একজন পীরজাদা যখন বিধায়ক

প্রকাশিত: ৯:৩৫ অপরাহ্ণ, মে ৮, ২০২১

একজন পীরজাদা যখন বিধায়ক

মাওলানা সৈয়দ শামছুল হুদা:

ভারতে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হওয়া পাঁচটি বিধান সভা নির্বাচনে মোট ১১২জন মুসলিম এমএলএ নির্বাচিত হয়েছেন। তার মধ্যে পশ্চিমবঙ্গে ৪২জন। আসামে ৩২জন।কেরালায় ৩২জন। তামিলনাড়ুতে ৫জন। পদুচেরিতে ১জন। যদিও ভারতের এসব রাজ্যে মুসলমানদের আনুপাতিক হার হিসেবে সংখ্যাটা কম, তদুপরি, ৫রাজ্যে ১১২জন মুসলিম এমএলএ একেবারেই কম নয়। গোটা ভারতে গড় পড়তায় প্রায় ১৫% এর ওপরে মুসলিম রয়েছে। স্বাধীনতার ৭৪বছর পরও ভারতীয় মুসলিমরা নিজেদের মাজা শক্ত করে দাঁড়াতে পারেননি। ৪৭এর ভয়াবহ দাগ তাদের ওপরে চেপে বসে আছে। বাংলাদেশে যেভাবে জামায়াতে ইসলামীকে ৭১এর দায় এমনভাবে চেপে রেখেছে, যে কারণে যথেষ্ট শক্তি অর্জন করা সত্ত্বেও তারা মুলধারায় ফিরতে কষ্ট হচ্ছে। এমনিভাবে ভারতীয় মুসলমানরা যে একেবারে দুর্বল অবস্থায় বিষয়টি তেমনও নয়। কিন্তু সেই ৪৭এর দেশবিভাগের দায় মুসলমানদের ঘাড়ে চাপিয়ে রেখেছে। যদিও দেশভাগের জন্য মুসলমানদের চেয়ে তৎকালীন কংগ্রেস এর নিন্দনীয় ভূমিকাই বেশি দায়ী।

আশার বিষয় হচ্ছে, ভারতীয় হিন্দুত্ববাদ যখন মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে, তখন মুসলমানদের মধ্যেও আত্মনিয়ন্ত্রনের মনোভাব ধীরে ধীরে জাগতে বাধ্য হচ্ছে। আর এ সব কারণেই হায়দারাবাদের মীম এর সুপ্রিমো আসাদউদ্দীন ওয়াইসি, আসামের বদরুদ্দিন আজমল প্রমুখ মুসলমানদের মনে যথেষ্ট সাহসের সঞ্চার করতে পারছে। এবারের পশ্চিমবঙ্গ বিধান সভার নির্বাচনে ইন্ডিয়ান সেক্যুলার ফ্রন্ট তথা আইএসএফ নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় তুমুল ঝড় তুলতে পারলেও ফলাফলে এর তেমন কোন প্রভাব সৃষ্টি করতে পারেননি। যদিও গড় ভোট প্রাপ্তি একেবারে খারাপ ছিল না। তিন মাসের একটি দল হয়েও তারা একটি বিধান সভায় নির্বাচিত হয়েছে। ৪টি বিধান সভায় দ্বিতীয় হয়েছে। তার মানে অল্প কয়েকটি আসনে প্রার্থী দিয়ে তারা প্রতিদ্বন্ধিতা করেই হেরেছে।

আজকে আমার আলোচনার বিষয় হলো, একজন পীরজাদাকে বিধায়ক হিসেবে দেখে কেমন বোধ করছি সেটা শেয়ার করা। নির্বাচনের পর দেখতে পাচ্ছি, ফুরফুরা দরবার শরীফের অনেক পীরজাদা আলীশান গদিতে বসে, অসংখ্য ক্যামেরার সামনে আব্বাস সিদ্দীকিকে তুলোধুনো করতে গিয়ে এমন সব কথা বলছেন যেগুলো উনাদের অবস্থানকেই প্রশ্নবিদ্ধ করে। ক্ষমতাসীন সরকারের সুদৃষ্টি লাভের আশায়, নিজেদের আস্তানার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার নেশায়, তারা যা বলছেন তা ইসলামের মৌলিক চেতনাকেই অস্বীকারের নামান্তর। একজন পীরজাদা বলছেন, ফুরফুরা শরীফের দাদা ‍হুজুর কোন রাজনীতি করেন নাই। তাহলে আমার জিজ্ঞাসা, রাজনীতি না করে উনি স্বাধীনতা সংগ্রামী কী করে হলেন? ইসলাম নাকি এ ধরনের কোন রাজনীতিকে সমর্থন করে না। আব্বাস সিদ্দিকী ভন্ড। ইসলামের অপব্যাখ্যা করে মানুষকে বিভ্রান্ত করছে, ধোকা দিচ্ছে। আব্বাস সিদ্দিকীর দুর্ভাগ্য হলো, তার ঘরে-বাইরে শত্রু। চাচা ত্বহা সিদ্দিকী নিজে তৃণমূলের সাথে মিশে নানা সুযোগ-সুবিধা হাতিয়ে নিচ্ছেন। অপরদিকে ভাতিজা আব্বাস সিদ্দিকীকে গালিগালাজ করে তৃণমূলকে খুশি করার চেষ্টা করছেন।

