অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমকে এগিয়ে নিতে প্রযুক্তিগত উন্নয়ন অনিবার্য : প্রফেসর ড. নজরুল

প্রকাশিত: ১০:৩২ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৯, ২০২১

অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমকে এগিয়ে নিতে প্রযুক্তিগত উন্নয়ন অনিবার্য : প্রফেসর ড. নজরুল

সিলেট রিপোর্ট: সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড. মো. নজরুল হক চৌধুরী বলেছেন, কোভিড পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের শিক্ষা কার্যক্রম অনেকটা ব্যাহত হলেও এর ইতিবাচক দিকও কম ছিল না। বাংলাদেশ প্রযুক্তি ক্ষেত্রে অগ্রসর থাকলে, আরো বেশি ফলাফল পাওয়া যেতো। যেখানে বহির্বিশ্বে অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চালু থাকলেও আমাদের দেশে পুরো কার্যক্রম বন্ধ ছিল। তবে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম এ ক্ষেত্রে আশানুরূপ ফলাফল অর্জন করেছে। প্রযুক্তিগত উন্নয়ন এখন সময়ের অনিবার্য দাবি।

পাণ্ডুলিপি প্রকাশন, সিলেট-এর আয়োজনে বিশ্বব্যাপী কোভিড পরিস্থিতিতে অনলাইন শিক্ষার অবদান’ শীর্ষক উন্মুক্ত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

পাণ্ডুলিপি প্রকাশন-এর স্বত্বাধিকারী লেখক, প্রকাশক ও সংগঠক বায়েজীদ মাহমুদ ফয়সলের সভাপতিত্বে বৃহস্পতিবার (২৮ অক্টোবর ২০২১) রাত আটটায় সিলেট নগরের ধোপাদিঘীর পূর্বপারস্থ পাণ্ডুলিপি মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সম্মানিত আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন- শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আশরাফুল ফেরদৌস চৌধুরী, সেলিনাস ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্সেস এন্ড লিটারেচার-এর সহযোগী অধ্যাপক ড. রেজাউল আবেদীন, এফসিএমএএন। আলোচনা সভাটি সঞ্চালনা কবি ও প্রাবন্ধিক মো. আব্দুল বাছিত।

প্রফেসর ড. মো. নজরুল হক চৌধুরী আরো বলেন, বিশ্বব্যাপী কোভিড পরিস্থিতি একটি মারাত্মক ও ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি করে। এ ভয়াবহ ভাইরাসে প্রাণ হারিয়েছে অর্ধকোটির মতো মানুষ। প্রতিটি ক্ষেত্রেই লেগেছে শক্তিশালী ধাক্কা। শিক্ষাক্ষেত্রেও এ ভয়াবহতা শিক্ষার পরিবেশকে বাধাগ্রস্ত করেছে। তবে অনলাইনের মাধ্যমে পরিচালিত শিক্ষা কার্যক্রম অনেকটা আশান্বিত করেছে। বাংলাদেশ তথ্য-প্রযুক্তির ক্ষেত্রে আরো এগিয়ে আসলে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম গতিশীল হবে।

আলোচকের বক্তব্যে সেলিনাস ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্সেস এন্ড লিটারেচার-এর সহযোগী অধ্যাপক ড. রেজাউল আবেদীন এফসিএমএএন বলেন, কোভিড পরিস্থিতি আমাদের স্বাভাবিক অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করে দিলেও আমাদের অনগ্রসরতাকে অনেকটা কাটিয়ে উঠতে পেরেছি। এর পেছনে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রভাবক হিসেবে কাজ করেছে। অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তাদের কার্যক্রমকে অব্যাহত রাখতে পেরেছে, যা অনেকটা ইতিবাচক ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে। প্রযুক্তিগত উন্নয়নে আমাদের ঐকান্তিকতা যেকোনো পরিস্থিতিতেও আশানুরূপ ফলাফল দেবে নিঃসন্দেহে।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আশরাফুল ফেরদৌস চৌধুরী বলেন, কোভিড পরিস্থিতিতে অনলাইন শিক্ষা একটি আশীর্বাদ হিসেবে বিবেচিত হয়েছে। যদিও বাংলাদেশে এর কার্যকারিতা আশানুরূপ নয়। প্রযুক্তিগত অনগ্রসরতা এ ক্ষেত্রে প্রধান বাধা হিসেবে। তবে এ অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমের কারণে কোভিড পরিস্থিতিতেও ইতিবাচক ভূমিকা রাখা সম্ভব হয়েছে। সরকারের আন্তরিকতাও এ ব্যাপারে যথেষ্ট প্রতিফলিত হয়েছে।

সভাপতির বক্তব্যে পাণ্ডুলিপি প্রকাশনের স্বত্বাধিকারী বায়েজীদ মাহমুদ ফয়সল বলেন, প্রত্যেকটি বিষয়ের ইতিবাচক ও নেতিবাচক দিক বিদ্যমান। আমাদের নানামুখী সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও শিক্ষাক্ষেত্রে অনলাইন কার্যক্রমের ভূমিকাকে ইতিবাচক হিসেবেই বিবেচনা করছি। আমাদের সরকার এ ব্যাপারে আরো আন্তরিক হলে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমও গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠবে। আমাদের সক্রিয় অংশগ্রহণও এখানে মুখ্য বিষয়-এটা বিবেচনায় রাখতে হবে।

এই সংবাদটি 122 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com