প্রিয়জনদের নিয়ে কিছু স্মৃতি কিছু কথা- ৩

প্রকাশিত: ৭:২৯ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ২৭, ২০২২

প্রিয়জনদের নিয়ে কিছু স্মৃতি কিছু কথা- ৩

সৈয়দ শামছুল হুদা:

সৃষ্টিশীলতা কিছু মানুষের নেশা ও পেশা হয়ে দাঁড়ায়। অনেকেই আছে যারা অন্যের অনুসরণ করেন না। নিজেই কিছু দাঁড় করাতে চায়। দাঁড় করায়। দেশ ও জাতিকে কিছু দেয়। তরুণ আলেমদের মাঝেও কিছু মানুষ এমন আছেন। আছেন অনেক প্রবীণ, সৃ্ষ্টিশীলতা যাদের নেশা। এমনি কিছু ভাইদের নিয়ে সামান্য আলোকপাত করবো।

১। ড. শামসুল হক সিদ্দীক
আরবি ভাষাকে বাংলাদেশের যে কজন ব্যক্তিত্ব মাতৃভাষার চেয়েও পরম আদরে গ্রহণ করেছেন যাদের মধ্যে ড. শামসুল হক সিদ্দীক অন্যতম। খুবই মার্জিত গুণের অসম্ভব রকম ভদ্র, নরম তবিয়তের দিলখোলা মানুষ। অসম্ভব রকম মেধা ও স্মরণশক্তির অধিকারী ড. শামসুল হক সিদ্দীক আইআইইউটির প্রফেসর, সৌদি দূতাবাসের অন্যতম দায়িত্বশীল, আল বাসার ফাউন্ডেশনের শীর্ষ কর্মকর্তা। তিনি যখন আরবি বলেন, মনে হয় কোনো আরবের সামনে বসে কথা শুনছি। সাধারণত: বাঙ্গালি আলেমদের উচ্চারণ এত সুন্দর হয় না। আরবির পাশাপাশি সমপর্যায়ের জ্ঞান ও দক্ষতা রাখেন ইংরেজিতেও। তাঁর বেশ কয়েকটি গবেষণা দেশের বাহির থেকে ইতিমধ্যেই প্রকাশিত হয়েছে। এতবড় একজন মেধাবী আলেম থেকে দেশের আলেম-উলামা এবং আমাদের শিক্ষাবোর্ডগুলো যথেষ্ট উপকৃত হতে পারতো। কিন্তু বাংলাদেশে মেধাবী এবং বড়দের মৃত্যুর পরই স্মরণ করা হয়, করা হয় নম নম। যোগ্যদেরকে যথাস্থানে সুযোগ না দেওয়াটাই আমাদের নিয়তি। অযোগ্যরা ঠিকই তেল মেরে বড় পদগুলো বাগিয়ে নেয়। খাদেম-চামচারাই হয়ে উঠে মাঝে মাঝে শীর্ষ রাহবার। শাবাকা সফট লি. ও ‘আবহাস’ নামক একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠানের তিনি ছিলেন প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান। ইসলাম হাউজ ডটকম এর একসময় বাংলাদেশের প্রধান ছিলেন। তাঁর নিকট থেকে আরবি ভাষা, বিষয়ভিত্তিক গবেষণা এবং আমাদের মাদ্রাসাগুলোর সিলেবাস সংশোধন, সংযোজন, বিয়োজনের সেবা নেওয়া যেতো। এতে আমরা উপকৃত হতে পারতাম।

২। আতিকুল্লাহ
মাওলানা আতিকুল্লাহ ভাইকে দেশের তরুণ ইসলামী ধারার পাঠক প্রজন্ম খুব ভালো করেই চিনে। ইতিমধ্যেই তিনি যথেষ্ট পাঠকপ্রিয়তা পেয়েছেন। লিখেছেন অসংখ্য বই। বিশেষকরে তাদাব্বুর ফিল কুরআন বিষয়ে তাঁর অসাধারণ গবেষণা চলমান। হয়তো বা আমরা ভালো একটা কিছু তাঁর নিকট থেকে উপহার পাবো। নীরবে-নিভৃতে তিনি কাজ করে যাচ্ছেন। আল্লামা আবু তাহের মিসবাহ সাহেবের মতো তিনিও একটি স্বতন্ত্র ধারার সিলেবাস নিয়ে কাজ শুরু করেছিলেন। অনেকগুলো বই নিয়ে গবেষণা শুরু হয়েছিল। মাদরাসাতুল কুরআন নামে শ্যামলীতে একটি প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত গবেষণা করছিলেন। দুর্ভাগ্য, কুচক্রী মহলের কুদৃষ্টি পড়ায় তিনি বড় ধরনের শারীরিক, মানসিক ও আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন। তিনি আমাদের জন্য একটি রহমত স্বরূপ। এমন মেধাবী, চিন্তাশীল, দীন দরদী মানুষ খুব কমই দেখা যায়। গল্পে গল্পে ইসলামকে উপস্থাপনায় তিনি অতুলনীয়। আরবি ইংরেজি দুটি ভাষাতেই তিনি সমান চর্চা করেন। সব ধরনের ভালো বই তিনি পাঠ করেন। বইয়ের স্তুপের নীচেই তার বসবাস। প্রচুর বই কিনেন। পড়েন। ইতিমধ্যেই অনেক উপহার তিনি আমাদের দিয়েছেন। আল্লাহ তাআলা তাঁর হায়াতে বরকত দান করুন। আমরা আশা করছি, তাঁর নিকট থেকে জাতি অনেক কিছু পাবে।

