রবিবার, ০৭ জানু ২০১৮ ০৩:০১ ঘণ্টা

বাংলায় হযরত নূর কুতুব আলম (র) এর ইসলাম প্রচার

Share Button

বাংলায় হযরত নূর কুতুব আলম (র) এর ইসলাম প্রচার

 
মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী :: বাংলাদেশে ইসলামের আগমন হয়েছে খোদ হযরত রাসূলে করীম সাল্লাল্লাহুআলাইহে ওয়া সাল্লামের জীবৎকালেই। সাম্প্রতিককালীন ইসলামি চিন্তাবিদগণ গবেষণা করেছেন যে, মহানবী (সা) এর যুগেই ইসলামের আগমন ঘটে। (অধ্যাপক মুফাখখারুল ইসলাম, অধ্যাপক আব্দুল গফুর, মাওলানা মুহিউদ্দীন খান প্রমূখ।) এমনকি হিজরতের পূর্বেই ইসলামের আগমন ঘটেছে বলে কেউ কেউ অনুমান ব্যক্ত করেছেন । (মাওলানা মুহিউদ্দীন খান, বাংলাদেশে ইসলাম : কয়েকটি তথ্য সূত্র)
 প্রখ্যাত সাহাবী হযরত আবূ ওয়াক্কাসের (রা)এর  নেতৃত্বে ক’জন সাহাবী বাদশা নাজ্জাসীর দেয়া জাহাজে মহানবী স. এর হিজরতের পূর্বেই চীনের পথে রওয়ানা হয়েছিলেন। হযরত আবু ওয়াক্কাসের রা. মাজার এখনো চীনের ক্যপ্টন বন্দরের নিকট তাঁরই প্রতিষ্ঠিত কোয়াংটা মসজিদের অদূরে অবস্থিত। এ ধরণের যাত্রাকালে যে বাংলাদেশের সাথে ও সে যুগের ইসলাম প্রচারক ও ব্যবসায়ীদের যোগাযোগ ঘটেছিল, তা সহজেই অনুমেয়।  অত:পর খোলাফায়ে রাশেদীন বিশেষকরে, হযরত ওমর রা. এর আমলে কয়েকটি ইসলাম প্রচারক জামা‘আত এদেশে এসেছিলেন। তৎকালীন সময়ে বাংলাদেশে বৌদ্ধ ও হিন্দু অস্পৃশ্য গোষ্ঠীর উপর ব্রাক্ষ্মণ্যবাদীদের অকত্য নির্যাতনের স্ট্রীম রোলার চলছিল। সে সময়েই ইসলাম প্রচারকগণ ইসলামের মানবতা, সাম্য ও ভ্রাতৃত্বের বাণী প্রচার করেছিলেন। আর অত্র এলাকার জনগণ আকৃষ্ট হয়ে ইসলামী দা‘ওয়াত কবুল করেছিল। বাংলাদেশীয় উপকূলীয় অঞ্চল হিসেবে সর্ব প্রথম চট্রগ্রামে ইসলামের আগমন ও বিস্তার ঘটে। অত:পর নদী মাতৃক বাংলাদেশ এর বিভিন্ন অঞ্চলে নৌ-পথে ইসলামের দা‘ঈগণ বাংলার আনাচে কানাচে সহজেই প্রবেশ করে এবং ইসলামী দাওয়াতী কাজ করে। কোন কোন ইতিহাসবিদের মতে চট্রগ্রাম উপকূলীয় অঞ্চলে প্রচুর সংখ্যক আরব এসে বসতি স্থাপন করে। এসব আরব জনগোষ্ঠীর বংশধররা চট্রগ্রাম, নোয়াখালীর উপকূলীয় অঞ্চলে ছড়িয়ে যায়। এজন্য তাদের ভাষায় আরবী শব্দে প্রভাব প্রচুর। এমনকি মেঘনা, গঙ্গা, ব্রক্ষ্মপুত্র , ইত্যাদি বড় বড় নদী ও সে সবের বিভিন্ন শাখা প্রশাখা গড়ে উঠা শহর বন্দর ও বাজারে ছড়িয়ে যায়। সেসব শহর বন্দরের কিছু কিছু নাম আরবদের প্রভাব বলে ঐতিহাসিকগণ অনুমান করছেন। যেমন: চিটগাঙ্গ বা শাতিগভ বা গহায় অববাহিকা। ময়মনসিংহের কাছে ব্রক্ষ্মপুত্র নদীর তীরে তোক বন্দর। তোক অর্থ গলার হার। যেহেতু নদীটি গলার হারের মত বাঁক দিয়ে যেখানে প্রবাহিত হয়েছে সেই বাকে গড়ে উঠ বন্দরটির নামকরণ করা