মঙ্গলবার, ১৭ জানু ২০১৭ ০৭:০১ ঘণ্টা

দিরাইয়ে জলমহাল আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ-গুলাগুলি, নিহত ৩

Share Button

দিরাইয়ে জলমহাল আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ-গুলাগুলি, নিহত ৩

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

সৈয়দ উবায়দুর রহমান :

সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে জলমহালের দখলকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের গুলাগুলি ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে এক গ্রুপের তিনজন নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন আরও ৫জন। নিহতরা হলেন, দিরাই উপজেলার হাতিয়া গ্রামের ছানা উল্লাহর ছেলে তাজুল ইসলাম (৩০), আকিননগর গ্রামের ইছাক মিয়ার ছেলে শাহারুল (২৫) এবং একই গ্রামের মৃত আমান উল্লাহর ছেলে উজ্জ্বল মিয়া (২৮)। সংঘর্ষে গুরুতর আহত হাতিয়া গ্রামের আল আমিন (২০) ও মুজাফর (২৭)-সহ পাঁচজনকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গুলিবিদ্ধ গুরুতর আহত শাহারুল ও উজ্জ্বলকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার কুলঞ্জ ইউনিয়নের জাররিয়া নদী দখলকে কেন্দ্র করে যুবলীগ নেতা একরার হোসেন ও আ.লীগ নেতা মাসুক মিয়ার মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

সাবেক ছাত্রলীগ নেতা একরার হোসেন দিরাই উপজেলা যুবলীগের প্রস্তাবিত কমিটির সহ-সভাপতি এবং মাসুক মিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা প্রদীপ-মোশাররফ গ্রুপের নেতা। সংঘর্ষে নিহতদের সকলে একরার গ্রুপের সমর্থক।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, দিরাই উপজেলার জাররিয়া নদী জলমহালের আধিপত্য বিস্তার ও দখল নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় যুবলীগ নেতা একরার হোসেন ও আওয়ামী লীগ নেতা মাসুক মিয়ার মধ্যে উত্তেজনা চলে আসছিল। জলমহালে মাছ ধরার জন্য নদীর পাড়ে উভয়পক্ষ খলাবাড়ি নির্মাণ করে প্রস্তুতি নেয়। এর জের ধরে মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে আগ্নেয়াস্ত্র ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে উভয়পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। প্রায় ঘণ্টাব্যাপি চলা সংঘর্ষে ব্যাপক গুলাগুলি হয়। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলে তাজুল ইসলামের মৃত্যু হয়।

জলমহালের সাব-ইজারাদার যুবলীগ নেতা ইকরার হোসেন দাবী করেন, দিরাই উপজেলার দক্ষিণ নাগেরগাঁও মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির অনুকূলে ছয় বছর মেয়াদের জন্য জাররিয়া জলমহালটি সরকারের নিকট থেকে উন্নয়ন স্কিমে লিজ নেয়া হয়। পরে সমিতির নিকট থেকে সাব-লিজ নেন তিনি। গত দুই বছর জলমহালে মাছ সংরক্ষণ ও আহরণ করেছেন বলেও দাবী করেন।

দিরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও দিরাই পৌরসভার মেয়র মোশাররফ মিয়া অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এটা স্থানীয় ঝামেলা। এর সঙ্গে আমার এবং প্রদীপ রায়ের কোন সম্পর্ক নেই। ঘটনার সময় আমি উপজেলা সদরে আইন-শৃংখলা কমিটির বৈঠকে ছিলাম।

দিরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল জলিল জানান, সংঘর্ষস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এলাকার পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার হারুন-অর-রশিদ জানান, সংঘর্ষের ঘটনায় জড়িদের গ্রেফতার করে তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই সংবাদটি 1,032 বার পড়া হয়েছে

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।  শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ।  নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে।  জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।  আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি।  লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
কানাইঘাট প্রতিনিধি :: কানাইঘাটে কবরস্থানের পাশ থেকে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পাশের একটি গাছ থেকে আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে কানাইঘাট থানা পুলিশ। নিহত আলমগীর উপজেলার ঝিঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের তিনচটি নয়া গ্রামের আবুল হুসেনের ছেলে। জানা যায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান আলমগীর । শুক্রবার সকালে আলমগীরকে ঘরে না পেয়ে খোঁজাখুজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা । একপর্যায়ে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মা কুলসুমা বেগম তাদের পাশ্ববর্তী নিজ দর্জিমাটি গ্রামের কবরস্থানের পূর্বপাশে একটি গাছের সাথে গলায় রশি লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরকে দেখতে পান। খবর পেয়ে সাড়ে ১২টার দিকে থানার সেকেন্ড অফিসার স্বপন চন্দ্র সরকার একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রিক্সা চালক আলমগীরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে সুরতাল রিপোর্ট তৈরী শেষে ময়না তদন্তের জন্য সিওমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। আলমগীরের বাবা দরিদ্র রিক্সা চালক আবুল হোসেন জানান, তার ছেলের সাথে কারো শত্রুতা নেই। সে কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে তিনি সুনির্দিষ্ট কোন তথ্য দিতে পারেন নি। লাশ উদ্ধারকারী সেকেন্ড অফিসার এস.আই স্বপন চন্দ্র সরকার জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে আলমগীর আত্মহত্যা করেছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টের পর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।
WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com