পাঠাগার : জ্ঞানার্জনের শব্দহীন বিশ্বস্ত ঠিকানা

প্রকাশিত: ১:৩৮ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৭, ২০২১

পাঠাগার : জ্ঞানার্জনের শব্দহীন বিশ্বস্ত ঠিকানা

শাহিদ হাতিমী

পাঠাগার বা গ্রন্থাগার জ্ঞানের একটি বাগান! যেথায় ইতিহাস-ঐতিহ্য, অতীত, বর্তমান ও আগামীর পাথেয় বিদ্যমান। যেখানে নিরবে মিছিল হয় গুণিজনের। যেখানে সমাবেশ ঘটে শব্দহীন জ্ঞানের। দেশের সমৃদ্ধি, জাতির উন্নতি আর সমাজের অগ্রগতির জন্য পাঠাগার একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে মানুষের জ্ঞান যেখানে সারিবদ্ধভাবে জমা হয়ে থাকে সেটা পাঠাগার। পাঠাগারের বইয়ের পাতায় থাকে জ্ঞানের সমীরণ। মুলত প্রকাশিত বইয়ের বসবাসের ঠিকানা হচ্ছে পাঠাগার। পাঠাগার শব্দ এবং বিষয়ের সাথে যেমন জ্ঞানের সম্পর্ক ঠিক তেমনি বইয়েরও সম্পর্ক। বইয়ের বিকাশ না হলে পাঠাগারের চিন্তা বাস্তব হতো না! বই হলো জ্ঞানের ভান্ডার। আর সেই বইয়ের আবাসস্থল হলো পাঠাগার। আমাদের দেশে পাঠাগারের প্রয়োজনীয়তা দিনদিন বেড়েই চলেছে। মানুষ সময়ের পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে উপলব্ধি করতে পারছে শুধু বেঁচে থাকার জন্য খাদ্য নয়, মনের জন্যও খাদ্য প্রয়োজন। পাঠাগার মানুষের ক্লান্ত ও বুভুক্ষু মনকে প্রফুলস্ন করতে পারে। পছন্দমতো জিনিসের সন্ধান দিয়ে তার মনের খোরাক জোগাতে সাহায্য করে। অর্থাৎ মানুষের বই পড়ার আগ্রহ থেকেই পাঠাগারের সৃষ্টি।

পাঠাগার বা গ্রন্থাগার একটি সন্ধিযুক্ত শব্দ। শব্দটির সন্ধিবিচ্ছেদ করলে হয় পাঠ+আগার। পাঠ মানে পড়া আর আগার মানে স্থান অথবা জায়গা। অর্থাৎ পাঠাগার হলো পাঠ করার উপাদান সজ্জিত আগার বা স্থান। বিশদভাবে বলা যায় পাঠাগার হলো বই, পুস্তিকা ও অন্যান্য তথ্য সামগ্রীর একটি সংগ্রহশালা, যেখানে পাঠকের প্রবেশাধিকার থাকে এবং পাঠক সেখানে পড়াশোনা, গবেষণা ও তথ্যানুসন্ধ্যান করে বৈশ্বিক জ্ঞান অর্জন করতে পারে। প্রতিটা সমাজ ও ধর্মে যেভাবে উপাসনালয়, মসজিদ, মাদরাসা, মন্দির, গীর্জা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল দরকার সেভাবে পাঠাগারেরও দরকার। পাঠাগার মানুষের বয়স, রুচি ও চাহিদা অনুযায়ী বই সরবরাহ করে থাকে। আর তাই সচেতন মানুষ মাত্রই পাঠাগারের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন। পৃথিবীর যত শ্রেষ্ঠ মনীষী আছেন তাঁদের সবাই জীবনের একটা বড় সময় পাঠাগারে কাটিয়েছেন। সাহিত্য, শিল্প, বিজ্ঞান, সংস্কৃতিসহ সবধরণের জ্ঞানের আধার হতে পারে একটি পাঠাগার। পাঠাগার একটি জাতির বিকাশ ও উন্নতির মানদণ্ড হিসেবে বিবেচিত হয়। বই পড়ার অভ্যাস গড়ে তোলা ছাড়া জাতীয় চেতনার জাগরণ হয় না। পৃথিবীর বহুদেশ পাঠকের চাহিদা পূরণের জন্য গড়ে তুলা হয়েছে অগণিত পাঠাগার।