এ প্রসঙ্গে যে কথাটি স্মরণ করিয়ে দিতে চাই সেটা হলো, নির্বাচনী প্রচারণায় গিয়ে আব্বাস সিদ্দিকী ভাঙ্গড়ের এক জনসভায় তার ছোটভাই নওশাদ সিদ্দিকীকে সামনে রেখে বলেছিলেন, “আমার এই ছোট ভাইটি যখন লেখাপড়া করার কথা, যখন তার হাসিমুখে খেলাধুলা করার কথা, তখন আপনাদের অধিকার আদায়ের প্রশ্নে আজ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে গ্রামের পর গ্রাম চষে বেড়াচ্ছে। আমাদের কী অভাব ছিল, ঘরে বসে থাকলে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ আমাদেরকে দেখে সালাম করতো, হাদিয়া দিতো, আজ আমার এই ছোট্ট ভাইটিকে দেশের মানুষের নিরাপত্তা ও উন্নয়নের স্বার্থে ঘরে ঘরে গিয়ে তাকে সালাম করতে হচ্ছে।”

মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য লড়তে গিয়ে নওশাদ সিদ্দিকীকে মার খেতে হয়েছে। তার কর্মীদেরকে প্রচন্ড আঘাত করেছিল নির্বাচনের আগেই। তার প্রতিবাদে হাজার হাজার তরুন থানা ঘেরাও করে পুলিশের গাড়ির সামনে শুয়ে পড়েছিল। নওশাদ সিদ্দীকি নিজেও রক্তাক্ত হয়েছিল। এত কিছুর কী দরকার ছিল? আমাদের দেশে এক শ্রেণির মানুষ হুজুরদেরকে সালাম করে, সম্মান করে, কিন্তু সামাজিক কোন কাজে নেতৃত্ব দিতে চায় না। এটা কোনভাবেই পছন্দ করে না। সামাজিক নেতা তারাই থাকবেন। হুজুরদের আবার নেতৃত্ব কিসের? এমনিভাবে মসজিদের কোন ইমাম, খতীব যদি ব্যবসা-বাণিজ্য করে নিজের পায়ে দাঁড়াতে চায়, তখন বলে, আরে- হুজুর মানুষের এগুলো মানায় নাকি? এগুলো বলে গোটা আলেম সমাজকে আর্থিকভাবে পরনির্ভরশীল করে পঙ্গু করে রেখেছে। আর এ কারণেই দেশের হুজুররা যখন একটি হরতাল করলো, মোদি সরকারের আগমনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে রাস্তায় নামলো, তখন সব হুজুরদেরকে একেবারে আর্থিকভাবে বন্দি করে ফেলেছে। মসজিদে কথা বলা বন্ধ, মাদ্রাসায় তালা। এবার বুঝ, মধুমাখা ঐ পীরিতির জ্বালা।

আমি মনে করি, ফুরফুরা শরীফের যে সকল পীরজাদারা রয়েছে, যারা তেলতেলে শরীর নিয়ে এখন নওশাদ সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে মুখ খুলছে, রাজনীতিতে জড়ানোর বিরুদ্ধে কথা বলছে, তারা আজকের বাংলাদেশের আলেম সমাজের মতোই আর্থিকভাবে পরনির্ভরশীল অধিকারহারা একজাতি। আজ গোটা ভারতের মানুষ একজন নওশাদ সিদ্দিকীকে চিনে। কিন্তু বাকী যারা আছে তাদের কজন পীরজাদাকে মানুষ চিনে? ভালো মানুষগুলোর পক্ষে সমাজের অন্যায় রুখে দাঁড়াতে না আসার কারণে আজ সমাজ কোথায় গিয়ে দাঁড়িয়েছে তা কি একবার ভেবে দেখেছেন?
রাজনীতিটা বড় ঝুঁকিপূর্ণ জায়গা। কিন্তু এখানে সম্মানও আছে। ২৯৪টি আসনের বিধান সভায় একজন হালকাপাতলা নওশাদ সিদ্দিকী অনেক সম্মানের, অনেক মর্যাদার।