৩। মিজান হারুন
যার লিখনী পাঠ করলে মনে হয় আমাদেরও একজন আবুল হাসান আলী নদভী আছে, তিনি হলেন জনাব মিজান হারুন ভাই। তাঁর সাথে সরাসরি পরিচয় না থাকলেও তাঁর রচনার সাথে ইতিমধ্যেই সেতুবন্ধন গড়ে উঠেছে। উলা-ইকা আবাই’ বই লিখে সাড়া ফেলে দিয়েছেন। লেখার ধরন ও গড়ন অনেকটাই আল্লামা সাইয়েদ আবুল হাসান আলী নদভী রহ. এর অনুকরণ। আরবি ভাষায় তার দক্ষতা প্রশংসনীয়। তার পক্ষেই সম্ভব বাংলাদেশকে আরব বিশ্বের সামনে খুব দক্ষ হাতে তুলে ধরা। এদেশের দীনি খেদমত নিয়ে আরবিতে তেমন কোনো কাজ হয়নি। এই কাজটা তাঁর পক্ষেই করা সম্ভব এবং সেটা হবে মানসম্মত। আমি আশা করবো, মিজান হারুন ভাই চলমান বিভিন্ন মাসআলা-মাসায়েলের বিতর্কে না জড়িয়ে বাংলাদেশের কওমী মাদ্রাসায় বাকুরাতুল আদব, রওজাতুল আদব ইত্যাদি কিতাবের উন্নত বিকল্প তৈরি করবেন। পশ্চাদপদ ভাষার ব্যবহার দিয়ে একটি জাতিকে আধুনিক ও প্রয়োজনীয় আরবির সাথে পরিচিত করে তোলা সম্ভব নয়। প্রয়োজন এখন অনেক বেশি মার্জিত ভাষার ব্যবহার। মিজান হারুন ভাইয়ের কলম যথেষ্ট শক্তিশালী। বয়স এবং ভাষার পারদর্শিতা দুটোই সমন্বিতভাবে কাজে লাগাতে পারলে জাতি অনেক কিছুই উপহার পাবে। আমাদের একজন আলী নদভী দরকার। আশাকরি তিনি চিন্তা, চেতনা, দর্শনে তিনি সেই চাওয়ার জায়গাটা পূরণ করবেন।

৪। আবদুল হক
লেখালেখি এবং সাহিত্য চর্চা এক নয়। আবদুল হক ভাইয়ের ভাষায়, দেশে অনেক লেখক আছে, কিন্তু সবাই সাহিত্যিক নয়। সে হিসেবে আবদুল হক ভাইও একজন সাহিত্যিক। তিনি বড় লেখক নন। খুব বেশি লিখেন না। যতটুকু লিখেন, তাতে বাংলা ভাষী লেখকগণের পক্ষে ভুল ধরা অনেক কঠিন। খুব অসাধারণ কিছু ছড়া লিখেন মাঝে মাঝে। লিখেন বিভিন্ন বিষয়ে মন্তব্যধর্মী কিছু কথা। প্রতিটি বাক্যগঠন হয় অনেক উঁচু মাপে’র। শব্দগুলো থাকে ঝরঝরা। প্রতিটি শব্দই যেন কথা বলে। মাদ্রাসা শিক্ষার টেক্সবুকগুলো তার মাধ্যমে রিভিউ করাতে পারলে অনেক উপকার হতো।তাঁর সাহিত্য জ্ঞানকে আমাদের কাজে লাগানো দরকার। প্রতিটি মানুষের ভিন্নধর্মী প্রতিভা থাকে। যার কাছে যতটুকু আছে তার থেকে ততটুকুই নেওয়া উচিত। আমরা মানুষের একটা ভুলের জন্য দুইটা ভালো কাজের স্বীকৃতি দিতে চাই না। নানা কারণে কিছু মানুষ হয়তো তাঁকে অপছন্দও করে। কিন্তু তার শত্রুও তার সাহিত্য মান নিয়ে প্যাচাল দীর্ঘ করতে পারবে না।