হয় তোক। এমনিভাবে ইয়ামিন আরবদের সাবা জাীয়ন নাম অনুসারে ঢাকায় প্রাচীন নদী বন্দর সাভারের নামকরণ করা হয়েছে বলে কোন কোন গবেষকগণ মন্তব্য করেছেন। উপরোক্ত আলোচনায় বলা যায় আরব মুসলিমগণ শুধু চট্রগ্রাম অঞ্চলে সীমাবদ্ধ থাকেননি নদী পথে বাংলার অভ্যন্তরে ও প্রবেশ করেছেন। লালমনির হাট জেলায় একটি প্রাচীন মসজিদের সন্ধান পাওয়া গিয়াছে যার উৎস্কীর্ণ লিপিতে ৬৯ হিজরীতে এটি নির্মিত বলে উল্লেখ করা হয়। এর দ্বারা বুঝা যায় উমাইয়া আমলে নির্মিত এটি প্রাচীন মসজিদ। রাজশাহী অঞ্চলে প্রাচীন সভ্যতা অন্যতম নিদর্শন ক্ষেত্র পাহাড়পুরে খনন কাজে আব্বাসীয় আমলের তথা খলীফা হারুনুর রশীদের আমলের দু’টি স্বর্ণ মুদ্রা উদ্ধার করা হয়। ড. এনামুল হকের মতে : এই মদ্রাগুলি সম্ভবত : কোন ইসলাম প্রচারক বহন করছিলেন। তিনি পাহাড়পুরে আসার পর স্থানীয় বৌদ্ধদের হাতে নিহত হন এবং তারা সে মুদ্রাগুলি ছিনিয়ে নিয়ে যায়। যেভাবেই হোক এ মুদ্রাগুলি পাহাড়পুরে আসার সূত্র ধরে আমরা বলতে পারি সেযুগে কোন আরব মুসলিম বণিক বা ইসলাম প্রচারক সেখানে আগমন করেছিলেন যার মাধ্যমে ইসলামের বার্তা পৌঁছেছিল।
এমনিভাবে পরবর্তীতে হযরত শাহ্ সুলতান কমরুদ্দীন রুমী (তার আগমন ৪৪৫ হি.) প্রথমে চট্রগ্রামে আগমন করেন। অত:পর মেঘনা ও ব্রক্ষ্মপুত্র হয়ে বর্তমান নেত্রকোণার জেলার মদনপুরে কৈাচরাজার রাজ্যে ইসলাম প্রচার করেন। তিনিও তার সাথীদের মাধ্যমে প্রাচীন কামরুপ রাজ্য বর্তমানে আসামেও ইসলাম প্রচারিত হয়।  তবে এখানে বিশেষ ভাবে গবেষণার বিষয় যে, সামরিক ব্যবস্থাপনায় বাংলায় সর্বপ্রথম বিশাল বাহিনী নিয়ে ইসলাম প্রচার করেন শাহ্ সুলতান কমরুদ্দীন রুমী (র)। তাদের সমসাময়িক কালে (৪৫০ হি.) শাহ্ মাখদুম রাজশাহীতে ইসলাম প্রচার করেন এবং বলা হয় তিনিই রাজশাহী শহর প্রতিষ্ঠা করেন। এভাবে নৌপথে আরো অসংখ্য ইসলাম প্রচারক বাংলায় আগমন করেন। যেমন ফরীদুদ্দীন শখরগঞ্জ ( মৃ. ১২৬৯ খ্রি.) যার নামে বর্তমানে ফরিদপুর জেলা। শাহ্মাদার , যার নামে মাদারীপুর জেলা।
ইসলামের দ্বিতীয় খলিফা হযরত উমর ফারুক (রা.) এর খিলাফতকালের মধ্যভাগে অর্থাৎ ৬৪০ খৃস্টাব্দের দিকে আরব্য বণিকদের দ্বারা এর পূর্বেই ইসলামের খবর বাংলাদেশে এসে পৌঁছে। ইসলামে দলে দলে মানুষ দাখিল হন। বাংলাদেশে ইসলাম প্রচারে সুফিয়ায়ে কেরামের অবদান অবিস্মরণীয় হয়ে রয়েছে। সুফিগণ এদেশের মানুষকে মানবিক মূল্যবোধে উদ্ভাসিত করেন। ৪৪৫ হিজরি সনে বাংলায় প্রথম সুফি সামরিক অভিযাত্রী হলেন শাহ সুলতান কমর উদ্দীন রুমী। ১২০১ খৃস্টাব্দে ইখতিয়ারুদ্দীন মুহম্মদ বিন বখতিয়ার খিলজীর বাংলা জয়ের মধ্য দিয়ে বাংলার মানুষ সর্বপ্রথম স্বাধীনতার আস্বাদন লাভ করে।

