মোহনগঞ্জে যুব ও ছাত্র জমিয়তের স্বাধীনতা দিবসের কুইজ প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ সম্পন্ন

প্রকাশিত: ২:২১ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৮, ২০২২

মোহনগঞ্জে যুব ও ছাত্র জমিয়তের স্বাধীনতা দিবসের কুইজ প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ সম্পন্ন

 

মোহনগঞ্জ প্রতিনিধি:
স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে সাধারণ জ্ঞান কুইজ প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। পৌরশহরের শহীদ উসমান গণি ময়দানে এ কুইজ প্রতিযোগীতার বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হয়। উপজেলা যুব ও ছাত্র জমিয়ত এ প্রতিয়োগীতার আয়োজন করে। প্রতিযোগীতায় উপজেলার বিভিন্ন স্কুল-মাদ্রাসার দুই শতাধিক শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। দুই পর্বের এই প্রতিয়োগীতায় বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ৪০জন শিক্ষাথীকে বিজয়ী হিসেবে পুরষ্কার দেওয়া হয়।

২৭ মার্চ মোহনগঞ্জ পৌরসভার শহীদ উসমান গনী ময়দানের মুক্তিযোদ্ধা মুক্তমঞ্চে অনুষ্ঠিত এই অনুষ্টানে দুই পর্বে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা যুব জমিয়তের সভাপতি মাওলানা তোফায়েল আহমদ ও ছাত্র জমিয়তের সভাপতি জিহাদুল ইসলাম।

