বুধবার, ২৫ অক্টো ২০১৭ ০২:১০ ঘণ্টা

স্বীকৃতিসনদ বাস্তবায়নে আল্লামা মাসঊদের বিকল্প নেই

Share Button

স্বীকৃতিসনদ বাস্তবায়নে আল্লামা মাসঊদের বিকল্প নেই

মাওলানা সাজিদুল ইসলাম ● কথা সত্য মতবল খারাপ- একসময় পাথেয়তে লিখতেন মাওলানা হেমায়েত উদ্দীন। এ শিরোনামে একটি বইও এখন বাজারে আছে। বাংলা সাহিত্য নিয়ে কাজ করে নিজেকে অন্য এক উচ্চতায় নিয়ে গেছেন আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ। তিনি দক্ষতাবৃদ্ধিমূলক অনুষ্ঠানগুলোতে বলতেন, আমি কখনোই একা লেখক হতে চাইনি। একজন কখনো একটা জাতি বদলে দিতে পারেন না। একটা দলের প্রয়োজন হয়। রাজধানীতে আমি যখন লেখালেখি শুরু করি, তখন তো বাংলায় কথা বলতেও মানা। যারা বাংলায় লিখবে তো দূরের কথা, বাংলায় শুদ্ধ করে কথা বলে, বা সামান্য রোজনামচা লিখে এমন শিক্ষার্থীদের তারা ভর্তি পর্যন্ত করেনি।

হ্যাঁ, একসময় তাকরির ছিলো উর্দুতে, উর্দুতে দেয়ালিকাও এই ঢাকাতেই বের হতো। মানুষগড়ার আন্দোলনীয় সেই ‘লাজনাতুত তালাবার কারণেই মূলত রাজধানীর চিত্র বদলে যায় ধীরে ধীরে। আজকে অনেকে সে কথা ভিন্নভাবে আঁকতে পারে-লাভ নেই। কারণ ইতিহাস বার বার সত্যটাকে টেনে আনে। আনতে বাধ্য।

যখন বেফাকের জন্ম হয়, তখন খুব কম লোকই ছিলেন এমন যারা বাংলায় লিখতে পারতেন, বলতে পারতেন। অন্তত পরিচিতি বা সাধারণ বিষয়গুলোও বাংলায় লিখবার মানুষ খুবই কম ছিলো। আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদদের মতো দুএকজন ছিলেন যারা কলম ধরেছিলেন। এখনো তাদের খেদমতের বাস্তবতা সেসব কাগজপত্রে বিদ্যমান। অস্বীকার করার সুযোগ নেই। বাংলাদেশে অন্তত কওমি অঙ্গনের বরপুত্রদের বলবো, বুকে হাত দিয়ে দেখুন না, আপনার উস্তাদ বা তার উস্তাদ কোনো না কোনোভাবে উপকৃত হয়েছেন আল্লামা মাসঊদ বা এই ঘরানার কোনো বিদ্বানের কাছে থেকে।

shafi

আজকে কওমি মাদরাসা শিক্ষাসনদের স্বীকৃতি নিয়ে জলঘোলা করার চেষ্টা করা হচ্ছে। কোন দিকে হাঁটলে, কোনদিকে তাকালে, কওমির মঙ্গল তা জানা সত্ত্বেও মাজারপূজারীদের ভালোবাসতে পাগল হয়ে ওঠেছে একটা শ্রেণি। কেন? কীসের জন্য? তারা কখন এই কওমি অঙ্গনের ভালো চেয়েছিল।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটা দুর্বলতা আছে এই কওমি অঙ্গনের প্রতি। সেটা জানতেন আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ। কারণ, ইতিহাসটা এই দুচার বছরের নয়। স্বাধীনতার পর রাজধানীর বেশির ভাগ মাদরাসা-মসজিদ যখন বন্ধ ছিলো, তখন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কাছে শাইখুল আরব ওয়াল আজম শাইখুল ইসলাম, আওলাদে রাসূল হযরত সাইয়্যিদ হোসাইন আহমদ মাদানী রহ.-এর একান্ত স্নেহভাজন শিষ্য আল্লামা কাজী মুতাসিম বিল্লাহ রহ.-এর সঙ্গে আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদও গিয়েছিলেন। তারা বলেছিলেন, আমরা তো মুক্তযুদ্ধ করেছি। পাকহানাদারদের বিরুদ্ধে লড়াই করেছি, জিতেছি। মাদরাসাবন্ধ হয়ে থাকবে কেন? মসজিদে আজান হবে না কেন? বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, মসজিদে আজান দিন, মাদরাসার দরজা আপনারা খুলে দিন। আমরা মুসলমান।