একজন ত্বহা সিদ্দিকীর চেয়ে একজন নওশাদ সিদ্দিকী অনেক শক্তিশালী। কারণ নওশাদ সিদ্দিকী জনগণের অধিকার আদায়ের জন্য জীবনের ঝুঁকি নিয়েছেন। নিপীড়িত হয়েছেন। তারপরও দেখা যাবে, তার জন্য লাখ লাখ তরুন জীবন দিতে প্রস্তুত হয়ে যাবে। রাজনৈতিক কর্তৃৃত্ব ছাড়া কোনভাবেই মুসলমানরা ঘুরে দাঁড়াতে পারবে না। ক্যানিং এর বিধায়ক শওকত মোল্লার মতো হাজারটা মুসলিম এমএলএ দিয়েও ইসলামের কোন লাভ নেই। সে সন্ত্রাসের এক প্রতীকে পরিণত হয়েছে। এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে সাময়িক স্বার্থ লুটতে পারলেও মুসলমানদের স্বার্থে কিছুই করতে পারবে না। বাংলাদেশেওতো সবাই মুসলমান। কিন্তু ভালো মানুষগুলো রাজনীতি থেকে মুখ ফিরিয়ে নেওয়ায় এখন সমাজের সর্বত্র খারাপ লোকদের দৌড়াত্ম বেড়ে গেছে।

আরামের গদি ছেড়ে মানুষের পক্ষে কথা বলার জন্য একজন পীরজাদার এই দুঃসাহসী অভিযানকে আমি স্বাগত জানাই। বাংলাদেশের আলেম সমাজের মধ্যেও যাদের যোগ্যতা আছে, পারিবারিক ঐতিহ্য আছে, সামর্থ আছে, তাদের উচিত পরনির্ভরশীল জীবন-জীবিকার ওপর সন্তুষ্ট না থেকে গণমানুষের অধিকার আদায় করতে সামগ্রীক রাজনীতিতে নেমে আসা। মৌসুমি রাজনীতি নয়। হুঙ্কার দিয়ে দরসে গিয়ে চুপচাপ বসে থাকা নয়। বরং আমৃত্যু কিছু আলেম এমন থাকা দরকার যারা জনগণের পক্ষে কথা বলতে বলতে প্রয়োজনে জীবন দিয়ে দিবে। এমন দুয়েকটি ঘটনা ঘটাতে পারলে সাধারণ মানুষ এমনিতেই আলেমদের কাছে এসে পদচুম্বন করবে। যেটা হবে মর্যাদাকর, অনেক বেশি সম্মানের। এতে কোন গ্লানি নেই। পরনির্ভরীলতা নেই। লজ্জা নেই।

এখন ওয়াজ মাহফিলে বড় বড় মুরগির রান যেগুলো খাওয়ায় এটা মর্যাদার খাবার নয়। অন্যের দয়ার ওপরে ইমাম ও খতীবগণ যেভাবে পরনির্ভরশীল আয়ের ওপর আয়েশী জীবন যাপন করেন এটাই চূড়ান্ত মর্যাদা নয়। কিছু আলেম এমন থাকা উচিত যাদেরকে রাষ্ট্র হিসেব করতে বাধ্য হবে। দ্বীনি অঙ্গনে আলেমদের যথেষ্ট আনাগোনা আছে। এবার রাজনীতির ময়দানেও প্রতিপত্তি প্রতিষ্ঠা দরকার।

আফসোস হয়, দেশটি স্বাধীন হয়েছে ৫০টি বছর পার হয়ে গেলো। অথচ বাংলাদেশে এমন একজন আলেম নাই, যার অধীনে ৫০০মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে। কোন আলেম হাসপাতাল করেছেন, মেডিকেল কলেজ করেছেন, বিশ্ববিদ্যালয় করেছেন। অথচ পরাধীন দেশ আসামে একজন দেওবন্দি মাওলানা বদরুদ্দিন আজমল এমন একটি বিশ্ববিদ্যালয় করতে যাচ্ছেন, আজমল বিশ্ববিদ্যালয়, যার অধীনে শুধু স্টাফই থাকবে ৫হজার। আমরা মাওলানা মামুনুল হক এর একাউন্টে ৬কোটি টাকার লেনদেন শুনে ঘাবড়ে যাই। অথচ একজন দেওবন্দী আলেম মাওলানা আজমলদের হাজার হাজার কোটি টাকার ব্যবসা। কেন বাংলাদেশে এমন একজন আলেম তৈরি হলো না, যার কাছে হাজার কোটি টাকা থাকবে। যার অধীনে হাজার হাজার মানুষ খেটে খাবে।