মোহনগঞ্জ উপজেলা যুব ও ছাত্র জমিয়ত কর্তৃক আয়োজিত জমিয়তের শতবর্ষে আমরা ও স্বাধীনতার ৫০ বছর (সুবর্ণজয়ন্তী) পূর্তি উপলক্ষে সাধারণ জ্ঞান কুইজ প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের যুগ্ম মহাসচিব, আরজাবাদ মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা বাহাউদ্দীন যাকারিয়া। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জমিয়তের যুগ্ম মহাসচিব আলহাজ্ব মাওলানা মুতিউর রহমান গাজীপুরী,জামিয়া কাসিমিয়া মোহনগঞ্জের মুহতামিম
মাওলানা মাহমুদুল হাসান। মুক্তিযুদ্ধে জমিয়ত-আলেম সমাজের ভূমিকা শীর্ষক প্রবন্ধ পাঠকরেন যুব জমিয়তের কেন্দ্রীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা রুহুল আমীন নগরী। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন নেত্রকোণা জেলা ছাত্র জমিয়তের সভাপতি মাওলানা রুহুল আমীন তালুকদার, জামিয়া আরজাবাদের শিক্ষক মাওলানা আমিনুল হক,মাদরাসা দারুল কুরআনের মুহতামিম মুফতি মাজহারুল হক কাসেমী, মাওলানা ইয়াসিন আহমদ, মাওলানা জামিল আহমদ সিলেটি,মাওলানা আব্দুল আলী, জামিয়া মাদানিয়া নওহালের নায়বে মুহতামিম
মুফতি আব্দুল আওয়াল, হাফেজ তালহা,মোহনগঞ্জ উপজেলা যুব জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক হাফেজ জাকির হোসাইন পাভেল,যুব জমিয়তের সহ-সভাপতি মাওলানা মোশারফ করিম, মোহনগঞ্জ উপজেলা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাও: শোয়াইব বিন মুজিব,উপজেলা যুব জমিয়তের অর্থ সম্পাদক মাওঃ সোলাইমান আল মাহদী, ছাত্র নেতা নাইমুর রহমান, মোহনগঞ্জ উপজেলা ছাত্র জমিয়তের সভাপতি জিহাদ হাসান ছাত্র জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মুক্তাদীর,যুব জমিয়তের সাংগঠনিক সম্পাদক মাওঃ হুসাইন আহমদ ইমন,যুব জমিয়তের প্রচার সম্পাদক হুসাইন আহমদ ফজলে রাব্বি ,যুব জমিয়তের সদস্য ইয়াসির আরাফাত, ছাত্র জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক হাফেজ আব্দুল মুক্তাদীর,হাফেজ আলি হামযা,মাওলানা জুবায়ের আহমদ, মাওলানা ফয়জুল্লাহ (আদিব),মাওরানা শূর মাহমুদ,
ইব্রাহিম কায়সার, মাহবুব আলম সৌরভ, সাইফুল্লাহ, ফয়জুল্লাহ মোহনগঞ্জী, পিয়াস ইসলাম সহ কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।
অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মাওরানা ইলিয়াস আহমদ (কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক- ইসলামী ছাত্র খেলাফত), হাঃ মাওঃআব্দুল বাতেন (শিক্ষা ও সংস্কৃতী সম্পাদক, ইসলামি যুব আন্দোলন মোহনগঞ্জ উপজেলা), সায়াদ আল ফাহিম (সভাপতি ইসলামি ছাত্র আন্দোলন মোহনগঞ্জ উপজেলা শাখা), সাদেক হুসাইন কোকা (সাধারণ সম্পাদক ইসলামী ছাত্র আন্দোলন মোহনগঞ্জ উপজেলা শাখা),মাওলানা আমিরুল হক মাহমুদপুরী। শুরুতে কুরান তেলাওয়াত করেন জামিয়া মাদানি মাদ্রাসা নওহালের ছাত্র হেদায়েত উল্লাহ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাওলানা বাহাউদ্দীন যাকারিয়া মুক্তিযুদ্ধে আলেম উলামাদের সম্পৃক্ততার বিষয় তুলে বলেন, দেশের মুক্তিসংগ্রামের ইতিহাসে সকল পেশাজীবী মানুষের কথা উৎকীর্ণ থাকলেও আলেম ওলামাদের অপার অবদানের কথা বৈষম্যমূলকভাবে উপেক্ষিত হয়েছে। বক্তারা বলেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের বহু আলেম উলামারা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেছিল। তাদের মধ্যে অনেকে মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ ভূমিকার জন্য খেতাবপ্রাপ্ত হন। একটি সমৃদ্ধ দেশ গঠনে ছাত্র ও যুব সমাজকে নৈতিক শিক্ষায় গড়ে তুলতে হবে। অস্ত্রমুক্ত ছাত্র-রাজনীতি উপহার দিতে হবে।
মাওলানা মুতিউর রহমান গাজীপুরী জমিয়তের পতাকাতলে সকলকে সমবেত হওয়ার আহবান জানান।
পঠিত প্রবন্ধে রুহুল আমীন নগরী বলেন,
১৯৭১ সালের ২৪ মার্চ জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের পক্ষ থেকে একটি নির্দেশনা জারি করা হয় দলীয় নেতা ও কর্মীদের প্রতি। এদিনই পূর্ব পাকিস্তান জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের দলীয় প্যাডে নির্দেশনাটি পৌঁছে দেওয়া হয় জেলায় জেলায়। মাওলানা শওকত আলী রোড, ঢাকা-১ এর অফিস থেকে জারি করা হয় নির্দেশনাটি। পূর্ব পাকিস্তান জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা শামসুদ্দিন কাসেমীর স্বহস্তে লিখিত ও স্বাক্ষরিত এ নির্দেশনাপত্র ছিল নিম্নরূপ।
জনাব,
বাদ সালাম আরজ এই যে, দেশের বর্তমান অবস্থায় জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের ভূমিকা সুস্পষ্ট। দেশের এই অঞ্চলের স্বাধীকার আদায়ের ব্যাপারে আমরা নিয়মতান্ত্রিকভাবে আন্দোলন চালাইয়া যাইতেছি এবং শেষ পর্যন্ত চালাইয়া যাইব।’

