মঙ্গলবার, ০৮ আগ ২০১৭ ০৪:০৮ ঘণ্টা

কুরআন ও হাদীসের আলোকে খতমে নবুওয়ত

Share Button

কুরআন ও হাদীসের আলোকে খতমে নবুওয়ত

 মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী:: আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হলেন সর্বশেষ নবী। তার পরে পৃথিবীতে আর কোন নবীর আগমন ঘটবে না। হযরত আদম আ. থেকে নিয়ে মানব জাতির হেদায়েতের উদ্দেশ্যে যত নবী আল্লাহ তায়ালা প্রেরণ করেছেন, তাদের নবুওয়তী সিলসিলার পরিসমাপ্তি ঘটিয়েছেন বিশ্ব নবী হযরত মুহাম্মদ সা. এর মাধ্যমে। নবীদের ধারাবাহিকতার এ পরিসমাপ্তিকে বলা হয় ‘খতমে নবুওয়ত’। আর আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ সা. কে বলা হয় খাতামুন্নাবিয়্যিন তথা সর্বশেষ নবী। খতমে নবুওয়াত ‘জরুরিয়্যাতে দীন’ তথা দীনের স্বতঃসিদ্ধ ও মৌলিক বিষয়সমূহের অন্যতম। আল্লাহর ওপর, নবীদের ওপর এবং দীনের অন্যান্য মৌলিক বিষয়ের ওপর যেমন ঈমান রাখা ফরয, তেমনি ফরয খতমে নবুওয়তের ব্যাপারে স্বচ্ছ আকীদা পোষণ করা, হযরত মুহাম্মদ সা. কে শেষ নবী হিসেবে মেনে নেয়া। নবীদের ওপর ঈমান না রাখা যেমন কুফুরী, তেমনি খতমে নবুওয়তকে অস্বীকার করা বা এর বিকৃত ব্যাখ্যা করাও কুফুরী। খতমে নবুওয়ত পবিত্র কুরআনের শতাধিক আয়াত এবং অসংখ্য হাদীস দ্বারা প্রমাণিত। খতমে নবুওয়ত আরবী, এটি পবিত্র কুরআনের শব্দ। ‎ﺧَﺗﻢََ ﻨَّﺒِﻭةِ)‏‎ শব্দটি আরবী, ‎ﺧَﺗَﻢَ‏‎ অর্থ শেষ, সমাপ্তি। আরﻨَّﺒِﻭَة ِ অর্থ-নবুওয়ত, পয়গাম্বরী, নবীত্ব)। সুতরাং খতমে নবুওয়ত অর্থ নবীগণের সমাপ্তি। ইসলামী শরীয়তানুযায়ী নবী কারীম সা.-ই শেষ নবী এরূপ বিশ্বাসকে খতমে নবুওয়ত বলে। অর্থাৎ মুহাম্মদ সা.-ই শেষ নবী ও রাসূল, তার পর দুনিয়াতে কিয়ামত পর্যন্ত আর কোন নবীর আগমন ঘটবে না। এই আকীদা পোষণ করা প্রত্যেক মুসলমানের জন্য ফরজ। পবিত্র কুরআনে খতমে নবুওয়ত ১.আল্লাাহ তা’আলা পবিত্র কুরআনে ইরশাদ করেন, مَا كَانَ مُحَمَّدٌ أَبَا أَحَدٍ مِنْ رِجَالِكُمْ وَلَكِنْ رَسُولَ اللَّهِ وَخَاتَمَ النَّبِيِّين “মুহাম্মাদ সা. তোমাদের কোন পুরুষের পিতা নন। তবে তিনি আল্লাহর রাসূল এবং সর্বশেষ নবী।” (সূরা আহযাব- ৪০) তাফসীরে ইবনে কাসীরে এই আয়াতের ব্যাখ্যায় বলা হয়েছে, “আলোচ্য আয়াত দ্বারা স্পষ্টভাবে বুঝা যায় যে, হযরত মুহাম্মাদ সা. এর পরে আর কোন নবীর আবির্ভাব ঘটবে না। আর যখন কোন নবী আসবেন না সে ক্ষেত্রে কোন রাসুলেরও আগমন ঘটবে না। কারণ রিসালতের মাকাম নবুওয়তের মাকাম অপেক্ষা খাস। তাই সকল রাসূল নবী হয়ে থাকেন কিন্তু সকল নবী রাসূল হন না। সুতরাং হযরত মুহাম্মদ সা. এর পরে যে আর কোন নবীর আগমন ঘটবে না সে বিষয়ে রাসূল থেকে অসংখ্য মুতাওয়াতির হাদীস বর্ণিত হয়েছে। (তাফসিরে ইবনে কাসির- ৯ম খন্ড, ১১২ পৃষ্টা) আল্লামা কাজী বায়জাভী রহ. তার রচিত তফ্সীর আনওয়ারুত তানজীলে লিখেছেন- “হযরত মুহাম্মদ সা. নবীগণের মধ্যে সর্বশেষ নবী। তাঁর আগমন দ্বারা নবুওয়তের ধারাবাহিকতার পরিসমাপ্তি ঘটানো হয়েছে। অথবা এই আয়াত দ্বারা স্পষ্ট প্রতীয়মান হয় যে, হযরত মুহাম্মদ সা.