৫৫৬ বছরের মুসলিম সুশাসন এদেশকে সুলতানে বাঙ্গালা বা শাহে বাঙ্গালায় উন্নীত করে এবং বাঙালিয়ান সত্তা দান করে। যখনই বাংলার স্বাধীনতার ওপর হুমকি এসেছে তখনই পীর-মাশায়েখ তা রুখে দিয়েছেন।
বাংলার স্বাধীন সুলতান গিয়াসুদ্দীন আযম শাহের ইন্তেকালের পরে সুলতানের অমাত্য দিনাজপুরের ভাতুড়িয়ার জমিদার কংশনারায়ণ গণেশ বাংলার মসনদ কৌশলে দখল করে নিলে পীরে কামিল হযরত নূর কুতুবুল আলম রহমাতুল্লাহি আলাইহি অত্যাচারী রাজাগণেশকে হটিয়ে দেবার উদ্দেশে জৌনপুরের শাসনকর্তা ইব্্রাহীম শরকীকে পত্র দেন। পত্রে তিনি বলেন : প্রায় তিনশ বছর হয়েছে বাঙ্গালায় ইসলামের শাসন ব্যবস্থা কায়েম হয়েছে। কিন্তু অতিসম্প্রতি এখানে ঈমানকে নিশ্চিহ্ন করে দেয়ার ষড়যন্ত্র মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে, সত্য-সুন্দরের দুশমনদের কালো থাবা এ দেশটাকে আচ্ছন্ন করে ফেলেছে, দেশজুড়ে অন্ধকার নেমে এসেছে, মুসলিমদের জানমাল, ইজ্জত-আব্রæর ওপর মারাত্মক আঘাত এসেছে। ইসলামের যে আলোক-প্রদীপ এখানকার মানুষকে যে সত্য পথের দিশা আসছিল আজ তা হুমকির মুখে। এই মহাদুর্দিনে আপনি কেমন করে নির্বিঘেœ আপনার মসনদে আসীন থাকতে পারেন? আপনি আপনার ওই সুখের মসনদ ছেড়ে উঠে আসুন। দীনকে সংরক্ষণের জন্য আপনি অতিসত্বর এগিয়ে আসুন। আপনার তরবারি কোষবদ্ধ না রেখে কুফরের প্রজ্বলিত অগ্নিশিখা নির্বাপণে আপনি জোর কদমে অগ্রসর হোন। আপনি তো জানেন, বাঙ্গালা হচ্ছে পৃথিবীতে বেহেশত। কিন্তু সেই বেহেশতে এখন দোজখের কালো ছায়া ছেয়ে ফেলেছে। এখানে অত্যাচার, জুলুম, নিপীড়ন আর হত্যাকান্ডের যে কান্ডকারখানা চলছে, তা দমন করতে আপনি আসুন। আরামের মসনদে আর এক পলকও বসে থাকবেন না। সেই দীর্ঘ জ্বালাময়ী পত্র পেয়ে ইব্্রাহীম শরকী কোনোরূপ কালক্ষেপণ না করে বিরাট বাহিনী নিয়ে বাঙ্গালার বিপন্ন স্বাধীনতাকে বিপন্ন অবস্থা থেকে উদ্ধার করার জন্য এগিয়ে এলেন। এ খবর শুনে সমূহ বিপদের আশঙ্কা করে জানে মরার ভয়ে কংশনারায়ণ গণেশ হযরত নূর কুত্বুল আলম রহমাতুল্লাহি আলাইহির দরবারে এসে ক্ষমা চাইলেন এবং তার পুত্র যদুকে মুসলিম করে নেওয়ার অনুরোধ করলেন। হযরত নূর কুতুবুল আলম (রহ.) যদুকে ইসলামে বায়’আত করলেন এবং নাম রাখলেন জালালুদ্দীন মুহম্মদ শাহ্। এ খবর পেয়ে তার বিশাল বাহিনী নিয়ে ইব্্রাহিম শরকী জৌনপুরে ফিরে গেলেন। বাংলদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসে হযরত নূর কুতুবুল আলম (রহ)-এর নাম অনন্য উজ্জ্বল্যে বিদ্যমান রয়েছে। হযরত নূর কুতুব আলম  ছিলেন মধ্যযুগে বাংলার একজন দরবেশ। পান্ডুয়ার পীর আউলিয়াদের মধ্যে তিনি সবচেয়ে বেশি মর্যাদার অধিকারী ছিলেন। তার পিতা শেখ আলাউল হকও একজন পীর ছিলেন। পিতার মত নূর কুতুব আলম ছিলেন চিশতিয়া তরিকার পীর।
