর, পরবর্তীতে মুজাহিদে মিল্লাত হযরত মাওলানা আমিন উদ্দীন শায়খে কাতিয়া রহ. এর প্রতিষ্ঠিত দারুল উলুম কাতিয়া মাদরাসার শিক্ষা সচিব পদে ২ বছর এবং পূণরায় ইমামাবাড়ীতে আরও ২ বছর শায়খুল হাদীস পদে কর্মরত ছিলেন।
১৯৮১ ইংরেজিতে সুনামগঞ্জ জেলার ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সৈয়দপুর হাফিজিয়া হুসাইনিয়া আরাবিয়া দারুল হাদীস মাদরাসায় হাদিসের মসনদে বসেন এ সময় বংশিবপাশার হুজুরের নেসাবে বোখারী ছানী ছিলো আর মাওলানা আব্দুল হান্নান (পাগলার হুজুর) বোখারী আউয়াল পড়াতেন।

সৈয়দপুর মাদ্রাসায় দাওরায়ে হাদিস খোলার পর পর্যায়ক্রমে যারা শায়খুল হাদিস ছিলেন ১/ আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তালিম বাংলাদেশের সাবেক সভাপতি মাওলানা হুসাইন আহমদ বারকুটি রহ. ২/ মাওলানা আব্দুল হান্নান (পাগলার হুজুর) রহ. ৩/ মাওলানা আবদুল হাই চৌধুরী (বংশিবপাশার হুজুর) রহ. ৪/ মাওলানা আব্দুর রহীম (উলুতুলুর হুজুর) রহ. এক বৎসর ৫/মাওলানা আবদুল হাই চৌধুরী (বংশিবপাশার হুজুর) রহ.।

বংশিপ্পার হুজুরের কাছে হাসাদ (হিংসা) ছিলোনা।
কোন দিন গীবত ও পরনিন্দা করতে দেখিনি।
হিংসায় লোকেরা ব্যাপকভাবে এই ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়ে থাকে বিশেষত আলেমদের মধ্যে এর প্রকোপ বেশি দেখা যায়।
হাসাদ (হিংসা) হলো কারো উন্নতি দেখে অন্তর জ্বালায় থাকা এবং তার এই বিষয়টা বিনষ্ট হয়ে যাওয়ার কামনা করা।
আনুমানিক 2007 সালে সৈয়দপুরের মজলিসে শুরায় সিদ্ধান্ত হল যে বংশিপ্পার হুজুর অসুস্থ হয়ে গেছেন সে জন্য আরেকজন শায়খুল হাদিস বংশিবপাশার হুজুরের সহযোগিতার জন্য নিয়োগ দেওয়া হোক সেই সিদ্ধান্তটি সামনে রেখে তৎকালীন মুহতামিম হাফিজ মাওলানা সৈয়দ মতিউর রহমান (রাহ:) সৈয়দপুর মাদ্রাসার সাবেক মুহাদ্দিস আল্লামা আব্দুর রহিম উলুতুলুর হুজুর (রাহ:) কে নিয়োগ দিলেন আর উলুতুলুর হুজুরকে বোখারী প্রথম অংশ থেকে ৫ পারা পর্যন্ত দিলেন আর বংশিবপাশার হুজুরকে ৬ পারা থেকে ১৫ পারা পর্যন্ত দিলেন কিন্তু বংশিবপাশার হুজুরের কাছে আমি কোনো বিরুপ প্রতিক্রিয়া দেখিনি কিন্তু হুজুরের দরদী হয়ে মাদ্রাসার ভিতরে অনেক কিছু করা হয়েছে।আল্লাহ সবাইকে মাফ করুন।
হুজুর (রাহ) এর জীবনে দুনিয়ার প্রতি তেমন আকর্ষণ ছিলনা।যদি থাকত তাহলে সৈয়দপুরের মুহতামিম হিসেবে বাড়ি এবং প্রচুর টাকার মালিক হওয়া কোন ব্যাপারই ছিলনা।
হুজুর কোনদিন সৈয়দপুর মাদ্রাসায় সম্মানী বাড়ানোর জন্য ডাইরেক্ট বা ইনডাইরেক্ট বলেননি অথচ সৈয়দপুর মাদ্রাসার মাসিক সম্মানী তুলনামূলকভাবে অনেক কম ছিল আর আমার জানামতে ২০১৫ পর্যন্ত হুজুরের সম্মানী ৮ হাজারের নিচে ছিল।হুজুর তাবিজ দিতেন কিন্তু কোন দিন পয়সা চাইতেন না।কেউ ৫ টাকা দিচ্ছে কেউ ১০ টাকা দিচ্ছে তা হুজুরকে গ্রহণ করতেন।এটা ছিলো হুজরের দুনিয়া বিমুখতা।

বংশিপ্পার হুজুরের বর্ণাঢ্য শিক্ষকতা জীবনে দেশের অনেক শীর্ষ উলামায়ে কেরাম, শায়খুল হাদীস, মুফাচ্ছির, মুফতি, মাদরাসার মুহতামীম, শিক্ষা সচিব গণ হযরতের কাছ থেকে শিক্ষা অর্জন করে দ্বীনের বহুমুখী খিদমাতে নিয়োজিত রয়েছেন।
তাঁদের মধ্যে অন্যতম হলেন- শায়খুল হাদীস মাওলানা ইমদাদুল হক হবিগঞ্জী, মুফাচ্ছিরে কুরআন মাওলানা নূরুল ইসলাম ওলীপুরী,মরহুম হাফিজ মাওলানা সৈয়দ ফুজায়েল আহমদ, মাওলানা সৈয়দ আব্দুর রাজ্জাক, মাওলানা সৈয়দ মছরুর আহমদ ক্বাসীমী প্রমূখ।

আলহামদুলিল্লাহ আমি অধম হুজুরের কাছে জালালাইন জামাতে দিওয়ানুল মুতানাব্বী, মিশকাত জামাতে হেদায়া(كتاب الشفعة) থেকে এবং দাওরায়ে হাদিসে বুখারী শরীফ প্রথম থেকে 15 পারা পর্যন্ত পড়েছি। হুজুর কঠিন বিষয়কে অতি সহজে উপস্থাপন করতে পারতেন যাতে ছাত্রদের বুঝতে কোন সমস্যা হতো না।
পরিশেষে দোয়া করি রাব্বে কারীম যেন উস্তাদে মুহতারামকে জান্নাতুল ফেরদাউসের উঁচু মাকাম দান করেন।এবং আমাদেরকে তার যোগ্য উত্তরসুরী হওয়ার তাওফিক দান করেন।

এই সংবাদটি 34 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com