সিলেটসহ ২৩ জেলায় বন্যা দীর্ঘস্থায়ীও বিস্তৃতির আশংকা

প্রকাশিত: ৬:৩২ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১৫, ২০২০

সিলেট রিপোর্ট ডেস্কঃ
উজানে বৃষ্টি বেড়ে গেলে বন্যার স্থায়িত্ব আগস্টের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত গড়াতে পারে। এর আশঙ্কাই বেশি। ফলে দীর্ঘস্থায়ী বন্যার জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নিতে হবে বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

সিলেট-সুনামগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন জেলার চলমান বন্যা এরই মধ্যে ১৭ দিন অতিবাহিত হয়েছে। ৩য় দফা এ বন্যা এই মাসজুড়ে চলতে পারে।

বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের হিসাবে স্থায়িত্বের দিক থেকে চলমান বন্যা ’৯৮-এর মতো হলেও বিস্তৃতির দিক থেকে এটি এখনো অতটা বড় আকার নেয়নি। দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বন্যা হিসেবে পরিচিত ’৯৮-এর বন্যায় দেশের ৬৩ শতাংশ এলাকা ডুবে গিয়েছিল। ১৯৮৮ সালের বন্যায় দেশের ৬৭ শতাংশ ও ২০০৭-এর বন্যায় ৫৩ শতাংশ এলাকা ডুবে যায়। তবে চলমান বন্যায় এখন পর্যন্ত দেশের ২৫ শতাংশ এলাকা ডুবেছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে দেশের ৪০ শতাংশ এলাকা ডুবে যেতে পারে। ১৯৯৮ সালের বন্যা ৩৩ দিন ছিল, ২০১৯ সালের বন্যা ছিল ১৭ দিন। আর চলমান বন্যা এরই মধ্যে ১৭ দিন অতিক্রম করেছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গত মার্চ থেকে করোনার কারণে বোরো ধান শুকাতে ও বেচতে না পারা, কোরবানির জন্য প্রস্তুত করা গবাদিপশু হাটে নিতে না পারার কারণে গ্রামীণ জনপদের মানুষের হাতে নগদ টাকার ঘাটতি রয়েছে। ঘূর্ণিঝড় আম্পানের কারণে অনেক এলাকায় ফসল ও সম্পদের যে ক্ষতি হয়েছে, তা পূরণের সুযোগও অনেকে পায়নি। এরই মধ্যে বন্যা শুরু হওয়ায় সংকট আরও তীব্র হয়ে উঠতে পারে।

এদিকে, বর্তমানে ১৭টি জেলা বন্যাকবলিত হয়েছে। বন্যায় এ পর্যন্ত ১৪ লাখ ৫৭ হাজার ৮২৭ জন মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী। বন্যাকবলিত জেলাগুলো হচ্ছে রংপুর, নীলফামারী, লালমনিরহাট, মানিকগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, সিলেট, বগুড়া, মাদারীপুর, সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইল, কুড়িগ্রাম, জামালপুর, গাইবান্ধা, ফরিদপুর, রাজবাড়ী, মুন্সীগঞ্জ ও নেত্রকোনা।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান। তিনি বলেন, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের তথ্য অনুযায়ী বন্যা ২৩ জেলায় বিস্তৃতি লাভ করবে এবং তা আগস্টের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত থাকবে বলে জানান তিনি।

ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী জানিয়েছেন, দেশের ১৫ জেলায় চলমান বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলা ও জরুরি মানবিক সহায়তা কার্যক্রম তদারকিতে অতিরিক্ত সচিব ও যুগ্মসচিব পদমর্যাদার ১০ জন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এসব জেলায় নতুন করে আরও ৬০ লাখ টাকা ছাড় করা হয়েছে। এ অর্থ দিয়ে রান্না করা খাবার ও রুটি তৈরি করে বন্যার্ত মানুষের মধ্যে বিতরণ করতে বলা হয়েছে। এসব জেলা প্রশাসনকে সার্বক্ষণিক সতর্কাবস্থায় রাখা হয়েছে।

এই সংবাদটি 39 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com