নূর কুতুব আলম রাজা গণেশ এর নিপীড়ন থেকে বাংলার মুসলমান জনগণকে রক্ষাকারী ব্যক্তিত্ব। তিনি শেখ আলাউল হকের পুত্র ও প্রধান শিষ্য এবং লাহোরের শেখ আসাদের পৌত্র। তিনি পান্ডুয়ার পীর আউলিয়াদের মধ্যে শীর্ষ মর্যাদার অধিকারী হন। পিতা-পুত্র দুজনই পান্ডুয়ার বিখ্যাত শাশ হাজারী দরগায় (যে দরগায় ছয় হাজার টাকার সম্পত্তি দান করা আছে) শায়িত আছেন। পিতার ন্যায় তিনি চিশতিয়া মতাদর্শের পীর ছিলেন। তাঁর অনুসারী শিষ্যকুল ও দরবেশগণ কয়েক শতক ধরে বাংলায় মুসলিম সমাজজীবনে তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। শেখ আলাউল হক সুলতান শামসুদ্দীন ইলিয়াস শাহ ও তদীয় পুত্র সিকান্দর শাহ এর সমসাময়িক ছিলেন, আর নূর কুতুব আলম ছিলেন গিয়াসউদ্দীন আজম শাহ এর সতীর্থ ও সমসাময়িক। বাংলার মুসলিম রাজ্যকে এক ভয়াবহ ধ্বংসলীলা থেকে রক্ষা করার জন্য শেখ নূর কুতব আলম তাঁর পিতার চেয়েও বেশি প্রসিদ্ধি লাভ করেন। যখন রাজা গণেশ পান্ডুয়ায় ক্ষমতা দখল করে শেখ, উলেমাসহ মুসলমান জনগণের উপর নির্বিচারে অত্যাচার শুরু করেন, তখন তিনি হস্তক্ষেপ করার সিদ্ধান্ত নেন। তিনি জৌনপুরের সুলতান ইবরাহিম শর্কিকে বাংলার মুসলমানদের সহায়তায় এগিয়ে আসার অনুরোধ জানিয়ে পত্র দেন। ইবরাহিম শর্কিকে অনুরূপ আহবান জানানোর জন্য তিনি মীর সৈয়দ আশরাফ জাহাঙ্গীর সিমনানিকেও অপর একটি পত্রে অনুরোধ জানান। উভয়ের আহবানে সাড়া দিয়ে সুলতান ইবরাহিম বিরাট বাহিনী নিয়ে বাংলা অভিমুখে যাত্রা করেন। এতে গণেশ ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে শেখ নূরের নিকট আত্মসমর্পণ করেন এবং দরবেশের নিকট প্রার্থনা করেন যাতে তিনি সুলতান ইবরাহিমকে ফিরে যাওয়ার জন্য অনুরোধ জানান। নূর কুতুব আলম এতে সম্মত হন নি, বরং পূর্বশর্ত হিসেবে তিনি রাজা গণেশকে মুসলমান হতে আদেশ দেন, কেননা কোন অমুসলমানের পক্ষ নিয়ে একজন মুসলিম নৃপতিকে অনুরোধ জানাতে তিনি অপারগ বলে জানান। গণেশ তাতে সম্মত হন কিন্তু বিস্তারিত শুনে তাঁর রানী এতে বাধা দেন। গণেশ তখন তাঁর ১২ বছরের ছেলে যদুকে নিয়ে শেখের নিকট আসেন। যদুকে ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত করে জালালুদ্দীন নাম দেওয়া হয় এবং গণেশ তাঁর পক্ষে সিংহাসন ত্যাগ করেন।