এর আগমন দ্বারা আম্বিয়া কিরামের ধারাবাহিকতায় শীল মেরে মোহরাঙ্কিত করে দেওয়া হয়েছে। ২. বিদায় হজ্বের দিন আরাফাতের ময়দানে আল্লাহ তা’আলার ঘোষণা, ‘আজ আমি তোমাদের জন্য তোমাদের দীনকে পরিপূর্ণ করে দিলাম, তোমাদের ওপর আমার নেয়ামতে নবুওয়তকে পূর্ণ করে দিলাম এবং ইসলামকে তোমাদের জন্য দীন হিসেবে মনোনীত করলাম’। (সূরা মায়েদা-৩) এই আয়াতে আল্লাহ তা’আলা দীনকে পরিপূর্ণ করে দেয়ার ঘোষণা করেছেন। সুতরাং এই দীনই হল সর্বকালীন এবং সার্বজনীন। এর মধ্যে সংযোজন ও বিয়োজনের জন্য নতুন আর কোন নবীর প্রয়োজন অবশিষ্ট নেই। হাদীসে খতমে নবুওয়ত: ১. হযরত সাওবান রা. থেকে বর্ণিত, বাসূলুল্লাহ সা. ইরশাদ করেছেন, وَإِنَّهُ سَيَكُونُ فِي أُمَّتِي ثَلَاثُونَ كَذَّابُونَ كُلُّهُمْ يَزْعُمُ أَنَّهُ نَبِيٌّ وَأَنَا خَاتَمُ النَّبِيِّينَ لَا نَبِيَّ بَعْدِي “ অচিরেই আমার উম্মতের মধ্যে ত্রিশজন মিথ্যুকের আবির্ভাব ঘটবে। প্রত্যকেই নিজেকে নবী হিসেবে দাবি করবে, অথচ আমিই সর্বশেষ নবী। আমার পরে আর কোন নবী নেই। ইমাম তিরমিযী হাদীসটিকে হাসান সহীহ বলেছেন। (সুনানে তিরমিযী, হাদীস নং ৩৭১০, সুনানে আবি দাউদ, হাদীস : ৪২৫) ২. প্রখ্যাত সাহাবী হযরত আবু হোরাইরা রা. হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সা. ইরশাদ করেন, إِنَّ مَثَلِي وَمَثَلَ الْأَنْبِيَاءِ مِنْ قَبْلِي كَمَثَلِ رَجُلٍ بَنَى بَيْتًا فَأَحْسَنَهُ وَأَجْمَلَهُ إِلَّا مَوْضِعَ لَبِنَةٍ مِنْ َاوِيَةٍ فَجَعَلَ النَّاسُ يَطُوفُونَ بِهِ وَيَعْجَبُونَ لَهُ وَيَقُولُونَ هَلَّا وُضِعَتْ هَذِهِ اللَّبِنَة ُقَالَ فَأَنَا اللَّبِنَةُ وَأَنَا خَاتِمُ النَّبِيِّينَ “আমি এবং পূর্ববর্তী অন্যান্য নবীদের উদাহরণ হল, এক লোক একটি ঘর অত্যন্ত সুন্দর করে তৈরী করল। কিন্তু ঘরের এক কোনে একটা ইট ফাঁকা রেখে দিল। লোকজন চর্তুদিকে ঘুরে ঘরে তার সৌন্দর্য্য দেখে বিমোহিত হচ্ছে কিন্তু বলছে, এ ফাঁকা জায়গায় একটি ইট বসালে কতই না সুন্দর হতো!” রাসূলুল্লাহ সা. বলেন, “আমি হলাম সেই ইট এবং আমি হলাম সর্বশেষ নবী।” (বুখারী, হাদীস নং ৩২৭১ মুসলিম হাদীস নং ৪২৩৯) ৩. হযরত আবু হোরাইরা (রাঃ) হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সা. ইরশাদ করেন, كَانَتْ بَنُو إِسْرَائِيلَ تَسُوسُهُمْ الْأَنْبِيَاءُ كُلَّمَا هَلَكَ نَبِيٌّ خَلَفَهُ نَبِيٌّ وَإِنَّهُ لَا نَبِيَّ بَعْدِي وَسَيَكُونُ خُلَفَاءُ “বনী ইসরাইলকে পরিচালনা করতেন তাদের নবীগণ। এক নবী মৃত্যু বরণ করলে আরেক নবী তার স্থানে এসে দায়িত্ব পালন করতেন। তবে আমার পরে কোন নবী আসবে না; আসবে খলীফাগণ”। (সহীহ বুখারী) ৪. রাসূলুল্লাহ সা. হযরত আলী রা. কে লক্ষ্য করে বলেন, أَنْتَ مِنِّي بِمَنْزِلَةِ هَارُونَ مِنْ مُوسَى