আসামে বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে ৬১৪টি মাদরাসা

প্রকাশিত: ৯:৩৯ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৭, ২০২০

আসামে বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে ৬১৪টি মাদরাসা

ডেস্ক রিপোর্ট :

দিন কয়েক আগে আসামের শিলচরে বেশ কয়েকটি মুসলিম সংগঠনের প্রতিনিধিদের শিক্ষামন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা জানিয়েছিলেন, আসাম সরকার পরিচালিত মাদরাসাগুলো নভেম্বর থেকে বন্ধ করে দেয়া হবে বলে তিনি যে ঘোষণা দিয়েছিলেন তা কার্যকর করার আগে আলোচনা করা হবে। হিমন্তের সেদিনের বক্তব্য যে কেবল ‘কথার কথা’ ছিল, তার প্রমাণ এখন পাওয়া যাচ্ছে। সরকারি মাদরাসাগুলো বন্ধ করার সিদ্ধান্ত থেকে যে আসামের বিজেপি সরকার নড়ছে না তা একপ্রকার নিশ্চিত। ইতোমধ্যে সরকারি মাদরাসা বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু করে দিয়েছে আসামের শিক্ষা দফতর। শিক্ষামন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মা ফের বলেছেন, সরকারি খরচে ধর্মীয় শিক্ষানীতি কোনো মতেই মেনে নেবে না রাজ্য সরকার। শিগগিরই বন্ধ হতে চলেছে সরকারি মাদরাসাগুলো। কলকাতার দৈনিক পূবের কলম পত্রিকার এক রিপোর্টে এ তথ্য জানানো হয়েছে।
গুয়াহাটিতে সংবাদ সম্মেলনে হিমন্ত স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিয়েছেন, ধর্মীয় শিক্ষায় অর্থ খরচ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আসাম সরকার। নভেম্বরেই মাদরাসা বন্ধের নোটিশ রাজ্য শিক্ষা বিভাগ প্রকাশ করবে বলেও হিমন্ত এ দিন পুনরায় জানিয়ে দিয়েছেন। হিমন্ত বিশ্ব শর্মার স্পষ্ট বক্তব্য, বিধানসভায় আমরা যা বলেছিলাম, সেটাই পালন করব। তবে বেসরকারি মাদরাসাগুলোতে সরকার নাক গলাবে না। কেননা সরকারের অর্থ ব্যয় না হলে, যে যা খুশি করুক, সেখানে সরকারের কিছুই বলার নেই। তবে সরকারি খরচে কোনো ধর্মের শিক্ষা দেয়া যাতে না হয়, সেদিকটা আমরা গুরুত্ব দিয়ে দেখব।
বিষয়টি এখন আর অবশ্য মন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মার মুখের কথার মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। সরকারি এক চিঠিতেই স্পষ্ট করে দেয়া হয়েছে, মাদরাসা বন্ধ করার বিষয়টি চূড়ান্ত করে ফেলেছে আসাম সরকারের শিক্ষা বিভাগ। ৭ অক্টোবর বুধবার রাজ্যের মধ্যশিক্ষা বিভাগের ডিরেক্টরের কাছে চিঠি দিয়ে ওই বিভাগের ডেপুটি সেক্রেটারি এস এন দাস জানিয়েছেন, রাজ্যের সব সরকারি মাদরাসা বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এর পরিপ্রেক্ষিতে ১৪৮ জন চুক্তিভিত্তিক মাদরাসা শিক্ষককে মধ্যশিক্ষার আওতাধীন সাধারণ স্কুলগুলোতে বদলি করা হবে।
ঘটনা হলোÑ শিক্ষামন্ত্রী মুখে বলছেন, আগামী নভেম্বর মাসে সরকারি মাদরাসা বন্ধের নোটিশ জারি করা হবে। অথচ শিক্ষা বিভাগের চিঠিতেই প্রমাণিত নোটিশের আগেই যাবতীয় প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেছে। এই চিঠির কথা প্রকাশ হতেই তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বরাক উপত্যকার বিশিষ্ট আলেমরা। গত ২৬ সেপ্টেম্বর শিক্ষামন্ত্রী তাদের আশ্বাস দিয়েছিলেন, ইসলামী পণ্ডিতদের সাথে আলোচনা করেই মাদরাসা বন্ধের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করা হবে।
নদওয়াতুত তামিরের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান মাজার ভুঁইয়া বলেন, সরকার বলছে সরকারি খরচে কোনো ধর্মশিক্ষা হবে না। সরকার কি জানে না মাদরাসাগুলোর সিলেবাসে কী আছে? ভাষা, বিজ্ঞান, অঙ্ক, ইতিহাস, ভূগোল প্রভৃতি সাধারণ বিষয়গুলো যেমন মাদরাসায় পড়ানো হয় তার পাশাপাশি অতিরিক্ত যে বিষয়টি রয়েছে, তা হলো আরবি ভাষাশিক্ষা। আরবি ভাষার সাথে ধর্ম শিক্ষাকে মিলিয়ে দেয়া হচ্ছে কেন? বরং আরবি জানলে স্বদেশে এবং বিদেশের বহু জায়গাতেই চাকরির সুবিধা পাওয়া যায়। আসামের বিশিষ্ট আইনজীবী ও রাজনীতিবিদ হাফিজ রশিদ আহমেদ চৌধুরী বলেন, সরকার অর্থ খরচ করে কোনো মাদরাসা গড়ে তোলেনি। প্রত্যেকটি মাদরাসা নির্মিত হয়েছে মুসলিমদের দানের অর্থে। পরে সরকার সেগুলোকে অধিগ্রহণ করে পরিচালনা করেছে মাত্র। সুতরাং মাদরাসাগুলো বন্ধ করার কোনো অধিকার রাজ্যসরকারের নেই। নোটিফিকেশন জারি হলে আমরা অবশ্যই আদালতে যাবো। এই মাদরাসাগুলো প্রত্যন্ত অঞ্চলেও শিক্ষার উন্নতি এবং স্বাক্ষরতার প্রসারে যে বড় ভূমিকা পালন করে, তা সরকারি ও বেসরকারি মহলে অনেকেই স্বীকার করেছেন।
উল্লেখ্য, আসামে ৬১৪টি সরকারি মাদরাসা রয়েছে যার বেশির ভাগই মাধ্যমিক স্কুল পর্যায়ের শিক্ষা দিয়ে থাকে। এই মাদরাসাগুলোতে হাজার হাজার ছাত্রছাত্রী পড়াশোনা করে এবং শিক্ষক-অশিক্ষক মিলিয়ে মাদরাসাগুলোতে বহু স্টাফ যুক্ত রয়েছেন। এসব মাদরাসায় মুসলিমের পাশাপাশি অমুসলিম ছাত্রছাত্রীও রয়েছে।– নয়াদিগন্ত

এই সংবাদটি 507 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com