শেখের মৃত্যুর পর গণেশ অবশ্য যদুকে হিন্দু ধর্মে পুনরায় দীক্ষিত করে নিজে সিংহাসনে অধিষ্ঠিত হন। কিন্তু শীঘ্রই গণেশের মৃত্যু হলে যদু জালালুদ্দীন মুহাম্মদ শাহ উপাধি নিয়ে সিংহাসনে আরোহণ করেন।

বিনয় আয়ত্ত করার উদ্দেশ্য নিয়ে নূর কুতুব আলম তাঁর পিতার আমল থেকে সব ধরনের কায়িক শ্রম অভ্যাস করতেন। দরগায় আগত ফকিরদের কাপড় ধোয়া, লাকড়ি ও পানি বহন, শীতকালে মুরশীদের অজু করার জন্য সর্বদা পানি গরম রাখা, এমন কি খানকাহ সংলগ্ন শৌচাগার পরিষ্কার করা প্রভৃতি কাজে তিনি নিজেকে নিয়োজিত রাখতেন। তিনি তাঁর দুই পুত্র শেখ রাফকাতউদ্দীন এবং শেখ আনোয়ারকে আধ্যাত্মিক শিক্ষা দেন। পূর্বোক্ত জনের ছেলে শেখ জাহিদ পিতামহের মৃত্যুর পর দরবেশ হিসেবে বেশ খ্যাতি অর্জন করেন। খুব সম্ভবত পিতার জীবদ্দশায় শেখ আনোয়ার রাজা গণেশের হাতে সোনারগাঁওয়ে শহীদ হন। শেখ নূর কুতুব আলমের অন্য আর একজন প্রধান মুরিদ ছিলেন শেখ হুসামুদ্দীন মানিকপুরী।

শেখ নূর কুতুব আলমের দরগাহ সংলগ্ন সরাইখানা ও মাদ্রাসার ব্যয় নির্বাহের জন্য সুলতান আলাউদ্দীন হোসেন শাহ অনেক গ্রাম দান করেন। দরবেশের মাজার জিয়ারতের জন্য সুলতান বছরে একবার রাজধানী শহর একডালা হতে পান্ডুয়ায় আসতেন। শেখ নূর কুতুব আলমের মৃত্যুর তারিখ সঠিকভাবে জানা যায় না, তবে খুব সম্ভব তারিখটি হবে ৮১৮ হিজরি বা ১৪১৫ খ্রিস্টাব্দ ।

এই সংবাদটি 1,565 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com