পাঠাগারের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে বিচারপতি হাবিবুর রহমান বলেছেন, পাঠাগারের মাধ্যমে মানুষের মধ্যে গড়ে ওঠে সংহতি যা দেশ গড়া কিংবা রক্ষার কাজে অমূল্য অবদান রাখে। কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর লাইব্রেরি প্রবন্ধে পাঠাগার সম্পর্কে লিখেছেন, ‘কত নদী সমুদ্র পর্বত উল্লঙ্ঘন করিয়া মানবের কণ্ঠ এখানে আসিয়া পৌঁছিয়াছে কত শত বৎসরের প্রান্ত হইতে এই স্বর আসিতেছে।’ অর্থাৎ লাইব্রেরিতেই মানব হৃদয়ে উত্থান-পতনের শব্দ বা মিছিল শোনা যায়। প্রমথ চৌধুরীর মতে- ‘লাইব্রেরি হচ্ছে এক ধরনের মনের হাসপাতাল।’ ছাত্রসমাজের মানসিক চিকিৎসা বা প্রশান্তির জন্য পাঠাগার অপরিহার্য। পাঠাগার শুধু ভালো ছাত্র নয়, ভালো মানুষও হতে শেখায়। বিশ্ববিখ্যাত তথ্য ভান্ডার ডরশরঢ়বফরধ পাঠাগারকে সংজ্ঞায়িত করেছে-
A library is a collection of sources of information and similar resources, made accessible to a defined community for reference or borrowing. It provides physical or digital access to material, and may be a physical building or room, or a virtual space, or both.
অর্থাৎ- গ্রন্থাগার হলো জ্ঞানের এমন এক সমুদ্র, যেখানে বিচরণ করে প্রতিটি মানুষ উন্নত মননের অধিকারী হতে পারে। আর তাই গ্রন্থাগারকে তুলনা করা হয় শব্দহীন মহাসমুদ্রের সাথে। এটি অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যতের মাঝে সেতুবন্ধনের এক নীরব সাক্ষী।
পৃথিবীর সর্ববৃহৎ গ্রন্থাগার আমেরিকার ওয়াশিংটন ডিসিতে অবস্থিত ‘লাইব্রেরি অব কংগ্রেস’ -এ রয়েছে ৩ কোটি ২০ লাখ বইয়ের বিশাল সংগ্রহ। লন্ডনের ব্রিটিশ মিউজিয়াম লাইব্রেরিও একটি পৃথিবী বিখ্যাত লাইব্রেরি। ‘বডিলন লাইব্রেরি’তে রয়েছে ১ কোটির বেশি সংগ্রহ। এছাড়াও ফ্রান্সের বিবলিথিক ন্যাশনালি লাইব্রেরি, মস্কোর লেলিন লাইব্রেরি, ভারতের দেওবন্দ মাদরাসার কুতুবখানা, কলকাতার ন্যাশনাল লাইব্রেরি উল্লেখযোগ্য। মিশরের আলেকজান্দ্রিয়া লাইব্রেরিও পৃথিবীর প্রাচীন লাইব্রেরির মধ্যে অন্যতম। যা একসময় পৃথিরীর সপ্তাশ্চর্যের মধ্যেও ছিল। আলমারি, সোকেস, থাড়িয়া, রেক ও বুক সেলফের কাঠামোতে পাঠাগারের ক্রমবিকাশ বহুকাল আগে থেকে শুরু হলেও একালে পাঠাগারে আধুনিকায়ন এসেছে। বর্তমানে বা আধুনিক এ যুগে আর আদিকালের ওসব লাগে না। অনলাইনেও সংগ্রহশালা মানে পাঠাগার করা যায়। কেননা বর্তমান যুগ, ডিজিটাল, ভার্চুয়াল এবং কম্পিউটারের যুগ। এ যোগে কম্পিউটারে বা মোবাইল এ্যাপসেও পাঠাগারের ব্যবস্থা করা যায়। উন্নত বিশ্বের ন্যায় আমাদের দেশও ডিজিটাল বা ভার্চুয়াল লাইব্রেরির যুগে প্রবেশ করছে। যদিও সুদক্ষ ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত লাইব্রেরিয়ানের অভাবে সঠিকভাবে সর্বত্র সেবাদানের সুযোগ হচ্ছে না, তথাপি আমাদেরকে আধুনিক বা অনলাইন পদ্ধতির দিকে এগুতে হবে। অচিরেই অনলাইন গণমাধ্যমের মতো অনলাইন লাইব্রেরি বা পাঠাগার একটি বাস্তব পদক্ষেপে উপনিত হবে।

ডিজিটাল বা অনলাইন লাইব্রেরি বলতে বোঝায় ইলেকট্রনিক মাধ্যমে একত্রে সংগঠিত ইন্টারনেট ও সিডি-রম ডিস্কের সহায়তায় সহজলভ্য উপকরণসমূহের সমষ্টি। অর্থাৎ ইন্টারনেটের মাধ্যমে তথ্যের উৎসসমূহে প্রবেশ ডিজিটাল লাইব্রেরির মূল উপাদান। এ প্রসঙ্গে বিশ্ব তথ্যকোষ ডরশরঢ়বফরধ (উইকিপিডিয়া ওয়েবসাইট) বলছে- A digital library is a special library with a collection of digital objects that can include text, audio material, visual material stored as electronic media formats (as opposed to print or other media)
ডিজিটাল লাইব্রেরি ব্যবহারের মধ্য দিয়ে পাঠক অনলাইনের মাধ্যমে বই ও জার্নাল সমূহে প্রবেশ ও সাবস্ক্রিপশন করতে পারে, ওয়েব সাইট এবং ডাটাবেইস হ্যান্ডলিং করতে পারে। প্রচলিত লাইব্রেরির তুলনায় ডিজিটাল লাইব্রেরিতে ইন্টারনেট সার্ভিসে খরচ তুলনামূলকভাবে অনেক কম হয়! তাই লাইব্রেরি বা সংগ্রহশালা বৃদ্ধি করা সহজ। লাইব্রেরি ক্যাটালগসমূহ অনলাইনে অনুসন্ধান করা যায়। ইন্টারনেটের মাধ্যমে রিসোর্স শেয়ার করা যায়। মোবাইল নির্ভর এ প্রজন্মকে জ্ঞান-বিজ্ঞানে এগিয়ে নিয়ে যেতে হলে অনলাইন পাঠাগার উপহার দিতে হবে।

লেখক : বার্তা সম্পাদক, সিলেট রিপোর্ট ডটকম
সদস্য, সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাব
মোবাইল- ০১৭২৭৫৮০৬৪৯
ই-মেইল : shahedhatimi@gmail.com

এই সংবাদটি 138 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com