পাকিস্তানের বিমান বিধ্বস্ত, জুনায়েদ জামশেদ সহ সব যাত্রী নিহত

প্রকাশিত: ৯:০৭ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৭, ২০১৬

পাকিস্তানের বিমান বিধ্বস্ত, জুনায়েদ জামশেদ সহ সব যাত্রী নিহত

ডেস্ক রিপোর্ট: পাকিস্তান আন্তর্জাতিক এয়ারলাইন্সের(পিআইএ)-এর একটি যাত্রীবাহী বিমান ৪০ জনের বেশি আরোহী নিয়ে অ্যাবোটাবাদ এলাকায় বিধ্বস্ত হয়েছে।
ধারণা করা হচ্ছে, বিমানটিতে থাকা সব যাত্রী নিহত হয়েছেন। বিধ্বস্ত বিমানটিতে বিখ্যাত ইসলামি সঙ্গীত শিল্পী জুনায়েদ জামশেদও ছিলেন। তিনি দাওয়াত ও তাবলীগের কাজে সফরে যাচ্ছিলেন। জিও নিউজ জানিয়েছে, জুনায়েদ জামশেদের সঙ্গে তার স্ত্রী নেহা জুনায়েদও ছিলেন।
বুধবার স্থানীয় সময় দুপুর সাড়ে তিনটার দিকে পিকে-সিক্স সিক্স ওয়ান ফ্লাইটি দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। বিমানটি পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখা প্রদেশের চিত্রাল জেলা থেকে রাজধানী ইসলামাবাদের উদ্দেশে রওয়ানা হয়েছিল।
দেশটির বিমান কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, বিমানটিতে ৪৭ জন যাত্রী ছিলেন। কিন্তু চিত্রলের পিআইএ কর্মকর্তা সোহাইল আহমেদ বলেন, বিমানটিতে চারজন ক্রুসহ ৪১ জন যাত্রী ছিলেন।
চিত্রাল বিমানবন্দর সূত্র নিশ্চিত করেছেন, পাকিস্তানের প্রখ্যাত সূফি সংগীতশিল্পী ও ধর্মপ্রচাকারী জুনায়েদ জামশেদ এবং তার পরিবার, চিত্রালের উপ-কমিশনার ওসামা ওয়ারিচ ফ্লাইটটিতে ছিলেন। বিমানে ৩১ জন পুরুষ, ৯ জন নারী এবং ২ জন শিশু যাত্রী ছিলেন। তাদের মধ্যে কমপক্ষে তিনজন বিদেশি নাগরিক ছিলেন।
অ্যাবোটাবাদ জেলা পুলিশ কর্মকর্তা একজন প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে জানান, বিমানটি হ্যাভেলিয়েনে শহরের নিকটবর্তী গ্রাম পাতোলাতে বিধ্বস্ত হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী জানান, বিমানটি বিধ্বস্ত হয়ে একটি পাহাড়ের গায়ে আঁচড়ে পড়ে। সঙ্গে সঙ্গে বিমানটিতে আগুন ধরে যায়। বিমানের দেহাবশেষ পাহাড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়তে দেখা গেছে।
আন্তর্জাতিক বেসামরিক বিমান চলাচল পর্যবেক্ষণকারী সংস্থা অ্যাভিয়েশন হেরাল্ড জানায়, যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে পিকে-সিক্স সিক্স ওয়ান ফ্লাইটি অ্যাবোটাবাদের কাছে বিধ্বস্ত হয়েছে।
আনুমানিক দুপুর সাড়ে তিনটার দিকে চিত্রাল বিমানবন্দর ত্যাগ করে ফ্লাইটটি। বিকাল চারটা ৪০ মিনিটের দিকে ইসলামাবাদ বেনজির ভুট্টো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করার কথা ছিল।
গণমাধ্যম তথ্য বিভাগ জানায়, পাক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী চৌধুরী নিসার আলি খান সংশ্লিষ্ট রাষ্ট্রীয় বিভাগগুলোকে দ্রুত উদ্ধার অভিযান পরিচালনা এবং প্রাদেশিক সরকারকে সহযোগিতা করার নির্দেশ দিয়েছেন।
আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর(আইএসপিআর) জানায়, সেনাবাহিনীর একটি দল হেলিকপ্টার নিয়ে ঘটনাস্থলে রওয়ানা দিয়েছে।

পাকিস্তান আন্তর্জাতিক এয়ারলাইন্সের মুখপাত্র ড্যানিয়েল গিলানি এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘পিআইএ এটিআর-৪২ বিমানের পিকে-সিক্স সিক্স ওয়ান ফ্লাইটটি প্রায় ৪০ জন যাত্রী নিয়ে নিখোঁজ হয়েছে। চিত্রাল থেকে ইসলামাবাদের উদ্দেশে রওয়ানা হওয়ার একটু পরই নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় বিমানটির।’  বিধ্বস্ত বিমানটিতে বিখ্যাত ইসলামি সঙ্গীত শিল্পী জুনায়েদ জামশেদও ছিলেন। তিনি দাওয়াত ও তাবলীগের কাজে সফরে যাচ্ছিলেন। জিও নিউজ জানিয়েছে, জুনায়েদ জামশেদের সঙ্গে তার স্ত্রী নেহা জুনায়েদও ছিলেন।

পরিচিতি:
জুনায়েদ জামশেদ (উর্দু: جنید جمشید) পাকিস্তানী রেকর্ডিং শিল্পী, টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব, ফ্যাশন ডিজাইনার, অনিয়মিত অভিনেতা, এবং গায়ক-গীতিকার। অতপর তিনি UET Lahore থেকে প্রকৌশলে স্নাতক ডিগ্রী নেয়ার পর, বাদ্যযন্ত্র কর্মজীবন উপর মনোযোগ নিবদ্ধের আগে জামশেদ সংক্ষিপ্তভাবে একটি বেসামরিক PAF ঠিকাদার প্রতিষঠানে ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কাজ করেন। ১৯৮৩ সালে রহাল হায়াত এর কাছ থেকে নির্দেশনা পাওয়ার আগে, তিনি বিভিন্ন স্থানীয় বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসগুলোতে অনুষ্ঠান করেন।[২] এক্ষেত্রে হায়াত ও নুসরাত হোসেন তাকে সাহায্যে করেন, জামশেদ ভাইটাল সাইন যোগ করেন এবং রেকর্ড নির্বাহী এবং প্রযোজক শোয়েব মনসুর তার পিটিভি সঙ্গীত স্টুডিও সঙ্গে একটি রেকর্ড চুক্তি স্বাক্ষর করেন।

জামশেদ প্রথম Vital Signs গায়ক ভোকালিস্ট হিসেবে দেশব্যাপী প্রাধান্য ও আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভ অ্যালবামটি ১৯৮৭ সালে বের হয়,ভাইটাল সাইন ১। তার অ্যালবাম দেশের সঙ্গীত চ্যানেল চার্টে শীর্ষস্থানে।[৩] এটি এক নম্বর একক অন্তর্ভুক্ত দিল দিল পাকিস্তান দিল দিল পাকিস্তান, এবং তুম মিল গায়ে তুম মিল গায়া। গুরুত্বপূর্ণ চিহ্ন ‘প্রথম অ্যালবাম বাণিজ্যিক সাফল্য পাকিস্তানের রক সঙ্গীত শিল্পে বিকাশে সাহায্য করে।

এই সংবাদটি 25 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com