إِلَّا أَنَّهُ لَا نَبِيَّ بَعْدِي “মুসা আ. এর নিকট হারুন আ. যেমন তুমি আমার নিকট ঠিক তদ্রুপ। তবে আমার পরে কোন নবী নেই।” (সহীহ বুখারী-৪০৬৪, সহীহ মুসলিম হাদীস নং ৪৪১৮) ৫. রাসূলুল্লাহ সা. বলেন, لَوْ كَانَ بَعْدِي نَبِيٌّ لَكَانَ عُمَرَ بْنَ الْخَطَّابِ “আমার পরে কেউ নবী হলে উমর ইবনুল খাত্তাব নবী হতেন।” (সুনান তিরমিযী, হাদীস নং-৩৬১৯) ৬. হযরত আবু হোরাইরা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলে করীম সা. ইরশাদ করেছেন, فُضِّلْتُ عَلَى الْأَنْبِيَاءِ بِسِتٍّ أُعْطِيتُ جَوَامِعَ الْكَلِمِ وَنُصِرْتُ بِالرُّعْبِ وَأُحِلَّتْ لِيَ الْغَنَائِمُ وَجُعِلَتْ لِيَ الْأَرْضُ طَهُورًا وَمَسْجِدًا وَأُرْسِلْتُ إِلَى الْخَلْقِ كَافَّةً وَخُتِمَ بِيَ النَّبِيُّونَ “পূর্ববর্তী অন্যান্য নবীদের উপর ছয়টি বিষয়ে আমাকে অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে। আমাকে দেয়া হয়েছে অল্প শব্দে অনেক বেশী অর্থবোধক কথা বলার যোগ্যতা, আমি অনেক দূর থেকে শত্রুবাহিনীর মধ্যে ত্রাস সৃষ্টির মাধ্যমে বিজয় প্রাপ্ত হই। গনিমত তথা পরাজিত শত্রুবাহিনীর ফেলে যাওয়া সম্পদ আমার জন্যে বৈধ করা হয়েছে। যমিনের মাটিকে পবিত্রতা অর্জনের মাধ্যম এবং সেজদা প্রদানের স্থান বানানো হয়েছে। সমগ্র সৃষ্টিকুলের জন্য আমাকে নবী বানানো হয়েছে এবং আমার মাধ্যমেই নবী আগমনের ধারাকে সমাপ্ত করা হয়েছে।” (সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-৭১২) ৭. হযরত জুবাইর ইবনে মুতঈম রা. তার পিতা থেকে বর্ণনা করেন, রাসূলুল্লাহ সা. বলেছেন, আমি হলাম ‘আক্কিব’। আর ‘আক্কিব তিনিই, যার পরে আর কোন নবী নেই। (সহীহ মুসলিম, হাদীস :২৩৫৪) এছাড়াও অসংখ্য সহীহ হাদীস দ্বারা দ্যার্থহীনভাবে প্রমাণিত হয় যে, মুহাম্মাদ সা. খাতামুন্নবিয়্যিন, আখেরী নবী ও সর্বশেষ পয়গাম্বর। তাঁর পরে কোন নবী আগমণ করবে না। হযরত রাসূলে কারীম সা. এর প্রতি ঈমান আনতে হলে তাকে সর্বশেষ নবি হিসাবেও স্বীকার কতে হবে। এটা তার প্রতি ঈমান আনার অংশ বিশেষ। এই বিষয়ে উম্মতের ইজমা হয়েছে । প্রখ্যাত মুহাদ্দিস মোল্লা আলী কারী রহ. তার আল আশবাহ ওয়ান নাজায়ের গ্রন্থে লিখেছেন যে, রাসুল সা. এর পর অন্য কারো নবুওয়তের দাবী করা ইজমার আলোকে (ইসলামি স্কলার ও বিজ্ঞ ফিকাহবিদদের মতে) কুফুরী। যে ব্যক্তি হযরত মুহাম্মদ সা. কে সর্বশেষ নবী হিসেবে স্বীকার করবে না, সে মুসলমান নয়। (আল আশবাহ ওয়ান নাজায়ের: ১৩৮) অতএব, মুসলিম উম্মাহর সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত মুতাবিক মিথ্যা নবুওয়তের দাবীদার মির্জা গোলাম আহমদের অনুসারী কাদিয়ানী সম্প্রদায় কাফের তথা অমুসলিম। তাই যে বা যারা তাকে নবী বলে বিশ্বাস করবে, তারা ইসলামের সর্বজন স্বীকৃত আকীদা মুতাবিক মুসলমান থাকতে পারে না। তারা কাফের অর্থাৎ তারা অমুসলিম হিসেবে গণ্য হবে।

 

এই সংবাদটি 1,018 বার পড়া হয়েছে