৫। জহির উদ্দিন বাবর
আলেম সাংবাদিকদের মধ্যে পেশাদারিত্বের সাথে যারা বর্তমানে কাজ করছে তাদের মধ্যে জহির উদ্দীন বাবর অন্যতম। লেখালেখিতে রয়েছে নিরবচ্ছিন্ন সাধনা। অনেক মৌলিক রচনা ও অনুবাদ বাজারে এসেছে। এর সাথে অর্থকড়ির সম্পর্ক আছে। বাংলাদেশ ইসলামী লেখক ফোরাম এর প্রতিষ্ঠার সময়ে নানামুখি সমালোচনাকে তুচ্ছজ্ঞান করে দাঁড় করাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করেছে। লেখকদের আবার সংগঠন কিসের? এমন সমালোচনা কম শোনা যায়নি। তদুপরি সংগঠনটি দাঁড়িয়েছে। দীর্ঘ সময় সামনে থেকে এর নেতৃত্ব দিয়ে বাবর তার সাংগঠনিক যোগ্যতারও সাক্ষর রেখেছে । ইতিমধ্যেই বেশ অনেকগুলো বড় বড় স্মারক প্রকাশের মূল দায়িত্ব পালন করে কাজের মধ্যে মুনশিয়ানা দেখিয়েছে। চরম প্রতিকূল বাজারেও ‘লেখকপত্র’ নামে একটি সাময়িকী বের করছে। তরুণ লেখকদের মধ্যে লেখালেখির প্রেরণা জাগাতে ভূমিকা রেখেছে। আত্মপ্রচারবিমুখ জহির উদ্দীন বাবর তরুণ আলেমদের একদিকে যেমন প্রেরণা, অন্যদিকে প্রবীণ আলেমদের সাথে কাজ করতে পারার তাঁর রয়েছে অসাধারণ দক্ষতা। ব্যক্তিজীবনে মানুষের বিশ্বস্ততা অর্জনও একটি বড় পাওয়া। বিতর্ক এড়িয়ে, আত্মম্ভরিতা পরিহার করে চলা মানুষ। এমন আরো কিছু লেখক দরকার। জাতি এমন কিছু দায়িত্ববান লেখক, সংগঠক দ্বারা উপকৃত হতে পারে।

৬। মুফতি মনোয়ার হোসাইন
নিজের পায়ে দাঁড়ানোর দৃপ্ত অঙ্গীকার বাস্তবায়নে অসম্ভব দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলা স্বপ্নবাজ মানুষ মুফতি মনোয়ার হোসাইন। তিনি ইতিমধ্যেই বগুড়াঞ্চলে ‘শাইখে বগুড়া’ হিসেবে অবস্থান তৈরি করে নিয়েছেন। ২০০০সালের কাছাকাছি সময়ে ছিলেন ফরিদপর অঞ্চলের ভাঙ্গা হাসামদিয়া মাদ্রাসা মসজিদের ইমাম। মাওলানা আবুল খায়ের সেলিম সাহেবের সাথে কাজ করেছেন। তিনি ইমামতিতে ঢুকার আগে সাইফুরস থেকে ইংরেজি ভাষাটা শিখে নিয়েছিলেন। চমৎকার করে ইংরেজিটা বলতে পারেন। এই একটি যোগ্যতাই তাকে ফরিদপুর থেকে আল মুনতাদা আল ইসলামীর হাত ধরে গাইবান্ধায় বদলির কিছুদিন পর তারেক রহমান প্রতিষ্ঠিত বগুড়ার অন্যতম একটি আলোচিত মসজিদ জামে আর রহমান এর খতীব হন। অতঃপর এই বিশেষ যোগ্যতা বলেই ঢাকার বারিধারায় কেন্দ্রীয় মসজিদের খতীব হন। অতঃপর তাবলীগ জামায়াতের ভাঙ্গনকালে কিছু মানুষের বিরাগভাজন হন এবং আত্মমর্যাদাসম্পন্ন ব্যক্তি হিসেবে লোভনীয় এসব চাকুরীকে তুচ্ছ জ্ঞান করে চলে যান নীড়ে। বগুড়ায় শুন্য থেকে বিশাল মাদ্রাসা গড়ে তুলেন তুলেন। মিডিয়াতে রয়েছে সরব উপস্থিতি। মাত্র দুই মাসের সাইফুরস ইংলিশ স্পিকিং কোর্স একজন আলেমকে কোথায় নিয়ে যেতে পারে তার অনন্য উদাহরণ আমার কাছে মুফতি মনোয়ার হোসেন। আলেমদের কাছে কুরআন ও হাদীসের জ্ঞানের ভান্ডার আছে। এর সাথে ভাষার জ্ঞান দখলে থাকলে তিনি সমাজের সবশ্রেণির মানুষের কাছে সেরেতাজে পরিণত হবেন এমনটাই আমাদের জানিয়ে দিলেন মুফতি মনোয়ার হোসাইন। প্রচন্ড আত্মবিশ্বাসী ও পরিশ্রমি মানুষ। আগামী দিনে তাঁর নিকট থেকে জাতি আরো অনেক বড় খেদমত আশা করে। বগুড়াঞ্চলে আলেমদের মধ্যে তিনি একটি আদর্শ হয়ে উঠেছেন। নিজের পায়ে দাঁড়ানোর প্রত্যয় ঘোষণা করে ডেইরী ফার্ম থেকে শুরু অনেক আত্মনির্ভরশীল কর্মসূচী চালু করেছেন।