বাংলাদেশের সকল আলেমদেরকে মসজিদ মাদ্রাসায় ঢুকিয়ে দিয়ে এখন সব তালা মেরে দিয়েছে। কোরবানির চামড়া থেকে শত শত কোটি টাকা মাদ্রাসার ফান্ডে আসতো। ৩হাজার টাকার চামড়া এখন ৩০/-টাকায় নামিয়ে এনেছে। এর একমাত্র কারণ মাঝে মাঝে হুজুররা যে একটু নড়েচড়ে বসে তা বন্ধ করা। এজন্য ভাতে মারার এই ব্যবস্থা। মাহে রমযানে মাদ্রাসার ভিক্ষা ভালো হয়। এটা বন্ধ করার জন্য চূড়ান্ত আয়োজন করা হয়েছে। এবার রমযানের পর মাদ্রাসাগুলো না খুলতে পারলে হাজার হাজার আলেম চরম বেকায়দায় পড়ে যাবেন। অসংখ্য মাদ্রাসা ঋনে জর্জড়িত হয়ে পড়বে।

আমি একজন পীরজাদা, যে নিজের সকল আরাম আয়েশ ত্যাগ করে রাজনীতিতে পা রেখেছে, সেটাকে প্রচন্ডভাবে সাধুবাদ জানাই। এর মাধ্যমে শুধু পশ্চিমবঙ্গের আলেম সমাজেরই নয়, সাধারণ মানুষের মুখও উজ্জল হবে। যদিও অনেকেই এটাকে বাঁকা চোখে দেখছে। যেমনটা আমরা বাংলাদেশে দেখি। কোন আলেম রাজনীতিতে এগিয়ে গেলে তাকে কীভাবে পেছন থেকে টেনে হিচড়ে পেছনে নিয়ে আসা যায় তার চেষ্টার কোন কমতি নেই। পেছন থেকে লাথি মারার বহুত লোক আছে। কিন্তু এগিয়ে দেওয়ার কেউ নেই। আসুন, আমরা মানসিকতা চ্যাঞ্জ করি। যারা এগিয়ে যেতে চায়, তাদের সামান্য ত্রুটি-বিচ্যুতি থাকলেও তাদেরকে সমর্থন করি। তাদের সহযোগিতা করি।

কিছ ভা্ই আমার এ আলোচনায় ক্ষুদ্ধ হবেন। গণতন্ত্র হারাম, কুফরি তন্ত্রের প্রশংসা হিসেবে নিয়ে এটাকে তুলোধুনো করবেন। কিন্তু বর্তমান বিশ্বব্যবস্থার বাস্তবতায় এতটুকুও না করে ঘরে বসে থাকলে সমাজে খারাপ মানুষের প্রভাব-প্রতিপত্তি যেভাবে বাড়ছে, একসময় আলেম সমাজ নিজের ঘরেও নিরাপদে থাকতে পারবে না। আজ বাংলাদেশের সামাজিক কাটামোর দিকে একটু গভীরভাবে নজর দিন। তাহলেই দেখতে পাবেন যে, সামাজিক নেতৃত্ব থেকে দূরে থাকায় প্রতিটি গ্রামে এক একজন আলেম কতটা অসহায় জীবন-যাপন এখন করছেন। ভালো মানুষগুলোকে রাজনীতির কাঁদা গায়ে না লাগানোর কথা বলে তাদেরকে মসজিদ মাদ্রাসায় বন্দি করে, এখন সেখানেও অনিরাপদ করে দেওয়া হয়েছে।

তাই বলি, কিছু আলেম এমন থাকা উচিত, যারা ব্যবসা-বাণিজ্য, রাজনীতি, সমাজনীতি সব জায়গাতেই থাকবেন। সামাজিক বিচার আচারে উপস্থিত থাকবেন। সমাজের অন্যায় নিয়ে কথা বলবেন। মুখ বুঝে থাকলে, এসবকে ঝামেলা মনে করলে, তখন খোদ আলেমদের অস্তিত্বকেই ঝামেলায় ফেলে দিবে। আজ সেটাই চরম বাস্তবতা। সব জায়গাতেই আলেমগণ অনিরাপদ। অসহায়। এটা আমাদের প্রাপ্য। আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে সময় থাকতে সঠিকটা বুঝার তৌফিক দান করুন।

08.05.2021

এই সংবাদটি 123 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com