‘জমিয়তে ওলামায়ে ইসলাম’ পাকিস্তানের সেক্রেটারি মুফতি মাহমুদ সব সময় বাঙালি মুসলমানদের পক্ষে ছিলেন। ২৬ মার্চের আগে তিনি ঢাকায় এসে এ অংশের নেতাদের বলে দিয়েছিলেন, ‘আপনারা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে কথা বলুন, দেশের মানুষকে মুক্তিযুদ্ধের জন্য উৎসাহিত করুন।’ মাওলানা কাজী মুতাসিম বিল্লাহ এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘সে সময় আমার দায়িত্ব ছিল মুক্তিযোদ্ধাদের থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা করা ও যুবকদের যুদ্ধে অংশগ্রহণে উৎসাহিত করা।
তখন মুফতি মাহমুদ সহ জমিয়ত নেতারা বঙ্গবন্ধুর সাথে ধানমন্ডীর বাসায় বৈঠক করেন। এসময় মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথী, মাওলানা মুহিউদ্দীন খান, মাওলানা শামসুদ্দীন কাসেমী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
তা ছাড়া মাওলানা শামসুল হুদা পাচবাগী, মাওলানা আবদুল্লাহ বিন সাঈদ জালালাবাদী, মাওলানা আবদুস সোবহান, মাওলানা দানেশ, মাওলানা আতাউর রহমান খান, মাওলানা আহমাদুল্লাহ আশরাফ, মাওলানা মুহিউদ্দীন খান, মাওলানা ইমদাদুল্লাহ আড়াইহাজারী, মাওলানা নোমান চাটগামী, মাওলানা মোস্তফা আজাদ,মাওলানা জাহিরুল হক ভুইয়া ও মাওলানা ফরিদউদ্দীন মাসউদ প্রমুখ বাংলাদেশ সরকারের মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সার্টিফিকেটের অধিকারী। পাক হানাদার বাহিনী এসে কালিমা জিজ্ঞেস করত। বলতে পারলে বুঝত তারা মুসলমান। আর না পারলে হিন্দু প্রমাণিত হতো। এ ক্ষেত্রে অনেক আলেম নিজেদের ঘরে এসব হিন্দুদের আশ্রয় দিয়ে তাদের কালেমা শিখিয়েছেন এবং পাক বাহিনীর অত্যাচার থেকে রক্ষা করেছেন।
২৫ মার্চের পর সেই সময়ের বড় মাদ্রাসাগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল। এবং মাদ্রাসাছাত্রদের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করতে উদ্বুদ্ধ করা হয়েছিল। এত কিছুর পরও কি কেউ বলবেন আলেম সমাজ স্বাধীনতাবিরোধী ছিলেন, স্বাধীনতার শত্রু ছিলেন? আসল সত্য হল হক্কানি আলেম সমাজ স্বাধীনতার এবং মুক্তিযোদ্ধাদের বন্ধু ছিলেন। আলেম ওলামা স্বাধীনতা সংগ্রামে সশস্ত্র অংশগ্রহণ করেছিলেন।
এছাড়া সিলেটের জমিয়ত নেতা মাওলানা বশির আহমদ শায়খে বাঘা, মাওলানা লুৎফুর রহমান বর্ণভী রহ. এর অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।
বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাসে অমর একটি নাম মজলুম জননেতা মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী। মওলানা ভাসানীর শিক্ষক সিরাজগঞ্জ মাদরাসার প্রধান মাওলানা আব্দুল বাকী তাকে উচ্চ শিক্ষার উদ্দেশ্যে ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দে পাঠিয়ে দেন। সেখানে তিনি শাইখুল হিন্দ মাহমুদ হাসান দেওবন্দী রহ. এর সহচার্য লাভে ধন্য হন এবং শাহ ওয়ালিউল্লাহ মহাদ্দিস দেহলভী রহ. এর রাজনৈতিক চিন্তাধারার সাথে পরিচিত হন। ১৯৬৯ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারী পল্টন ময়দানে বিশাল জনসভায় মাওলানা ভাসানী তার ভাষণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানকে মুক্তি না দিলে দেশে ‘ফরাসী বিপ্লব’ করার হুমকি দেন।
পটিয়া মাদরাসা ছিলো কালোরঘাট বেতার কেন্দ্রের অস্থায়ী সম্প্রচার কেন্দ্র।’

এই সংবাদটি 65 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com