৭। মাওলানা লুৎফর রহমান
ভোরঘাটা, বরিশাল অঞ্চলের ছোট্ট একটি মসজিদের ইমাম ছিলেন মাওলানা লুৎফর রহমান। পটিয়া থেকে আরবিটা মোটামোটি ভালো শেখা ছিল। সেই চর্চার সুবাধে একদিন তাঁরই মসজিদে দুবাইয়ের একটি তাবলীগের জামাত আসলে তাদের সাথে তার সখ্যতা গড়ে উঠে। সেদিনের সেই সামান্য পরিচয় মানুষকে কতদূর নিয়ে যেতে পারে এর নজির মাওলানা লুৎফর রহমান। দেশের বড় বড় ইসলামী ধারার সংস্থাগুলো যখন বন্ধ হওয়ার উপক্রম তখন আল্লাহ তাআলা তাঁর হাত দিয়ে কিশোরগঞ্জে অনেক বড় বড় দীনি প্রতিষ্ঠান তৈরি করিয়েছেন। আমি তার অর্জন দেখে মাঝে মাঝে নিজেই অবাক হই। দেশের তরুণ আলেমদেরকে বলবো, মাতৃভাষার বাইরে আরবি এবং ইংরেজি ভাষাটা ভালো করে শিখতে। বর্তমান যুগে এর গুরুত্ব অনেক। মিডিয়ার আড়ালে থাকা এ সকল নীরব সাধক মানুষগুলোকে হৃদয়ের গহীন থেকে কৃতজ্ঞতা জানাই। কিশোরগঞ্জ শহরে দুইজন মাওলানা লুৎফর রহমান বেশ পরিচিত। তার মধ্যে একজন হলেন আল জামিয়াতুল ইমদাদিয়া কিশোরগঞ্জ এ আমার শ্রদ্ধেয় উস্তাদ মাওলানা লুৎফর রহমান সাহেব। আর অপরজন হলেন আমারই প্রিয়জন, মাওলানা লুৎফর রহমান সাহেবের জামাই, সেও মাওলানা লুৎফর রহমান। তার হাত দিয়ে যত গুলো প্রজেক্ট বাস্তবায়িত হয়েছে তার অনেকগুলোরই বাজেট কোটি টাকার ওপরে। আল মারকাজুল ইসলামী এর তত্ত্বাবধানে কিশোরগঞ্জে এসব কাজ আঞ্জাম দেওয়া হলেও মুলতঃ এর সব শ্রম ও মেধা মাওলানা লুৎফর রহমান এর। আল্লাহ তাআলা তার খেদমাতকে কবুল করুন।