হযরত কাজী মুতাসিম বিল্লাহ রহ. এবং তার সহচর আলেমগণ তখন পায়ে হেঁটে হেঁটে আলেমদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাদেরকে ফিরিয়ে নিয়ে আসেন। মসজিদ ও মাদরাসার দরজা খুলে দেন। এই সত্যাসত্য গল্পের পরতে পরতে ছিলেন আল্লামা মাসঊদ। তিনি কখনোই মুরুব্বীদের ছাড়েননি। স্বীকৃতি নিয়ে তার অতি কোনো টান ছিলো না। দেওবন্দে যখন নিজের দেশের ছেলেদের পড়তে পাঠাতে পারছিলেন না, তখন কষ্ট পাচ্ছিলেন। কারণ একজন ব্যক্তিকে, কওমি তরুণকে সবার আগে অসাম্প্রদায়িক হওয়া উচিত। সাম্প্রদায়িক মনোভাবই সমাজে বিশৃঙ্খলা ডেকে আনে। দারুল উলূম দেওবন্দে গেলে একজন শিক্ষার্থী নিজেকে অসাম্প্রদায়িক মনোভবাপন্ন হিসেবে গড়ে তুলতে পারে।


একজন ব্যক্তিকে, কওমি তরুণকে সবার আগে অসাম্প্রদায়িক হওয়া উচিত। সাম্প্রদায়িক মনোভাবই সমাজে বিশৃঙ্খলা ডেকে আনে। দারুল উলূম দেওবন্দে গেলে একজন শিক্ষার্থী নিজেকে অসাম্প্রদায়িক মনোভবাপন্ন হিসেবে গড়ে তুলতে পারে


ভারতের তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আল্লামা মাসঊদকে বলেছিলেন, আপনার দেশের শিক্ষার্থীরা যদি দারুল উলূম দেওবন্দে পড়তে চায়, এ বিষয়ে যদি কোনো চুক্তি হয়, তাতো হবে আপনার দেশের সঙ্গে। আগে তো সরকারি স্বীকৃতির প্রয়োজন। তখন বছরে বছরের নির্ধারিত কোটা হিসেবে তারা পড়তে আসতে পারে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে তো এভাবে পড়তে আসছে। বাংলাদেশ বাদ যাবে কেন?

আল্লামা মাসঊদ কেন অকস্মাৎ কওমি স্বীকৃতি নিয়ে সক্রিয় হয়ে ওঠলেন- এমন প্রশ্ন ছিলো অনেকের মনে। তাকে বাদ দিয়ে করা হোক- সে চেষ্টাও কম হয়নি। পদলোভী প্রবক্তারা জানতেন না, আসলে তিনি এখানে ক্ষমতায়নের জন্য আসেননি। কেবল স্বীকৃতি আদায়ে একটি প্রচেষ্টা কেবল চালাচ্ছিলেন। মাথা ব্যথা শুরু হয়ে গিয়েছিল অনেকের। যারা পদ চান, তারা কেবল পদ পেলেই খুশি। তারা তো কাজ করেন না। এখনকার অনেক রাজনৈতিক দলের দিকে তাকালে সেটা সহজেই বুঝা যায়। পদের জন্য লড়াই করার নিউজই বেশি আমরা পত্রিকায় পড়েছি। আবার নির্বাচন এলেও এদের নড়াচড়া টের পাওয়া যায়।

আল্লামা মাসঊদ ঘরোয়া এক বৈঠকে বলেছিলেন, কওমি শিক্ষাসনদের স্বীকৃতিবিষয়ক কার্যক্রম মহাসড়কে যাত্রা শুরু করলে আমি আস্তে করে কেটে পরবো।

পদ আঁকড়ে ধরে রাখার কোনো খায়েস তার নেই। এরকমই আভাস দিয়েছিলেন তিনি। পরে দেখলামও তা। কিন্তু আমাদের মধ্যে একটা ভয় কাজ করেছিল, আল্লামা মাসঊদ স্বীকৃতি বাস্তবায়নের কাজে সরাসরি যুক্ত না থাকলে এখানে মাজারপূজারী বা জামায়াতের ক্রিড়নক কেউ না গলাতে শুরু করতে পারে! লেবাসধারী লোকদের হাতে ক্ষমতা চলে গেলে যা হবার তা-ই তো হবে।

কওমি মাদরাসা একমাত্র বিশুদ্ধ ইসলাম চর্চার খাঁটিক্ষেত্র। এখানে যদি কোনো কালো তিলক লাগিয়ে দেয়া যায়- তাহলে লেবাসধারীরাই হবে বাংলাদেশের ইসলামরক্ষাকবচ।

সবার আগে আমাদের আলেমসমাজকে বুঝতে হবে- যাকে দিয়ে কওমি অঙ্গনের লাভ হবে, যে আলেম আধুনিক সব বিষয় বুঝেন, দারুল উলূম দেওবন্দের চিন্তাকে যিনি বা যারা লালন করেন তারা বা তাকেই তো নির্বাচন করা উচিত। এখানে মতানৈক্য করার কিছু নেই।

সময়ের এক ফোঁড় অসময়ের দশ ফোঁড়। সময়ে ভুল করলে সারা জীবন টেনশনেই কাটাতে হবে এ জাতিকে। ভুলের এই প্যারা আজীবন বয়ে চলবে এ জাতি। আল্লাহ আমাদের সঠিক সমঝ দান করুন। আমীন।

–শীলনবাংলা

এই সংবাদটি 1,016 বার পড়া হয়েছে