৮। মাওলানা আবদুল আলিম
আমার দেখা তরুণ আলেমদের মধ্যে একজন সফল মুহতামিম হলেন মাওলানা আবদুল আলিম। রামপুরায় ‘মারকাযু শাইখিল ইসলাম আল মাদানি’ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে তিনি সাফল্যের নজির রেখেছেন। খুব অল্পদিনের ভেতর এতটা সাফল্য অর্জন সত্যিই ঈর্ষণীয়। মিষ্টভাষি এবং উন্নত ব্যবহারের অধিকারী মাওলানা আবদুল আলিম ভাইয়ের প্রাতিষ্ঠানিক প্রজ্ঞা প্রশংসনীয়। ছাত্র-অভিভাবকদের সাথে সম্পর্ক গড়ার ক্ষেত্রে তিনি অনন্য। চমৎকার প্রতিষ্ঠান পরিচালনা পদ্ধতি, বড়দের সাথে গভীর সম্পর্ক রাখা ইত্যাদির কারণে দিনদিন তিনি অগ্রগতিই লাভ করছেন। অনেক উঁচু মনের স্বপ্নবান মানুষ মাওলানা আবদুল আলিম। একদিন ঢাকার বুকে তিনি অন্যতম অবস্থান তৈরি করতে সক্ষম হবেন। তাঁর থেকে নবীন আলেমদেরও অনেক কিছু শেখার আছে।

৯। মুনশি মুহাম্মদ উবাইদুল্লাহ
একজন উদীয়মান লেখক, মিষ্টভাষি তরুণ মুনশি মুহাম্মদ উবাইদুল্লাহ। আলোকিত বাংলাদেশের সহসম্পাদক। বাংলার পাশাপাশি উর্দূ সাহিত্যে তার বেশ দখল রয়েছে। ভারত-পাকিস্তানের জাতীয় দৈনিকগুলোতে পৃষ্ঠাব্যাপি তাঁর সাহিত্য সমালোচনা ছাপা হয়েছে। হিন্দী ভাষাতেও তার ভালো দখল। দারুল উলূম দেওবন্দে পড়াকালীন ‘দাদা রাজ্যের দেশে” নামক ভ্রমণকাহিনী লিখে আমাদের চমকে দেয় প্রিয় মুনশি। লেখাতে দারুন মুনশিয়ানা। পরিশ্রমি।ভালো পৃষ্টপোষকতা পেলে অনেকদূর যেতে পারবে। ইলমি যোগ্যতার পাশাপাশি কয়েকটি ভাষায় ভালো মানের দক্ষতা অর্জন, তাকে ইতিমধ্যেই বন্ধুমহলে ঈর্ষণীয় করে তুলেছে। অনেকগুলো বই বাজারে এসেছে। এগুলোর বিষয়বস্ত গতানুগতিক ধারনার বাইরে। দেশের উলামায়ে কেরামদের মধ্যে তরুণ লেখকরা এখন ভাষা চর্চা শিখছে। সাহিত্য চর্চাও শিখছে। এটা খুব দরকার ছিল। অযু, গোসল, শবে বরাত আর শবে মেরাজের ফাযায়েল বর্ণনার গন্ডীবদ্ধ লেখালেখির সীমাবদ্ধ ধারনা থেকে বের হয়ে ভাষা চর্চার পরিধিটা বিস্তৃত হচ্ছে এটাই আশার কথা। আমি আশাকরি আমাদের মুনশি অনেক দূর যাবে। আমাদেরকে অনেক উঁচুমানের ভালো বই উপহার দিবে। সাহিত্য চর্চায় আরো গভীরভাবে মনোনিবেশ করবে।

১০। উবায়দুল্লাহ সায়েম
যে সকল তরুণদের সুরচর্চা আমার কাছে ভালো লাগতো তার মধ্যে উবায়দুল্লাহ সায়েম অন্যতম। খুব অল্পবয়সে সুরচর্চাটা খুব সুন্দর করে রপ্ত করেছে। বাংলায় তার উচ্চারণ অসাধারণ। অনেকেই ইসলামী সংগীত গায়। কিন্তু তাদের অনেকেরই উচ্চারণ ঠিক নেই। গলার জোরে গায়। শুধুই ভালো সুর আছে তাই গায়। যা গায়, তাই সুন্দর লাগে। কিন্তু সায়েমের সুরের মধ্যে ভিন্ন একটি মায়া আছে। আকর্ষণ আছে। সে এই অঙ্গনে ভালো করতে পারতো। বড় বড় জটিল বিষয়ের নানা চিন্তা তাকে কীভাবে জানি পেয়ে বসেছে। ফলে এখন আর সঙ্গীতাঙ্গনেও অনেকটা হারিয়ে যাচ্ছে। সুর, তাল, লয় নামে অনেক শব্দশুনি এ অঙ্গনের মানুষ থেকে। আমার কাছে মুহিব খানের পরে ওবায়দুল্লাহ সায়েম এর উচ্চারণ শক্তিটা অসাধারণ লাগে। সঠিক পরিচর্যার অভাবে হারিয়ে যাওয়ার পথে।

বাংলাদেশ ইন্টেলেকচুয়াল মুভমেন্ট বিআইএম
3.08.2022

এই সংবাদটি 129 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com